ঢাকা, সোমবার, ১৯ আগস্ট ২০১৯, ৪ ভাদ্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Bagan Bangla Insider

রেনুকে গণপিটুনির ফুটেজ দেখে দোষীদের শনাক্ত করছে পুলিশ

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২১ জুলাই ২০১৯ রবিবার, ০৯:২১ পিএম
রেনুকে গণপিটুনির ফুটেজ দেখে দোষীদের শনাক্ত করছে পুলিশ

রাজধানীর বাড্ডায় ছেলেধরা সন্দেহে তাসলিমা বেগম রেনুকে পিটিয়ে হত্যার ঘটনায় জড়িত স্থানীয় কয়েকজনকে চিহ্নিত করেছে পুলিশ। স্কুলের দোতলা থেকে করা একটি মোবাইলের ভিডিও দেখে তাদের শনাক্ত করা হয়েছে। তবে তাদের নাম-পরিচয় ও বিস্তারিত জানা যায়নি, তবে জানার চেষ্টা চলছে।

গতকাল শনিবার সকালে ঘটনার পর থেকেই পুলিশ অনুসন্ধান চালিয়ে যাচ্ছিলো। ঘটনাস্থলে ধারণকৃত একটি মোবাইলের ফুটেজে দেখা যায়, ওই নারীকে প্রধান শিক্ষকের রুম থেকে টেনে-হিঁচড়ে বের করার পর মুহূর্তেই লোক জড়ো হয়ে তাকে ঘিরে ফেলে। তবে স্থানীয় চার-পাঁচ যুবক তাকে লাঠি দিয়ে পেটাচ্ছিল ও এলোপাতাড়ি লাথি মারছিল। ভিডিওর ৩-৪ মিনিটের মধ্যেই সে অচেতন হয়ে পড়ে। এরপর পুলিশ তাকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালে নিয়ে যায়।

স্কুলের অভিভাবকরা জানান, অনেকে ভিড় করলেও স্থানীয় তিন-চার যুবকই মূলত তাকে মারধর করে হত্যা করেছে। বাকিরা পেছন থেকে ‘মার, মার’ বলে চিৎকার করছিল।

এ ঘটনায় গতকাল রাতেই বাড্ডা থানায় হত্যা মামলা করা হয়েছে। য়। মামলায় অজ্ঞাত ৪০০-৫০০ জনকে আসামি করা হয়েছে।

এ ঘটনায় উত্তর-পূর্ব বাড্ডা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ও কয়েকজন অভিভাবককে জিজ্ঞাসাবাদ করেছে পুলিশ। সংগ্রহ করা হয়েছে স্কুলে প্রবেশপথসহ আশপাশের সিসিটিভি ক্যামেরার ফুটেজ।

এদিকে নিহত রেনুর মহাখালীর বাড়িতে চলছিল শোকের মাতম। তার চার বছরের মেয়ে তাসলিম তুবা এখনো জানে না তার মা কোথায়। পরিবারের কেউ জিজ্ঞেস করলে শুধু বলে, ‘আম্মু নাই।’

রেনুর পরিবার জানায়, আড়াই বছর আগে রেনুর বিবাহবিচ্ছেদ হয়। এরপর থেকে সন্তানদের নিয়ে তিনি মহাখালী ওয়ারলেসের বাসায় থাকতেন। তিনি আড়ং ও ব্র্যাকের মতো প্রতিষ্ঠানে কাজ করেছেন। শুক্রবার রাতেও তিনি পরিবারের লোকজনকে জানান, তুবা বাসায় অনেক দুষ্টুমি করে তাই তাকে স্কুলে ভর্তি করে দেবে।

উল্লেখ্য, রেনুর আচরণ সন্দেহ হওয়ায় নাকি স্কুলের বাইরে থেকে হট্টগোল শুরু হয়। ৩-৪ মিনিটের মধ্যে পুরো মানুষে ভরে যায়। এ সময় স্কুলের মাঠে থাকা অভিভাবকদের সন্দেহ হলে তারা খালাকে প্রধান শিক্ষকের কক্ষে নিয়ে যায়। পরে ‘ছেলেধরা’ গুজব ছড়িয়ে পড়লে স্কুলের আশপাশের লোকজন জড়ো হয়। এ সময় দোতলায় থাকা প্রধান শিক্ষকের রুম থেকে রেনুকে টেনে-হিঁচড়ে নিচে নামিয়ে গণপিটুনি দেওয়া হয়।

বাংলা ইনসাইডার/এসএইচ