ঢাকা, বুধবার, ২১ অক্টোবর ২০২০, ৫ কার্তিক ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

যে কারণে আন্দোলন করছে পরিবহন শ্রমিকরা


প্রকাশিত: ২৮ অক্টোবর ২০১৮ রবিবার, ০৫:৪৯ পিএম
যে কারণে আন্দোলন করছে পরিবহন শ্রমিকরা

 

সারা দেশে পরিবহন শ্রমিকদের ৪৮ ঘণ্টা কর্ম বিরতি চলছে। সদ্য পাস হওয়া সড়ক পরিবহন আইনের কয়েকটি ধারা দাবিতে সারাদেশে পরিবহন ধর্মঘট পালন করছে বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন শ্রমিক ফেডারেশন। আজ রোববার ভোর থেকে শুরু হয়েছে এ ধর্মঘট। এতে চরম ভোগান্তিতে পড়েছে সাধারণ জনগণ। কিন্তু কেন এই আন্দোলন?

সাম্প্রতিক সময়ে পরপর বেশ কয়েকটি সড়ক দুর্ঘটনায় মৃত্যুর ঘটনায় চালকদের দক্ষতা নিয়ে ব্যাপক আলোচনা সৃষ্টি হয়। নিরাপদ সড়কের দাবিতে স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের ব্যাপক আন্দোলনের মুখে সরকার ‘সড়ক পরিবহন আইন-২০১৮’ আইন প্রণয়ন করে। সম্প্রতি আইনটি সংসদে পাশ হয়েছে।

নতুন এ আইনের বিভিন্ন ধারা নিয়ে শুরু থেকেই আপত্তি জানিয়ে আসছিল পরিবহন শ্রমিকরা। আইনের ৮টি বিষয় সংশোধনের জন্য গত মাসের ২৭ তারিখ সমাবেশ করে শ্রমিক ফেডারেশন। ধর্মঘটে যাবার আগে সরকারকে স্মারকলিপি দিয়েছেন তারা। দাবি না মানলে শুরু হয় ধর্মঘট।

এ বিষয়ে শ্রমিক ফেডারেশনের সাধারণ সম্পাদক ওসমান আলী বিবিসি বাংলার সঙ্গে কথা বলেন। তিনি বলেন, তারা `গণতান্ত্রিক আন্দোলন` করছেন। পরিবহন ধর্মঘটের মাধ্যমে তাঁরা যাত্রীদের জিম্মি করছেন না বলে মনে করেন ওসমান আলী।

চালকদের দক্ষ হিসেবে গড়ে তোলার জন্য প্রতিটি জেলায় ট্রেনিং সেন্টার স্থাপন প্রয়োজন। সেজন্য সরকার আগ্রহ দেখাচ্ছে না বলে অভিযোগ করেন ওসমান আলী।

সংসদে নতুন যে আইন পাশ করা হয়েছে, সেটির অনেক ভালো দিক আছে। তবে কিছু বিষয় সংশোধনের প্রয়োজন আছে। এর মধ্যে অন্যতম বিষয় হলো, সড়ক দুর্ঘটনায় জামিন অযোগ্য করার বিষয়টি সংশোধন করা। সড়ক দুর্ঘটনার মামলা যদি জামিন অযোগ্য হয়, তাহলে তো পরিবহন শ্রমিকদের পক্ষে গাড়ি পরিচালনা করা সম্ভব না।

দুর্ঘটনার জন্য পরিবহন শ্রমিকরা এককভাবে দায়ী নয়। কারণ, শুধুমাত্র চালকের কারণে দুর্ঘটনা ঘটে না। রাস্তায় পথচারীর কারণে, গাড়ির ব্রেক ফেল করলে কিংবা রাস্তার পাশে হাট-বাজার বসলেও দুর্ঘটনা ঘটে। তদন্ত করে যে বা যারা দায়ী তাঁদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া উচিত।

সূত্র: বিবিসি

বাংলা ইনসাইডার/জেডআই/জেডএ