ঢাকা, মঙ্গলবার, ২২ জানুয়ারি ২০১৯, ৯ মাঘ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

তারেক জিয়ার স্বপ্নের জাল বোনা

সায়েদুল আরেফিন  
প্রকাশিত: ১৯ ডিসেম্বর ২০১৮ বুধবার, ০৬:০৬ পিএম
তারেক জিয়ার স্বপ্নের জাল বোনা

জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতৃত্বে বিএনপি জামায়াত ক্ষমতায় গেলে জিয়াউর রহমান স্টাইলে জেলখানা কি খালি করা হবে, বিচার বিভাগ কি হবে ঠুটো জগন্নাথ! তার পরোক্ষ অঙ্গীকার নিয়েই কি এক অনৈতিক ঐক্যে হচ্ছে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন! ইতোমধ্যেই তার আভাস দিয়েছেন নিহত শাহ এ এম এস কিবরিয়া সাহেবের পুত্র ড. রেজা কিবরিয়া। তাই ‘বিচার বিভাগকে প্রভাবিত না করার’ দায় শেখ হাসিনার ঘাড়ে চাপিয়ে দিয়ে তিনি তাঁর পিতার খুনি হিসেবে চিহ্নিত রাজনীতিকদের দল বিএনপির ধানের শীষ নিয়ে নির্বাচনে নেমেছেন। এই প্রক্রিয়ার অংশ হিসেবে এর আগে তিনি তাঁর পিতার হত্যার বিচার বিলম্বিত হওয়ার দায় তারা পিতার নেত্রী বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার ঘাড়ে চাপিয়ে ড. কামাল হোসেনের দল গণফোরামে যোগদান করেন।

এসব দেখে একজন অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি মন্তব্য করেন যে, ড. রেজা কিবরিয়া ও তাঁর বর্তমান নেতা অবশ্যই বিশ্বাস করেন যে সরকার প্রধান হলেই বিচার বিভাগকে প্রভাবিত করা যায়, বিচারের রায় নিজের অনূকূলে নেওয়া যায়। তা না হলে ২০০৪ সালের ২১ শে আগস্ট গ্রেনেড হামলা যেখানে শেখ হাসিনাসহ বাংলাদেশ আওয়ামী লীগকে নেতৃত্বশুন্য করার জন্য জামায়াত-বিএনপি জোট সরকার বর্বরোচিত গ্রেনেড হামলা করে প্রায় ২৪ জন মানুষকে হত্যা আর ৩০০ জনেরও বেশি মানুষকে পঙ্গু করে সেই মামলার রায়ের জন্য শেখ হাসিনা কেন ১৪ বছর অপেক্ষা করলেন! মানবতাবিরোধী অপরাধে দণ্ডিতদের কথাও আপীলের সুযোগ না থাকলেও শেখ হাসিনার সরকার দণ্ডপ্রাপ্তদের আপীলের সুযোগ দিয়ে কী বিচার প্রক্রিয়ায় হস্তক্ষেপ করেছেন! নিজের পিতা তথা বাঙ্গালী জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব হত্যা মামলার বিচার প্রক্রিয়ায় কেন এতদিন অপেক্ষা করলেন! এটা তো ড. রেজা কিবরিয়া সাহেবের নেতাদের এমন ধারণা কেন?

বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করবার ঠিক আগ পর্যন্ত, মানে ১৯৭৫ সালের ২০শে এপ্রিল পর্যন্ত দালাল আইনে ৭৫২ জন ব্যাক্তি দন্ডিত হয়। যাদের মধ্যে প্রায় ২০ জনেরও বেশী ফাঁসির আসামী ছিলো। জিয়ার এই দালাল আইন বাতিল করবার পরেও কিন্তু সেই ৭৫২ জন কোনোভাবেই উপরের ডকুমেন্টস অনুযায়ী মুক্তি পেতে পারেন না। কিন্তু সেই ৭৫২ জন, মানে ২০ জন ফাঁসির আসামীসহ সবাই জিয়ার আমলেই জেল থেকে কি করে বের হয়ে গিয়েছিলেন! ঠিক সেইভাবেই বা তার উল্টাভাবে আদালতকে প্রভাবিত করে ড. রেজা কিবরিয়া ও তাঁর বর্তমান নেতা ড. কামাল কী তেমন কোন পরিকল্পনা নিয়েছেন যাতে ক্ষমতায় এলে ড. রেজা কিবরিয়া যেমন তাঁর ইচ্ছামত মানুষ বাছাই করে তাঁর বাবার হত্যাকারী হিসেবে আদালতের মাধ্যমে শাস্তি দেবেন! একই সাথে তাঁর বর্তমান নেতা আদালতকে প্রভাবিত করে বা আদালতের ক্ষমতা খর্ব করে খালেদা জিয়াকে মুক্ত করবেন, তারেক জিয়াকে দেশে এনে জামাই আদর করে ছেড়ে দেবেন, যেমনটি করেছিলেন জেনারেল জিয়া!

এটা সবাই জানেন যে, ১৯৭৫ পরবর্তী সময়ে জেনারেল জিয়া বন্দুকের নল দিয়ে রাষ্ট্রের ৩টি স্তম্ভ বিচার, প্রশাসন ও আইন বিভাগকে নিজের মত করেই সাজাতে সক্ষম হয়েছিলেন। জেনারেল জিয়ার সুযোগ্য সন্তান তারেক জিয়ার নেতৃত্বে ড. কামাল হোসেন, আসম রব, মাহাবুবুর রহমান মান্না, কাদের সিদ্দিকী, ড. রেজা কিবরিয়া সাহেবরা কোন স্বার্থে নির্বাচনী ঐক্য করলেন সম্পূর্ণ বিপরীত মেরুর আদর্শ নিয়ে! দুনিয়ার সব মানুষকে অবাক করে বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সন্তানের দাবীদার কাদের সিদ্দিকী কী করে বঙ্গবন্ধুর খুনীদের সাথে ঐক্য করেন! মুক্তিযুদ্ধ তথা স্বাধীনতাযুদ্ধের সোল এজেন্ট দাবীদার ড. কামাল কী করে মুখে না না বলে অজ্ঞাত প্রেমের আকর্ষণে গাটছাড়া বাঁধেন স্বাধীনতা বিরোধী জামায়াতের সাথে! সল্প আলোর সমীকরণে এত সকাল আর সন্ধ্যা একাকার হবার মত অত্যাশ্চর্য ঘটনা।

যিনি নির্বাচন না করে ২ বার সংসদ সদস্য হয়ে মন্ত্রী হয়েছেন, অন্যতম সংবিধান প্রণেতা হয়ে ইতিহাসে নাম লিখিয়েছেন, তিনি কেমন করে বর্তমান সরকারকে অনির্বাচিত অবৈধ সরকার বলেন! তাহলে কী তিনি তাঁর নেতৃত্বে যে বাংলাদেশের সংবিধান তৈরী করেছিলেন তাকেও অবৈধ বলবেন সময় সুযোগ পেলে! যিনি বাক স্বাধীনতার জন্য জান কোরবান করেন তিনি কেন সাংবাদিককে ‘খামোশ’ করতে চান! জামায়াতের সাথে জোট করেও যুদ্ধাপরাধীদের বিচারের অঙ্গীকার করেন কেন! তাঁর শক্তির বা প্রত্যাশার মূলে কী আছে! যে মান্নাকে জনসমর্থনের ক্রেন দিয়ে টেনেও জেতানো যায়নি সেই মান্না সাহেব কোন আশায় নির্বাচনী এলাকায় না গিয়ে ঢাকায় বসে বসে নির্বাচনে জেতার স্বপ্ন দেখেন! যে ড. রেজা কিবরিয়া ১৬ ডিসেম্বর বললেন তাঁকে এলাকায় নির্বাচন করতে দেওয়া হচ্ছে না তাঁর পরের দিন এলাকায় ফিরে গিয়ে বলছেন তিনি মাঠ ছাড়বেন না কোন ভাবেই। যে আসম রবের নিজ এলাকার নির্বাচনী অফিসে তালা লাগায় বিএনপি’র নেতারা তিনি কী করে ঢাকায় বসে বসে নির্বাচনে জেতার স্বপ্ন দেখেন!

এইসব স্বপ্নের কারিগর একজন নিশ্চয় আছেন। তিনি কী সেই তারেক জিয়া যিনি ড. কামাল হোসেনকে নিয়ে সুরেন্দ্র কুমার সিনহার মনে সপ্নের বীজ বুনেছিলেন কিন্তু ‘স্বপ্ন ভঙ্গে’র পরে আবার নতুন সপ্নের জাল বুনছেন নতুন লাভের আর লোভের সুতোয়।


বাংলা ইনসাইডার/এমআরএইচ