ঢাকা, রোববার, ০৫ এপ্রিল ২০২০, ২১ চৈত্র ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

‘চায়না বাংলাদেশের অকৃত্রিম বন্ধু এবং উন্নয়ন অংশীদার’

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০২০ সোমবার, ০৯:৫৯ পিএম
‘চায়না বাংলাদেশের অকৃত্রিম বন্ধু এবং উন্নয়ন অংশীদার’

আজ ১৭ ফেব্রুয়ারী দুপুর ২ টায় জাতীয় প্রেসক্লাবের ভিআইপি লাউঞ্জ-এ “বাংলাদেশ-চায়না বিজনেস অ্যাসোসিয়েশন (বিসিবিএ)”-এর উদ্যোগে “করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯) আক্রমণ ও আমাদের করণীয়” শীর্ষক এক সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়।

সেমিনারে নেতৃবৃন্দ বলেন, বর্তমান বিশ্বে সবচেয়ে আলোচিত শঙ্কা উদ্বেগ ও আশঙ্কার নাম “করোনা ভাইরাস কোভিড-১৯’’। এটি শুধু গণচীনের সমস্যা নয়, গোটা বিশ্ব মানবতার নিরাপদ জীবন-যাপনের জন্য হুমকী। চীনে অবস্থানরত বাংলাদেশী নাগরিকদের অতি দ্রুত নিরাপদে দেশে ফিরিয়ে আনার জন্য সরকারকে উদ্যোগ গ্রহণের অনুরাধ করেন। তারা গণমাধ্যমকে অহেতুক জনগনকে বিভ্রান্তমূলক কোনো সংবাদ পরিবেশন না করার জন্য দাবী জানান। সাম্প্রতিক এই ভয়াবহ দুযোর্গ মুহুর্তে চীন সরকার ও জনগনের পাশে থাকার। অঙ্গীকার ব্যক্ত করেন।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামন্ডলীর সদস্য প্রাক্তন রাষ্ট্রদূত মুহাম্মদ জমির। বিশেষ অতিথির আসন অলঙ্কিত করেন বাংলাদেশে নিযুক্ত চীনা রাষ্ট্রদূত মিঃ লি চিমিং, অতিথি ছিলেন- আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক ড. সেলিম মাহমুদ, ভোরের কাগজের সম্পাদক মিঃ শ্যামল দত্ত। বাংলাদেশ-চায়না বিজনেস অ্যাসোসিয়েশনের সদস্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন- প্রেসিডেন্ট মিঃ যাদব দেবনাথ। সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট মিঃ তরুণ কান্তি দাস (কান্তি) ও এ্যাড. ড. মো. কুতুব উদ্দিন চৌধুরী। ভাইস প্রেসিডেন্ট- এম, শাব্বির আহমেদ, মোহাম্মদ সামসুল ইসলাম মোল্লা, কাজী মোয়াজ্জেম হোসেন এবং শেখ ফয়েজ আলম। পরিচালকবৃন্দ যথাক্রমে- মো. আব্দুল লতিফ সরকার, মো. আব্দুল্লাহ আল আমিন, মোহাম্মদ রাজিম শওকত, মো. আজিজুল হক রতন, মো. শাহ আলম, মো. মিজানুর রহমান, জিনাত রেহানা, কানতারা। খান, ব্যারিস্টার মো. ইফতেখার জোনায়েদ, মো. ফিরোজ আলম সুমন।।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে মুহাম্মদ জমির বলেন, চায়না বাংলাদেশের অকৃত্রিম বন্ধু এবং উন্নয়ন অংশীদার। চীনের এই দুর্যোগ মুহুর্তে বাংলাদেশ সরকার ও জনগন চীনের পাশে থাকবে। তিনি আরো বলেন, সবসময় কারো খারাপ সময় থাকে না, অন্ধকার কেটে আলো আবার আসবেই। বিশেষ অতিথির বক্তব্যে চীনা রাষ্ট্রদূত মিঃ লি চিমিং বলেন, বাংলাদেশ আমাদের প্রকৃত বন্ধু। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা চীনে। করোনা ভাইরাস (কোভিড-১৯) -এ আক্রান্তে নিহত ও আহতদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান এবং আক্রান্ত রোগীদের জন্য বাংলাদেশ থেকে মাস্কসহ প্রয়োজনীয় চিকিৎসা সামগ্রী সহযোগিতা এবং চীনা সরকার ও জনগনের পাশে থাকার অঙ্গীকার করায় মাননীয় প্রধানমন্ত্রী। শেখ হাসিনার ভূয়সী প্রশংসা করেন এবং একটি বেসরকারী অ্যাসােসিয়েশন চীনের এই দুর্যোগ মুহুর্তে সরকার ও জনগনের পাশে থাকা ও ২০০০ মাস্ক অনুদান দেওয়ায় এবং পরবর্তিতে আরও ১৮০০০ মাস্ক দেওয়ার অঙ্গীকার করায় বিসিবিএ-কে ধন্যবাদ জানান। রাষ্ট্রদূত।

আরো বলেন, বর্তমান সমস্যার কারণে বাংলাদেশে যে কাঁচামালের সমস্যা দেখা দিয়েছে পরবর্তিতে ডাবল শিফট-এ কাজ করে তা পুষিয়ে দেওয়ার মত প্রকাশ করেন। সভাপতির বক্তব্যে মিঃ যাদব দেবনাথ বলেন, করোনা ভাইরাসের কারণে যে সমস্যা সৃষ্টি হয়েছে তা ক্ষণস্থায়ী। আমাদের ব্যবসায়ীদের কোনো উদ্বেগের কারণ নেই। সমস্যা কবলিত উহান সিটি হুবে প্রভিন্স ইলেকট্রনিক্স প্রডাক্টের জন্য বিখ্যাত। আমাদের দেশের মূল সমস্যা গার্মেন্টেসের কাঁচামালের যার বেশিরভাগই আসে চায়না থেকে। চীনের অন্যান্য প্রভিন্সে সমস্যা না থাকায় বাংলাদেশের গার্মেন্টস ব্যবসায়ীদের কোনো সমস্যা হওয়ার কথা নয়। অচিরেই এই সমস্যা সমাধানের তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।