ঢাকা, শুক্রবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮ , ৬ আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

ব্যানার ফেস্টুনেই বঙ্গবন্ধু, হৃদয়ে কতটুকু?

সাকিব রহমান
প্রকাশিত: ১৫ আগস্ট ২০১৮ বুধবার, ১০:০১ পিএম
ব্যানার ফেস্টুনেই বঙ্গবন্ধু, হৃদয়ে কতটুকু?

আজ ১৫ আগস্ট। দেশব্যাপী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মৃত্যুদিন পালিত হলো ঘটা করে। ব্যানার, ফেস্টুন, পোস্টারে পোস্টারে ছেয়ে ছিল রাজধানীসহ সারাদেশের রাস্তাঘাট দেয়ালের পর দেয়াল। সেখানে হাস্যোজ্জ্বল নেতা-উপনেতাদের পদ-পদবী সম্বলিত বড় বড় ব্যানারের ছবির এক কোণায় বিমর্ষ ম্লান মুখের শেখ মুজিবকে দেখলে যেকোনো মুজিব ভক্তের মনই মোচড় দিয়ে উঠবে। সেই শোকটা কতটা নিজেকে প্রদর্শনের তা নিয়ে প্রশ্ন জাগতেই পারে। দুই মেয়াদে সরকার ক্ষমতায়। আওয়ামী লীগের ভিতরে শেখ মুজিবের আমলের খন্দকার মোশতাকের মতো বিশ্বাসঘাতকের সংখ্যাটা এই আমলেও যে কম নয় তা সহজেই অনুমেয়।

অবাক বিস্ময়ে  ব্যানার পোস্টারের দিকে তাকাই আর বারবার ভাবি, খন্দকার মোশতাকও একসময় আওয়ামী লীগ নেতা ছিল। বঙ্গবন্ধুর বাবার মৃত্যুতে সেই মোশতাকের কান্না দেখে স্বয়ং বঙ্গবন্ধুও স্তম্ভিত হয়ে গিয়েছিলেন। কবর খুঁড়েও যাকে মারার সাহস পায়নি পাকিস্তানি হানাদার বাহিনী সেই বঙ্গবন্ধুকে শরীরে, বুকে ও পিঠে ১৮ টা গুলি করে হত্যাকারীরা। মৃত্যু নিশ্চিত করতে বঙ্গবন্ধুর দুই পায়ের গোড়ালির রগ কেটে দেয়। শুধু বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করেই ক্ষান্ত হয়না, গোটা পরিবারকেই নৃশংসভাবে হত্যা করে। শিশু শেখ রাসেলকে হত্যা করে দুই সেনা কর্মকর্তার কথোপকথনের মাঝে যখন মেজর হুদা বলে ওঠে ‘অল আর ফিনিশড’ তখনই শেষ হয়ে যায় বাংলাদেশের স্বপ্ন। ক্ষমতার পালাবদলে কৃতঘ্ন শকুনের দল হিংস্র থাবা বসায়। সেই বন্দীদশা থেকে মুক্তি পেতে বাংলাদেশ নামক রাষ্ট্রের সময় লাগে দীর্ঘ ২১ বছর।

দুঃখজনক হলেও সত্যি, বঙ্গবন্ধুর মন্ত্রিসভার ২১ জন সদস্য খন্দকার মোশতাকের মন্ত্রিসভায় শপথগ্রহণ করেছিলেন। বঙ্গবন্ধু সরকারের আইনমন্ত্রী ছিলেন মনোরঞ্জন ধর। বঙ্গবন্ধু তাঁকে সম্মান করে দাদা বাবু বলে ডাকতেন। মনোরঞ্জন ধরকে মন্ত্রী হতে অনুরোধ করে বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন, ‘দাদা আপনার কথার উপরে জীবনে কোনো কথা বলিনি, আপনি যা বলবেন, যা করবেন সেটাতেই আমি রাজি।‘ এই দাদা বাবু ১৫ই আগস্টের পর মোশতাকের আইনমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেন। এই মনোরঞ্জন ধর ছিলেন কুখ্যাত ইনডেমনিটি নামক অধ্যাদেশের রচয়িতা। শেখ মুজিবসহ বাংলাদেশের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করেছিলেন এরকম অনেকেই।

বিদেশে থাকায় বঙ্গবন্ধুর দুই কন্যা শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা প্রাণে বেঁচে গিয়েছিলেন ঠিকই  কিন্তু পরিবারের সকলকে হারানোর বেদনা, ক্ষমতার পালাবদলে কাছের মানুষগুলির রঙ পালটানো দেখা আর সেই হত্যাকাণ্ডের বিচার চাইতে দেশে আসতে না পারায় মানসিক মৃত্যু হয়েছিল তাঁদের সেদিনই। বঙ্গবন্ধুর কন্যাদেরও হত্যার কম ষড়যন্ত্র করেনি ঘাতকের দল। বঙ্গবন্ধুর বড় কন্যা শেখ হাসিনাকে বিদেশে হত্যার চেষ্টা করা হয়, দেশে এসে বাবা,মা, ভাই, ভাবী সহ ছোট রাসেলের মুখটাও শেষ বারের মতন দেখতে দেওয়া হয় নি। দেশে ফিরে আসাতেও নানা বাধা বিপত্তি। শত প্রতিকূলতা পাড়ি দিয়ে দেশে ফেরার পর ২১ বার তাঁকে হত্যাচেষ্টা করা হয় শেখ হাসিনাকে। এতবার মৃত্যু মুখ থেকে ফিরে এসেও হাল ছাড়েন নি শেখ হাসিনা। বরং আরও দৃঢ় সংকল্প নিয়ে বলেছেন, ‘প্রাণ গেলে যাক তাও দেশের জন্যে কিছু করে যেতে চাই।‘

কোনো রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞ নয়, দেশের যেকোনো সাধারণ মানুষই ভাবতে পারেন পরিবারের সকল সদস্যকে হারানোর পর, নিজের উপর এত এত হত্যাচেষ্টার পর একজন মানুষ কীভাবে দেশে থাকার কথা ভাবতে পারেন। কীভাবে পারেন দেশের উন্নয়ন নিয়ে সারাদিন-রাত ভাবতে, উন্নয়নের জন্য ভাবতে। নামটি শেখ হাসিনা এবং বঙ্গবন্ধু কন্যা বলেই হয়তো সম্ভব।

জাতির পিতার অসমাপ্ত কাজগুলো সম্পূর্ণ করার জন্য নিরলস পরিশ্রম করে যাচ্ছেন তাঁর কন্যা। ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার প্রত্যয়ে অনেকটা পথ এগিয়ে গিয়েছেন। রক্ত কথা বলে।

অথচ, হতাশ হতে হয় অনেক নেতাকর্মীর কর্মকাণ্ডে। শোক প্রদর্শনের নামে আওয়ামী লীগের অনেক নেতা-কর্মী, এমপি,মন্ত্রী, অমুক ভাই, তমুক ভাই পদ পদবী প্রদর্শনে ব্যস্ত। ব্যানার, ফেস্টুন, পোস্টার থেকে বিরিয়ানির প্যাকেটে চলে এসেছে ‘ভাইদের” হাস্যোজ্জল ছবির সঙ্গে বঙ্গবন্ধুর ছবি। কোনো আন্দোলন সংগ্রামে নিজেকে যুক্ত না করে পদ পদবীর জন্য নিজেকে জাহির করার জন্য রেসের ঘোড়ার মত ছুটছেন একেকজন। এরা যে শেখ হাসিনার আমলের মোশতাক হয়ে মাথাচাড়া দিয়ে উঠবে না সেই গ্যারান্টিই বা কি।

বঙ্গবন্ধুর আদর্শ কতটা ধারণ করেন তাঁরা? বঙ্গবন্ধুর মেধা, শ্রম, আত্মত্যাগ, রাজনৈতিক প্রজ্ঞা, দেশ স্বাধীনে অবদানসহ বিভিন্ন বিষয় আগামী প্রজন্ম থেকে শুরু করে দেশ ও জনগণের মাঝে ছড়িয়ে দিতে নিজের কতটুকু সময় তাঁরা ব্যয় করেন? সর্বোপরি ব্যানার সর্বস্ব ‘নেতাদের’ হৃদয়ে বঙ্গবন্ধুর আদর্শ কতটুকু? আর যদি সেসব না’ই থাকে তাহলে কি অধিকার আছে ব্যানারে, পোস্টারে বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে শোক প্রকাশের?

বাংলা ইনসাইডার/এসআর/জেডএ