ঢাকা, মঙ্গলবার, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৪ আশ্বিন ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

সড়ক আইন পাসে মন্ত্রিসভার বৈঠক শুরু

নিউজ ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৬ আগস্ট ২০১৮ সোমবার, ১০:২৯ এএম
সড়ক আইন পাসে মন্ত্রিসভার বৈঠক শুরু

নিরাপদ সড়কের দাবিতে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের মধ্যেই আজ ‘সড়ক পরিবহন আইন-২০১৮’ এর খসড়া চূড়ান্ত অনুমোদনের লক্ষ্যে মন্ত্রিসভা বৈঠক শুরু হয়েছে। আজ সোমবার সকাল ১০টায় সচিবালয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে শুরু হওয়া এই বৈঠকে সড়ক আইনের খসড়া উত্থাপন করা হয়।

খসড়া আইনে নতুন কিছু বিষয় সংযুক্ত করা হয়েছে। নতুন আইন অনুযায়ী ড্রাইভিং লাইসেন্সে পেতে হলে অষ্টম শ্রেণী পাশ করতে হবে। আগে শিক্ষাগত যোগ্যতার কোনও প্রয়োজন ছিল না। এছাড়া চালকের সহকারীর পঞ্চম শ্রেণি পর্যন্ত শিক্ষাগত যোগ্যতা থাকতে হবে। গাড়ি চালানোর জন্য বয়স অন্তত ১৮ বছর হতে হবে। অবশ্য পুরনো আইনেও এই বিধান ছিল।

প্রস্তাবিত আইনে গাড়ি চালানোর সময় মোবাইল ফোনে কথা বলার শাস্তি রাখা হয়েছে এক মাসের কারাদণ্ড এবং ২৫ হাজার টাকা জরিমানা। ড্রাইভিং লাইসেন্স ছাড়া গাড়ি চালালে ছয় মাসের কারাদণ্ড এবং পঞ্চাশ হাজার টাকা পর্যন্ত জরিমানার বিধান রয়েছে।

প্রস্তাবিত আইন অনুযায়ী গাড়ি চালিয়ে উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে হত্যা করলে ধারা ৩০২ অনুযায়ী মৃত্যুদণ্ডের বিধান থাকবে। এছাড়া বেপরোয়াভাবে গাড়ি চালানোর কারণে কিংবা প্রতিযোগিতা করে গাড়ি চালানোর কারণে মৃত্যু ঘটালে তিন বছর কারাদণ্ডের বিধান রাখা হয়েছে। নতুন সড়ক আইনে আরও থাকছে, পাল্লা দিয়ে গাড়ি চালানো বা রেস করার ফলে দুর্ঘটনা ঘটলে তিন বছরের কারাদণ্ড অথবা ২৫ লাখ টাকা জরিমানারও বিধান।

নতুন সড়ক পরিবহন আইনে লাইসেন্স ছাড়া গাড়ি চালালে ৬ মাসের কারাদণ্ড বা ৫০ হাজার টাকার জরিমানা হতে পারে এবং এক্ষেত্রে পরোয়ানা ছাড়াই চালককে গ্রেপ্তারও করা যাবে। চালকদের পয়েন্ট কাটার বিধান রাখা হয়েছে প্রস্তাবিত আইনে। একজন চালক প্রতিবার আইন অমান্য করলে তার পয়েন্ট বিয়োগ হবে এবং এক পর্যায়ে লাইসেন্স বাতিল হবে।

এছাড়া নতুন সড়ক পরিবহন আইন অনুযায়ী, লাইসেন্সবিহীন গাড়ি চালানোসহ নানা অপরাধে এই আইনে শাস্তির বিধান থাকলেও, দুর্ঘটনার কারণে মৃত্যু বা ফৌজদারি অপরাধের অভিযোগ থাকলে তার বিচার ফৌজদারি আইনেই হবে।

পরিবহন নেতাদের আপত্তিতে দীর্ঘ ৮ বছর ধরে ঝুলছিল সড়ক পরিবহন আইন। অবশেষে এই আইন পাস করার উদ্যোগ নেওয়া হলো। সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের জানিয়েছেন, প্রস্তাবিত সড়ক পরিবহন আইন বাস্তবায়ন হলে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের অনেক দাবিই পূরণ হয়ে যাবে।

বাংলা ইনসাইডার/এসএইচটি/জেডএ