ঢাকা, বুধবার, ১৯ মে ২০২১, ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

গ্রামের সরলতা ও আমাদের স্থাপত্যের রূপরেখা

সজল চৌধুরী
প্রকাশিত: ০৯ নভেম্বর ২০১৮ শুক্রবার, ০৮:০৪ এএম
গ্রামের সরলতা ও আমাদের স্থাপত্যের রূপরেখা

একটি স্বপ্নের গ্রাম কেমন হতে পারে? কি কি বিশেষ সুবিধা থাকতে পারে সেই গ্রামগুলোতে। বাংলাদেশে আদৌ কি এখন পর্যন্ত সেই রকম একটি মডেল গ্রামের কথা জানতে পারা গেছে যেখান থেকে আমাদের ভবিষ্যৎ গ্রামগুলো বিশেষ কিছু শিখবে! কিংবা বর্তমান কান্নারত গ্রামগুলো আবার উঠে দাঁড়াবার শিক্ষা নেবে। কথাগুলো এ কারণেই বলছি কারণ গ্রাম বলতে আমাদের চোখের সামনে সবুজের যে বিশাল চত্বর ভেসে ওঠে, বিশাল জলরাশির মধ্যে আলোর ঝলকানি চোখে এসে খেলা করে তার তো আর কিছুই বাকি নেই আজ। সবথেকে ভয়ের ব্যাপার হলো, গ্রামগুলোর সবুজের মধ্যে হঠাৎ মাথা গজিয়ে ওঠে দৈত্যসুলভ ইট-লোহার কোন রূপ স্থাপত্য ভূমিকা ছাড়াই অপরিকল্পিত স্থাপনা। যা সত্যই গ্রামের পরিবেশের সাথে একেবারেই বেমানান। এপ্রসঙ্গে গ্রাম নিয়ে আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার “শেখ মুজিব আমার পিতা” গ্রন্থের ‘স্মৃতির দক্ষিণ দুয়ার’ অনুচ্ছেদের কিছু উদ্ধৃতি হুবহু তুলে ধরার চেষ্টা করছি। কারণ এই কথাগুলো থেকেই আমরা পেতে পারি আমাদের সেই চিরচেনা গ্রামের প্রতিচ্ছবি। “গোপালগঞ্জ জেলার টুঙ্গিপাড়া গ্রামখানি একসময় মধুমতী নদীর তীরে ছিল। বর্তমানে মধুমতী বেশ দূরে সরে গেছে। তারই শাখা হিসেবে পরিচিত বাইগার নদী এখন টুঙ্গিপাড়া গ্রামের পাশ দিয়ে কুল কুল ছন্দে টেউ তুলে বয়ে চলেছে। রোদ ছড়ালে বা জ্যোৎস্না ঝরলে নদীর পানি রুপোর মতো ঝিকমিক করে।” এভাবেই তিনি বর্ণনা দিয়েছেন গ্রামের বয়ে যাওয়া সেই চিরচেনা নদীটির কথা। আর এই নদীগুলো দিন দিন তাদের সেই বয়ে যাওয়ার ক্ষমতা হারাচ্ছে আমাদের যথেচ্ছা ব্যবহারের কারণে। অপরিকল্পিত ভাবে গ্রামে পড়ে থাকা ফাকা সবুজ মাঠগুলো বেদখল হয়ে যাচ্ছে প্রতিনিয়ত। রীতিমতো রাতের অন্ধকারে গ্রামগুলো উদ্দেশ্যহীন ভাবে বেড়ে উঠছে পরিকল্পনাহীন শহরের আদলে। যার ভবিষ্যৎ অত্যন্ত ভয়াবহ। কারণ শহরের বিষাক্ত পরিবেশ থেমে আজও আমরা গ্রামে ফিরি নির্ভেজাল সবুজের খোজে, আর এই গ্রামগুলোর প্রকৃতি শেষ হয়ে গেলে আমাদের আর কোথাও যাবার জায়গা রইলো না।

সাধারণত গ্রামীণ স্থাপত্যের একটি বিশেষ রূপরেখা থাকা প্রয়োজন। গ্রাম ভেদে সেই রূপরেখার ভিন্নতা থাকতে পারে। আর সেই স্থাপত্যের পরিকল্পনার মধ্যে থাকবে সহজ সাধারণ মানুষদের প্রতিদিনকার হাসি আনন্দ আর কান্না ভালোবাসার গল্প। অথচ আমরা প্রতিনিয়ত সেই সাধারণ গল্পের মধ্যে ঢেলে দিচ্ছি শহুরে বিদেশী গল্প, যা আমাদের কাছে খুবই অচেনা, অকল্পনীয়। হয়তো দিন শেষে গ্রামের খালি সবুজ চত্বরে অনেক সুন্দর কিছু তৈরি করে বাহবা নিচ্ছি সাময়িক প্রাপ্তির আশায় কিন্তু একবারও ভাবছি না আসলে সোঁদা গন্ধযুক্ত গ্রামের নির্ভেজাল মাটি গুলো সত্যিই কি চায়? তিনি আরও লিখেছেন “আমার শৈশবের স্বপ্ন-রঙিন দিনগুলো কেটেছে গ্রাম বাংলার নরম পলিমাটিতে, বর্ষার কাদা-পানিতে, শীতের মিষ্টি রোদ্দুরে, ঘাসফুল আর পাতায় পাতায় শিশিরের ঘ্রাণ নিয়ে, জোনাক জ্বলা অন্ধকারে ঝিঝির ডাক শুনে, তাল-তমালের ঝোপে বৈচি, দিঘির শাপলা আর শিউলি বকুল কুড়িয়ে মালা গেঁথে, ধুলো-মাটি মেখে, বর্ষায় ভিজে খেলা করে।” আমি হলফ করে বলতে পারি আজকের দিনে শহরে বেড়ে ওঠা শিশুরা এর কিছুই দেখেনি। শীতের সকালে মাটিতে পড়ে থাকা শিউলি ফুল কুড়ানোর যে আবহ, ধুলো মাটিতে লুটোপুটি খেলার যে মজা, ভোর বেলা ঘুম থেকে উঠে নদীর ধারে সমবয়সীদের সাথে খেলতে যাওয়ার যে বাধাহীন আনন্দ, তার কোন কিছুই যে আর আজকাল দেখা হয় না, খোজা হয় না। যান্ত্রিক জীবনে সকাল থেকেই তো দৌড়ানো। শুধু পাবার নেশায়। মনে পড়ে, যখন ছোট ছিলাম চার কি পাঁচ বছর বয়স, আমাদের ছিল মাত্র একটি ঘর। সবাই মিলে থাকতাম। টিনের চালের উপর বৃষ্টি পড়ার শব্দে মা-বাবার পাশে শুয়ে পরম নিশ্চিন্তে ঘুমাতাম। পাখির ডাকে সকালে ঘুম ভাঙতো। বারান্দায় যেখানে প্রথম সূর্যের আলো এসে পড়ে ভাইরের সাথে পড়তে বসতাম। মা সামনে এনে দিত গুড়-মুড়ি। আজ কেন জানি ইটের পাকা দেয়ালের শক্ত ছাদের ঘরের নিচে শুয়েও আগের মতো সেই ঘুম আসে না। হাজারো বিল্ডিং এর ভিড়ে সকালের সেই সূর্য আমার বারান্দায় আসে না। বাবার লাগানো সামনের উঠোনে স্থলপদ্ম গাছটিতে ছেলেবেলার দিনগুলোতে রোজ রাতে ছোট্ট একটি টুনটুনি চুপচাপ ঘুমাতো, কখনও কখনও ওদের গায়ে হাত বুলিয়ে দিলেও ওরা পালিয়ে যেত না। অথচ আজ আর সেই টুনটুনির দেখা নেই, স্থলপদ্মরাও হারিয়ে গেছে। সময়ের সাথে পাল্লা দিয়ে সেখানে বেড়ে উঠছে নতুন কোন শক্ত অভেদ্য দেয়াল, যে দেয়ালের ওপর পাশ আর দেখা যায় না। আর এভাবেই আমরা আমাদের প্রয়োজনেই সহজ গ্রামগুলোকে দিন দিন করে তুলছি অচেনা আরও দুর্ভেদ্য। গ্রাম্য স্থাপত্যের রূপরেখা তাইতো এখন সময়ের দাবি, নতুন প্রজন্মের ছেলেবেলার জন্য।

লেখক: শিক্ষক ও পরিবেশ বিষয়ক স্থাপত্য গবেষক

স্থাপত্য বিভাগ, চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, চট্টগ্রাম।

বাংলা ইনসাইডার/জেডএ