ঢাকা, মঙ্গলবার, ২০ নভেম্বর ২০১৮, ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

বিএনপির বুদ্ধিজীবীরা নীরব কেন?

নিউজ ডেস্ক
প্রকাশিত: ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ মঙ্গলবার, ১১:২১ পিএম
বিএনপির বুদ্ধিজীবীরা নীরব কেন?

জিয়া অরফানেজ দুর্নীতি মামলায় পাঁচ বছর কারাদণ্ডিত হয়ে বৃহস্পতিবার থেকে পুরোনো ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারে রয়েছেন বিএনপির চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। ছয় দিন অতিবাহিত হয়ে গেল এ বিষয়ে বিএনপির বুদ্ধিজীবীদের কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি এখনো। দলটির নেতা-কর্মীদের প্রশ্ন কোথায় গেলেন দলের বুদ্ধিজীবীরা?

দেশে আওয়ামী লীগ-বিএনপি দুই দলের মতাদর্শী অনেক বুদ্ধিজীবীই আছেন স্মরণকালের ইতিহাস ঘেঁটে দেখা যায়, ওয়ান ইলেভেনের সময় দুই দলের দুই নেত্রীর কারারুদ্ধ হন। তখন দলের মধ্যে রাজনৈতিক নেতাদের বিভিন্ন মতে বিভক্ত দেখা যায়। কিন্তু এক ছিলেন দলেরমতাদর্শী বুদ্ধিজীবীরা। তাঁরা প্রতিবাদ করেছেন আন্দোলন করেছেন, কারারুদ্ধ পর্যন্ত হয়েছেন।

সর্বশেষ তত্ত্বাবধায়ক সরকারের আমলে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম জিয়া কারারুদ্ধ হওয়ার পর তাঁকে মুক্তির আন্দোলনে গিয়ে আটক হয়েছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতির সাবেক সভাপতি সদরুল আমিন। ওই সময় ঐক্য গড়ে তুলেছিন বিএনপিপন্থী বুদ্ধিজীবী ঢাবিঅধ্যাপক ড. তাজমেরি এস ইসলাম (পরে বেগম জিয়ার উপদেষ্টা), ড. মাহবুব উল্লাহ, রুহুল আমিন, শফিক রেহমান, জাফরুল্লাহ সহ অনেকে। ওই সময় আওয়ামী লীগপন্থী বুদ্ধিজীবীরাও ঐক্য গড়ে তুলেছিলেন।  

বেগম জিয়া কারান্তরীণ হওয়ার পর ছয়দিন অতিবাহিত হলেও বিএনপির বুদ্ধিজীবীদের তেমন কোনো প্রতিবাদ বা ঐক্যবদ্ধ প্রচেষ্টা দেখা যায়নি। এমনকি চোখে পড়ার মতো কোনো বিবৃতিও দেননি এই বুদ্ধিজীবীরা। অনেকের মধ্যেই প্রশ্ন তবে দলটির রাজনৈতিক নেতাদের মতোই কী বিভাজিত হয়ে পড়েছেন বুদ্ধিজীবীরা।

একাধিক সূত্রে জানা গেছে, বুদ্ধিজীবীদের ঐক্য রক্ষায বরাবরই সচেষ্ট দেখা গেছে বিএনপিকে। সম্প্রতি মেয়র নির্বাচন ঘিরে ১০০ বুদ্ধিজীবীর প্যানেলও ঘোষণা করেছিল বিএনপি। আর অতিসম্প্রতি জিয়া অরফানেজের রায় হওয়ার আগেও দলটির চেয়ারপারসন বেগম জিয়া বুদ্ধিজীবীদের সঙ্গে আলোচনা করেন।

এত কিছুর পরও বিএনপির বুদ্ধিজীবীদের নীরবতা তরুণ নেতাকর্মীদের ক্ষুব্ধ এবং সিনয়রদের হতাশ করে তুলছে। দলটির অনেকেরই প্রশ্ন কেন এই নীরবতা?

বাংলা ইনসাইডার/জেডএ