ঢাকা, সোমবার, ২০ মে ২০১৯, ৬ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

ঘুম ভাঙলো ঐক্যফ্রন্ট নেতাদের

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২৫ এপ্রিল ২০১৯ বৃহস্পতিবার, ১২:১১ পিএম
ঘুম ভাঙলো ঐক্যফ্রন্ট নেতাদের

অবশেষে ঘুম ভেঙেছে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতাদের। নুসরাত হত্যা ও নারী-শিশু নির্যাতন বন্ধের দাবিতে আগামী ৩০ এপ্রিল সমাবেশ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তারা। এটি একটি ভালো উদ্যোগ হলেও বিষয়টি নিয়ে নানা প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। নুসরাত হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় দল-মত নির্বিশেষে প্রায় সবাই যখন প্রতিবাদ জানাচ্ছিল, তখন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতারা অনেকটা নিশ্চুপই ছিলেন। হত্যাকাণ্ডের প্রায় ২০ দিন পেরিয়ে যাবার পর অবশেষে তারা কর্মসূচী ঘোষণা করলেন। 

সচেতন নাগরিকরা বলছেন, নুসরাত হত্যাকাণ্ডের বিষয়টি নৃশংস এবং ঘৃণ্য একটি কাজ। নারী ও শিশু নির্যাতনের বিষয়টিও একটি সামাজিক সমস্যা। এই বিষয়গুলো নিয়ে অবশ্যই প্রতিবাদ জানানো উচিত। সেদিক দিয়ে নুসরাত হত্যা ও নারী-শিশু নির্যাতন বন্ধের দাবিতে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের সমাবেশ অবশ্যই ভালো একটি উদ্যোগ। কিন্তু ঐক্যফ্রন্টের নেতারা যদি এই ইস্যুটিকে রাজনীতির হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করেন তাহলে সেটা একটি নিন্দনীয় কাজ হবে।

নুসরাত হত্যাকাণ্ডের পর  সচেতন নাগরিকরা যে যার জায়গা থেকে এর প্রতিবাদ জানিয়েছিল। সারাদেশেই নুসরাত হত্যার বিচারের দাবিতে বিভিন্ন কর্মসূচী পালন করা হয়েছে। কিন্তু আশ্চর্যজনকভাবে তখন নিশ্চুপ ছিলেন জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতারা। এই ঘটনার ২০দিন পেরিয়ে যাবার পর তারা কর্মসূচী ঘোষণা করলেন। এ কারণেই তাদের এই কর্মসূচীটা নিয়ে প্রশ্ন তৈরি হচ্ছে। তাদের আসল উদ্দেশ্যটা কী তা নিয়েও সন্দেহ জাগছে। সামাজিক একটি ইস্যুকে রাজনৈতিক মোড়কীকরণ করে তারা নুসরাত হত্যার বিচার বাধাগ্রস্ত করছেন কিনা সেই প্রশ্নও তুলছেন অনেকে।

উল্লেখ্য, গতকাল বুধবার বিকেলে রাজধানীর মতিঝিলে ঐক্যফন্টের নেতা ও গণফোরামের সভাপতি ড. কামাল হোসেনের চেম্বারে ঐক্যফ্রন্টের শীর্ষ নেতাদের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। এতে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আবদুল মঈন খান, জেএসডির সভাপতি আ স ম আব্দুর রব, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি কাদের সিদ্দিকী, গণফোরামের মহাসচিব মোস্তফা মহসিন মন্টু, সুব্রত চৌধুরী, নাগরিক ঐক্যের সভাপতি মাহমুদুর রহমান মান্না, গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের ট্রাস্টি জাফরুল্লাহ চৌধুরীসহ অন্যান্য নেতারা উপস্থিত ছিলেন।এ বৈঠকেই আগামী ৩০ এপ্রিল বিকাল চারটায় রাজধানীর শাহবাগে সমাবেশ করার সিদ্ধান্ত নেন ফ্রন্টের নেতারা। করবে বিএনপির জোট জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট  এই কর্মসূচি নেওয়া হয়।

বাংলা ইনসাইডার/এএইচসি