ঢাকা, সোমবার, ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১২ ফাল্গুন ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

নতুন বছরে ভালো কিছুর আশায়!

সজল চৌধুরী
প্রকাশিত: ০১ জানুয়ারি ২০২০ বুধবার, ০৮:০০ এএম
নতুন বছরে ভালো কিছুর আশায়!

নতুন বছর শুরু হল। এই নতুন বছরে আমরা আসলে কি চাই? কি আমাদের ভাবনা? প্রত্যেকটি বছর আসে আবার বছর যায়। ঘুরে ফিরে এই ঋতুচক্রের বিবর্তনের মধ্যে মানুষের জীবন পরিচালিত হয় নতুন স্বপ্নের আশায়। নতুন কাজের আশায়। মানুষের এই ছুটে চলা - কখনো কখনো স্বপ্ন গুলো ভিড় করে মানুষের মনের মধ্যে, যা হয়তো তার নাগালের বাইরেই থেকে যায়। তবু আবার নতুন স্বপ্ন বুকে নিয়ে নতুন ভাবে বাঁচতে শেখায়। আর এরই নাম জীবন! যে জীবনের চাওয়া আছে, পাওয়া আছে, নতুন করে বাঁচার অনুভূতি আছে। দুঃখকে আপন করে নেয়ার ক্ষমতা আছে। আর আছে কিছু মানুষের প্রতি মানুষের আবেগ।

আবেগ তাড়িত হয়েই একদিন আমরা বাংলাদেশকে মুক্ত করেছি। এ আবেগ তাড়িত হয়েই আমরা ভাষার জন্য যুদ্ধ করেছি। আবেগ তাড়িত হয়েই পৃথিবীর বুকে বাংলাদেশ কে বাঁচিয়ে রাখার অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছি আমরা সকলেই। এই আবেগ আছে বলেই এখনো ধর্ম বর্ণ নির্বিশেষে মিলেমিশে বসবাস করছি সকলে একসাথে। হয়তো মাঝে মধ্যে সময়ের আবর্তনে এর ব্যতিক্রম ঘটে, কিছু ঘটনা পাল্টে দেয় মানুষের জীবন, মানুষের চিন্তা কল্পনাকে। সময়ের নিয়মে আবার সব একই পথে চলে। নতুন করে নিজেদেরকে চিনতে শেখায় আর এরই নাম বাংলাদেশ।

একথা সত্য যখন কেউ আমরা দেশে থাকি তখন হয়তো দেশের প্রেক্ষাপট আমাদের দৃষ্টিতে ধরা দেয় একভাবে। কিন্তু যখন আমরা এই দেশের বাইরে চলে যাই দেশের প্রতি এক অদ্ভুত ভালোবাসা আমাদের মনকে আচ্ছন্ন করে রাখে সবসময়। এ যেন দূরে কোথাও থেকে বসে পুরো দেশটাকে দেখা। দেশের মানুষকে দেখা। দেশের ছয় ঋতু কে দেখা। অনেক দূরে থেকেও দেশের আলো, বাতাস, মাটি, জলকে উপলব্ধি করা! এ যেন সবসময় দেশের কথা মাথায় রেখে ঘুরে বেড়ানো। আমি জানি এই উপলব্ধি শুধু আমার নয় - এই উপলব্ধি আপামর জনগণের, যারা আজ দেশ থেকে অনেক দূরে রয়েছে। যারা সর্বদাই শুধুমাত্র এই অপেক্ষায়ই বসে থাকে একটি ভালো কিছুর আশায়।

এইযে ‘ভালো কিছুর’ আশায়! ভালো কিছু আসলে কি? এই ভালো কিছু এমন একটি বিষয় যা সব সময় মানুষের ভালো করবে! নাকি এই ভালো কিছু ভালো কোন সুবিধা কিংবা এই ভালো কিছু এমন একটি বিষয় হতে পারে যা আমাদেরকে মর্যাদার দিক থেকে অনেক উঁচুতে নিয়ে যাবে? আসলে অনেক কিছুই হতে পারে। আমরা মুখে সবসময়ই বলি ভালো করতে হবে, দেশকে ভালো করতে হবে, নিজেকে ভালো করতে হবে, সমাজ কাঠামোকে ভালো করতে হবে। সমস্যার আমাদের শেষ নেই! আজ এই সমস্যা তো কালকে সেই সমস্যা! এই আমরাই সমস্যা মোকাবেলা করার জন্য প্রতিদিনই কোথাও না কোথাও দেশের রাস্তায় প্ল্যাকার্ড হাতে নিয়ে বক্তব্য রাখছি, কিংবা কোথাও গোলটেবিল বৈঠক করতে করতে করতে হাঁপিয়ে উঠছি! কিংবা উচ্চস্বরে সবাইকে জানান দিচ্ছি এক অন্যায় অনিয়মের গল্প? এভাবেই তো চলছে দিনের পর দিন। মাঝে মাঝে মনে হয় সমস্যা ধরিয়ে দেয়ায় কি সমস্যা সমাধানের প্রধান রাস্তা? নাকি সমস্যা গুলো কিভাবে সমাধান করা যায় সকলে মিলে সেটি আগে দেখতে হবে! নিজের দোষ অন্যের ঘাড়ে চাপাতে চাপাতে যেন এর কোন শেষ নেই, লাগামহীন এই দৌড় আমাদেরকে যেন নদীর তীরবর্তী কোন একটি স্থানে নিয়ে চলে এসেছে। সামনে রয়েছে অথৈ নদী কিন্তু পেছনে রয়েছে সবুজ মাঠ সবুজ গাছ! আমাদের তো সামনে যেতে হবে তাই শুধুমাত্র সামনের অথৈ নদী টি দেখছি । একেবারেই ভুলে গিয়েছি পেছনে ফেলে আসা সবুজ মাঠ কে যেখানে আমরা আবার নতুন করে স্বপ্ন বলতে পারি! অবশ্যই সামনের দিকটা ভুলে না গিয়ে।

হয়তো এই নতুন বছরের শুরুতে আমাদের অনেকেরই অনেক চাওয়া থাকবে, প্রাপ্তি থাকবে অনেকের কাছে - দেশের কাছে, দেশের মানুষের কাছে, সরকারের কাছে, বিভিন্ন কর্তৃপক্ষের কাছে। এখন প্রশ্ন হচ্ছে নিজেদের কাছে কি কোন চাওয়া থাকবে? যে চাওয়া গুলো আমরা নিজেরাই পূরণ করতে পারি হয়তো পরিবারের জন্য, হয়তো সমাজের জন্য, কিংবা দেশের জন্য শুধুমাত্র একটু মানসিকতার পরিবর্তনের মাধ্যমে! আমরাও বদলাতে পারি। আমরাও কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে দেশকে নতুন ভাবে নতুন দিকে জাগরিত করতে পারি। দেশকে নিয়ে আমার গর্ব হয়, কারণ ছোট্ট এই দেশে আজ কোটি কোটি মানুষের ক্ষুধা নিবারণ হচ্ছে! কোটি কোটি মানুষ বসবাসের জায়গা পাচ্ছে। আমাদের শহর গুলো হয়তো আমরা অনেক সময় বলি অস্বাস্থ্যকর, শহর বসবাসের অনুপযোগী। অথচ এই শহরগুলোতেই আমরা বছরের পর বছর ধরে বসবাস করে আসছি, স্বপ্ন বুনে আসছি।

তাহলে এই শহরকে বাঁচিয়ে রাখার দায়িত্ব কাদের? রাস্তায় বের হলেই তো ময়লা-আবর্জনা ছুড়ে ফেলে দিচ্ছি এখানে সেখানে, নিয়মের বাইরে থেকে হর্ন বাজাচ্ছে যতো জোরে সম্ভব, গাড়ি চালাচ্ছি - পার্কিং করছি যেখানে সেখানে। দিনশেষে আমরাই সবকিছু ভুলে গিয়ে বলছি দেশে কোনো নিয়ম নেই, আইন নেই, আইনের শাসন নেই। আর এখানেই আমাদের মূল সমস্যা। আমরা নিজেদের ভালো নিজেরা ঠিকই বুঝছি কিন্তু পরের ভালো টাও তো বুঝতে হবে! আর একটি উন্নত দেশের উন্নত হবার প্রধান কারণ এটিই! তাই নতুন বছরের শুরুতে আসুন সকলে মিলে প্রথমে আগে নিজেকে বদলাই, নিজেদের দৃষ্টিভঙ্গিকে বদলাই। শুধুমাত্র সমালোচনা নয় বরং একসাথে কাঁধে কাঁধ মিলিয়ে চলার দক্ষতা বাড়াই। তাহলে হয়তোবা অনেক জটিল সমস্যার সমাধান আমরা খুব সহজেই করতে পারব। নতুন বছরে সকলের জন্য রইল শুভকামনা।

সজল চৌধুরী
মেলবোর্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থাপত্য ও পরিকল্পনা অনুষদের পিএইচডি গবেষক, অস্ট্রেলিয়া
sajal_c@yahoo.com