ঢাকা, শনিবার, ১৯ জুন ২০২১, ৫ আষাঢ় ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

বিএনপির সংবাদ সম্মেলনে বাংলা ইনসাইডার

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৩ এপ্রিল ২০১৮ মঙ্গলবার, ১২:৪৩ পিএম
বিএনপির সংবাদ সম্মেলনে বাংলা ইনসাইডার

১২৫ কোটি টাকার সন্দেহজনক লেনদেনের অভিযোগে বিএনপির কয়েকজন নেতার বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। এই অভিযোগের পরিপ্রেক্ষিতে সংবাদ সম্মেলন করেছে বিএনপি। আজ মঙ্গলবার সোয়া ১২ টার দিকে নয়া পল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনের দুদকের অভিযোগের সঙ্গে বাংলা ইনসাইডারের প্রতিবেদনের মিল আছে বলে অভিযাগ করেন বিএনপির নেতারা।

সংবাদ সম্মেলনে বিএনপি নেতা ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেন, গত ১৭ মার্চ প্রকাশিত বাংলা ইনসাইডারের প্রতিবেদনের সঙ্গে গতকালের দুদকের অভিযোগের মিল পাওয়া যায়। সংবাদ সম্মেলনে বিভিন্ন লেনদেনে কিছু মিলের কথা তিনি উল্লেখ করেন।

উল্লেখ, ১২৫ কোটি টাকার সন্দেহজনক লেনদেনে অভিযুক্ত বিএনপি নেতাদের মধ্যে আছেন মির্জা আব্বাস, নজরুল ইসলাম খান, ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মোর্শেদ খান, আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, আবদুল আওয়াল মিন্টু, হাবিব-উন-নবী খান সোহেল, তাবিথ আউয়াল ও ফয়সাল মোর্শেদ খান।

সোমবার রাতে সন্দেহজনক লেনদেনের অভিযোগে বিএনপি নেতাদের বিরুদ্ধে দুদকের তদন্তের কথা জানা যায়। অবশ্য, বাংলা ইনসাইডার গত ১৭ মার্চ এক প্রতিবেদনে বিএনপির উল্লিখিত নেতাদের বিরুদ্ধে কোটি কোটি টাকার সন্দেহজনক লেনদেনের খবর প্রকাশ করে, যা বাংলাদেশের গণমাধ্যমগুলোর মধ্যে সবার প্রথম।

১৭ মার্চ ‘বিএনপির ৮ নেতার অ্যাকাউন্টে অস্বাভাবিক লেনদেন’ শিরোনামে (https://bit.ly/2GB1CLz) বাংলা ইনসাইডারে প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়, বিএনপির আট নেতার অ্যাকাউন্টে সন্দেহজনক লেনদেনের তথ্য পেয়েছে গোয়েন্দারা। ধারণা করা হচ্ছে, নাশকতা করা অথবা জঙ্গিদের অর্থায়নের জন্য এসব লেনদেন হয়েছে। গোয়েন্দারা টাকার উৎস এবং এই টাকা কোথায় গেছে তা নিয়ে তদন্ত করছে। তদন্তের স্বার্থে এসব নেতাকে গ্রেপ্তারও করা হতে পারে বলে গোয়েন্দা সূত্রে জানা গেছে। যে ৮ জন নেতার অ্যাকাউন্ট থেকে অস্বাভাবিক লেনদেনের তথ্য গোয়েন্দাদের কাছে এসেছে তাঁরা হলেন: ১. আবদুল আউয়াল মিন্টু ২. তাবিথ আউয়াল ৩. মোর্শেদ খান ৪. ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন ৫. মির্জা আব্বাস ৬. আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী ৭. নজরুল ইসলাম খান এবং ৮. হাবিব-উন-নবী খান সোহেল ।

বাংলা ইনসাইডার/জেডএ