ঢাকা, বুধবার, ২৩ জানুয়ারি ২০১৯, ১০ মাঘ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

কঙ্কালের হাসি

শাহরিনা হক
প্রকাশিত: ৩১ অক্টোবর ২০১৮ বুধবার, ০৬:০৪ পিএম
কঙ্কালের হাসি

মার্জিয়ার খুব কাছের বন্ধু পড়াশুনা করতো মেডিকেল কলেজে, থাকতো মেডিকেলের হোস্টেলে। একবার বেড়াতে যাওয়ার সুবাদে মার্জিয়া বন্ধুর হোস্টেলে তিনদিন থেকেছিল। বন্ধুর অসম্ভব পড়ার চাপ, ক্লাস, প্রফ। তাই সময় কাটছিল ধীরেসুস্থেই। মার্জিয়া আগে থেকেই মেডিকেলের পড়াশুনা, পোস্টমর্টেম, কঙ্কাল নিয়ে বিভিন্ন ভয়ের কথা শুনলেও তেমন আমলে নেয়নি।

দ্বিতীয় রাতে মার্জিয়ার বন্ধু, তাদের রুমমেট আর আরও বন্ধুরা মিলে সেই আড্ডায় মেতে ওঠে। বেশিরভাগই মৃত্যু, মরা মানুষ মানে লাশ, পোস্টমর্টেম নিয়েই আড্ডা হচ্ছিলো। প্রথমে শুনতে ভালো লাগলেও পরে কেমন অস্বস্তি শুরু হতে থাকে। এরপরেই আড্ডা থেমে যায়।

সেই অস্বস্তি নিয়েই ঘুমাতে যায় সে। ঘুম আসে না প্রথমে। ঠিক এমন সময়েই চোখ পড়ে ঘরের কোণে ঢেকে রাখা কঙ্কালের দিকে। জানালা দিয়ে বাতাস এসে ঢাকা মুখটা বেরিয়ে গেছে, আর আলো সেটার মুখে এসে পড়েছে। দেখে মনে হচ্ছিলো তাকে দেখে কঙ্কালটা হাসছে। বিভিন্ন লাশ, আত্মার কথা মনে পড়ে মনের অজান্তেই বেরিয়ে আসে চিৎকার। রুমের সবাই মিলে তাকে শান্ত করে ঠিকই, কিন্তু বাকি রাত না ঘুমিয়েই কাটে তার।

এই অভিজ্ঞতার পর মার্জিয়া আর কখনো বন্ধুর হোস্টেলে যায়নি। এমনকি এই জাতীয় কোনো গল্প সে শুনতে পারে না। টিভি বা ছবিতেও কোনো ভৌতিক ছবি সে আর সহ্য করতে পারে না। অথচ এটার কোনো ব্যাখ্যা বা কারণ নেই।

বাংলা ইনসাইডার/এসএসইচ