ঢাকা, সোমবার, ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২০, ১১ ফাল্গুন ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

৫০ আসনে বিশেষ জরিপ ও অন্যান্য সংবাদ

নিউজ ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৮ সেপ্টেম্বর ২০১৮ শনিবার, ০৮:৪৪ এএম
৫০ আসনে বিশেষ জরিপ ও অন্যান্য সংবাদ

আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন সামনে রেখে ৫০ আসনে বিশেষ জরিপ করিয়েছেন। এ জন্য ব্যয় হয়েছে তিন কোটি টাকা। গত বৃহস্পতিবার প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে তিনি আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সংসদের জরুরি বৈঠকে এই তথ্য জানিয়েছেন। বৈঠকে ধর্মমন্ত্রী অধ্যক্ষ মতিউর রহমান ও ভূমিমন্ত্রী শামসুর রহমান শরীফ ডিলুর কড়া সমালোচনা করা হয়েছে। (সমকাল)

অন্যান্য সংবাদ

সত্যকে মিথ্যা দিয়ে চাপা দেওয়া যায় না :প্রধানমন্ত্রী

প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, সত্যকে কখনো মিথ্যা দিয়ে চাপা দেওয়া যায় না। এক সময় বঙ্গবন্ধুর নাম নেওয়া নিষেধ ছিল। এখন বঙ্গবন্ধুর নাম বিশ্বে ছড়িয়ে পড়েছে। বঙ্গবন্ধুর ৭ই মার্চের ভাষণ বিশ্ব প্রামাণ্য ঐতিহ্য হিসেবে স্বীকৃতি পেয়েছে। তিনি বলেন, বাংলাদেশের ইতিহাস থেকে বঙ্গবন্ধুর নাম মুছে ফেলার জন্য অনেক চেষ্টা করা হয়েছে, কিন্তু পারেনি। দিন যতই যাচ্ছে বাংলাদেশের ইতিহাস ততো সমৃদ্ধ হচ্ছে। শুধু বাংলাদেশে নয়, সারাবিশ্বে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নাম আরও উজ্জ্বল হয়েছে। (ইত্তেফাক)

নির্বাচনকালীন সরকার প্রধানমন্ত্রীর ইচ্ছায়

নির্বাচনকালীন সরকার বলে সংবিধানে কিছু নেই। এ ধরনের কোনো বিধানও নেই সংবিধানে। প্রধানমন্ত্রীর ইচ্ছানুযায়ী নির্বাচনকালীন সরকার গঠিত হবে। এ সরকারের মন্ত্রিসভার আকার ছোট না বড় হবে এ বিষয়েও প্রধানমন্ত্রীই সিদ্ধান্ত নেবেন। শুধু নির্বাচিত প্রতিনিধিদের নিয়ে সরকার গঠনের কোনো বাধ্যবাধকতাও নেই। এমনকি টেকনোক্রেট মন্ত্রীদের মন্ত্রিসভা থেকে বাদ দেয়ারও প্রয়োজন নেই। নির্বাচনের সময় এ সরকার শুধু রুটিন কাজ করবে- এরও কোনো ভিত্তি নেই। সরকারের সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয় বা বিভাগ ইসির কাছে ন্যস্ত হতে হবে এমন কিছুও সংবিধানে উল্লেখ নেই। পুরো বিষয়গুলোই কাল্পনিক, বায়বীয়। নির্বাচনকালীন সরকার নিয়ে সংবিধানসহ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে বিশেষজ্ঞরা এসব কথা বলেন। (যুগান্তর)

রোহিঙ্গা ফেরত না নেওয়ার অপরাধও মানবতাবিরোধী

বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া রোহিঙ্গাদের মিয়ানমার ফিরিয়ে না নিলে বা ফিরতে বাধা দিলে তা মানবতাবিরোধী অপরাধ হিসেবে গণ্য হতে পারে বলে অভিমত দিয়েছেন আন্তর্জাতিক ফৌজদারি আদালত (আইসিসি)। গত বৃহস্পতিবার রাতে নেদারল্যান্ডসের হেগে আইসিসির প্রি-ট্রায়াল চেম্বার-১-এর ঐতিহাসিক রায়ের পর্যবেক্ষণ অংশে এ অভিমত স্থান পেয়েছে। বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া লাখ লাখ রোহিঙ্গা মিয়ানমারে বলপূর্বক বাস্তুচ্যুতির শিকার হওয়ার অভিযোগসংক্রান্ত একটি আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে আইসিসি রায়ে বলেছেন, বলপূর্বক বাস্তুচ্যুতি ও বিতাড়িত করে ঠেলে পাঠানোসহ অন্যান্য অভিযোগ তদন্ত করতে পারবেন আইসিসি। ওই রায়ে আইসিসির প্রসিকিউটরকে (কৌঁসুলি) যৌক্তিক সময়ের মধ্যে অভিযোগগুলোর প্রাথমিক তদন্ত শেষ করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। (কালের কণ্ঠ)


বাংলা ইনসাইডার/এসএইচটি