ঢাকা, মঙ্গলবার, ০৪ আগস্ট ২০২০, ২০ শ্রাবণ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

‘চুরি না করলে এত ভয় কেন?’

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২৯ জানুয়ারি ২০১৮ সোমবার, ০৮:০০ পিএম
‘চুরি না করলে এত ভয় কেন?’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা মন্তব্য করেছেন, ‘চুরি না করলে এত ভয় কেন? খালেদা জিয়া যদি এতিমের টাকা মেরে নাই খাবেন, তাহলে এত উদ্বিগ্ন কেন? সোমবার মন্ত্রিসভার বৈঠকের পর দলের কয়েকজন সিনিয়র নেতাদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এই মন্তব্য করেন। প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এই বিচারের রায় তো বহু আগেই হবার কথা ছিল। বেগম জিয়া তো টালবাহানা করে বিচার পিছিয়েছেন। অসুস্থতার অজুহাতে দেড়শবারের বেশি কোর্টে হাজিরা দেননি। বিভিন্ন ইস্যুতে হাইকোর্টে গেছেন, সুপ্রিম কোর্টে গেছেন। এই মামলা যদি রাজনৈতিক উদ্দেশ্য প্রণোদিত হতো তাহলে তো হাইকোর্ট, সুপ্রিম কোর্টই মামলা খারিজ করে দিত, তাতো হয়নি।’ প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা আদালতের কাজে হস্তক্ষেপ করি না, কি রায় দেবে না দেবে, সেটা আদালতের বিষয়।’

আওয়ামী লীগের একাধিক শীর্ষ নেতা প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ৮ ফেব্রুয়ারির রায় এবং পরবর্তী রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে কথা বলেন। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, ‘এবারও তারা ২০১৪’র মতো নির্বাচন বানচালের অজুহাত খুঁজছে। কারণ তারা জানে, নির্বাচন হলে মানুষ তাঁদের ভোট দেবে না। প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, ‘সন্ত্রাসী, দুর্নীতিবাজদের মানুষ পছন্দ করে না, এখন মানুষ অনেক সচেতন হয়েছে।’ প্রধানমন্ত্রী ২০০১ এবং ২০১৪, ১৫ সালে বিএনপির সন্ত্রাসের উদাহরণ টেনে বলেন, ‘এরপর তারা মানুষের কাছে ভোট চায় কোন মুখে।’ প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, বিএনপি আবারও সন্ত্রাস ও নৈরাজ্য সৃষ্টি করে গণতন্ত্র বিপন্ন করতে চায়। ২০১৪ তেও তারা একই চেষ্টা করেছিল। ২০১৪ তে তারা সফল হয়নি, এবারও হবে না।’

প্রধানমন্ত্রী রায়কে ঘিরে যেন বিএনপি কোনো নৈরাজ্য সৃষ্টি না করতে পারে সেজন্য সজাগ ও সচেতন থাকার পরামর্শ দেন। তিনি বলেন, ‘এবার অবশ্যও আমাদের কিছু করতে হবে না। জনগণই তাদের প্রতিহত করবে। কারণ গত নয় বছরে দেশে যে উন্নয়ন হয়েছে তা ব্যাহত হতে জনগণ দেবে না। মানুষের কর্মচাঞ্চল্যতাকে যারা বাধাগ্রস্থ করার চেষ্টা করবে, তাদের জনগণই ধাওয়া দেবে।’

প্রধানমন্ত্রী অত্যন্ত আশ্চর্য হয়ে বলেন, ‘কেবল রায়ের তারিখ দিয়েছে, তাতেই বিএনপি হৈ হৈ করে উঠেছে। তারা কি তাহলে আইন মানে না, বিচার মানে না? অবশ্য দলটির জন্মই তো বেআইনিভাবে। তাই এসবের প্রতি শ্রদ্ধাবোধ তাঁদের নেই।’

প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, ‘দীর্ঘ ১০ বছর ধরে বিচার কাজ হয়েছে। খালেদা জিয়া ও তাঁর আইনজীবীরা আইনি লড়াই করেছেন। এখন কেন তারা আন্দোলনের হুমকি দিচ্ছে। মানে কি, বিচার মানি, তালগাছ আমার?’

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিএনপি যে গণতান্ত্রিক দল নয়, গণতন্ত্রে বিশ্বাস করে না, তা আবারও প্রমাণ করল। তারা পিছনের দরজা দিয়ে ক্ষমতায় যেতে চায়, সে সুযোগ পাবে না।’

প্রধানমন্ত্রী বিএনপির আন্দোলন, হুমকি পাত্তা না দিয়ে নির্বাচনের প্রস্তুতি নিতে বলেন। এবার আন্দোলন করলে বিএনপি অচিরেই সংকটে পড়বে বলেও তিনি মন্তব্য করেন। এসময় প্রধানমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগ সভাপতি কিছু নির্দেশনাও দেন।

Read In English: http://bit.ly/2Gt25yY
 

বাংলা ইনসাইডার/জেডএ