ঢাকা, শুক্রবার, ২৯ মে ২০২০, ১৫ জ্যৈষ্ঠ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

Bangla Insider

এখনো সুযোগ আছে বাংলাদেশের

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৬ এপ্রিল ২০২০ সোমবার, ০৯:৫৯ পিএম
এখনো সুযোগ আছে বাংলাদেশের

বাংলাদেশে চোখ রাঙাচ্ছে করোনাভাইরাস। বিশেষজ্ঞরা বলছেন যে জ্যামিতিক হারে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত এবং মৃতের সংখ্যা বাড়ছে এবং এই ধারা অব্যাহত থাকলে বাংলাদেশ যেকোনো সময়ে মহামারীতে প্রবেশ করবে। বিশেষজ্ঞদের ধারণা, বাংলাদেশের মহামারীতে প্রবেশ একটি সময়ের ব্যাপার মাত্র।

তবে বিশেষজ্ঞদের মধ্যে এ নিয়ে দ্বিমতও রয়েছে। তাদের অনেকেই মনে করছেন যে বাংলাদেশ অনেকগুলো সুযোগ মিস করেছে। সীমিত আকারে করোনাভাইরাসকে রেখে বাংলাদেশ করোনাভাইরাসের সংক্রমণ থেকে বেরিয়ে আসতে পারতো। কিন্তু সেই সুযোগ বাংলাদেশ হাতছাড়া করেছে নানা কারণে। তবে এখনো বাংলাদেশের সামনে সুযোগ রয়েছে বলে অনেক বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন। তাদের মতে, এরই মধ্যে বাংলাদেশে সামাজিক সংক্রমণ হয়েছে এবং রোগের বিস্তৃতি হয়েছে। তারপরেও আমরা যদি এখনো চেষ্টা করি তাহলে এই মহামারীর সংক্রমণ থেকে বেরিয়ে আসতে পারবো।

বিভিন্ন বিশেষজ্ঞদের কথা বলে, তাদের মতামত নিয়ে তৈরি করা হয়েছে এই প্রতিবেদনটি। যেখানে আমরা দেখাতে চাই যে বাংলাদেশের এখনো সুযোগ রয়েছে, এই সুযোগ কাজে লাগানোর জন্য বাংলাদেশকে কি করতে হবে।

প্রথমত, সামাজিক সংক্রমণ বন্ধ করতে হবে। যেকোনো মহামারী ঠেকানোর সবচেয়ে বড় শর্ত হলো কমিউনিটি ট্রান্সমিশন বা সামাজিক সংক্রমণ ঠেকানো। আর এজন্য বাংলাদেশকে এখন সবচেয়ে বেশি নজর দিতে হবে সামাজিক সংক্রমণের দিকে। যে সমস্ত এলাকাগুলোতে সামাজিক সংক্রমণ হয়েছে, সেগুলোকে একেবারে বিচ্ছিন্ন করে দিতে হবে। অন্তত তিন সপ্তাহ সেই এলাকাগুলোকে আলাদা করে রাখতে হবে। অন্য এলাকার মানুষ যেন সেখানে প্রবেশ করতে না পারে তা নিশ্চিত করতে হবে। ঐ এলাকার প্রতিটি মানুষের রক্তপরীক্ষা করা, তাদের বাধ্যতামূলক কোয়ারেন্টাইনে পাঠাতে হবে, তাদের চিকিৎসারও ব্যবস্থা করতে হবে।

দ্বিতীয়ত, বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন যে আরও কিছুদিন কঠোর লকডাউনে যেতে হবে। এরকম ঢিলেঢালা, ছাড়যুক্ত সাধারণ ছুটি নয়, বরং কঠোর বাধ্যতামূলক লকডাউন, এবং প্রয়োজনীয় সবকিছুই বন্ধ করে দিতে হবে। এখনকার সাধারণ ছুটিতে যে সমস্যাগুলো হচ্ছে যে কেউ ব্যাংকের অজুহাতে, কেউ বাজার বা চিকিৎসার অজুহাতে ঘরের বাইরে হচ্ছে। আসলে যে সামাজিক বিচ্ছিন্নতার প্রয়োজন ছিল, সেটা হচ্ছে না। তাই অনেক বিশেষজ্ঞ মনে করছেন যে আরও কিছুদিনের জন্য হলেও বাংলাদেশকে কঠোরভাবে লকডাউন, কারফিউ যে ভাষাই আমরা বলি না কেন তার ব্যবস্থা করতে হবে। যাতে লোকজন কিছুতেই ঘরের বাইরে বেরোতে না পারে।

তৃতীয়ত, করোনা পরীক্ষার পরিধি দ্রুত বাড়াতে হবে। এখন বাংলাদেশে করোনা মহামারী ঠেকাতে হলে দ্রুত পরীক্ষা ব্যবস্থা বাড়াতে হবে। কারণ যত পরীক্ষা করা হবে তত করোনার ব্যাপ্তি সম্পর্কে আমরা জানতে পারবো এবং সে অনুযায়ী ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারবো। কাজেই প্রতিটি এলাকায় দ্বৈবচয়নের ভিত্তিতে দ্রুত, সম্ভব হলে আগামী ৩ থেকে ৭ দিনের মধ্যে দেশের মধ্যে দ্বৈবচয়ন পরীক্ষা চালানো দরকার। এ পরীক্ষার মাধ্যমে সংক্রমিত এলাকাগুলো চিহ্নিত করা দরকার এবং যারা আক্রান্ত তাদেরকে আলাদা করা দরকার। কাজেই পরীক্ষার ব্যাপ্তি যদি আমরা না বাড়াই তাহলে আমরা দীর্ঘমেয়াদী একটা সংকটের দিকে যাবো বলে মনে করছেন অনেক বিশেষজ্ঞ। পরীক্ষার ব্যাপ্তি বাড়াতে পারলে আমরা দ্রুতই মহামারীর ঝুঁকি থেকে বেরিয়ে আসতে পারবো।

চতুর্থত, সংক্রমিত ব্যক্তিদের এবং তার সংস্পর্শে আসা ব্যক্তিদের আলাদা করতে হবে। যারা সংক্রমিত হয়েছেন এবং যারা সংক্রমিত ব্যক্তিদের সংস্পর্শে এসেছেন, তাদেরকে চিহ্নিত করে আলাদা করতে হবে। তাদেরকে হোম কোয়ারেন্টাইন নয়, তাদের জন্য আলাদা বিশেষ কোয়ারেন্টাইনের ব্যবস্থা করতে হবে যাতে তারা অন্যদের সংক্রমিত করতে না পারে। আমরা দেখেছি যে, উপমহাদেশে হোম কোয়ারেন্টাইন ফলপ্রসূ নয়। বরং হোম কোয়ারেন্টাইনের চেয়ে যদি সরকারের নির্ধারিত কোয়ারেন্টাইন সেন্টার করা হয়, সেখানে যদি আক্রান্তদের সংস্পর্শে আসা লোকদের রাখা হয়- সেটি বেশি ফলদায়ক হবে।

পঞ্চমত, স্বাস্থ্যকর্মীদের উদ্দীপ্ত করতে হবে। এখনো এই করোনা মোকাবেলার ক্ষেত্রে আমাদের সম্মুখ সমরের যোদ্ধা হলেন আমাদের স্বাস্থ্যকর্মী, চিকিৎসক, নার্স সহ হাসপাতালের কর্মরত কর্মকর্তা কর্মচারীরা। এখন পর্যন্ত তাদেরকে আমরা মোটিভেটেড করতে পারিনি, তাদেরকে উদ্দীপিত করতে পারিনি, তাদের জড়তা কাটাতে পারিনি। করোনা মোকাবেলায় পৃথিবীর সবদেশগুলোতে স্বাস্থ্যকর্মীরা যে নজিরবিহীন দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন, সেই দৃষ্টান্ত বাংলাদেশে অনুসরণ করতে হলে চিকিৎসক, স্বাস্থ্যকর্মীদের উদ্দীপ্ত করতে হবে। স্বাস্থ্যকর্মীদের কোনো ধমক দিয়ে নয়, সমালোচনা করে নয়, বরং তারা ‘ফ্রন্ট রানার’ এই বোধটা তাদের মধ্যে জাগিয়ে তুলতে হবে।

এই কাজগুলো যদি আমরা আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে দ্রুত করতে পারি তাহলে হয়ত আমরা আমাদের শেষ সুযোগটা কাজে লাগাতে পারবো। আমাদের হাতে সময় অনেক কম, এখনই আমাদেরকে শেষ চেষ্টা করতে হবে যেন আমরা করোনা মহামারী ঠেকাতে পারি।