ঢাকা, বুধবার, ১৬ জুন ২০২১, ২ আষাঢ় ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

হেভিওয়েট প্রার্থীর লড়াই

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ৩০ ডিসেম্বর ২০১৮ রবিবার, ০৮:০১ এএম
হেভিওয়েট প্রার্থীর লড়াই

‘রাজনীতি’ শব্দটি আমাদের নিত্য জীবনের সঙ্গে এমনভাবে জড়িয়ে রয়েছে যে চাইলেই এ শব্দটি আলাদা করা যায় না। রাজনৈতিক দোলাচালে উত্তপ্ত আজকের বিশ্ব। সেই উত্তাপে কোন অংশেই পিছিয়ে নেই শান্ত নিবিড় শীতলতার সবুজ প্রিয় আমাদের বাংলাদেশও। রাজনীতিকে ঘিরে রয়েছে আলোচনা-সমালোচনা, জল্পনা-কল্পনা কত কি? রাজনীতির মাধ্যমেই দেশ পরিচালিত হয়। এজন্য গঠিত হয় একটি প্রতিনিধি দল। যা মানুষের প্রত্যক্ষ সমর্থনেই গঠিত হয়। এ দলটিই হলো সরকার। একটি নির্দিষ্ট সংখ্যক জনপ্রতিনিধি নিয়ে সরকার গঠিত হয়। যে সরকার দেশের নীতি নির্ধারণ করে, মানুষের ভাগ্যকে আমানত হিসেবে নিয়ে কাজ করে।

আজ সেই মোক্ষম সময়। কি হবে আজ? আজ বাংলাদেশে ইতিহাসে এক বিশেষ দিন। আজ দেশবাসী এক উৎসবে মত্ত হয়ে উজ্জ্বল হৃদয়ে অপেক্ষা করছে, আজই তাদের ইচ্ছার প্রতিফলন ঘটবে পূর্বাহৃ, মধ্যাহৃ পরে অপরাহেৃ। আজ হলো একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন ভোট গ্রহনের দিন। এ ভোটের ফলাফলই আগামী পাঁচ বছরে দেশের পাঞ্জেরীকে নির্ধারণ করবে। কে বসবে বাংলার মসনদে, কারা হবেন দেশের নীতি নির্ধারক। আজকে জনগণ (ভোটার) দেশের সর্বোচ্চ আইন সভা ‘জাতীয় সংসদ’র সদস্যদের নির্বাচন করবে। যে সংসদের ৩০০ জন সদস্য প্রত্যক্ষ ভোটে নির্বাচিত হয়ে আইন প্রনয়ন কাজে নিয়োজিত থাকেন।

মূলত দেশের দুই রাজনৈতিক দলের কারনেই মাঠ উত্তাপ রয়েছে। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ও বাংলাদেশে জাতীয়তাবাদী দল (বিএনপি) এ দুই দলকে নিয়ে রাজনীতি দুই অংশে বিভক্ত। যতই সমালোচনা থাকুক না কেন এ দু’দলই বাংলাদেশে বেশ কয়েকবার সরকার গঠন করেছে। দুই দলেই রয়েছেন কালজয়ী নেতৃবৃন্দ। যাদের নেতৃত্বেই দু’টি দল এগিয়েছে নিজস্ব ধারায়। বর্তমান সরকারী দল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ও বহু দিনের ক্ষমতার বাইরে থাকা বিএনপি এ পর্যন্ত যথাক্রমে ৪ বার করে সরকার গঠন করেছে। দু’দলেই রয়েছে কিছু হেভিওয়েট প্রার্থী।

আওয়ামী লীগের হেভিওয়েট প্রার্থীরা হচ্ছেন:

শেখ হাসিনা: বাংলাদেশের জাতির পিতা ও প্রথম রাষ্ট্রপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা যার রাজনৈতিক কর্মজীবন প্রায় চার দশকেরও বেশি। তিনি ১৯৮৬ থেকে ১৯৯০ ও ১৯৯১-১৯৯৫ পর্যন্ত বিরোধী দলের নেতা এবং ১৯৯৬-২০০১ পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৮১ সালে থেকে তিনি আওয়ামী লীগের সভাপতির দায়িত্ব পালন করছেন। ২০০৮ সালের নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তাঁর দল নিরঙ্কুশ বিজয় লাভ করলে তিনি পুনরায় প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নির্বাচিত হন। এবং ২০১৪ সালে দশম জাতীয় সংসদের সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করায় তার দল সরকার গঠন করলে টানা দ্বিতীয় বারের মত প্রধানমন্ত্রী হন বঙ্গবন্ধু কন্যা। একাদশ সংসদ নির্বাচনে মাত্র ১টি আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন আওয়ামী লীগ সভাপতি। গোপালগঞ্জ-৩ আসনে তিনি প্রার্থী হয়েছেন। গোপালগঞ্জ-৩ আসনে তার বিপক্ষে মূল প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে লড়ছেন বিএনপির এস এম জিলানী। অতীতের রেকর্ড বলে বড় ব্যবধানেই শেখ হাসিনাই জয় পেতে যাচ্ছেন।

আমির হোসেন আমু: তিনি আওয়ামী লীগের একজন বর্ষিয়ান নেতা এবং বর্তমান সরকারের শিল্পমন্ত্রী। ছাত্রজীবন থেকেই রাজনৈতিক ব্যক্তিত্বের এ নেতা ১৯৭০ সালের প্রাদশিক পরিষদ নির্বাচনে বরিশাল সদর আসন থেকে জয়লাভ করেন। ১৯৭২ সালে যুবলীগের প্রতিষ্ঠাতা প্রেসিডিয়াম সদস্য হিসাবে মনোনীত হন আমু। ১৯৭৮-১৯৮৬ সাল পর্যন্ত তিনি যুবলীগের চেয়ারম্যান ছিলেন। তিনি আওয়ামী লীগের একজন জ্যেষ্ঠ নেতা। ২০০৬-০৮ সাল পর্যন্ত তত্বাবধায়ক সরকারের আমলে শেখ হাসিনা যখন বন্দী ছিলেন তখন যে কয়জন নেতা দলের নেতৃত্বে ছিলেন আমু তাদের মধ্যে একজন। ২০১৪ সালের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তিনি সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন এবং  সরকারের শিল্পমন্ত্রীর দায়িত্ব পান। ঝালকাঠি-২ (সদর ও নলছিটি) সংসদীয় আসন থেকে নৌকা প্রতিকে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন এই নেতা। মূল প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে লড়ছেন ধানের শীষের জীবা আমিনা খান।

মোহাম্মদ নাসিম: আওয়ামী লীগের এ বর্ষিয়ান নেতা দলটির সর্বোচ্চ সাংগঠনিক স্তর প্রেসিডিয়াম সদস্য। তার পিতা জাতীয় চার নেতার একজন শহীদ ক্যাপ্টেন এম মনসুর আলী। ২০১৪ সালে দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তিনি সিরাজগঞ্জ-১ আসন থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়ে সরকারের স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যান মন্ত্রনালয়ের মন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করছেন। এর আগে ১৯৯৬ সালে তিনি স্বরাষ্ট্র, গৃহায়ন ও গণপূর্ত এবং ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রনালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৮৬, ১৯৯৬ ও ২০০১ সালেও সংসদ সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হন মোহাম্মদ নাসিম। যমুনা নদীর উভয় পাড় ঘেষা সিরাজগঞ্জ সদর উপজেলার ৪টি ইউনিয়ন ও কাজিপুর পৌরসভা নিয়ে সিরাজগঞ্জ-১ সংসদীয় আসনে নৌকার প্রার্থী নাসিম। আওয়ামী লীগের দুর্গ হিসেবে পরিচিত এ আসনে তার জন্য অনেকটাই নিশ্চিত বলে জানা যায়। তার বিপক্ষে লড়ছেন প্রথমবারের মত মনোয়ন পাওয়া বিএনপির কন্ঠশিল্পী কঁনকচাপ। 

তোফায়েল আহমেদ: স্বাধীন বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার পরবর্তীকালে ১৪ জানুয়ারি ১৯৭২ তারিখে প্রতিমন্ত্রীর মর্যাদায় বাংলাদেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী ও জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের রাজনৈতিক সচিবের দায়িত্ব লাভ করেন। তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের প্রার্থী হিসাবে ১৯৭৩, ১৯৮৬, ১৯৯১, ১৯৯৬, ২০০৮ ও ২০১৪ খ্রিস্টাব্দের জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জয় লাভ করেন। ১৯৯৬ সালের ২৩ জুন তিনি শেখ হাসিনা সরকারের শিল্প ও বাণিজ্য মন্ত্রীর দায়িত্ব প্রাপ্ত হন। তিনি দীর্ঘদিন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সভাপতি মন্ডলীর সদস্য হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন। পাঁচ দফা জাতীয় সংসদের সদস্য নির্বাচিত এ নেতা আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পদের একজন সদস্য। তিনি  ১৯৭০ খ্রিস্টাব্দে আওয়ামী লীগের মনোনয়নে জাতীয় পরিষদের নির্বাচনে অংশ নিয়ে জয় লাভ করেন। তোফায়েল আহমেদকে মাত্র ২৬ বছর বয়সে কনিষ্ঠ সদস্য হিসেবে ১৯৭০ সালে প্রথম মনোনয়ন দিয়েছিলন জাতির পিতা। ১৯৭১ খ্রিস্টাব্দে মুক্তিযুদ্ধে তিনি মুজিব বাহিনীর অঞ্চল ভিত্তিক দায়িত্বপ্রাপ্ত চার প্রধানের একজন ছিলেন তোফায়েল।

ভোলা-১ (ভোলা সদর) আসনে নৌকার প্রার্থী তোফায়েল আহমেদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন দলের অতিগুরুত্বপূর্ণ প্রার্থী থাকলেও তার জয় ঠেকানো প্রায় অসম্ভব। তার বিপক্ষে মূল প্রতিদ্বন্দ্বি হিসেবে লড়ছেন বিএনপির গোলাম নবী আলমগীর।

মতিয়া চৌধুরী: এক সময়ে ‘অগ্নিকন্যা’ হিসেবে পরিচিত মতিয়া চৌধুরী প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান ও সাবেক রাষ্ট্রপতি হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদের সময়কালে বেশ কয়েকবার গ্রেপ্তার হন। রাজপথে দলের আন্দোলনকে টিকিয়ে রেখেছিলেন এ নেত্রী। ১৯৭১ সালে তিনি আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক হন। ১৯৯৬ ও ২০০৯ সালে আওয়ামীলীগ শাসনামলে কৃষিমন্ত্রির দায়িত্ব পালন করেন এবং বর্তমানেও এই মন্ত্রলায়ের দায়িত্বে আছেন। ১৯৭০ ও ১৯৭১ এর মাঝামাঝি সময়ে তিনি বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রাম, প্রচারণা, তদবির এবং আহতদের শুশ্রুষায় সক্রিয় অংশগ্রহণকারী ছিলেন।

ছাত্রাবস্থা থেকে রাজনীতির অঙ্গনে জ্বালাময়ী অবস্থান দখলকারী এ নেত্রী বর্তমানে আওয়ামী লীগের একজন প্রেসিডিয়াম সদস্য। শেরপুর-২ (নকলা-নালিতাবাড়ী) সংসদীয় আসনে দলীয় প্রতিক নৌকার প্রার্থী হয়ে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন। তার বিপক্ষে মূল প্রতিদ্বন্দ্বী লড়ছেন বিএনপির ফাহিম চৌধুরী।

ওবায়দুল কাদের: ওবায়দুল কাদের প্রথম ১৯৯৬ এর সপ্তম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী হিসেবে নোয়াখালী-৫ আসন থেকে জাতীয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ঐ সময় তিনি আওয়ামী লীগ সরকারের যুব ক্রীড়া ও সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী হিসেবে ২০০১ সাল দায়িত্ব পালন করেন।  ২০০২ সালের থেকে ২০০৯-এর আওয়ামী লীগের প্রথম যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মনোনিত হন।

ওয়ান ইলেভেনে ১৭ মাস ২৬ দিন কারাবরণ করেন। ২০০৮ নবম জাতীয় সংসদে দ্বিতীয়বারের মত নোয়াখালী-৫ আসন থেকে আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ২০০৯ সালে আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য নির্বাচিত হন। আওয়ামী লীগের ২০ তম সাধারণ সম্পাদক হিসেবে ২০১৬-২০১৯ মেয়াদে এখনও বহাল রয়েছেন।

২০১৪ তে আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করার পর সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী হন। ছাত্রজীবন থেকেই রাজনীতিতে অংশগ্রহণ করা ওবায়দুল কাদের ১৯৬৬ সালে ৬ দফা আন্দোলন, ১৯৬৯ সালে গণঅভুত্থান এবং ছাত্রদের ১১ দফা আন্দোলনে সক্রিয় ভূমিকা পালন করেন। ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধ শুরু হলে নিজ এলাকা কোম্পানীগঞ্জ ফিরে গিয়ে কোম্পানীগঞ্জ থানা মুজিব বাহিনীর (বিএলএফ) অধিনায়ক হিসেবে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন।

নোয়াখালী-৫ সংসদীয় আসনে আওয়ামী লীগের প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছেন এ নেতা। তার বিরোধী প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে ধানের শীষ প্রতিকে নির্বাচনী মাঠে আছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মওদুদ আহমদ। হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হবে এ আসনে।

ডা. দিপু মনি: বাংলাদেশে প্রথম নারী পররাষ্ট্রমন্ত্রী তিনি। ২০০৯ থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন তিনি। দশম জাতীয় সংসদে ডা: দীপু মনি চাঁদপুর-৩ (চাঁদপুর- হাইমচর) থেকে আওয়ামী লীগের নবম ও দশম সংসদের সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। সামাজিক উন্নয়ন এবং প্রশাসনিক ক্ষেত্রে তাঁর অনন্য অবদানের জন্য তিনি মাদার তেরেসা আন্তর্জাতিক পুরষ্কারেও ভূষিত হন তিনি। ২০১৬ সালে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হিসেবে নির্বাচিত হন। তিনি পররাষ্ট্রমন্ত্রী থাকাকালীণ সময়ে কমনওয়েলথ মিনিস্ট্রেরিয়াল অ্যাকশন গ্রুপ’র প্রথম নারী এবং দক্ষিণ এশীয় চেয়ারপার্সন নির্বাচিত হন। এছাড়া তাঁর নেতৃত্বে বাংলাদেশ সমুদ্র জয় করে। এতে করে বাংলাদেশ সরকার প্রতিবেশী দেশ মিয়ানমার এবং ভারতের সাথে প্রায় চার দশকের সমুদ্র সীমা সংক্রান্ত অমীমাংসিত বিষয়টি আন্তর্জাতিক আইনের আওতায় চূড়ান্তভাবে নিষ্পত্তির উদ্যোগ গ্রহণ করে। বিএনপি থেকে তার মূল প্রতিদ্বন্দ্বি হিসেবে লড়ছেন শেখ ফরিদ আহমেদ মানিক।

রমেশ চন্দ্র সেন: রমেশ চন্দ্র সেন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য ও ঠাকুরগাঁও-১ আসনে সরকার দলের সংসদ সদস্য। পেশায় ব্যবসায়ী এ নেতা রাজনীতির সঙ্গে সক্রিয়ভাবে যুক্ত হয়ে তিনবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন। এ আসনে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বী হলেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

কাজী জাফরুল্লাহ: ফরিদপুর-৪ (ভাঙ্গা-সদরপুর-চরভদ্রাসন) সংসদীয় আসনে এ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতিক নিয়ে সংসদ সদস্য প্রার্থী হয়েছেন। তিনি আওয়ামী লীগের সভাপতি মন্ডলীর সদস্য এ নেতা। এ আসনে তাঁর বিরোধী প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে মাঠে সরব রয়েছেন স্বতন্ত্র সংসদ সদস্য মজিবুর রহমান চৌধুরী নিক্সন।

ড. শিরিন শারমিন চৌধুরী: বাংলাদেশের ইতিহাসে প্রথম নারী স্পিকার হিসেবে ২০১৩ সালে নির্বাচিত হন আওয়ামী লীগ দলীয় এ সংসদ সদস্য। ৪৬ বছর বয়সে তিনি সর্বকনিষ্ঠ স্পিকাররূপে সাবেক স্পিকার ও বর্তমান রাষ্ট্রপতি এডভোকেট আব্দুল হামিদের স্থলাভিষিক্ত হন। এর পূর্বে তিনি বাংলাদেশ সরকারের মহিলা ও শিশু বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ছিলেন।

বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের এ আইনজীবী নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সংরক্ষিত নারী আসনে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। তিনি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য। রংপুর-৬ (পীরগঞ্জ) এ জাতীয় সংসদের স্পীকার আওয়ামী লীগের প্রার্থী হয়ে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করেছেন। প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে আছেন বিএনপির সাইফুল ইসলাম।

বিএনপির হেভিওয়েট প্রার্থীরা হচ্ছেন:

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর: তিনি বর্তমানে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের (বিএনপি) মহাসচিবের দায়িত্ব পালন করছেন। ২০১৮ সালের একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তিনি একই সঙ্গে ঠাকুরগাঁও-১ ও বগুড়া-৬ আসনে বিএনপির প্রার্থী হিসেবে মনোনয়ন লাভ করেছেন।

২০০১ সালের অষ্টম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তিনি ঠাকুরগাঁও-১ থেকে বিএনপির মনোনয়নে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়ে প্রথমে কৃষি মন্ত্রণালয় ও পরবর্তীতে বেসামরিক বিমান পরিবহন ও পর্যটন মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ঠাকুরগাঁও-১ আসন থেকে ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করেছেন বিএনপি মহাসচিব। এই আসনে নৌকা ও ধানের শীষের লড়াইটা বেশ ভালোই জমবে বলেই মনে করছেন রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা। মির্জা ফখরুল ১৯৯১ সালে পঞ্চম ও ১৯৯৬ সালে সপ্তম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ঠাকুরগাঁও-১ আসন থেকে বিএনপির মনোনয়নে সংসদ সদস্য নির্বাচন করে যথাক্রমে ৩৬,৪০৬ ও ৫৮,৩৬৯ ভোট পান এবং আওয়ামী লীগ প্রার্থী খাদেমুল ইসলামের কাছে পরাজিত হন। আবার, ২০০১ সালে অষ্টম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে একই আসনে বিএনপির মনোনয়ন নিয়ে আওয়ামী লীগের রমেশ চন্দ্র সেনের সাথে প্রতিযোগীতা করে ১,৩৪,৯১০ পেয়ে জয়লাভ করেন ও সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। আবার, মির্জা ফখরুল ২০০৮ সালে নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের রমেশ চন্দ্র সেনের সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করে পরাজিত হন। আসনটির জন্মলগ্ন থেকে জয়-পরাজয়ের হিসেব বলছে, এটা আওয়ামী লীগের ঘাঁটি।

অপরদিকে, বগুড়া-৬ (সদর) আসনটি বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার আসন হিসেবে পরিচিত। ২০১৪ বাদে বিগত সংসদ নির্বাচগুলোতে এই আসন থেকে খালেদা জিয়া নির্বাচন করে বিজয়ী হয়েছেন। এবারের সংসদ নির্বাচনের আগে দণ্ডপ্রাপ্ত হয়ে কারাগারে থাকায় নির্বাচনে অংশগ্রহণ করতে পারেননি। এজন্য বিকল্প প্রার্থী হিসেবে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এই আসন থেকে ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করছেন। বিএনপির ঘাঁটি হিসেবে পরিচিতি এই আসন থেকে মহাজোট প্রার্থী কতটুক লড়াই করবে তা আজ দেখা যাবে।

মওদুদ আহমেদ: ব্যারিস্টার মওদুদ আহমেদ বাংলাদেশের সাবেক প্রধানমন্ত্রী। তিনি বিএনপির ও জাতীয় পার্টির প্রতিষ্ঠাতাদের অন্যতম। অষ্টম জাতীয় সংসদে তিনি আইন ও বিচার বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী ছিলেন। নোয়াখালী-৫ (কোম্পানীগঞ্জ-কবিরহাট-সদর আংশিক) আসনটি থেকে মওদুদ এবার একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে অংশগ্রহণ করছেন। বর্তমান ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের এবং বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদের নির্বাচনী এলাকা হওয়ায় এ আসনটি ভিআইপি হিসেবে পরিচিত। এ আসন থেকে পাঁচবার সংসদ সদস্য হয়েছিলেন সাবেক উপ-প্রধানমন্ত্রী ও বর্তমান বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ। তিনি ১৯৭৯ সালে এ আসনে প্রথম সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। পরবর্তীতে হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ রাষ্ট্রক্ষমতা গ্রহণ করার পর তিনি ১৯৮৬ সালের নির্বাচনে আবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন এবং সরকারের তথ্যমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন। এক বছর পর তাকে উপ-প্রধানমন্ত্রী করা হয়। ১৯৮৮ সালে তিনি প্রধানমন্ত্রী হন। ১৯৮৯ সালে তাকে শিল্প মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব দেওয়া হয় এবং এরশাদ তাকে উপ-রাষ্ট্রপতিও করেন। জাতীয় পার্টির মনোনয়ন নিয়ে ১৯৯১ সালে মওদুদ আবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। পরবর্তীতে তিনি বিএনপিতে যোগ দেন। ২০০১ সালেও তিনি বিএনপির মনোনয়ন নিয়ে নোয়াখালী-৫ আসনে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। তিনি তখনকার সময় আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব পালন করেন। এখানে তারও ব্যক্তি ইমেজ ও দলীয় শক্ত অবস্থান রয়েছে। দীর্ঘ রাজনৈতিক জীবনের অধিকারী ব্যারিস্টার মওদুদ আহম্মদ এ আসনে ব্যাপক ভাবে পরিচিত।

মির্জা আব্বাস: মির্জা আব্বাস উদ্দিন আহমেদ ১৯৯১ সাল থেকে ২০০৬ পর্যন্ত অবিভক্ত ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ছিলেন। সেইসঙ্গে তিনি খালেদা জিয়ার মন্ত্রীসভায় গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রণালযয়ের মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। তিনি বর্তমানে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের জাতীয় স্থায়ী কমিটির (সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী কমিটি) সদস্য। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তিনি এবার ঢাকা-৮ আসন থেকে অংশগ্রহণ করছেন।  ২০০৮ সালে আসন পুনর্বিন্যাস করে শাহবাগ, মতিঝিল, পল্টন, শাহজাহানপুর থানা ও রমনা থানার একাংশ নিয়ে গঠিত হয় ঢাকা-৮। এর আগে এই আসন বর্তমান ঢাকা-৯-এর সঙ্গে ছিল। এখন ভোটার ২ লাখ ৬৪ হাজার ৮৯৩। মির্জা আব্বাস ১৯৯১, ১৯৯৬ ও ২০০১ সালে অবিভক্ত ঢাকা-৯ থেকে নির্বাচন করেছিলেন। এর মধ্যে ১৯৯১ ও ২০০১ সালে তিনি জয়লাভ করেন। আর ১৯৯৬ সালে জয়লাভ করেন আওয়ামী লীগের সাবের হোসেন চৌধুরী। আসন বিন্যাস হওয়ার পর ২০০৮ সালের নির্বাচনে মির্জা আব্বাস অংশ নেননি। তখন এই আসন থেকে বিএনপির হয়ে নির্বাচন করেন হাবিব-উন-নবী খান। ২০০৮ ও ২০১৪ সালে এই আসনে সাংসদ হন রাশেদ খান মেনন। এবারের নির্বাচনকে ঘিরে  ঢাকা-৮ আসনে মহাজোটের প্রার্থী ওয়ার্কার্স পার্টি প্রধান রাশেদ খান মেনন যতটা সরব আছেন ঠিক ততটাই নীরব বিএনপি প্রার্থী মির্জা আব্বাস।

গয়েশ্বর চন্দ্র রায়: বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় ১৯৭৮ সালে যুবদলে যোগদানের মধ্য দিয়ে রাজনৈতিক ক্যারিয়ার শুরু করেন। ১৯৯১ সালে পঞ্চম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে তৎকালীন পরিবেশ ও বন মন্ত্রণালয়ের (বর্তমান পরিবেশ, বন ও জলবায়ু পরিবর্তন মন্ত্রণালয়) প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন। ২০০৮ সালে নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে প্রথমবারের মত গয়েশ্বর ঢাকা-৩ আসন থেকে আওয়ামী লীগের নসরুল হামিদের কাছে পরাজিত হন। ২০১৮ সালে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তিনি একই আসন থেকে ধানের শীষে লড়ছেন।

ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন:  কুমিল্লা-২ (তিতাস-হোমনা) আসনে ঐক্যফ্রন্ট থেকে প্রার্থী হয়েছেন বিএনপি স্থায়ী কমিটির অন্যতম সদস্য ও দলের নীতিনির্ধারক ফোরামের সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন। স্বাধীনতার পরবর্তী সময় থেকে এ আসনে আওয়ামী লীগ কখনো জয় লাভ করতে পারেনি। বিএনপির ঘাঁটি হিসেবে পরিচিত এ আসনে গত নির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্ধিতায় নির্বাচিত হন জাতীয় পার্টির মো. আমির হোসেন ভূঁইয়া। ১৯৯১ সালের জাতীয় নির্বাচনে তিনি কুমিল্লা-২ আসন থেকে জাতীয় সংসদের সদস্য নির্বাচিত হন। তিনি ১৯৯১-১৯৯৬ সময়কালে জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী ছিলেন। তিনি ২০০১-২০০৬ সময়কালে পূর্ববর্তী চার দলীয় জোট সরকারের সময় স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী ছিলেন। কুমিল্লা-২ আসনে মহাজোটের প্রার্থী হয়েছেন আওয়ামী লীগের নবীন রাজনৈতিক কুমিল্লা (উত্তর) জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি সেলিমা আহমাদ মেরী। ভোটের মাঠে প্রবীণ-নবীনের মধ্যে কে বিজয়ীর হাসি হাসে তাই এখন দেখার বিষয়।

মাহমুদুর রহমান মান্না: চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ার সময় ১৯৭২ সালে জাসদ ছাত্রলীগ থেকে চাকসুর সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন মান্না। এরপর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে এসে ১৯৭৯ সালে জাসদ ছাত্রলীগ থেকে ডাকসুর ভিপি নির্বাচিত হন। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বগুড়া-২ (শিবগঞ্জ) আসনে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের প্রার্থী হিসেবে নির্বাচন করছেন নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মান্না। এই আসনে তার মূল প্রতিদ্বন্দ্বী জাপার লাঙ্গল প্রতীকে শরিফুল ইসলাম জিন্নাহ। ২০০১ সালে বিএনপি সরকার গঠন করলে ২০০২ মাহমুদুর জাতীয় বিনিয়োগ বোর্ডের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছিলেন। ২০০১ সালে তিনি বগুড়া-২ আসনে আওয়ামী লীগ থেকে নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করে পরাজিত হয়েছিলেন। 

আন্দালিব রহমান পার্থ: ২০০০ সাল থেকে আন্দালিব রহমান পার্থ তার বাবা নাজিউর রহমান মঞ্জুর সাথে রাজনীতিতে সক্রিয়ভাবে জড়িয়ে পড়েন। ২০০৪ সালের এপ্রিল মাসে তাঁর বাবার মৃত্যু হলে আন্দালিব বাংলাদেশ জাতীয় পার্টির (বিজেপি) চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। ২০০৮ সালের নবম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোলা-১ আসনে চারদলীয় জোটের প্রার্থী হয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহন করেন এবং আওয়ামী লীগের প্রার্থী ইউসুফ হোসেন হুমায়ুনকে পরাজিত করে বিজয়ী হন। তিনি ২০০৯ থেকে ২০১৪ পর্যন্ত সংস্থাপন মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি সদস্য ছিলেন। ২০১৪ সালের নির্বাচনে তার দল বিএনপির নেতৃত্বে নির্বাচন বয়কট করে। ২০১৮ সালের একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে তিনি ঢাকা-১৭ আসনে ঐক্যফ্রন্ট ও ২০ দলীয় জোটের প্রার্থী হয়েছেন। মূল প্রতিদ্বন্দ্বি হিসেবে লড়বেন নায়ক ফারুক।

বরকত উল্লাহ বুলু: বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপির কেন্দ্রীয় যুগ্ম-মহাসচিব হিসাবে দায়িত্ব পালন করছেন। তিনি যুবদলের কেন্দ্রীয় সভাপতি ও বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের উপদেষ্টা পদেও দীর্ঘদিন দায়িত্ব পালন করেছেন। নোয়াখালী-৩ আসন (বেগমগঞ্জ-সোনাইমুড়ী) থেকে জাতীয়তাবাদী দলের মনোনয়ন নিয়ে ১৯৯১, ১৯৯৬ ও ২০০৮ এ এমপি হয়েছেন বুলু। এই আসনে এবার তাঁর শক্তিশালী প্রতিপক্ষ হচ্ছেন আওয়ামী লীগ সমর্থিত মামুনুর রশীদ কিরন।

আ.স.ম. আবদুর রব: আ.স.ম আব্দুর রব বাংলাদশের জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদের) এর নেতা। তিনি বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামের অন্যতম সংগঠক। ১৯৭২ সালের ৩১ অক্টোবর জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল জাসদের সাত সদস্যবিশিষ্ট আহ্বায়ক কমিটির ঘোষণা দেয়া হলে তিনি যুগ্ম আহ্বায়ক নির্বাচিত হন। তিনি আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে গঠিত জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের অন্যতম নেতা। এর আগে ১৯৯১ ও ২০০১ সালে জাসদ, ২০০৮ সালে জেএসডি থেকে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করে পরাজিত হয়েছিলেন। শুধুমাত্র ১৯৯৬ সালের নির্বাচনে জয়লাভ করে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন তিনি। এবারও লক্ষ্মীপুর-৪ আসন থেকে তিনি ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন তিনি। এই আসনে তাঁর শক্ত প্রতিপক্ষ হচ্ছেন আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী আবদুল মান্নান।

সুলতান মোহাম্মদ মনসুর আহমদ: একসময় তিনি বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক হিসেবে দায়ীত্ব পালন করেছেন। এছাড়াও বাংলাদেশের আলোচিত ছাত্র সংগঠন ডাকসু এর ভিপি ছিলেন তিনি। ১৯৯১ সালের পঞ্চম সংসদ নির্বাচনে মৌলভীবাজার-২ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী ছিলেন সুলতান মোহাম্মদ মনসুর আহমদ। নৌকা প্রতীক নিয়ে তিনি লাঙ্গলের কাছে পরাজিত হয়েছিলেন। এবারও তিনি এই আসনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। তবে প্রতীক বদলে হয়েছে ধানের শীষ। গণফোরামে যোগ দিয়ে তিনি ঐক্যফ্রন্ট থেকে মনোনয়ন পেয়েছেন। মৌলভীবাজার-২ আসনে কোন দলেরই এ আসনে একক আধিপত্য না থাকলেও নব্বই পরবর্তী ছয়টি সংসদ নির্বাচনে দুই বার লাঙ্গল, দুইবার স্বতন্ত্র একবার করে নৌকা ও ধানের শীষ জয়লাভ করে। ২০০১ থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত তিনটি সংসদ নির্বাচনে বিএনপি কিংবা আওয়ামী লীগের কোনো প্রার্থী নির্বাচিত হতে পারেননি কিংবা মনোনয়ন পননি। ২০০১ সালে বিএনপির বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী এম এম শাহীন, ২০০৮ সালে জাতীয় পার্টির (এরশাদ) প্রার্থী নওয়াব আলী আব্বাস খান এবং ২০১৪ সালে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. আব্দুল মতিন এমপি নির্বাচিত হন। অর্থাৎ দুইজন স্বতন্ত্র প্রার্থী ও একজন জাতীয় পার্টির প্রার্থী জয়লাভ করলেও আওয়ামী লীগ কিংবা বিএনপির কোনো প্রার্থী এ তিনটি নির্বাচনে বিজয়ী হতে পারেননি। তবে এবারের জাতীয় নির্বাচনে এই আসনে সুলতান মোহাম্মদ মনসুর আহমদের শক্ত প্রতিপক্ষ হচ্ছেন আওয়ামী লীগ সমর্থিত প্রার্থী এম এম শাহীন।

বাংলা ইনসাইডার/বিকে/এমএস