ঢাকা, রোববার, ১৫ ডিসেম্বর ২০১৯, ১ পৌষ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

ট্রাম্পকে যা বলেছিলেন তার ব্যাখ্যা দিলেন প্রিয়া সাহা (ভিডিও)

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২১ জুলাই ২০১৯ রবিবার, ০৮:৩৪ পিএম
ট্রাম্পকে যা বলেছিলেন তার ব্যাখ্যা দিলেন প্রিয়া সাহা (ভিডিও)

বাংলাদেশে ইসলামী মৌলবাদীদের নিপীড়নের শিকার হয়ে ৩ কোটি ৭০ লাখ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান নিখোঁজ হয়েছেন বলে ডোনাল্ড ট্রাম্পের কাছে অভিযোগ করেছেন প্রিয়া সাহা। এই অভিযোগের পর সারাদেশে তীব্র প্রতিক্রিয়া সৃষ্টি হয়েছে। তার বাড়ি ঘেরাও করে বিক্ষোভও করেছেন অনেকে। আবার দেশের বেশকিছু জায়গায় রাষ্টড়দ্রোহের মামলার প্রস্তুতিও চলছে। এরই মধ্যে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে বলা কথার ব্যাখ্যা দিলেন বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্ট্রান ঐক্য পরিষদের এই নারী সাংগঠনিক সম্পাদক।

তিনি বলেছেন, `অনেকেই অভিযোগ করে বলেছেন, ব্যক্তিগত স্বার্থ হাসিলের জন্য কিংবা যুক্তরাষ্ট্রের গ্রিনকার্ড পাওয়ার আশায় আমি এরকম বক্তব্য দিয়েছি।` 

বাংলাদেশের দলিত সম্প্রদায় নিয়ে করা এনজিও ‘শারি’র পরিচালক এই প্রিয়া সাহা। ‘শারি বাংলাদেশ’ এর ইউটিউব চ্যানেলে প্রকাশিত এক ভিডিও বার্তায় এসব কথা বলেন তিনি।

প্রিয়া সাহা দাবি করে বলেছেন, অনেকেই যে আমার বিরুদ্ধে অভিযোগ করেছে তা মোটেও সত্য নয়। কোনো কিছু পাওয়ার আশায় ট্রাম্পের কাছে এই অভিযোগ করেননি তিনি। তিনি অবশ্যই বাংলাদেশে ফিরে আসবেন।

গ্রিনকার্ড পাওয়ার জন্য রাষ্ট্রপ্রধানের সঙ্গে দেখা করার প্রয়োজন নেই। আমার বহুবার আমেরিকায় আসা হয়েছে। আমি কেন দেশ ছাড়বো। ঐদিনের বক্তব্যে বলা হয়েছে দেশে থাকতে চাই। ওটাই আমর প্রথম কথা, ওটাই আমার শেষ কথা। 

তিনি আরও বলেছেন, আমরা বাংলা ভাষায় কথা বলি। শব্দের প্রতিটা বিষয় যে আমরা অবগত তা নয়। যেটা বোঝাতে চেয়েছি সেটি হলো এই পরিমাণে লোক থাকার কথা ছিল। যদি স্বাভাবিক জনসংখ্যা বৃদ্ধির প্রক্রিয়া, যেভাবে বাংলাদেশের জনসংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে সেই একইভাবে যদি ধর্মীয় সংখ্যালঘু ২৯.৭ শতাংশ থাকতো তাহলে এই জনসংখ্যা হতো। কিন্তু তা নাই। এই যে ক্রমাগতভাবে কমে গেছে, এটা যে নাই কেন সেটাই আমি বোঝাতে চেয়েছি।

প্রসঙ্গত, বাংলাদেশ হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক প্রিয়া সাহা গত ১৭ জুলাই হোয়াইট হাউসে এক অনুষ্ঠানে ট্রাম্পের কাছে অভিযোগ করেন, বাংলাদেশে ধর্মীয় সংখ্যালঘুরা মৌলবাদীদের নিপীড়নের শিকার হচ্ছেন। প্রায় ৩ কোটি ৭০ লাখ হিন্দু, বৌদ্ধ, খ্রিস্টান নিখোঁজ হয়েছেন। তার নিজের বাড়িঘরও পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে।



বাংলা ইনসাইডার/বিকেডি