ঢাকা, বুধবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৮ , ৪ আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

‘যোগ্যতা ও মেধা থাকলে কেউ আটকিয়ে রাখতে পারবেনা’

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮ মঙ্গলবার, ১০:৪৭ এএম
‘যোগ্যতা ও মেধা থাকলে কেউ আটকিয়ে রাখতে পারবেনা’

আমাদের শিক্ষার্থীরা জিপিএ ৫ পাচ্ছে, ভাল ফলাফল করছে কিন্তু সে কি সৎ মানুষ হচ্ছে, সে কি মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী হচ্ছে? লাখো শহিদের রক্তে ভেজা এই মাটি ও মানুষের প্রতি তাঁর যে দায়িত্ব ও কর্তব্য আছে, সে কি সেই দায়িত্ব ও কর্তব্যগুলো ঠিকমত পালন করছে? তাঁরা যদি সেই দায়িত্ববোধ সম্পর্কে সচেতন থাকত, তাহলে আমাদের (সকলেই না) ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার, শিক্ষকদের মধ্যে এত অনৈতিকতা, এত লোভ কেন? 

চলতি মাসেই শুরু হচ্ছে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা। তীব্র প্রতিযোগিতার কারণে কেউ কেউ আবার অবৈধ পন্থা অবলম্বন করে বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তির উপায় খোঁজে। তাই ভর্তিকে কেন্দ্র করে শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও অভিভাবকের মধ্যে নানা সংশয় দেখা দিচ্ছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তিকে কেন্দ্র করে সংশয়, আশঙ্কা ও বাস্তবতার বিষয়ে বাংলা ইনসাইডারকে উপরোক্ত কথাগুলো বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক এবং রোকেয়া হলের প্রভোস্ট ড. জিনাত হুদা অহিদ। তাঁর সাক্ষাতকারটি নিন্মে তুলে ধরা হল বাংলা ইনসাইডারের পাঠকদের জন্যে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি আসন পেতে শিক্ষার্থীরা তীব্র প্রতিযোগিতায় অবতীর্ণ হয়। প্রতিযোগিতার এই বিষয়টিকে সমাজবিজ্ঞানের দৃষ্টিতে আপনি কিভাবে মূল্যায়ন করবেন? 

উচ্চ শিক্ষার দ্বার বিশ্বের অন্যান্য দেশে অনেক সীমিত। তবে বাংলাদেশে উচ্চ শিক্ষা গ্রহণের দ্বার অবারিত। সমাজতাত্ত্বিক ব্যাখ্যানুযায়ী, সামাজিক ভাবে যদি একটি পরিবারকে এগিয়ে নিয়ে যেতে চাই, সেই পরিবারের সন্তানটি যদি উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত না হয়, তবে সেই পরিবারটিকে এগিয়ে নেওয়া সম্ভব নয়। এখানে শিক্ষা হচ্ছে একটি সামাজিক মই, যেটা বেয়ে বেয়ে একটি শিক্ষার্থী এবং সেই সঙ্গে তাঁর পরিবারও এগিয়ে যায়। শিক্ষাই আমাদেরকে অন্ধকার থেকে আলোর দিকে নিয়ে যায়। বৈষম্যহীন সমাজ গড়ে তোলার ক্ষেত্রেও শিক্ষা একটি বড় বিষয়। আবার উচ্চবিত্ত, মধ্যবিত্ত বা সম্পদশালী একটি পরিবারে সন্তানও যদি বিশ্ববিদ্যালয়ের আঙ্গিনা না পেরোয় তাহলে সেই পরিবারটির সামাজিকভাবে মর্যাদা অনুজ্জ্বল হয়ে যায়। এছাড়াও আমাদের দেশে শিক্ষার অবাধ সুযোগ থাকায়, বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হবার জন্যে ধনী-গরীব, ধর্ম-বর্ণ, শহর-গ্রাম সকল অঞ্চলের শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণ করতে দেখা যায়। এইসব কারণেই বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি আসন পেতে এমন তীব্র থেকে তীব্রতর প্রতিযোগিতা বিরাজ করে।

আমাদের আগামী প্রজন্মকে আমরা উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত করার পাশাপাশি কতটা মানবিক চেতনাবোধ ও সামাজিক দায়িত্ববোধ সম্পন্ন মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে পারছি? 

এখানে একটি বিষয় হচ্ছে, বেঁচে থাকার সংগ্রাম, জীবনে প্রতিষ্ঠিত হবার সংগ্রাম, সমাজে সামাজিক মর্যাদা পাবার সংগ্রাম। এজন্য আমাদেরকে উচ্চশিক্ষা গ্রহণ করতে হয়। এটা হচ্ছে কঠিন বাস্তবতা। আরেকটি বিষয় হচ্ছে মানুষের মানবিক গুণাবলি, চেতানাবোধ। এগুলোও শিক্ষার অমূল্য অনুষঙ্গ। একটা সময় আমরা শুনতাম লেখাপড়া করে যে, গাড়িঘোড়া চড়ে সে, এখন কিন্তু এই বিষয়টা আর সত্য না। অনেক শিক্ষিত মানুষের সামাজিক অবস্থানও এখন অনেক নাজুক দেখা যায়। আবার অন্যদিকে লেখাপড়া না করেও, দুর্নীতি, অসততা ও রাজনৈতিক জগতে দুর্বৃত্তায়ন করে অনেক টাকা পয়সা অর্জন করে কেউ কেউ। আমাদের সমাজে তাদেরকেই মানুষ সালাম ঠুকছে। যেগুলোকে আমরা মানবিক গুণ বলি, সততার সঙ্গে চলা, জীবন জগত আলোকিত করা, নিজেকে ভোগবিলাস ও লোভ-লালসা থেকে দূরে রাখা, নিজেকে প্রকৃত মানুষ হিসেবে গড়ে তোলা এগুলোইতো শিক্ষার মুল লক্ষ্য। আমরা বলতে বাধ্য হচ্ছি যে, এই জায়গায় আমরা দিনে দিনে হেলে পরছি, দুর্বল হয়ে পরছি, মানবিক গুণাবলির স্থানগুলো আমরা ধরে রাখতে পারছি না।

আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে প্রকৃত মানুষ গড়ে তোলার জন্য আমাদের করণীয় কি?

আমাদের শিক্ষার্থীরা জিপিএ ৫ পাচ্ছে, ভাল ফলাফল করছে কিন্তু সে কি সৎ মানুষ হচ্ছে, সে কি মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী হচ্ছে? লাখো শহিদের রক্তে ভেজা এই মাটি ও মানুষের প্রতি তাঁর যে দায়িত্ব ও কর্তব্য আছে, সে কি সেই দায়িত্ব ও কর্তব্যগুলো ঠিকমত পালন করছে? তাঁরা যদি সেই দায়িত্ববোধ সম্পর্কে সচেতন থাকত, তাহলে আমাদের (সকলেই না) ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার, শিক্ষকদের মধ্যে এত অনৈতিকতা, এত লোভ কেন? দেশপ্রেমের চেতনা, ভালো মানুষ হওয়ার শিক্ষা, সমাজকে ভালবাসার শিক্ষা, সবার সঙ্গে সহযোগিতা মূলক আচরণের শিক্ষা, প্রাথমিক শিক্ষার কারিকুলামেই থাকা প্রয়োজন। কিন্তু প্রাথমিক পর্যায়ের শিক্ষায় এই বিষয়গুলো এখন একেবারেই অনুপস্থিত। ছোট বেলা থেকেই শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ও পরিবারের এই বিষয়গুলোর প্রতি জোড় দেওয়া উচিৎ।  

অনেক অভিভাবক তাদের সন্তানদেরকে ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার, ব্যরিষ্টার হওয়ার জন্য বাড়তি চাপ দেয়। এই বিষয়ে আপনার মতামত কি?  

অভিভাবকদের নিকট আমার অনুরোধ যে, আপনারা আপনাদের সন্তানকে জানুন, তাদের ইচ্ছাকে গুরুত্ব দিন। বাচ্চাদের মনস্তত্ত্বে হিমালয় পর্বতের মত বোঝা মাখিয়ে দিয়েন না। আমাদের সমাজে ডাক্তার, ইঞ্জিনিয়ার, ব্যারিস্টারের যেমন প্রয়োজন আছে, তেমনি আমাদের খেলোয়াড়, সাংস্কৃতিক কর্মী বা অন্যান্য সেক্টরের লোকও প্রয়োজন আছে। ডাক্তার-ইঞ্জিনিয়ার না হলে যে মানসম্মান থাকবে না বিষয়টা এমন না। প্রতিটি শিশুর মধ্যে ভিন্ন ভিন্ন প্রতিভা আছে, তাঁর সেই প্রতিভাকে বিকশিত হওয়ার সুযোগ করে দিন। তাদেরকে ভাল মানুষ হিসেবে গড়ে তোলার দিকে নজর দিন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি ইচ্ছুক ছাত্রছাত্রীদের প্রতি আপনার পরামর্শ বা উপদেশ কি?

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে সুযোগ না পেলে, বা অন্য কোন স্থানে ভর্তি হতে না পারলে, হতাশ হওয়ার কিছু নাই। বর্তমান সরকার দেশের বিভিন্ন স্থানে অনেক বিশ্ববিদ্যালয় গড়ে দিয়েছেন, এগুলোতেও ভালো মানের লেখাপড়ার সুযোগ আছে। সুতরাং কোন একটি নির্দিষ্ট বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হতে না পারলে হেরে যাওয়ার কিছু নাই, সবকিছু হারিয়ে ফেলারও কোনো কারণ নাই। কারোও মধ্যে যদি কোন যোগ্যতা, একাগ্রতা, নিষ্ঠা বা মেধা থাকে, সে যেখানেই থাকুক, যে বিশ্ববিদ্যালয়েই পড়ুক না কেন, সে সামনের দিকে এগিয়ে যাবেই আজ অথবা কাল। তাঁকে কেউ আটকিয়ে রাখতে পারবে না।


বাংলা ইনসাইডার/আরকে/জেডএ