ঢাকা, রোববার, ২০ জুন ২০২১, ৬ আষাঢ় ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

‘প্লিজ স্বাধীনতা পদককে কলঙ্কিত করবেন না’

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ৩১ জানুয়ারি ২০১৮ বুধবার, ০৪:০৮ পিএম
‘প্লিজ স্বাধীনতা পদককে কলঙ্কিত করবেন না’

২০০২ সালের ৪ নভেম্বর। এমিরেটসের প্লেন ঢাকা বিমান বন্দর থেকে ছাড়ার প্রস্তুতি নিচ্ছে। এমন সময় প্লেনে উঠলেন গোয়েন্দাদের একটি দল। কুখ্যাত কালা ফারুকসহ চ্যানেল আইয়ের একটি দলকে প্লেন থেকে নামিয়ে আনা হলো। কালা ফারুক ছিল সে সময় মোস্ট ওয়ান্টেড ক্রিমিনাল। চ্যানেল আইয়ের একটি সাংস্কৃতিক দল যাচ্ছিল সুইডেনে। ওই সাংস্কৃতিক দলের সুইডেন সফরের জন্য আমন্ত্রণ পাঠিয়েছিল শাইখ সিরাজের ভাই শেখ নজরুল ইসলামের ভায়রা সুইডেন প্রবাসী মঞ্জুর হোসেন। ভিসার জন্য চ্যানেল আইয়ের প্যাডে চ্যানেল আই কতৃপক্ষকে না জানিয়ে সুপারিশ করেন শাইখ সিরাজ। ওই সাংস্কৃতিক প্রতিনিধি দলের নামের তালিকায় শুভ্রদেবসহ কয়েকজন সাংস্কৃতিক ব্যক্তির সঙ্গে শাইখ সিরাজের ভাই নজরুল ইসলাম এবং কালা ফারুকের নামও যুক্ত করা হয়। কালা ফারুককে বিদেশ পাঠিয়ে দেওয়ার জন্য শাইখ সিরাজের সঙ্গে মোটা অংকের চুক্তি হয়েছিল। ওই ঘটনায় শুভ্র দেব, শাইখ সিরাজের সহকারী নজরুল ইসলাম কোরেশী কালা ফারুকের সঙ্গে আটক হন। শাইখ সিরাজকেও গোয়েন্দা দপ্তরে ডেকে নেওয়া হয়। কিন্তু বিএনপি তখন ক্ষমতায়, হাওয়া ভবনের হস্তক্ষেপে শাইখ সিরাজ ধরাছোঁয়ার বাইরে চলে যান। মামালা ধামাচাপা পড়ে কালা ফারুক কথিত বন্দুকযুদ্ধে নিহত হন। এরকম একটি ঘটনা নয়, এরকম অনেক ঘটনা রয়েছে। যেখানে দেখা যাবে হাওয়া ভবনের সঙ্গে শাইখ সিরাজের ঘনিষ্ঠতা। হাওয়া ভবনের এই ঘনিষ্ঠ ব্যাক্তি এ বছরের স্বাধীনতা পদকের জন্য কীভাবে মনোনীত হলেন, সে ব্যাপারে বিস্ময় প্রকাশ করেছেন খোদ আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ। আওয়ামী লীগের একাধিক নেতা বলেছেন ‘এটা যদি হয় তা হবে মুক্তিযুদ্ধের চেতনার উপর একটি বড় আঘাত।’ দেশের একাধিক গণমাধ্যম ব্যক্তিত্ব বলেছেন, ‘একজন অসাংবাদিককে যদি সাংবাদিকতার জন্য স্বাধীনতা পদক দেওয়া তাহলে সেটা হবে এই পুরস্কারকে কলঙ্কিত করা।’ একজন প্রবীণ সম্পাদক বলেছেন, ‘বিএনপি-জামাত জোট বহুবার স্বাধীনতা পদক রাজাকার এবং স্বাধীনতা বিরোধীদের হাতে দিয়ে কলঙ্কিত করেছে। আওয়ামী লীগ যেন এমনটা না করে।’ তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর কাছে বিনীত অনুরোধ প্লিজ স্বাধীনতা পদক অপাত্রে তুলে দেবেন না।’

 

বাংলা ইনসাইডার/