ঢাকা, শুক্রবার, ২২ নভেম্বর ২০১৯, ৮ অগ্রহায়ণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

যে কৌশলে নিঁখোজ ভাগ্নে খুঁজবেন সোহেল তাজ

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১৮ জুন ২০১৯ মঙ্গলবার, ১০:১৮ পিএম
যে কৌশলে নিঁখোজ ভাগ্নে খুঁজবেন সোহেল তাজ

সংবাদ সম্মেলন করেও সুফল পেলেন না সাবেক স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী তানজিম আহমেদ সোহেল তাজ। এখন তিনি নিজেই নিখোঁজ ভাগনে সৈয়দ ইফতেখার আলম সৌরভকে খুঁজে বের করার ঘোষণা দিয়েছেন।

আজ মঙ্গলবার ফেসবুক লাইভে আসেন তানজিম আহমেদ সোহেল তাজ। নিয়মিত তদন্তের বিষয়ে তিনি লাইভ করার কথাও জানান সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে।

সোহেল তাজ বলেন, তদন্তের প্রথম ধাপ হিসেবে তিনি যেখান থেকে তাঁর ভাগনে সৌরভ অপহৃত হয়েছেন সেখানে যাবেন। প্রত্যক্ষদর্শী লোকজনের বিবৃতি নেবেন বলে জানান। তিনি বলেন, ইফতেখার শুধু তাঁর আত্মীয় নয়। এই দেশেরও ছেলে। কারও বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠলে অভিযোগ উঠলে বিচারের মাধ্যমে সাজা হওয়াই গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রের বৈশিষ্ট্য। তিনি নিজে এই শিক্ষা নিয়েই বড় হয়েছেন।

ফেসবুক লাইভের শুরুতে সোহেল তাজ বলেন, ‘ফেসবুকে এটাই হচ্ছে আমার প্রথম লাইভ ব্রডকাস্ট।...আপনারা সবাই জানেন আমার মামাতো বোনের ছেলে সৌরভ গত নয় দিন ধরে নিখোঁজ। তো আমরা সার্বিকভাবে চাই সৌরভকে (ইফতেখার) অক্ষত অবস্থায়, জীবিত অবস্থায়, সুস্থ অবস্থায় ফেরত চাই। তার বাবা আমার সঙ্গেই আছেন। আমার বাসায়। তো আমার পেছনে আপনারা দেখতে পাচ্ছেন আমার মায়ের ছবি। এ বাসাতেই আমি এখন ভাড়া থাকি। কারণ বাংলাদেশে আমি অনেক সময় দিচ্ছি, কয়েকটা প্রজেক্ট করছি। কিছু ভালো কাজ করার জন্য। সেটা আগে আপনাদের জানিয়েছি। এ রকম একটা কাজের মাঝখানে এমন একটা দুর্ঘটনার সম্মুখীন আমরা হয়েছি। আমি নিজেই তদন্ত করব। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে সহায়তা করব। আমরা যতটুকু তথ্য সংগ্রহ করতে পারি, ততটুকু সংগ্রহ করে তাদের কাছে পৌঁছে দেওয়ার চেষ্টা করব। সেই উদ্দেশ্য নিয়ে কাজ করব।’

ফেসবুকে লাইভে আজ সোহেল তাজের বোন ও বোনের স্বামী, মামাতো বোন ও বোনের স্বামী উপস্থিত ছিলেন। সোহেল তাজ বলেন, ইফতেখারকে ফোন ট্র্যাক করে শনাক্ত করা হয়েছিল। ‘এলিট ফোর্স’ ছাড়া কারও কাছে প্রযুক্তির এই সুবিধা নেই। তাঁর মামাতো বোন ও বোনের স্বামী সোহেল তাজের নানা প্রশ্নের জবাবে বলেন, সংবাদ সম্মেলনের পরও পুলিশ তাঁদের সঙ্গে যোগাযোগ করেনি। উল্টো পাঁচলাইশ থানার পুলিশ জানতে চেয়েছে তাঁরা কোনো খোঁজখবর পেয়েছেন কি না। তাঁরা বলেন, গত ১৬ মে বনানীর বাসা থেকে র‍্যাব পরিচয়ে ইফতেখারকে তুলে নিয়ে গিয়েছিলেন একদল লোক। এক দিন পর তাঁকে তাঁরা বাসায় নামিয়ে দিয়ে যান। এ সময় ‘সৌরভকে অক্ষত অবস্থায় বুঝে পেলাম’ ধরনের বক্তব্য লেখা একটি কাগজে বনানীর ওই বাসার সদস্যদের স্বাক্ষর নেওয়া হয়। যাঁরা বনানী থেকে প্রথমে তুলে নিয়ে যান তাঁরাই ৯ জুন ফোন করে ইফেতখারকে ডেকে নিয়ে যান। ইফতেখারকে যখন প্রথম দফায় তুলে নিয়ে যাওয়া হয়, তখন তাঁরা আবার যোগাযোগ করবেন বলে জানিয়েছিলেন। ইফতেখার বলেছিলেন, তাঁর চোখ বাঁধা। তিনি কীভাবে চিনবেন কে ডাকছেন। জবাবে তাঁরা বলেন, জিন জিন করে জপতে থাকলেই তাঁরা চলে আসবেন। অপহৃত অবস্থায় যাঁরা কথা বলেছেন, তাঁদের প্রত্যেকের হাতে ওয়াকিটকি ছিল, কথাবার্তার বেশির ভাগই বলেছেন ইংরেজিতে।

যাঁরা ইফতেখারকে তুলে নিয়ে গিয়েছিলেন, তাঁরাই ৯ জুন চাকরি দেওয়ার কথা বলে, বিভিন্ন পরীক্ষার ফলের সনদ চান এবং পাসপোর্ট ও জাতীয় পরিচয়পত্র নিয়ে যেতে বলেন। টেরাকোটা নামের একটি রেস্তোরাঁয় তাঁদের বসার কথা ছিল। সৌরভের বাবা মো. ইদ্রিস আলী বলেন, ফুটেজে দেখা গেছে একটি প্রাডো গাড়িতে পাঁচ-ছয়জন এসে ইফতেখারকে তুলে নিয়ে যাচ্ছেন। ফুটেজ পরিষ্কার। গাড়ি কার এবং ভেতরে কারা সেটা চেষ্টা করলেই শনাক্ত করা যাবে।


বাংলা ইনসাইডার/এমআরএইচ