ঢাকা, সোমবার, ০৬ জুলাই ২০২০, ২১ আষাঢ় ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

Bangla Insider

একটি শোকগাঁথা

রেজা সেলিম
প্রকাশিত: ২৯ জুন ২০২০ সোমবার, ০৬:১৫ পিএম
একটি শোকগাঁথা

আমার অনুজপ্রতীম বন্ধু বাংলাদেশ সরকারের প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব আবদুল্লাহ আল মোহসীন চৌধুরী আজ সকালে প্রয়াত হয়েছে। সে করোনা আক্রান্ত হয়ে প্রায় দু’মাস যাবত চিকিৎসাধীন ছিল। মোহসীনের মতো একজন ভালো মানুষের এই প্রয়াণ আমাকে খুবই ব্যাথিত করেছে। তার সাথে আমার পরিচয় হয় ১৯৮০ সালের দিকে যখন সে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে মৃত্তিকা বিজ্ঞানে ভর্তি হয়ে ফজলুল হক হলে থাকতে শুরু করে। একই হলে ১৯৭৮ সাল থেকে তার অগ্রজ, আমাদের বন্ধু সাবেক মুখ্য সচিব কামাল চৌধুরী ও আমি থাকতাম। ফলে বন্ধুর ছোট ভাই হলেও আমার আর মোহসীনের সম্পর্ক হলেমেটের বন্ধুত্ব পর্যায়ে পৌঁছায় খুব দ্রুত। মৃদুভাষী, বিনয়ী স্বভাবের কারণে সে আমার সাথে তার প্রিয় ‘মেজো ভাই’ কামাল চৌধুরীর মতোই বড়ভাই সুলভ আচরণ করতো। একসাথে হলের ক্যাফেটেরিয়ায়, পুকুর ঘাটে বা কোন রুমে বসে আড্ডা দিলেও একটা দূরত্ব সে বজায় রাখতো, এটা ছিল তার পারিবারিক শিক্ষা।

পারিবারিক শিক্ষা বলছি এই কারণে যে, কামাল চৌধুরী ও মোহসীন চৌধুরীকে বিশ্ববিদ্যালয় জীবন থেকেই আমি পর্যবেক্ষণ করেছি একটু ভিন্ন চোখে কারণ এদের পরিবারের সব ভাইয়েরা ছিল মেধাবী ও সৃজনশীল চিন্তার আধিকারী, কামাল চৌধুরীর কারণে তাদের প্রথম চার ভাইকে আমি জানতাম। আদমজী-র পরিবেশে বড় হয়ে পিতামাতার সুচিন্তিত পরামর্শ বা গাইডেন্স পেয়ে তাদের এই চার ভাই সিভিল সার্ভিসের কর্মকর্তা হয়েছিলেন যা বাংলাদেশের পরিবারগুলোর জন্যে একটি বিশেষ দৃষ্টান্ত। এদের বড়ো ভাই আব্দুল্লাহ মামুন চৌধুরী ছিলেন বন বিভাগের উর্ধতন কর্মকর্তা, মোহসীনের ছোট যে জন, যাকে আমি বেশ ছোট দেখেছি, আব্দুল্লাহ মাসুদ চৌধুরী এখন বাংলাদেশ সরকারের একজন যুগ্ম-সচিব।

১৯৮৫ সালের বিসিএস (প্রশাসন) ক্যাডারের সদস্য হিসাবে সরকারি চাকরিতে যোগ দিয়ে কর্ম জীবনে মহসীন চৌধুরীর কৃতিকর্মের স্বীকৃতি হিসেবে সরকারের সিনিয়র সচিব পদ-মর্যাদা অর্জন করে দায়িত্ব পালন করছিল। আমার জানামতে বিভিন্ন সময়ে সে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়, অর্থ, শিল্প, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয় এবং প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে বিভিন্ন পদে কাজ করেছে। প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয়ে যোগদানের আগে পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়ের সচিব পদে কর্মরত ছিল যেখানে আমি বেশ কয়েকবার কাজ নিয়ে আলাপ করতে গেছি। কখনও মনে হয়নি সচিবের কাছে গেছি, বিনয়ের সাথে ‘মেজো ভাই’র বন্ধু হিসেবে সহকর্মীদের সাথে পরিচয় করিয়ে দিয়েছে। এমন কি চা দিতে বলেও পিয়্নকে বলেছে আমার ‘মেজো ভাই’র বন্ধু।

আমি এই বিনয়ী একজন দায়িত্বশীল কর্মকর্তার এই তিরোধানে খুবই ব্যাথিত। দেশের জন্যেও এই প্রস্থান দুঃখজনক, কারণ আমার জানামতে মোহসিনের আরও বছর দুই সরকারের সাথে কাজ করার কথা ছিল।

আমি আবদুল্লাহ আল মোহসীন চৌধুরী ও তার পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানাই ও সকলে সতর্ক থেকে এই করোনা যুদ্ধে জয়ী হবার আনুরোধ জানাচ্ছি। নতুবা আমরা আরও অনেক মানুষকে হারাতে পারি যাদের এই দেশের জন্যে আরও অনেক কিছু দেবার আছে। 

--
রেজা সেলিম, পরিচালক, আমাদের গ্রাম
ই-মেইলঃ re[email protected]