ঢাকা, বুধবার, ১৬ জুন ২০২১, ২ আষাঢ় ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

শামীম ওসমানের আসনে বিএনপি মাঠে নেই

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২০ ডিসেম্বর ২০১৮ বৃহস্পতিবার, ০৭:১৮ পিএম
শামীম ওসমানের আসনে বিএনপি মাঠে নেই

নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন শামীম ওসমান। তার বিপরীতে এই আসনে লড়ছেন ঐক্যফ্রন্টের মুফতি মনির হোসাইন কাসেমি। বিএনপির শীর্ষ নেতাদের বাড়ি বাড়ি গিয়েও এখন পর্যন্ত কোনো নেতার সাড়া পাননি কাসেমি। নির্বাচনী প্রচারণায় বিএনপি নেতাকর্মীরা মাঠে না নামায় একাই চলছেন ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী। 

ফতুল্লা থানা বিএনপির সভাপতি শাহ আলম নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনে বিএনপির মনোনয়ন পেতে দীর্ঘদিন ধরে রাজনৈতিকভাবে সক্রিয় ভূমিকা পালন করে আসছিলেন। দলীয় মনোনয়নের প্রত্যাশা নিয়ে শাহ আলম কেন্দ্রীয়ভাবে অনেক দৌড়ঝাঁপ চালিয়েছেন। একই আসনে আরেক মনোনয়ন প্রত্যাশী বিএনপির সাবেক এমপি গিয়াস উদ্দিন দলীয়ভাবে সক্রিয় ভূমিকা পালন করে আসছিলেন। তিনিও মনোনয়ন পাওয়ার প্রত্যাশা নিয়ে শীর্ষ মহলে দৌড়ঝাঁপ করেছেন।  

নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পর নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনে দলীয়ভাবে মনোনয়নের চিঠি দেওয়া হয়েছিল নারায়ণগঞ্জ জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক মামুন মাহমুদ ও ফতুল্লা থানা বিএনপির সভাপতি শাহ আলমকে। অন্যদিকে গিয়াস উদ্দিন দলীয় মনোনয়নের চিঠি না পেয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র দাখিল করেছিলেন। তবে বিএনপির এই হেভিওয়েট প্রার্থীদের বাদ দিয়ে ঐক্যফ্রন্ট থেকে মুফতি মনির হোসাইন কাসেমিকে চূড়ান্ত মনোনয়ন দেওয়া হয়। অপরিচিত একজন প্রার্থীকে মনোনয়ন দেয়ায় রাগে ক্ষোভে কাসেমির পক্ষে বিএনপির কেউ মাঠে নামছেন না বলে স্থানীয় বিএনপির নেতারা জানান। 

নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের ফতুল্লা এলাকা বিএনপির ঘাঁটি হলেও নির্বাচনী মাঠ এখন পর্যন্ত আওয়ামী লীগের দখলে। বিএনপি নেতাকর্মীরা কাসেমীর পক্ষে প্রচার-প্রচারণায় মাঠে নামছেন না। শুধু রাস্তায় পোস্টার এবং মাইকিং করা ছাড়া ধানের শীষের মাঠ শূন্য। দেখে মনে হচ্ছে না নৌকার প্রার্থী শামীম ওসমানের আসনে ধানের শীষের কোনো প্রার্থী নির্বাচন করছেন না।

স্থানীয় বিএনপি নেতারা বলেন, শামীম ওসমানের মতো প্রার্থীর সঙ্গে নির্বাচনী লড়াই করতে গিয়ে বিএনপির নেতাকর্মী বিপদে পড়লে কাসেমির মতো ব্যক্তিকে কাছে পাবে না এমন আশঙ্কায় নির্বাচন থেকে দূরে রয়েছেন বিএনপির শীর্ষ নেতারাও।

বাংলা ইনসাইডার/আরকে