ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০, ৯ আশ্বিন ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

ক্ষমতা দখলের বার্ষিকীতে আবার দখলের প্রত্যয়

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২৪ মার্চ ২০১৮ শনিবার, ১০:১৩ পিএম
ক্ষমতা দখলের বার্ষিকীতে আবার দখলের প্রত্যয়

জাতীয় পার্টির জন্য আজকের দিনটি ছিল তুমূল উত্তেজনার। দলটির স্মরণকালের ইতিহাসের বৃহত্তম সমাবেশ করেছে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে। সকাল থেকে টেলিভিশনগুলোর পর্দায় কিছুক্ষণ পর পর সোহরাওয়ার্দী উদ্যান সরাসরি। দলের চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ পাশে স্ত্রী ও দলের কো চেয়ারম্যান রওশন এরশাদ। দুই পাশে অন্যন্য নেতারা।

অনেক নাটকীয়তায় ভরা জাতীয় পার্টির সমাবেশ। নেতাদের কবিতা গান ছাপিয়ে দিনশেষে একটি বিষয়ই থাকল দলের চেয়ারম্যান হু. মু. এরশাদ ঘোষণা, আগামী নির্বাচনে জাতীয় পার্টি জয়ী হয়ে সরকার গঠনের শক্তি অর্জন করেছে। ক্ষমতায় যাওয়ার জন্য জাতীয় পার্টি প্রস্তুত।

এমন এক দিনে এরশাদ এই ঘোষণা দিলেন ৩৬ বছর আগে একই দিনে বাংলাদেশের ইতিহাসে তাঁর স্বৈরাচারী কালো অধ্যায়ের শুরু হয়। ১৯৮২ সালের ২৪ মার্চ সামরিক ফরমান জারি করে জাতীয় সংসদ ও প্রেসিডেন্টসহ মন্ত্রিপরিষদ বাতিল করে সংবিধানের কার্যকরিতা স্থগিত ঘোষণা করেন এরশাদ। দখল করেন রাষ্ট্রক্ষমতা।

প্রায় ৯ বছর ক্ষমতায় থাকার পর, ১৯৯০ সালের ১ ডিসেম্বর ক্ষমতা ছাড়ার ঘোষণা দেন এরশাদ। তবে পরের ছয় দিন ক্ষমতায় টিকে থাকার সব চেষ্টা করেও পতন এড়াতে পারেননি তিনি। শুধু তাই নয়, ক্ষমতা হারানোর পর কারাগারেও যেতে হয় তাঁকে। অবশ্য এরশাদ বিশ্বে ভাগ্যবান একমাত্র স্বৈরাচার, যিনি গণঅভ্যুত্থানের মাধ্যমে ক্ষমতাচ্যুত হবার পরও এখনো বহাল তবিয়্যতে আছেন। 

বর্তমান সরকারের প্রধানমন্ত্রীর বিশেষ দূত হিসেবে মন্ত্রীর সম্মান পাচ্ছেন এরশাদ। আবার নিজের দলের প্রচারে ক্ষমতা দখলের প্রত্যয় জানালেন তিনি। মাত্র তিন দশকের মধ্যে কোনো স্বৈরশাসকের আবার ক্ষমতায় কাছাকাছি আসার ঘটনা বিরল। কিন্তু সেটাই সম্ভব হয়েছে বাংলাদেশে। শুধু ফিরেছেন বললে ভুল হবে আবার রাষ্ট্রক্ষমতা দখলের হুমকিও দিচ্ছেন এরশাদ। তবে সাবেক স্বৈরাচারের আশা এবং বাস্তবতা দেখা যাবে বছর শেষেই নির্বাচনে।  

বাংলা ইনসাইডার/জেডএ

বিষয়: এরশাদ