ঢাকা, রোববার, ২৫ জুলাই ২০২১, ১০ শ্রাবণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

বানরের সন্ধানে এত সময় লাগলো কেন?

অধ্যাপক ডাঃ কাজী মনিরুল ইসলাম
প্রকাশিত: ১৮ জুন ২০২১ শুক্রবার, ১১:০১ এএম
বানরের সন্ধানে এত সময় লাগলো কেন?

২০২০ সালের ২ জুলাই বাংলাদেশের প্রথম সংস্থা, গ্লোব বায়োটেক লিমিটেড, কোভিড-১৯ ভ্যাকসিনটি বিকাশের ঘোষণা দেয়। একমাত্র বাংলাদেশি সংস্থাটি বিভিন্ন প্রযুক্তিসহ তিনটি কোভিড-১৯ টি ভ্যাকসিন প্রার্থী তৈরি করে। সংস্থাটি এমআরএনএ ভিত্তিক ভ্যাকসিনটির নাম অনেক আলোচনার পর নামকরণ করে বঙ্গভ্যাক্স। বঙ্গভ্যাক্সের প্রথম ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালিং পরিচালনার জন্য নৈতিক অনুমোদনের অনুমতি পাওয়ার জন্য গ্লোব বায়োটেক ২০২০ সালের ডিসেম্বর থেকে ২০২১ সালের জানুয়ারির মধ্যে সমস্ত প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহণ করেছিল। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বিশ্বব্যাপী ভ্যাকসিন তৈরির প্রচেষ্টার অন্যতম একটি হিসাবে এই ভ্যাকসিনটির নিবন্ধন করে বলে এটি বিকাশের বিভিন্ন পর্যায়ে রয়েছে। ২৮ ডিসেম্বর, মহাপরিচালক, ওষুধ প্রশাসন (ডিজিডিএ) ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের জন্য গ্লোব বায়োটেককে ভ্যাকসিনটি তৈরি করার অনুমতি দেয়। এই বছরের ১৭ই জানুয়ারি সংস্থাটি ক্লিনিকাল ট্রায়ালের জন্য বিএমআরসির কাছে নৈতিক অনুমোদন চেয়েছিল। ২০২১ সালের মে মাসে মর্যাদাপূর্ণ পিয়ার রিভিউ জার্নাল “ভ্যাকসিন জার্নালে” তাদের সম্পূর্ণ প্রাণী গবেষণার বিস্তারিত তথ্য প্রকাশ করেছে (আপনার সহজ রেফারেন্স জন্য: Nag K, Baray JC, Khan MR, Mahmud A, Islam J, Myti S, et al. (18 May 2021). "An mRNA-based vaccine candidate against SARS-CoV-2 elicits stable immuno-response with single dose". Vaccine X. 39 (23).

মনে হচ্ছে পাঁচ মাসের ব্যাপক পর্যালোচনা শেষে ১৫ জুন বৈঠকের পরে বিএমআরসি পরিচালক ডাঃ মোঃ রুহুল আমিন বলেছেন যে, গ্লোব বায়োটেক সহ তিনটি ভ্যাকসিন প্রার্থী সংস্থার ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল করার অনুমতি দেওয়ার নীতিগতভাবে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। বিদেশি সংস্থাগুলির একটি ভারত থেকে, অন্যটি চীন থেকে। তার নাম প্রকাশ না করেই একজন কর্মকর্তা বলেন, “কার্যকারিতা পরীক্ষা করার জন্য প্রথমে বানর বা শিম্পাঞ্জির ওপর ট্রায়াল সহ সমস্ত সংস্থাকে কিছু শর্ত মেনে চলতে হবে। প্রয়োজনে আমরা সিআরও সংস্থাগুলি কর্তৃক জমা দেওয়া বানর পরীক্ষার নথিও পর্যালোচনা করব।”

বিএমআরসি কর্মকর্তারা এই বিষয়ে একটি সভার পরে বলেছিলেন, দু`জন বিদেশী ভ্যাকসিন প্রার্থী যারা মানবিক পরীক্ষা পরিচালনার নৈতিক অনুমোদনের জন্য বিএমআরসিতে আবেদন করেছিলেন তাদেরও একই শর্ত পূরণ করতে হবে। চীন এবং ভারতীয় গোষ্ঠী কখন এবং কি ধরণের টিকার মানব পরীক্ষা করার জন্য বিএমআরসিতে তাদের অনুরোধ জমা দিয়েছে তা আমরা জানি না।

জনস্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনার প্রধান হিসাবে, জেনেভায় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সদর দফতরে থাকাকালিন, আমরা লক্ষ করেছি যে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার আরও পরীক্ষাগারভিত্তিক টক্সিকোলজি পরীক্ষার করার আহ্বান সত্ত্বেও বাংলাদেশসহ উন্নয়নশীল দেশগুলির প্রধানত হাজার হাজার দরিদ্র মহিলাদের মধ্যে বিচারাধীন মানববন্ধন পদ্ধতি (contraceptive method) কুইনাক্রাইন ট্রায়াল পরিচালিত হয়েছে। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার বিশ্লেষণে প্রাথমিকভাবে এই ধরনের পরীক্ষাগুলি কুইনাক্রাইন নির্বীজন এবং ক্যান্সারের বিকাশের মধ্যে একটি সংযোগ পাওয়ার পর সেই উপদেশ দেয়। এ কারণেই আমি খুশি যে বাংলাদেশ নৈতিক কমিটি ভ্যাকসিনের মানবিক পরীক্ষা চালিয়ে যাওয়ার বিষয়ে খুব সতর্ক ছিল। তবুও গ্লোব বায়োটেক ভ্যাকসিন ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল সম্পর্কে তাদের সিদ্ধান্ত নিতে এত দেরি হওয়া সম্পর্কে অনেক বিজ্ঞানীদের মনে অনেক উত্তরহীন প্রশ্ন রয়ে গেছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ভারতের দিল্লিতে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া আঞ্চলিক কার্যালয়ের একজন স্বাস্থ্য ব্যবস্থা বিভাগ পরিচালক হিসাবে গবেষণার আমার অন্যতম একটি দায়িত্ব ছিল। আমরা লক্ষ্য করেছি যে অনেক বিদেশী সংস্থাগুলি যথাযথ প্রক্রিয়া ছাড়াই মানুষের ওপর নতুন ড্রাগ পরীক্ষা চালানোর জন্য এই অঞ্চলের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়গুলিকে কয়েক মিলিয়ন ডলার সরবরাহ করেছিল। সুতরাং, আমার বিভাগের দলটি আন্তর্জাতিক মান অনুসরণ করে গবেষণা পরিচালিত হচ্ছে তা নিশ্চিত করার জন্য নৈতিক কমিটিগুলিকে আরও জোরদার করতে সদস্য দেশগুলিকে প্রযুক্তিগত সহায়তা প্রদান করার জন্য কঠোর পরিশ্রম করে। এটি বিজ্ঞানকে এগিয়ে যাওয়া থামাতে নয় বরং মানুষের ওপর অযৌক্তিক বিরূপ প্রভাব রোধ করতে পারে সেকারণেই অগ্রাধিকার পায়। সম্প্রতি, যখন আমি ৮টি দেশে (আফ্রিকা এবং এশিয়াতে) গবেষণা প্রোগ্রামের সমন্বয় করছিলাম যখন গর্ভবতী মহিলাদের থেকে ডেটা এবং নমুনা সংগ্রহ করার প্রস্তাব ছিল। তখন তাদের বিবেচনা এবং অনুমোদনের জন্য প্রতিটি দেশের নৈতিক কমিটিগুলির কাছে আমাদেরকে গবেষণা প্রস্তাব জমা দিতে হয়েছিল। জমা দেওয়া প্রস্তাবগুলো মূল্যায়ন ও পর্যালোচনা করতে কমিটির সভাপতি এবং সদস্যরা তাদের সভা মাসে একবার বা দু`বার করেন। আমরা প্রতিটি নৈতিক কমিটিতে গবেষণাপত্র সময়মত জমা দিয়েছি। তবে নৈতিক কমিটির অনুমতি পেতে মাসের পর মাস দেরি হয়নি। আমরা তাদের মতামত এবং পরামর্শ পেয়ে, তাদের নির্দেশাবলী অনুসরণ করে পুনরায় আমাদের প্রস্তাব জমা দিয়েছিলাম এবং আমাদের জমা দেওয়ার দুই সপ্তাহের মধ্যে নৈতিক ছাড়পত্র পেয়েছি। গবেষণার গুরুত্ব এবং জরুরীতার কথা বিবেচনা করে কমিটি কখনও কখনও জরুরি অধিবেশন ডাকেন। কোভিড-১৯ এর গুরুত্ব বিবেচনা করে আনেক আগেই বিএমআরসি জরুরী ভিত্তিতে গ্লোবের প্রস্তাব বিবেচনা করবে, তাদের পরামর্শ সরবরাহ করবে এবং প্রয়োজনে আরও তথ্যের দাবি করবে বলে আমি আশা করেছিলাম।

আমি অত্যন্ত খুশি যে বিএমআরসি সদস্যরা বাংলাদেশের জনগণের নিরাপদ সুরক্ষা নিশ্চিত করে অবশেষে গ্লোব ফার্মাসিউটিক্যাল সংস্থা বঙ্গভ্যাক্সের মানবিক পরীক্ষার অগ্রগতি গ্রহণের জন্য তাদের সুপারিশ ও শর্ত নিয়ে নীতিগতভাবে সিদ্ধান্ত দিতে যাচ্ছেন। আমি পত্রিকায় পড়েছি, শর্তগুলির মধ্যে একটি হলো ইঁদুরের অধ্যয়ন ছাড়াও বানর বা শিম্পাঞ্জির সঙ্গে গবেষণার বিচার করা। আমি এখনও এই সিদ্ধান্তে পৌঁছার জন্য বুঝতে চেষ্টা করছি কেন কমিটি পাঁচ মাসের বেশি সময় নিয়েছিল? গ্লোব বায়োটেকের প্রধান নির্বাহী এখনও কমিটিগুলির শর্ত ও অনুমোদনের চিঠি পাওয়ার অপেক্ষায় রয়েছেন। আমি আশা করি তিনি শীঘ্রই এটি পাবেন এবং এই ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালগুলি শুরু করতে পারবেন। আমি আরও খুশি যে কমিটি কোনও বিলম্ব ছাড়াই এবং স্বল্প সময়ে দুটি বিদেশি সংস্থার প্রস্তাব অনুমোদন করেছে।

আমাদের জানা উচিত ভ্যাকসিন বা অন্য কোনও ওষুধের গবেষণার জন্য যেকোন একটি বানর ব্যবহার করা যায় না। এই বানরগুলি অবশ্যই সমস্ত রোগ মুক্ত এবং স্বাস্থ্যকর হতে হবে। তাই ফ্লোরিডার অন্তত পাঁচটি সত্ত্বা, মিয়ামি-ডেডের একটি সহ, গবেষণা এবং পরীক্ষার উদ্দেশ্যে বানর প্রজনন বা আমদানি করে। মার্কিন কৃষি বিভাগের এক প্রতিবেদনে ২০১৭ সালে ফ্লোরিডায় কমপক্ষে ১৭২৯ বানর ল্যাব সেটিংসে ব্যবহৃত হয়েছিল। বায়োমেডিকাল গবেষণায় বানর ব্যবহারকারী গবেষকদের জন্য সহায়তা প্রদানকারী একটি জাতীয় নেটওয়ার্ক বলে যে, এখন পরীক্ষাগত বিষয়ের আকাশচুম্বী পরীক্ষার ফলে পরীক্ষাগত বানরগুলির মারাত্মক ঘাটতি দেখা দিয়েছে। যদিও এর জন্য অতিরিক্ত ব্যয় হবে (আমি আশা করি অনেক পশ্চিমী দেশগুলির মতো বাংলাদেশ সরকার কোম্পানির ঝুঁকি এড়ানো জন্য আগাম আর্থিক সহায়তা দিতে পারবে, যেমন ২০২০ সালের নভেম্বরে ভারতের সিরাম ইনস্টিটিউটকে যথাযথভাবে অগ্রিম ১২৫ মিলিয়ন মার্কিন ডলার সরবরাহ করেছিল বাংলাদেশ), গ্লোব বায়োটেক স্বল্প সময়ে এশীয় বাজার থেকে পরীক্ষার বানর পেতে সক্ষম হবে।

উপরের চাহিদা এবং বানরগুলির অভাব বিবেচনা করে, বিএমআরসি তাদের প্রকৃত উদ্বিগ্ন গবেষণা প্রস্তাবের ঘাটতি বিতান করে, তারা বানরের বিষয়ে আরও গবেষণা চালাতে ফেব্রুয়ারি বা মার্চ মাসে গ্লোবকে জানাতে পারত। এটি গ্লোবকে প্রয়োজনীয় তাত্পর্যপূর্ণ ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালগুলো চালানোর জন্য এবং তত্ক্ষনাৎ তাদের বিএমআরসি চাহিদা পূরণের জন্য অতিরিক্ত তহবিল এবং বানরগুলির প্রাপ্যতা নিশ্চিত করার জন্য যথেষ্ট সময় দিত। সময়মত এই পদক্ষেপটি নিলে মানব পরীক্ষা করা অনেক আগে হওয়া নিশ্চিত ও সহায়তা করতো। যেমনটি আমি আগেই বলেছি, আমরা নিশ্চিত নই যে এই ভ্যাকসিনটির আকাঙ্ক্ষার কার্যকারিতা থাকবে তবে অধ্যয়ন করার আগে আমরা কখনই তা জানতে পারি না। কমিটির পক্ষে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ছিল ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল পরিচালনা করার সময় বৈজ্ঞানিক অখণ্ডতা নিশ্চিত করা। আমি নিশ্চিত যে বিএমআরসি এবং গবেষণা কমিটি মানবিক পরীক্ষার তদারকি করবে এবং গবেষণা বন্ধ করবে, যেমন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে অক্সফোর্ড ভ্যাকসিন পরীক্ষার ক্ষেত্রে করেছিল, যদি কোনও গুরুতর জটিলতা দেখা দেয়।

আমরা জানি না যে বিএমআরসি মানবিক পরীক্ষার জন্য চীনা এবং ভারতীয় ভ্যাকসিনের জন্য একই উদ্বেগ উত্থাপন করতে কত সময় নিয়েছিল। হ্যাঁ, আমি খুব সতর্ক ও সজাগ থাকার জন্য বিএমআরসির সাথে সম্পূর্ণ একমত আছি, তবে যখন হাজার হাজার মানুষ ভুগছেন এবং মহামারীজনিত কারণে অনেকে মারা যাচ্ছেন সেই মুহূর্তে পাঁচ মাসের বিলম্ব বুঝতে এবং গ্রহণ করা সত্যিই কঠিন। সময় এখানে সারাংশ। কোভিডের কারণে জীবন ও জীবিকা বাঁচাতে বাংলাদেশের হাতে আনেক বিকল্প নেই। ভ্যাকসিনগুলি প্রধান ভূমিকা পালন করবে। সুতরাং, যখন আমি দেখেছি যে কোনও বাংলাদেশি সংস্থা ভ্যাকসিন উত্পাদনের নতুন পদ্ধতি ব্যবহারের ক্ষেত্রে এমন উদ্ভাবনী পদ্ধতির সাথে এগিয়ে এসেছিল, তখন আমি আবার বাঙালি এবং বাংলাদেশি হতে পেরে গর্ববোধ করেছি। আমরা যখন এইরকম জটিল মূহুর্তে থাকি তখন নিখুঁত পরিপূর্ণতা ভালোর শত্রু  হতে দেওয়া উচিত নয়। ঝুঁকি ছাড়া ভালো কিছু হয় না। আমি তাই ভালো ফলাফলের জন্য অপেক্ষা করছি। আপনাদের সমর্থন এবং দুর্দান্ত প্রচেষ্টার জন্য অনেক ধন্যবাদ বিএমআরসি। আরও দেরি না করে শীঘ্রই ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল শুরু হবে, আমি তাই আশাবাদী এবং গর্বিত।

আমি ঘোষণা করতে চাই আমার বাংলাদেশে ভ্যাকসিন উন্নয়ন এবং উত্পাদন নিয়ে গ্লোব বায়োটেকের সাথে আমার স্বার্থের কোনও দ্বন্দ্ব নেই।