ঢাকা, সোমবার, ১৪ জুন ২০২১, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

ক্ষুব্ধ প্রধানমন্ত্রী

নিউজ ডেস্ক
প্রকাশিত: ১৯ জুন ২০১৭ সোমবার, ০৩:০৮ পিএম
ক্ষুব্ধ প্রধানমন্ত্রী

কয়েক মন্ত্রীর কার্যক্রমে প্রধানমন্ত্রী ক্ষুদ্ধ। এঁদের ওপর নির্ভর না করে প্রধানমন্ত্রী নিজেই সংকট সমাধানের উদ্যোগ নিয়েছেন। পাঁচটি সমস্যা নিরসনে প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সমন্বয়কারীর নেতৃত্বে সমন্বয় সেল গঠন করা হয়েছে। আর পরিস্থিতি উন্নতির জন্য সরাসরি তদারকি করছেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের দায়িত্বশীল একাধিক সূত্রে এখবর জানা গেছে। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় জনঅস্বস্তির ৫টি কারণ চিহ্নিত করেছে, এগুলো হলো- ১. চাল সহ নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের মূল্যবৃদ্ধি, ২. এক লাখ টাকার বেশী ব্যাংক আমানতের উপর আবগারী শুল্ক ৩. সঞ্চয়পত্রের উপর সূদের হার কমানো ৪. ঢালাও ভ্যাট ৫. রাঙামাটি পরিস্থিতি।

প্রধানমন্ত্রীর টেবিলে প্রতিবেদন এসেছে, এই পাঁচ কারণে সরকারের জনপ্রিয়তা দ্রুত কমছে। বিরোধিদল সুযোগ পাচ্ছে। অবিলম্বে এসব মোকাবেলায় তাগিদ দেওয়া হয়েছে ওই প্রতিবেদনে।

গতকাল রোববার প্রধানমন্ত্রী তার সংসদ ভবনের কার্যালয়ে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের সঙ্গে কথা বলেন। একাধিক সূত্র নিশ্চিত করেছে, প্রধানমন্ত্রী অর্থমন্ত্রীর একগুয়েমীতে উস্মা প্রকাশ করেন।

তিনি বলেন ‘আপনি তো আমাদের সব সাফল্য মাটি করে দিলেন।’ প্রধানমন্ত্রী ধাপে ধাপে অনলাইন ভ্যাট চালু করার নির্দেশ দিয়েছেন। একই সঙ্গে আমানতের ওপর আবগারী শুল্ক হ্রাস করার জন্যও বলেছেন। সঞ্চয়পত্র সুদের হার না কমানোর কথাও বলেছেন।

এদিকে বাজার অস্থিরতা নিয়ে প্রধানমন্ত্রী তীব্র ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। খাদ্যমন্ত্রী সাক্ষাৎ চাইলেও প্রধানমন্ত্রী সাক্ষাৎ দেননি। প্রধানমন্ত্রী তাঁর মুখ্য সমন্বয়কারীকে অবিলম্বে এ বিষয়ে পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য বলেছেন। প্রধানমন্ত্রী তার মুখ্য সমন্বয়কারী আবুল কালাম আজাদ, খাদ্য সচিব এবং বাংলাদেশ ব্যাংকের গর্ভনরের সঙ্গে বৈঠক করেছেন। বৈঠকে অবিলম্বে চাল আমদানির ওপর শুল্ক প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সমন্বয়কারী আবুল কালাম আজাদ বাংলা ইনসাইডারকে জানান ‘বাজার নিয়ন্ত্রণে চাল আমদানির সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। সরকার চাল আমদানির ক্ষেত্রে প্রযোজ্য শুল্ক হার প্রত্যাহার করবে।’ তিনি জানান, আজকালের মধ্যেই এব্যাপারে প্রজ্ঞাপন জারি হতে পারে। মুখ্য সমন্বয়কারী বলেন আমদানি করা চাল এলে বাজার স্থিতিশীল হবে।

চাল আমদানির পাশাপাশি বাজার মনিটরিং বাড়ানোর ওপর প্রধানমন্ত্রী গুরুত্ব দিয়েছেন। আজ থেকেই বাজার মনিটরিং ব্যবস্থা বৃদ্ধি করা হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রীকে প্রতিদিন চাল পরিস্থিতির ওপর রিপোর্ট দিতে বলা হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে একজন মহাপরিচালকের নেতৃত্বে সার্বক্ষণিক বাজার মনিটরিং তত্ত্বাবধান করা হচ্ছে।

রাঙামাটির ঘটনায় প্রধানমন্ত্রী গতকাল এবং আজ দুদফায় সেনাবাহিনীর ইঞ্জিনিয়ারিং কোরের উর্ধ্বতন অফিসারদের সঙ্গে বৈঠক করেছেন। পরিস্থিতির দ্রুত উন্নতি করতে প্রধানমন্ত্রী নির্দেশ দিয়েছেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানায় পরিস্থিতি সামাল দিতে প্রধানমন্ত্রী কিছু প্রশাসনিক রদবদল করতে পারেন। এমনকি মন্ত্রিপরিষদ রদবদলও অসম্ভব নয়।


বাংলা ইনসাইডার


বিষয়: আওয়ামী-লীগ