ঢাকা, সোমবার, ১৮ নভেম্বর ২০১৯, ৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

ফেঁসে যাচ্ছে প্রথম আলো

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৮ নভেম্বর ২০১৯ শুক্রবার, ০৬:৫৯ পিএম
ফেঁসে যাচ্ছে প্রথম আলো

গত ১ নভেম্বর ঢাকা রেসিডেনসিয়াল মডেল কলেজ মাঠে অনুষ্ঠিত কিশোর আলোর বর্ষপূর্তি অনুষ্ঠান দেখতে এসেছিল ওই স্কুলের ছাত্র নাইমুল আবরার। অনুষ্ঠান চলাকালে বিদুৎস্পৃষ্ট হয়ে গুরুতর আহত হয় সে। তাকে মহাখালীর বেসরকারি ইউনিভার্সেল হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক আবরারকে মৃত ঘোষণা করেন। প্রশ্ন উঠেছে আবরারকে মোহাম্মদপুর কিংবা ধানমন্ডির এত হসপিটাল রেখে কেন বিলম্ব করে মহাখালির ওই হসপিটালে নেওয়া হলো। তড়িৎ ব্যবস্থা না নেওয়াতেই তার মৃত্যু হয়েছে। এই ঘটনা নিয়ে আইনপ্রয়োগকারী সংস্থা যে তদন্ত করছে তাতে প্রথম আলো ফেঁসে যাওয়ার যথেষ্ঠ কারণ রয়েছে বলে জানা গেছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো বলছে যে, আইনপ্রয়োগকারী সংস্থার তদন্ত যেন নির্মোহভাবে হয় এবং যত ক্ষমতাবানই হোক তাকে যেন ছাড় দেওয়া না হয় এ ব্যাপারে উচ্চমহলে নির্দেশনা আছে। যারা এই বিষয়টি নিয়ে তদন্ত করছে তারা প্রথম আলোর প্রাথমিকভাবে ৩টি অনিয়মের খবর পেয়েছে;

১. যখন নাইমুল আবরার বিদ্যুৎপৃষ্ট হয় তখন সঙ্গে সঙ্গে কনসার্টটি বন্ধ করা উচিত ছিল বলে তদন্তকারীরা মনে করছেন। কিন্তু প্রথম আলো কর্তৃপক্ষ সেটি না করে বিদ্যুৎপৃষ্টের ঘটনাকে ধামাচাপা দিয়ে কনসার্টটি চালিয়ে নেন।

তদন্তে এটাও পাওয়া গেছে যে, বিদ্যুৎ পৃষ্টের ঘটনার আগেও কয়েকজন বিদুৎস্পৃষ্ট হয়েছিল। কিন্তু এই বিষয়টি তাৎক্ষণিকভাবে সমাধান না করে প্রথম আলো কর্তৃপক্ষ শুধুমাত্র কনসার্টের দিকেই মনোযোগ দিয়েছিল। যে বিষয়টিকে তদন্তকারী দল কর্তব্যে অবহেলার অংশ হিসাবে দেখছে।

২. নাইমুল আবরার মারা যাওয়ার আগে আশেপাশে কোন হাসপাতালে তাকে নেওয়া উচিত ছিল। রেসিডেন্সিয়াল মডেল স্কুলের আশেপাশে অনেকগুলো সরকারী এবং বেসরকারী হাসপাতাল ছিল। এমনকি ধানমন্ডির হসপিটালগুলোতে নিতে পারতো। কিন্তু সেই হাসপাতাল বাদ দিয়ে বেসরকারী হাসপাতাল ইউনিভার্সেল হসপিটালে নিয়ে যাওয়াকে রহস্যময় মনে করছে তদন্তকারী কর্তৃপক্ষ। এ ব্যাপারে কিশোর আলোর সম্পাদক এবং অন্যান্যদের সঙ্গে কথা বলে কোন সদুত্তর পায়নি তদন্তকারী দল। এ ব্যাপারেও প্রথম আলোর দায় রয়েছে বলে তদন্তকারী কর্মকর্তারা মনে করছে।

৩. আবরারের অস্বাভাবিক মৃত্যুর পর তার পোস্ট মার্টেম করাটা উচিত ছিল। প্রথম আলো কর্তৃপক্ষ তা না করেই দ্রুত তার লাশ পরিবারের হাতে নিয়ে দাফনের উদ্যোগ নেয়। অর্থাৎ পুরো ব্যাপারটাকে ধামাচাপা দেওয়ার জন্য এটা করা হয়েছে বলে তদন্তকারী কর্মকর্তারা মনে করছেন।

এই প্রেক্ষাপটে প্রথম আলো দায় এড়াতে পারে না বলে তদন্তকারী কর্মকর্তারা মনে করছে। এই দায়ের জন্যই প্রথম আলো কর্তৃপক্ষ কনসার্ট আয়োজন এবং নাইমুল আবরারের মৃত্যুতে ফেঁসে যেতে পারে বলে জানা গেছে।

বাংলা ইনসাইডার