ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২২ এপ্রিল ২০২১, ৯ বৈশাখ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

‘সাত দিনের মধ্যে লোকবল দিয়ে ওটি, আইসিউ চালু করে দেই’

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২৪ অক্টোবর ২০১৮ বুধবার, ০১:৩৭ পিএম
‘সাত দিনের মধ্যে লোকবল দিয়ে ওটি, আইসিউ চালু করে দেই’

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, নিমতলী অগ্নিকাণ্ডের সময় সাত দিনের মধ্যে পর্যাপ্ত লোকবল সরবরাহ করে ঢাকা মেডিকেল বার্ন ইউনিটের অপারেশন থিয়েটার ও আইসিউ চালু করে সরকার।

আজ বুধবার বিশ্বের সবচেয়ে বড় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউট ‘শেখ হাসিনা বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউট’ এর উদ্বোধন অনুষ্ঠানে বক্তব্য প্রদাণকালে প্রধানমন্ত্রী এ কথা বলেন ।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, প্রথমবার প্রধানমন্ত্রী থাকা অবস্থায় তিনি ২০০০ সালে ঢাকা মেডিকেল কলেজের বার্ন ইউনিট উদ্বোধন করে দিয়ে যান। কিন্তু সরকার বদল হওয়ার পর এই ইউনিটের কোনো অগ্রগতি হয়নি। নিমতলী অগ্নিকাণ্ডের পর দেখা গেল, ঢাকা মেডিকেলের বার্ন ইউনিটে অপারেশন থিয়েটার ও আইসিউ নেই। ডা. সামন্ত লাল সেন জানান, লোকবলের অভাবে ওটি ও আইসিউ চালু করা যাচ্ছে না। তখন সরকার ৭ দিনের মধ্যে লোকবল দিয়ে অটি আর আইসিউ চালু করে দেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আজকে উদ্বোধিত ‘শেখ হাসিনা বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউটকে বিশ্বমানের ইন্সটিটিউট হিসেবে গড়ে তুলতে অনেক পরিকল্পনা রয়েছে তাঁর। উন্নত মেজিনারিজ আমদানি, ডাকার-নার্সহসহ সংশ্লিষ্ট উন্নত ট্রেনিংয়ের ব্যবস্থা করা হবে যাতে কোনো আগুনে পোড়া রোগীকে আর বিদেশে যেতে না হয়।

এই প্রসঙ্গে শেখ হাসিনা বলেন, সামনে নির্বাচন। জনগণ ভোট দিলে আবার ক্ষমতায় এসে সব পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করবো। কিন্তু জনগণ ভোট না দিলে অন্য কেউ ক্ষমতায় আসবে। তখন যেন বার্ন ইউনিটের মতো বার্ন ইন্সটিটিউটের কার্যক্রমও থমকে না যায় সেটি আপনারা দেখবেন।

আজ বুধবার বেলা সাড়ে এগারটার দিকে বিশ্বের সবচেয়ে বড় বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউট ‘শেখ হাসিনা বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউট’ এর উদ্বোধন করেন।

ঢাকা মেডিকেলের অদূরে চাঁনখারাপুলে বিশেষায়িত এই  হাসপাতালে থাকছে সর্বাধুনিক চিকিৎসা সরঞ্জাম, উন্নত প্রযুক্তি, ২৪টি ডাবল, ২৮টি সিঙ্গেল কেবিনসহ মোট ৫০০ টি শয্যা থাকছে এই হাসপাতালে। একসঙ্গে ১০ জন রোগীর অস্ত্রোপচারের ব্যবস্থাও থাকছে এই হাসপাতালে। নতুন এই হাসপাতাল দেশের চিকিৎসা ব্যবস্থায় নতুন দিগন্তের উম্মোচন করবে বলে মনে করছেন প্রকল্প সংশ্লিষ্টরা।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ২০১৬ সালের এপ্রিলে এই ইনস্টিটিউটের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেন। প্রকল্পের মেয়াদ শেষ হওয়ার দুই মাস আগেই প্রস্তুত হয়ে গেছে ‘শেখ হাসিনা বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইনস্টিটিউট’ নামের এই বিশেষায়িত হাসপাতাল।

বাংলা ইনসাইডার/এসএইচটি