ঢাকা, বুধবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১৫ আশ্বিন ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

‘বিএনপির একগুয়ে আইনজীবীরা অসম্মান করেছেন আদালতকে’

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮ সোমবার, ০১:১২ পিএম
‘বিএনপির একগুয়ে আইনজীবীরা অসম্মান করেছেন আদালতকে’

খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা একগুয়ে আচরণ করে আদালতকে অসম্মান করেছেন বলে মন্তব্য করেছেন দুদকের আইনজীবী মোশাররফ হোসেন কাজল। আজ সোমবার দুপুরে জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার যুক্তিতর্ক শুনানিতে খালেদা জিয়ার আইনজীবীদের উপস্থিত না হওয়া প্রসঙ্গে তিনি একথা বলেন। 

খালেদা জিয়ার আইনজীবীরা আজ পুরান ঢাকার নাজিম উদ্দিন রোডের পুরনো কেন্দ্রীয় কারাগারের ভেতর স্থাপিত বিশেষ জজ আদালতে পূর্ব নির্ধারিত যুক্তিতর্ক শুনানিতে উপস্থিত না হয়ে দরখাস্তের মাধ্যমে আদালতের প্রতি অনাস্থা জ্ঞাপন করেছেন। স্বভাবতই এই দরখাস্ত আমলে না নিয়ে আগামীকাল মঙ্গলবার যুক্তিতর্ক শুনানির নতুন দিন ধার্য করেছেন আদালত।

এরপরও যদি বিএনপির আইনজীবীরা শুনানিতে হাজির না হন তাহলে রায়ের দিন ধার্য করার জন্য রাষ্ট্রপক্ষ আদালতের কাছে আবেদন জানানো হবে বলে জানিয়েছেন দুদকের আইনজীবী মোশাররফ হোসেন কাজল।

এর আগে গত ১২ সেপ্টেম্বর মামলার যুক্তিতর্ক শুনানির জন্য দিন ধার্য করা হয়েছিল। কিন্তু সেদিন খালেদা জিয়াকে আদালতে হাজির করতে পারেনি কারা কর্তৃপক্ষ। এর পরিবর্তে খালেদার কাস্টডি আদালতে পাঠানো হয়। সেখানে উল্লেখ করা হয় খালেদা জিয়া আদালতে হাজির হতে অনিচ্ছুক। এরপর ১৩ সেপ্টেম্বরও খালেদার অনিচ্ছার কথা জানিয়ে একই কাস্টডি পাঠানো হয় আদালতে। সেদিন মামলার বাদী দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) আইনজীবী ও আসামিপক্ষের আইনজীবীদের বক্তব্য শুনে খালেদা জিয়ার অনুপস্থিতিতেই বিচার চলবে কি না, এ বিষয়ে আদেশের জন্য ২০ সেপ্টেম্বর দিন ধার্য করেন আদালত।

গত ২০ সেপ্টেম্বর ঢাকার পঞ্চম বিশেষ জজ আদালতের বিচারক মো. আখতারুজ্জামান খালেদা জিয়ার অনুপস্থিতিতেই জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলার বিচার চলবে বলে আদেশ দেন। আদেশে তিনি আরও বলেন, মামলা দ্রুত নিষ্পত্তি করতে খালেদা জিয়ার হাজিরা ডিসপেনসড উইথ (আদালতে হাজিরা মওকুফ) করা হলো। তাঁর অনুপস্থিতিতে বিচার হবে। তাঁর পক্ষে আইনজীবীরা ইচ্ছা করলে হাজিরা দিতে পারবেন। এরপর আদালত ২৪, ২৫ ও ২৬ সেপ্টেম্বর বেলা সাড়ে ১০টা থেকে জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলার যুক্তি উপস্থাপনের তারিখ ধার্য করেন।

২০১১ সালের ৮ আগস্ট খালেদা জিয়াসহ চার জনের বিরুদ্ধে ৩ কোটি ১৫ লাখ ৪৩ হাজার টাকা আত্মসাতের অভিযোগে জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলাটি দায়ের করে দুদক। এ মামলায় ২০১২ সালের ১৬ জানুয়ারি আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করা হয়।

বাংলা ইনসাইডার/এসএইচটি/জেডএ