ঢাকা, রোববার, ১৩ জুন ২০২১, ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

জনগণের বিজয় হোক

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ৩০ ডিসেম্বর ২০১৮ রবিবার, ০৮:০০ এএম
জনগণের বিজয় হোক

বাঙালী জাতি রাজনীতি মনস্ক। ভোট পাগল। উন্নত পশ্চিমা বিশ্বে যেমন ভোটারদের ভোট দিতে উৎসাহিত করতে নানা বিধি ব্যবস্থা নিতে হয়, তবুও ভোট বিমুখ জনগণ। আমাদের দেশে বিষয়টা তেমন নয়। এখানে ভোটের জন্য জীবন বাজি রাখে। এই একদিনের রাজত্ব এদেশের ভোটাররা ভালোই উপভোগ করে। বাংলাদেশে তাই ভোটকে বলা হয় ভোট উৎসব। এখানে মানুষ উৎসব আনন্দের মধ্যে ভোট দেয়। দীর্ঘ সময় লাইনে দাড়িয়ে থাকে।

এদেশের মানুষ ভাষার জন্য জীবন দিয়েছে।

এদেশের মানুষ স্বাধীনতার জন্য জীবন দিয়েছে।

এদেশের মানুষ গণতন্ত্র রক্ষার জন্য জীবন দিয়েছে।

ভোটের অধিকারের জন্য রক্ত দিয়েছে। 

আমাদের ভোটাধিকার তাই রক্তের দামে কেনা। তাই ভোট আমাদের দেশে পবিত্র এক উৎসবও বটে। তবে মাঠে মধ্যে এই উৎসবে কালিমা লেপে কিছু দুর্বৃত্ত। ওরা ভোটের উৎসবে আঘাত করে। মানুষের ভোটাধিকার হরণের চেষ্টা চালায়। পেশি শক্তি আর সন্ত্রাসে পরাজিত করতে চায় মানুষের অধিকারকে। যারা এটা করে, তারা কেবল গণতন্ত্রের শত্রুই নয়, জনগণের শত্রু। একটি নির্বাচনে কোন দল জিতবে, কেউ হারবে। কিন্তু শেষ পর্যন্ত নির্বাচনে জয়ী হয় একটি পক্ষই, সেটি হলো জনগণ। নির্বাচনে যদি কারচুপি, সহিংসতা, ভোট প্রদানে বাধার ঘটনা ঘটে, তাহলে পরাজিত হয় জনগণ।

আমরা তাই একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জনগণের জয় চাই। গণতন্ত্রের বিজয় চাই। আমরা চাই জনগণের অভিপ্রায়ের প্রকাশ যেন ঘটে নির্বাচনে। ভোটের মাধ্যমে যেন জন আকাঙ্ক্ষার প্রতিফলন ঘটে।

আজকের নির্বাচনের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ তার গণতন্ত্রের অভিযাত্রার নতুন মাইলফলক অর্জন করছে। অন্যান্য গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রের মতোই বাংলাদেশ নির্বাচন করছে ‘নির্বাচিত প্রতিনিধিদের নেতৃত্বে একটি সরকারের অধীনে।’

এই নির্বাচনের মধ্যে দিয়ে আমরা গণতন্ত্রের প্রাতিষ্ঠানিক ভিত্তিকে আরো এক ধাপ এগিয়ে নিয়েছি। কিন্তু আমাদের মনে রাখতে হবে, আমাদের অর্জনগুলো মাঝেমাঝে ম্লান হয়ে যায় একটা ব্যর্থতায়, একটা ভুল সিদ্ধান্তে। তাই আজ ভোট উৎসব হোক শান্তির পক্ষে, গণতন্ত্রের পক্ষে, জনগণের পক্ষে।

জয় হোক জনগণের।

জয় হোক বাংলাদেশের।

বিজয়ী হোক গণতন্ত্র।

বাংলা ইনসাইডার/এমআর

 

বিষয়: নির্বাচন