ঢাকা, শনিবার, ১৯ জুন ২০২১, ৫ আষাঢ় ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

গণমাধ্যম ব্যক্তিত্বদের চোখে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৮ শুক্রবার, ১১:১২ এএম
গণমাধ্যম ব্যক্তিত্বদের চোখে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন

বহুল আলোচিত ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন জাতীয় সংসদে পাশ হয়েছে। গত বুধবার ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্য-প্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার সংসদে বিলটি পাশের প্রস্তাব করলে কন্ঠভোটে সেটি পাশ হয়।

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনকে ‘বাক স্বাধীনতা ও মুক্ত সাংবাদিকতার পরিপন্থী’ বলে দাবি করেছেন সংবাদ মাধ্যমের সম্পাদকদের সংগঠন ’সম্পাদক পরিষদ’। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের ৬টি ধারা সংশোধনের দাবি জানিয়েছে তাঁরা। সদ্য পাশ হওয়া এ আইনের ধারা নিয়ে নিজেদের প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন জনপ্রিয় গণমাধ্যমের প্রতিনিধিররা।  

খন্দকার মনিরুজ্জামান

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক, দৈনিক সংবাদ


’এই আইন দেশের গণতন্ত্র, গণমাধ্যম ও মত প্রকাশের স্বাধীনতাকে আঘাত করবে। দেশের সাধারণ নাগরিক ও মিডিয়া ক্ষতির সম্মুখীন হবে। মানুষ মৌলিক অধিকার থেকে বঞ্চিত হবে ও মানুষের মধ্যে ভীতি তৈরি হবে। এর ফলে সংবিধান দ্বারা জনগণের নিশ্চিত অধিকার খর্ব হবে। আমরা একটি খারাপ সময়ের দিকে যাচ্ছি।’

নঈ নিজাম

সম্পাদক, বাংলাদেশ প্রতিদিন


’এই আইনটি মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বিরোধী। সামনের দিনগুলোতে স্বাধীন সাংবাদিকতা হুমকির মুখে পড়বে। আমরা ভেবেছিলাম সাংবাদিকতার স্বাধীনতা, মত প্রকাশের স্বাধীনতা ও মুক্ত চিন্তার জন্য সরকার আমাদের (সম্পাদক পরিষদ) পরামর্শ গ্রহণ করবে। কিন্তু সেটি হলো না।‘

ইকবাল সোবহান চৌধুরী

সম্পাদক, দ্য ডেইলি অবজার্ভার


’ডিজিটাল অপরাধ দমন করার জন্য আইনের প্রয়োজন রয়েছে। আমরা মনে করি, ডিজিটাল গণ মাধ্যমগুলোর স্বাধীনতা প্রয়োজন। তা সত্ত্বেও কখনো কখনো গণমাধ্যমের স্বাধীনতার অপব্যবহার লক্ষ করা যায়। আমি আশা করছি, এই আইন কেবল ডিজিটাল অপরাধের বিরুদ্ধে হবে, মুক্ত স্বাধীনতার বিপক্ষে নয়।’

শ্যামল দত্ত

সম্পাদক, ভোরের কাগজ


‘এটি আমাদের জন্য খুবই হতাশার ও দু:খজনক। সম্পাদক পরিষদ কর্তৃক যে উদ্বেগ প্রকাশ করা হয়েছিল তা বিবেচনায় নেওয়া হয়নি। এই আইন প্রণয়নের ফলে আমরা আমাদের পূর্ববর্তী অবস্থানে অটল আছি। সম্পাদক পরিষদের বৈঠকে আমরা পরবর্তী পদক্ষেপের বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেব।’

মাহফুজ আনাম

সাধারণ সচিব, সম্পাদক পরিষদ

সম্পাদক প্রকাশক, দি ডেইলি স্টার


’মত প্রকাশের স্বাধীনতা, গণ মাধ্যমের স্বাধীনতা ও গণতন্ত্রের জন্য এটি একটি দু:খজনক দিন। আজকের এই ডিজিটাল যুগের বুদ্ধিবৃত্তিক পরিবেশের সঙ্গে অসঙ্গতিপূর্ণ আইন এটি। ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের প্রভাব ডিজিটাল বাংলাদেশের ওপরও পড়বে।’

সৈয়দ ইশতিয়াক রেজা

ভাইস প্রেসিডেন্ট, বিএফইউজে

প্রধান সম্পাদক, গাজী টিভি


’আমরা দু:খিত ও ব্যথিত। সম্পাদক পরিষদ, বাংলাদেশ ফেডারেল ইউনিয়ন অফ জার্নালিস্টস অ্যান্ড অ্যাসোসিয়েশ ও টেলিভিশন চ্যানেল মালিক সমিতির মতামত উপেক্ষা করেই সরকার খুব দ্রুত এই আইনটি পাশ করেছে। এতে সংবিধান কর্তৃক প্রতিশ্রুত গণমাধ্যমের স্বাধীনতা ও মত প্রকাশের স্বাধীনতা খর্ব হতে পারে বলে আমরা সংশয় প্রকাশ করছি।’

মোজাম্মেল বাবু

সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট, এটকো


’এই আইনের বিরুদ্ধে আমাদের পয়েন্টগুলো লিখিত আকারে সংরক্ষণ করেছি এবং আমাদের বেশিরভাগ পয়েন্টই বিবেচনায় আনা হয়েছে। এই আইন সাংবাদিকদের তথ্য সংগ্রহের অধিকার খর্ব করবে না। ডিজিটাল প্ল্যাটফর্মের নৈরাজ্য বন্ধের উদ্দেশ্যে এই আইন প্রণয়ন করা হয়েছে।


বাংলা ইনসাইডার/জেডআই/জেডএ