ঢাকা, রোববার, ১৭ অক্টোবর ২০২১, ২ কার্তিক ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

ভাষা আন্দোলন ও বাংলাভাষার উন্নয়নে বঙ্গবন্ধুর অবদান

ড. ডি. এম. ফিরোজ শাহ্
প্রকাশিত: ১৭ সেপ্টেম্বর ২০২১ শুক্রবার, ০৮:২৮ এএম
ভাষা আন্দোলন ও বাংলাভাষার উন্নয়নে বঙ্গবন্ধুর অবদান

১. ভূমিকা

উনিশশ’ নব্বইয়ের দশকে স্কুল-কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নকালে একুশে ফেব্রুয়ারির অনুষ্ঠানে অংশ নিয়েছি। নগ্নপায়ে প্রভাত ফেরী করে, শহীদ মিনারে ফুল দিয়ে আলোচনা শুনতাম, কখনও অংশ নিতাম। একুশে ফেব্রুয়ারি মানেই আব্দুল গাফ্ফার চৌধুরীর লেখা গান-‘আমার ভাইয়ের রক্তে রাঙানো একুশে ফেব্রুয়ারি, আমি কি ভুলিতে পারি...’ যা ভাষা চেতনাকে উজ্জীবিত করতো। এরপর আলোচনায় আসতো ভাষা শহীদদের নাম-সালাম, বরকত, রফিক,শফিক, জব্বার..., অতঃপর ভাষা আন্দোলনে যারা নেতৃত্ব দিয়েছে তাদের নাম-এডভোকেট গাজীউর হক, আব্দুল মতিন সহ আরো অনেক নাম, কিন্তু বঙ্গবন্ধুর নাম কেউ বলেনা। সে সময় বুঝতে পারিনি এর কারণ কী।

১৯৯০ সালে এরশাদের পতন হলে দৃশ্যপট পরিবর্তন হতে থাকে। ১৯৯১ এর নির্বাচনে নাটকীয়ভাবে ক্ষমতায় আসে বিএনপি। আরো ৫ বছর পর ১৯৯৬ সালে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় আসে জননেত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে, তিনি হন প্রধানমন্ত্রী। এ সময় থেকে ভাষা আন্দোলন ও মুক্তিযুদ্ধের সঠিক ইতিহাস দেশবাসি জানতে পারেন। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট বঙ্গবন্ধুকে পরিবারের অধিকাংশ সদস্যসহ নির্মমভাবে হত্যার পর এদেশে বিকৃত ইতিহাস চর্চার পত্তন শুরু হয়। কিন্তু ইতিহাসের সত্য হলো তাকে মুছে ফেলা যায় না, সাময়িকভাবে ধামাচাপা দেয়া যায় মাত্র। তাই জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশের যে কোন ঐতিহাসিক ঘটনায় ফিরে আসেন বারবার।

২. বাংলা ভাষা আন্দোলন: পিছন ফিরে দেখা
যে কোন আন্দোলনে ৩টি অবস্থা থাকে-
ক) যৌক্তিকভাবে আন্দোলনের প্রেক্ষিত তৈরি করা
খ) আন্দোলনের সময় সেটি দক্ষ নেতৃত্ব দিয়ে পরিচালনা করা
গ) আন্দোলনে বিজয়ী হবার পর তার ফল কাজে লাগানো

বাংলা ভাষা আন্দোলনের প্রেক্ষিত তৈরি হয়েছে অনেক আগে থেকেই। মধ্যযুগের কবি আব্দুল হাকিম (১৬২০-১৬৯০) তাঁর ‘বঙ্গবাণী’ কবিতায় মাতৃভাষা নিয়ে যে কথা বলেছেন তাই যেন ছিল বঙ্গবন্ধুর ভাষা প্রেরণা। কবি বলেন-
‘...যে সবে বঙ্গেত জন্মি হিংসে বঙ্গবাণী।
সে সব কাহার জন্ম নির্ণয় ন জানি।।
দেশী ভাষা বিদ্যা যার মনে না জুরায়।
নিজ দেশ তেয়াগী কেন বিদেশ ন যায়।।...’

ভাষা আন্দোলনের সময় বঙ্গবন্ধুকে প্রত্যক্ষভাবে না পাওয়ার কারণ হলো আন্দোলনের যৌক্তিক প্রেক্ষিত তৈরি করার কারণে তিনি তখন কারাগারে ছিলেন। কিন্তু কারাগারে তিনি চুপচাপ বসে থাকেননি, আমরণ অনশন করে পাকিস্তানী জান্তার ওপর চাপ সৃষ্টি করেছেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা তাঁর লিখিত ‘শেখ মুজিব আমার পিতা’ গ্রন্থে এর একটি নাতিদীর্ঘ বর্ণনা দিয়েছেন- 
‘... তারপর ১৯৪৮-এ এই বিশ্ববিদ্যালয়ের আইনের ছাত্র থাকাকালীন মুহাম্মদ আলী জিন্নাহর মুখের উপর কার্জন হলের সমাবর্তন সভায় বঙ্গবন্ধু এবং টাঙ্গাইলের সামসুল হক সাহেব সর্বপ্রথম প্রতিবাদ করে বলেছিলেন, ‘না,উর্দু নয়,বাংলাই হবে রাষ্ট্রভাষা’ যার জন্য তাকে সে সময়ই কারাবরণ করতে হয়েছিল। সরকার থেকে বলা হয়েছিল, ‘যদি ভবিষ্যতে শেখ মুজিব রাজনীতি করবে না এই মর্মে মুচলেকা লিখে দেয়,তবেই তাকে মুক্তি দেয়া হবে এবং তিনি আইন পরীক্ষা দেওয়ার সুযোগ পাবেন।’ কিন্তু বঙ্গবন্ধু সে মুচলেকায় স্বাক্ষর দিতে সম্মত না হওয়ায় তাকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিস্কার করা হয়েছিল।

যখন বাংলার স্থলে উর্দুকে রাষ্ট্রভাষা করার গভীর চক্রান্ত শুরু হয় তখন বঙ্গবন্ধু ছাত্রদের সংগঠিত করে শুরু করেছিলেন ভাষার জন্য আন্দোলন। পাকিস্তানের জনক অপ্রতিরোধ্য জিন্নাহ সর্বপ্রথম এই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়েই হয়েছিলেন প্রতিরোধের সম্মুখীন। যে কারণে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বঙ্গবন্ধুকে সেদিন আজীবন ‘রাসটিকেট’ করা হয়েছিল এবং ১৯৪৯-এ তাকে গ্রেপ্তার করে ১৯৫২ পর্যন্ত একনাগাড়ে বন্দি করে রাখা হয়েছিল।

১৯৫২-তে যখন বিশ্ববিদ্যালয়ে ভাষা আন্দোলন শুরু হয়েছিল, বঙ্গবন্ধু তখন ভাষার জন্য কারাগারে বসে শুরু করেছিলেন আমরণ অনশন। ফলে ১৯৫২-র মার্চের প্রথম সপ্তাহে অনন্যোপায় পাকিস্তানী শাসকগোষ্ঠী মৃতপ্রায় অবস্থায় বঙ্গবন্ধুকে স্টেচারে করে মুক্তিদানের নামে ফেলে রেখে গিয়েছিল আমার মা এবং দাদীর কাছে।’ (শেখ হাসিনা, শেখ মুজিব আমার পিতা, পৃ. ৭৯-৮০)

ওপরের ঘটনা থেকে বোঝাই যাচ্ছে ভাষা আন্দোলনে কী মাত্রায় নিগৃহীত হয়েছিলেন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান।

৩. দেশভাগ ও ভাষা আন্দোলনে শেখ মুজিব

১৯৪৭ সালের ১৪ আগস্ট ভারত বিভক্ত হয়ে গেলে শেখ মুজিবুর রহমান পূর্ব পাকিস্তানে (তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তান) ফিরে আসেন এবং ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের আইন বিভাগে ভর্তি হন। এ সময় চতুর্থ শ্রেণির সরকারি কর্মচারীদের বেতন বৃদ্ধির দাবিতে আন্দোলনে যোগ দেন এবং অনশন ধর্মঘট শুরু করেন। এজন্য মুসলিম লীগ সরকার তাকে গ্রেফতার করে ঢাকা সেন্ট্রাল জেলে পাঠিয়ে দেয়। জোরালো আন্দোলন এবং অনশন ধর্মঘটের কারণে জেল কর্তৃপক্ষ তাকে মুক্তি দিতে বাধ্য হয়। এর পূর্বে ভারত, পাকিস্তান পৃথক হওয়ার সময় কলকাতায় হিন্দু মুসলিম ভয়ানক দাঙ্গা হয়। এ সময় শেখ মুজিবুর রহমান মুসলিমদের রক্ষা এবং দাঙ্গা নিয়ন্ত্রণে আনার জন্য হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর সাথে বিভিন্ন রাজনৈতিক তৎপরতায় অংশগ্রহণ করেন।

১৯৪৭ সালের ৬ ও ৭ সেপ্টেম্বর ঢাকায় অনুষ্ঠিত পূর্ব পাকিস্তানের কর্মী সম্মেলনে ভাষা বিষয়ক কিছু প্রস্তাব গৃহিত হয়। সম্মেলনের কমিটিতে গৃহিত প্রস্তাব পাঠ করেন সেদিনের ছাত্রনেতা শেখ মুজিবুর রহমান। ১৯৪৭ সালের ৪ জানুয়ারি শেখ মুজিবুর রহমান পূর্ব পাকিস্তান মুসলিম ছাত্রলীগ প্রতিষ্ঠা করেন যার মাধ্যমে তিনি পূর্ব পাকিস্তানের অন্যতম প্রধান ছাত্রনেতায় পরিণত হন। এসময় তিনি সমাজতন্ত্রের দিকে ঝুঁকে পড়েন এবং দারিদ্র, বেকারত্ব ও জীবনযাত্রার মান উন্নয়নের জন্য এটিকে একমাত্র সমাধান মনে করতে থাকেন। বাংলাকে পাকিস্তানের অন্যতম রাষ্ট্রভাষা করার দাবী নিয়ে প্রতিষ্ঠিত আন্দোলনে অংশ নেয়ার মাধ্যমে শেখ মুজিবুর রহমানের রাজনৈতিক তৎপরতার সূচনা ঘটে। ১৯৪৮ সালের ২৩ ফেব্রুয়ারি তারিখে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী খাজা নাজিমউদ্দিন গণ-পরিষদের অধিবেশনে বলেন, ‘উর্দুই হবে পাকিস্তানের একমাত্র রাষ্ট্রভাষা’। তাঁর এই বক্তব্যে সমগ্র পূর্ব পাকিস্তানে বিরূপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়। প্রতিবাদী শেখ মুজিবুর রহমান অবিলম্বে মুসলি লীগের এই পূর্ব পরিকল্পিত সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে আন্দোলন শুরুর সিদ্ধান্ত নেন। একই বছরের ২ মার্চ ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের ফজলুল হক হলে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের ছাত্রনেতৃবৃন্দকে নিয়ে একটি সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এই সম্মেলনে মুসলিম লীগের বিরুদ্ধে আন্দোলনের নীতিমালা নিয়ে আলোচনা করা হয় যেখানে শেখ মুজিবর রহমান একটি প্রস্তাব পেশ করেন। এখান থেকেই সর্বদলীয় সংগ্রাম পরিষদ গঠনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। এই পরিষদের আহ্বানে ১১ মার্চ ১৯৪৮ তারিখে ঢাকায় ধর্মঘট পালিত হয়। ধর্মঘট পালনকালে শেখ মুজিবসহ আরও কয়েকজন রাজনৈতিক কর্মীকে সচিবালয় ভবনের সামনে থেকে গ্রেফতার করা হয়। কিন্তু ছাত্রসমাজের তীব্র প্রতিবাদের মুখে ১৫ মার্চ শেখ মুজিব এবং অন্য ছাত্র নেতাদেরকে মুক্তি দেয়া হয়। এদের মুক্তি উপলক্ষে সর্বদলীয় রাষ্ট্রভাষা সংগ্রাম পরিষদ ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের বটতলায় এক র‌্যালি ও সভা হয় যাতে শেখ মুজিব সভাপতিত্ব করেন। পুলিশ এই র‌্যালি অবরোধ করেছিল। পুলিশী কার্যক্রমের প্রতিবাদে শেখ মুজিব ১৯৪৮ সালের ১৭ মার্চ তারিখে দেশব্যাপী ছাত্র ধর্মঘটের ঘোষণা দেন। এ ছাড়াও তিনি ১৯ মার্চ তিনি ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারীদের অধিকার আদায়ের লক্ষে একটি আন্দোলন পরিচালনা করেন। ১১ সেপ্টেম্বর ১৯৪৮ তারিখে তাকে আবার আটক করা হয় এবং তিনি ঢাকা বিশ^বিদ্যালয় থেকে বহিস্কৃত হন। উল্লেখ্য যে, ২০১০ সালের ১৪ আগস্ট তার হৃত ছাত্রত্ব (ঢাকা বিশ^বিদ্যালয়) ফিরিয়ে দেয়া হয়।

১৯৪৯ সালের ২১ জানুয়ারি শেখ মুজিবকে জেল থেকে মুক্তি দেয়া হয়। জেল থেকে বেরিয়ে আবার চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারীদের দাবী আদায়ের আন্দোলনে জড়িয়ে পড়েন যার জন্য তাঁকে বিশ^বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ জরিমানা করে। কিন্তু তিনি এই জরিমানাকে অবৈধ ঘোষণা করে তা প্রদান থেকে বিরত থাকেন। এরই ধারাবাহিকতায় ২৬ এপ্রিল মুসলিম লীগ বিরোধী প্রার্থী শামসুল হক টাঙ্গাইলে একটি উপ-নির্বাচনে বিজয় লাভ করেন। শেখ মুজিব তার সেই আন্দোলনের সফলতার জন্য উপাচার্যের বাসভবনের সামনে অনশনের ধর্মঘট করেন, এসময় তাকে আবার আটক করা হয়। তাঁর বিরুদ্ধে অভিযোগ ছিল বিশ^বিদ্যালয়ে চতুর্থ শ্রেণির কর্মচারীদের অধিকার আদায়ের আন্দোলনে নেতৃত্ব প্রদান। 

৪. ভাষা আন্দোলন, বঙ্গবন্ধু ও চক্রান্ত

ভাষা আন্দোলনকে ব্যর্থ করার জন্য নানারকম চক্রান্ত হলেও শেষ পর্যন্ত তা সফল হয়নি। বাংলা ভাষার আন্দোলন সাধারনভাবে শুধু ভাষারই আন্দোলন ছিল না, এটি ছিল বাঙালির স্বাধীকার ও অস্তিত্বের আন্দোলন। এই আন্দোলকে ব্যর্থ করার জন্য বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক গুরু হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীকে পর্যন্ত ব্যবহার করা হয়েছিল। তাঁকে ভুল বুঝিয়ে রাষ্ট্রভাষা উর্দুর পক্ষে বিবৃতি প্রকাশ করা হয়। এ সময় ত্রাতার ভূমিকায় আবির্ভূত হন বঙ্গবন্ধু, কারণ হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর বিবৃতি বাংলা ভাষা প্রতিষ্ঠাকে কঠিন করে তুলতো।

ভাষা আন্দোলনে বঙ্গবন্ধুর ভূমিকা নিয়ে ‘খোকা থেকে বঙ্গবন্ধু গ্রন্থে চমৎকার বর্ণনা রয়েছে-‘জাতীয় নেতা হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী ১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলনের বিপক্ষে অবস্থান নিয়েছিলেন। তিনি উর্দুকে রাষ্ট্রভাষা করার পক্ষে বিবৃতি দেন। সোহরাওয়ার্দী এই অবস্থানে দৃঢ় থাকলে ভাষা আন্দোলন অনেক ক্ষতির সম্মুখীন হতে পারত। কিন্তু শেখ মুজিবুর রহমান সোহরাওয়ার্দীর এই মত পরিবর্তনে সহায়ক ভূমিকা পালন করেন এবং বাংলাকে রাষ্ট্রভাষা করার পক্ষে তাঁর সমর্থন আদায় করেন। এই প্রসঙ্গে তিনি নিজেই বলেন, ‘ সে সময় শহীদ সোহরাওয়ার্দীর ভাষা সংক্রান্ত বিবৃতি প্রকাশিত হওয়ার পর আমরা বেশ অসুবিধায় পড়ি। তাই ওই বছর জুন মাসে আমি তাঁর সঙ্গে দেখা করার জন্য করাচি যাই এবং তাঁর কাছে পরিস্থিতি ব্যাখ্যা করে বাংলার দাবীর সমর্থনে তাঁকে একটি বিবৃতি দিতে বলি।’ (বদরুদ্দিন ওমর, পূর্ববাংলার ভাষা আন্দোলন ও তৎকালীন রাজনীতি, ৩য় খন্ড, পৃ. ৩৯৬).

বাংলা ভাষার প্রতি বঙ্গবন্ধুর গভীর দরদ ও অসীম রাজনৈতিক প্রত্যয়ের ফলশ্রুতিতে শহীদ সোহরাওয়ার্দী শেষ পর্যন্ত পাকিস্তানের অন্যতম রাষ্ট্রভাষা হিসেবে বাংলাকে সমর্থন দিয়ে বিবৃতি দেন। ১৯৫২ সালে দৈনিক ইত্তেফাক পত্রিকায় মাওলানা ভাসানীর একটি বিবৃতি প্রকাশিত হয়। বিবৃতিতে তিনি বলেন, ‘ বাংলা ভাষার পক্ষে হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর মত পরিবর্তনে মুজিব সক্ষম না হলে শুধু ভাষা আন্দোলন নয়, আওয়ামীলীগের ভবিষ্যত অনিশ্চিত হয়ে পড়ত।’ শেখ মুজিবুর রহমারে মত দূরদর্শী নেতার দ্বারাই সোহরাওয়ার্দীর মত পরিবর্তন সম্ভব হয়েছিল। প্রকৃতপক্ষে হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী সেদিন শেখ মুজিবুর রহমানকে বলেছিলেন,-‘একথা তো আমি বলি নাই। উর্দু ও বাংলা দুইটা হলে আপত্তি কি? এ কথাই বলেছিলাম।’ (উৎস: অসমাপ্ত আত্মজীবনী, শেখ মুজিবুর রহমান)

বাংলা ভাষা ও বাংলালিপির সংস্কার ও সংরক্ষণের ব্যাপারে শেখ মুজিবের একটি বক্তব্য প্রসঙ্গে মাহফুজা খানম সম্পাদিত মাসিক নওবাহার পত্রিকায় ১৩৮৯ বাংলা সনের চৈত্র সংখ্যার এক সম্পাদকীয়তে বলা হয়,‘আমরা এই ভাষা সমস্যা সমাধানের ভার অধ্যাপক আবুল কাশেম এবং শেখ মুজিবুর রহমানের উপর ন্যাস্ত করছি।’

২৭ এপ্রিল ১৯৫২ সর্বদলীয় রাষ্ট্রভাষা সংগ্রাম পরিষদের জেলা ও মহকুমা প্রতিনিধি সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সুদীর্ঘ আড়াই বছর কারাভোগের পর প্রথম বক্তৃতায় শেখ মুজিবুর রহমান বলেন-,‘জনগণের নায্য দাবীপ্রসূত আন্দোলনকে সরকার রাষ্ট্রের দুশমন ও এজেন্টেদের আন্দোলন বলে অভিহিত করেছেন। তিনি সরকারকে চালেঞ্জ দিয়ে বলেন, কারা রাষ্ট্রের দুশমন এর উপর গণভোট হউক। আমার বিশ্বাস, শতকরা ৯০ ভাগ ভোট আমাদের অনুকূলে দেওয়া হবে। তাঁর মতে, রাষ্ট্রভাষা সমস্যার সমাধান গণভোট মারফত অতি সহজেই হতে পারে।’

৫. ভাষা আন্দোলন নিয়ে বঙ্গবন্ধুর আত্নমূল্যায়ন

ইতিহাস তার বরপুত্রদের যোগ্য স্থান দেয়। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান পূর্ববাংলার পদ্মা-মেঘনা-যমুনা নদীর অববাহিকায় পলিসমৃদ্ধ উর্বর মাটিতে একটি স্বাধীন দেশ চেয়েছিলেন, যারা বাংলায় (বাংলা ভাষায়) কথা বলবে, নদীর জলে গোসল করে মাছ-দুধ দিয়ে পেট ভরে ভাত খাবে, আব্বাস উদ্দিন-আব্দুল আলিমের ভাটিয়ালি-পল্লিগীতি গাইবে, রবীন্দ্র সংগীতের সুরের মূর্ছনায় ঘুমুতে যাবে, নজরুলের চেতনায় জেগে উঠবে, জসিমউদদীনের পল্লিবালক হয়ে মাঠে কাজ করবে,জীবনানন্দের কবিতায় দেশপ্রেমে মুগ্ধ হয়ে দেশকে ভালবাসবে।

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ভাষা আন্দোলনে নিজের ভূমিকা ও তৎকালীন ঘটনাপ্রবাহ নিজেই মূল্যায়ন করে জেলখানায় বসে ২১ ফেব্রুয়ারি ১৯৬৭ (৮ ফাল্গুন) ডায়েরীতে যে সব কথা লেখেন তা ইতিহাসের এক অমূল্য দলিল। তিনি লিখেন-, ‘আজ অমর একুশে ফেব্রুয়ারি। ঠিক পনের বছর আগে সেদিন ছিল ১৩৫৮ সালের ৮ই ফাল্গুন, বৃহস্পতিবার, ইংরেজি ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি। মাতৃভাষার মর্যাদা রক্ষার জন্য শহীদ হয়েছিলেন পূর্ব পাকিস্তানের কয়েকজন বীরসন্তান: ১। আবদুস সালাম, ২। আবদুল জব্বার, ৩। আবুল বরকত, ৪। রফিকউদ্দিন, আহত হয়েছিলেন অনেকেই। ঠিক পনের বছর পূর্বে এইদিনেও আমি জেলে রাজবন্দি ছিলাম ফরিদপুর জেলে। ১৬ই ফেব্রুয়ারি থেকে অনশন ধর্মঘট করি। জানুয়ারি মাসে আমাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজে চিকিৎসার জন্য ভর্তি করা হয়। সেখানেই ছাত্রনেতৃবৃন্দের সাথে পরামর্শ করে ১৬ই ফেব্রুয়ারি অনশন করব আর ২১ই ফেব্রুয়ারি রাষ্ট্রভাষা বাংলা দিবস পালন করা হবে বলে স্থির করা হয়। আমাকে আবার জেল হাসপাতালে নিয়ে আসা হলো চিকিৎসা না করে। ১৫ই ফেব্রুয়ারি আমাকে ও মহিউদ্দিনকে ফরিদপুর জেলে চালান দেওয়া হলো। মহিউদ্দিনও আমার সাথে অনশন করবে স্থির করে দরখাস্ত দিয়েছিল।

আজ ঠিক পনের বছর পরেও এই দিনটাতে আমি কারাগারে বন্দি।
প্রথম ভাষা আন্দোলন শুরু হয় ১১ই মার্চ ১৯৪৮ সালে। পূর্ব পাকিস্তান মুসলিম ছাত্রলীগ (এখন পূর্ব পাকিস্তান ছাত্রলীগ) ও তমদ্দুন মজলিসের নেতৃত্বে। ঐদিন ১০টায় আমি, জনাব শামসুল হক সাহেবসহ প্রায় ৭৫ জন ছাত্র গ্রেপ্তার হই এবং আব্দুল ওয়াদুদসহ অনেকেই ভীষণভাবে আহত হয়ে গ্রেপ্তার হয়। ১৫ই মার্চ জনাব নাজিমুদ্দিন (তখন পূর্ব পাকিস্তান এর চীফ মিনিস্টার ছিলেন) সংগ্রাম পরিষদের সাথে আলাপ করে ঘোষণা করলেন, ‘পূর্ব পাকিস্তান আইন সভা হতে প্রস্তাব পাশ করাইবেন বাংলাভাষাকে অন্যতম রাষ্ট্রভাষা করতে’। সব বন্দিকে মুক্তি দিবেন এবং নিজেই পুলিশের অত্যাচারের তদন্ত করবেন। ওই দিন সন্ধ্যায় আমরা মুক্তি পাই।

১৬ই মার্চ আবার বিশ্ববিদ্যালয়ের আমতলায় সভা হয়, আম সেই সভায় সভাপতিত্ব করি। আবার বিকেলে আইন সভার সামনে লাঠিচার্জ হয় ও কাঁদানে গ্যাস ছোড়া হয়। প্রতিবাদের বিষয় ছিল, ‘নাজিমুদ্দিন সাহেবের তদন্ত চাই না, জুড়িশিয়াল তদন্ত করতে হবে।’ ২১ মার্চ বা দুই একদিন পরে কায়েদে আজম সাহেব প্রথম ঢাকায় আসবেন। সেইজন্য আন্দোলন বন্ধ করা হলো। আমরা অভ্যর্থনা দেওয়ার বন্দোবস্ত করলাম। তিনি এসে ঘোষণা করলেন, ‘উর্দুই একমাত্র রাষ্ট্রভাষা হবে।’ ছাত্ররা তার সামনেই কনভোকেশনে প্রতিবাদ করলো। রেসকোর্স ময়দানেও প্রতিবাদ উঠল। তিনি হঠাৎ চুপ করে গেলেন। যতদিন বেঁচে ছিলেন এরপরে কোনদিন ভাষার ব্যাপারে কোন কথা বলেন নাই। পূর্ব পাকিস্তান ছাত্রলীগ প্রত্যেক বছর ১১মার্চকে ‘ভাষা দিবস’ পালন করেছে। ১৯৪৯ সালে আওয়ামী মুসলিম লীগ (এখন আওয়ামী লীগ) এই একই দিনে ‘ভাষা দিবস’ পালন করেছে। ভাষা আন্দোলনে আওয়ামী লীগ ও ছাত্রলীগের অবদান সবচেয়ে বেশি। পরে ইয়ুথ লীগও আন্দোলনে শরীক হয়েছে।

১৯৪৮ সালের ১৫ই মার্চ তারিখে খাজা নাজিমুদ্দীন সাহেব পূর্ব পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী থাকাকালে যে ওয়াদা আইন সভায় করেছিলেন, ১৯৫২ সালের ২৬ জানুয়ারি পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী হয়ে তা ভেঙ্গে পল্টনের জনসভায় ঘোষণা করলেন, ‘উর্দুই রাষ্ট্রভাষা হবে’। তখন প্রতিবাদের ঝড় উঠল। আমি তখন বন্দি অবস্থায় মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। রাত্রের অন্ধকারে মেডিকেল কলেজের ছাত্রদের সহায়তায় নেতৃবৃন্দের সাথে পরামর্শ করে ২১ ফেব্রুয়ারি প্রতিবাদের দিন স্থির করা হয়। কারণ ২১ ফেব্রুয়ারি থেকে বাজেট সেশন শুরু হবে। আমি ১৬ ফেব্রুয়ারি থেকে অনশন শুরু করবো মুক্তির জন্য। কাজী গোলাম মাহবুব, অলি আহাদ, মোল্লা জালালউদ্দিন, মোহাম্মদ তোয়াহা, নঈমুদ্দিন, খালেক নেওয়াজ, আজিজ আহম্মদ, আব্দুল ওয়াদুদ ও আরো অনেকে গভীর রাতে আমার সঙ্গে দেখা করতো।

তখন জনাব নূরুল আমিন মূখ্যমন্ত্রী। ২১ ফেব্রুয়ারি গুলি হলো। আমার ভাইরা জীবন দিয়ে বাংলা ভাষার দাবী প্রতিষ্ঠা করলো। এইদিন আমাদের কাছে পবিত্র দিন। ১৯৫৫ সালে নূতন কেন্দ্রীয় আইন সভায় আওয়ামীলীগ ১২ জন সদস্য নিয়ে ঢুকল এবং তাদের সংগ্রামের ফলে পশ্চিম পাকিস্তানের নেতারা বাধ্য হলো ১৯৫৬ সালের শাসনতন্ত্রে বাংলা ও উর্দুকে রাষ্ট্রভাষা করতে। আওয়ামীলীগ যখন ১৯৫৬ সালে ক্ষমতায় বসল তখন ২১শে ফেব্রুয়ারিকে ‘শহীদ দিবস’ ও সরকারি ছুটি ঘোষণা করলো। ১৯৫৭-৫৮ সালে এই দিবসটা সরকারিভাবেও পালন করা হয়েছে। শহীদ মিনার করার জন্য পরিকল্পনা করে বাজেটে টাকা ধরে কাজ শুরু হয়েছিল কিন্তু ১৯৫৮ সালে মার্শাল ল জারী হওয়ার পরে এই দিনটি ছুটির তালিকা থেকে বাদ পড়ল, আর মিনারটা চুনকাম করেই শেষ করে দেওয়া হলো।

আমি কারাগারের এই ছোট্ট ঘরটি থেকে আমার আন্তরিক মোবারকবাদ জানাই বাংলার যুব সমাজ ও জনগণকে, আর শহীদদের রুহের মাগফেরাত কামনা করি।

পূর্ব পাকিস্তান ছাত্রলীগের সভাপতি সৈয়দ মজহারুল হক (বাকী) জামিন নিয়ে এতদিন জেলের বাইরে যেতে পারে নাই। আজ সকালে তাকে কোর্ট পাঠাইয়া দিয়েছে। জেলহাজত থেকে মুক্তি পেয়ে শহীদ দিবস পালন করছে।’(কারাগারের রোজনামচা,পৃ.২০৫-২০৭)

৬. ভাষা আন্দোলন পরবর্তীকালে বাংলা ভাষার উন্নয়নে বঙ্গবন্ধুর অবদান

১৯৫৫ সালের ৫ জুন শেখ মুজিবুর রহমান পাকিস্তান গণপরিষদের সদস্য নির্বাচিত হন। পাকিস্তান গণপরিষদের কার্যক্রমে বাংলাভাষা ব্যবহারের দাবী তুলে যে ভাষণ দেন তাতে তিনি উল্লেখ করেন-‘ অন্য কোন ভাষা জানি কি জানি না তা আমাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ নয়, আমরা এখানে বাংলাতে কথা বলতে চাই। যদি আমাদেরকে অনুমতি না দেওয়া হয়, তবে আমরা হাউজ পরিত্যাগ করবো। বাংলাকে অবশ্যই হাউজে গ্রহণ করে নিতে হবে-এটাই আমাদের স্ট্যান্ড।’

১৯৫৫ সালের ১৭ জানুয়ারিতে অনুষ্ঠিত আইন পরিষদের অধিবেশনে বঙ্গবন্ধু সংসদেও দৈনন্দিন কার্যসূচি বাংলা ভাষায় মুদ্রণ করার দাবী জানান। বঙ্গবন্ধু আইন সভায় বলেন-‘...I would like to say that our interpretation is that if forms official records and when the orders of Day were issued in English and Urdu it should also have been isuued in Bengali.’

একই সালের ৭ ফেব্রুয়ারির অধিবেশনে খসড়া শাসনতন্ত্রের অর্ন্তগত জাতীয় ভাষা সংক্রান্ত প্রশ্নে তিনি বলেছিলেন, ‘পূর্ববঙ্গে আমরা সরকারি ভাষা বলতে রাষ্ট্রীয় ভাষা বুঝি না। কাজেই খসড়া শাসনতন্ত্রে রাষ্ট্রের ভাষা সর্ম্পকে যেসব শব্দ ব্যবহৃত হয়েছে তা কুমতলবে করা হয়েছে। পাকিস্তানের জনগণের শতকরা ৫৬ ভাগ লোকই বাংলা ভাষায় কথা বলে, এ কথা স্মরণ করিয়ে দিয়ে বলেন, রাষ্ট্রীয় ভাষার প্রশ্নে কোনো ধোঁকাবাজি করা যাবে না। পূর্ববঙ্গের জনগণের দাবী এই যে, বাংলাও রাষ্ট্রীয় ভাষা হোক।’

১৬ ফেব্রুয়ারি তারিখে আইন সভার অধিবেশনেও তিনি বাংলাকে রাষ্ট্র ভাষা করার দাবী জানান। বাংলা ভাষা প্রসঙ্গে পাকিস্তান গণপরিষদে তখনকার তরুননেতা শেখ মুজিবুর রহমান বলেন,-‘ They want to place the word East Pakistan instead of East Bengal. We have demanded so many times that you should make East Bengal. The word Bengal has a history, has a tradition of its own…what about the state language Bengali.What about joint electorate. What about autonomy?... I will here and speak in Bengali and nobody can prevent me from doing that.’
(এমআর মাহবুব, জনক, বঙ্গবন্ধু সাহিত্য পরিষদ, আগস্ট, ২০০৯, পৃ. ১২৫-১৩৯ এর আলোকে অনুলিখন)

২৫ সেপ্টেম্বর ১৯৭৪, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের অধিবেশনে বাংলায় ভাষণ দিয়ে ইতিহাস সৃষ্টি করেন। তাঁর এই দূরদর্শী চিন্তা বাংলা ভাষা ও বাঙালি জাতিকে এক বিরল সম্মান এনে দেয়। তাঁর ভাষণের কিছু অংশ এখানে তুলে ধরা হলো-

‘জনাব সভাপতি,
আজ এই মহামহিমান্বিত সমাবেশে দাঁড়াইয়া আপনাদের সাথে আমি এই জন্য পরিপূর্ণ সন্তুষ্টির ভাগীদার যে, বাংলাদেশের সাড়ে ৭ কোটি মানুষ আজ এই পরিষদে প্রতিনিধিত্ব করিতেছেন। আত্ননিয়ন্ত্রণাধিকার প্রতিষ্ঠার সংগ্রামের পূর্ণতা চিহ্নিত করিয়া বাঙালি জাতির জন্য ইহা একটি ঐতিহাসিক মুহূর্ত। স্বাধীনভাবে বাঁচার অধিকার অর্জনের জন্য এবং একটি স্বাধীন দেশে মুক্ত নাগরিকের মর্যাদা নিয়া বাঁচার জন্য বাঙালি জনগণ শতাব্দীর পর শতাব্দীব্যাপী সংগ্রাম করিয়াছেন, তাঁহারা বিশ্বের সকল জাতির সাথে শান্তি ও সৌহার্দ্য নিয়া বাস করিবার জন্য আকাক্সিক্ষত ছিলেন। যে মহান আদর্শ জাতিসংঘ সনদে রক্ষিত আছে, আমাদের লক্ষ লক্ষ মানুষ সেই আদর্শের জন্য সর্বোচ্চ ত্যাগ স্বীকার করিয়াছেন। আমি জানি, শান্তি ও ন্যায় প্রতিষ্ঠার উদ্দেশ্যে সকল মানুষের আশা-আকাক্সক্ষা বাস্তবায়নের উপযোগী একটি বিশ্ব গড়িয়া তোলার জন্য বাঙালি জাতি পূর্ণ প্রতিশ্রুতিবদ্ধ, আমাদের এই অঙ্গীকারের সাথে শহীদদের বিদেহী আত্নাও মিলিত হইবে। ইহা বিশেষ আনন্দের ব্যাপার যে, স্বাধীনতা যুদ্ধের একজন সক্রিয় যোদ্ধা সভাপতি থাকাকালেই বাংলাদেশকে এই পরিষদের অন্তর্ভুক্ত করিয়া নেওয়া হইয়াছে। 

জনাব সভাপতি, গত বছরের সেপ্টেম্বর মাসে আলজিয়ার্সে অনুষ্ঠিত জোটনিরপেক্ষ দেশগুলোর শীর্ষ সম্মেলনের সাফল্যের ব্যাপারে আপনাদের মূল্যবান অবদানের কথা আমি স্মরণ করিতেছি। যাঁদের ত্যাগের বিনিময়ে বাংলাদেশ বিশ্ব-সমাজে স্থানলাভ করিয়াছে, এই সুযোগে আমি তাঁদেরকেও অভিবাদন জানাই। বাংলাদেশের সংগ্রামে সমর্থনদানকারী সকল দেশ ও জনগণের প্রতি আমি গভীর কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করিতেছি। বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংহতকরণ, যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশের পুনর্গঠন ও ভয়াবহ চ্যালেঞ্জের মোকাবিলায় বাংলাদেশকে যাঁহারা মূল্যবান সাহায্য দিতেছেন, তাঁহাদেরকেও আমরা ধন্যবাদ জানাই। জাতিসংঘে যাঁহারা আমাদের স্বাগত জানাইয়াছেন, তাঁহাদেরকে আমি বাংলাদেশের পক্ষ হইতে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাইতেছি।...

বাংলাদেশ প্রথম হইতেই ‘শান্তিপূর্ণ সহ-অবস্থান ও সকলের প্রতি বন্ধুত’¡ এই নীতিমালার উপর ভিত্তি করিয়া জোটনিরপেক্ষ নীতি গ্রহণ করিয়াছে। কেবলমাত্র শান্তিপূর্ণ পরিবেশই কষ্টলব্ধ জাতীয় স্বাধীনতার ফল ভোগ করিতে আমাদেরকে সক্ষম করিয়া তুলিবে এবং সক্ষম করিয়া তুলিবে দারিদ্র, ক্ষুধা, রোগ, অশিক্ষা ও বেকারের বিরুদ্ধে লড়াই করিবার জন্য আমাদের সকল শক্তি ও স¤পদকে সমাবেশ ও কেন্দ্রীভূত করিতে। এই ধারণা হইতে জন্ম নিয়াছে শান্তির প্রতি আমাদের প্রতিশ্রুতি। এই জন্য সমঝোতার অগ্রগতি, উত্তেজনা প্রশমন, অস্ত্র সীমিতকরণ এবং শান্তিপূর্ণ সহ-অবস্থান নীতির সম্প্রসারণের লক্ষ্যে এশিয়া, আফ্রিকা, ইউরোপ, ল্যাটিন আমেরিকা সহ বিশ্বের যে কোনো অংশে যে কোনো প্রচেষ্টা গ্রহণ করা হউক না কেন, আমরা তাহাকে স্বাগত জানাই। এই নীতির প্রতি অবিচল থাকিয়া আমরা ভারত মহাসাগরীয় এলাকা স¤পর্কে শান্তি এলাকার ধারণা, যাহা এই পরিষদ অনুমোদন করিয়াছে, তাহাকে সমর্থন করি। আমরা দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়াকে শান্তি, স্বাধীন এবং নিরপেক্ষ এলাকায় পরিণত করার প্রতিও সমর্থন জানাই।

জনাব সভাপতি, মানুষের অজেয় শক্তির প্রতি বিশ্বাস, মানুষের অসম্ভবকে জয় করার ক্ষমতা এবং অজয়কে জয় করার শক্তির প্রতি অকুণ্ঠ বিশ্বাস রাখিয়া আমি আমার বক্তৃতা শেষ করিতে চাই। আমাদের মতো যেইসব দেশ সংগ্রাম ও আত্নদানের মাধ্যমে নিজেদেরকে প্রতিষ্ঠিত করিয়াছে, এই বিশ্বাস তাহাদের দৃঢ়। আমরা দুঃখ ভোগ করিতে পারি কিন্তু মরিব না। টিকিয়া থাকার চ্যালেঞ্জ মোকাবিলা করিতে জনগণের দৃঢ়তাই চরম শক্তি। আমাদের লক্ষ্য স্ব-নির্ভরতা। আমাদের পথ হইতেছে জনগণের ঐক্যবদ্ধ ও যৌথ প্রচেষ্টা। আন্তর্জাতিক সহযোগিতা এবং স¤পদ ও প্রযুক্তিবিদ্যার শরিকানা মানুষের দুঃখ-দুর্দশা হ্রাস করিবে এবং আমাদের কর্মকান্ডকেও সহজতর করিবে, ইহাতে কোনো সন্দেহ নাই। নতুন বিশ্বের অভ্যুদয় ঘটিতেছে। আমাদের নিজেদের শক্তির উপর আমাদের বিশ্বাস রাখিতে হইবে। আর লক্ষ্য পূরণ এবং সুন্দর ভাবীকালের জন্য আমাদের নিজেদেরকে গড়িয়া তুলিবার জন্য জনগণের ঐক্যবদ্ধ ও সমন্বিত প্রয়াসের মাধ্যমেই আমরা আগাইয়া যাইব।’ 
(বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান: জীবন ও রাজনীতি, খন্ড ২, বাংলা একাডেমি, ২০০৮)

৭. উপসংহার

১৯৫২ সালের ভাষা আন্দোলনের বিস্ফোরণের পর এর চেতনাকে কাজে লাগিয়ে যুক্তফ্রন্ট গঠন করা হয়। ১৯৫৪ সালে যুক্তফ্রন্ট সরকারের একজন মন্ত্রী হিসেবে শেখ মুজিবুর রহমান সমকালীন রাজনীতি এবং বাংলা ভাষার উন্নয়নে অবদান রাখেন। পরবর্তীকালেও তিনি বাংলা ভাষা ও তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের বাঙালিদের অধিকারে সেই একই দাবী ও কথাগুলো আরো বর্ধিত উচ্চারণে জাতির ও বিশ্ব ফোরামে তুলে ধরতে সক্ষম হন।

‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান আমৃত্যু বাংলা ভাষার একনিষ্ঠ সেবক হিসেবে বাংলা ভাষার উন্নয়ন ও সর্বস্তরে বাংলা ভাষা প্রচলনের সফল,সার্থক ও যোগ্য নেতা ছিলেন বলেই ভাষা সমস্যার ভার তাঁর ওপর অর্পিত হয়েছিল। এই মহান নেতা বিশ্ব দরবারে বাংলা ভাষার স্বীকৃতি আদায় ও বাংলা ভাষাভাষীদের আন্তর্জাতিক অঙ্গণে পরিচয় করিয়ে দিয়েছেন। ১৯৭৪ সালের ২৫ সেপ্টেম্বর জাতিসংঘে বাংলা ভাষায় ভাষণ দিয়ে যে ঐতিহাসিক ভুমিকা পালন করেছেন, তা ইতিহাসের পাতায় চিরদিন স্বর্ণাক্ষরে লেখা থাকবে। বিশ্বসভায় বাংলা ভাষার মর্যাদা প্রতিষ্ঠায় এটাই ছিল প্রথম সফল উদ্যোগ। ১৯৯৯ সালে মাতৃভাষাপ্রেমী তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার শাসনামলে ২১ ফেব্রুয়ারি আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবসের মর্যাদা লাভ এবং বর্তমান সরকার কর্তৃক জাতিসংঘে বাংলাকে দাপ্তরিক ভাষা করার উদ্যোগ গ্রহণ-এ সবই বঙ্গবন্ধুর সুদূরপ্রসারী চিন্তার বাস্তব রূপায়ণ।’ (খোকা থেকে বঙ্গবন্ধু, পৃ.৭৭)

লেখক: সহযোগী অধ্যাপক
সরকারি টিচার্স ট্রেনিং কলেজ, ঢাকা