ঢাকা, শুক্রবার, ২৭ নভেম্বর ২০২০, ১৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

জাফরুল্লাহ-আব্দুল্লাহ; ভালোবাসা শ্রদ্ধা বন্ধুত্ব

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২৯ জুন ২০২০ সোমবার, ১০:০০ পিএম
জাফরুল্লাহ-আব্দুল্লাহ; ভালোবাসা শ্রদ্ধা বন্ধুত্ব

ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী এবং ডা. এবিএম আব্দুল্লাহ বাংলাদেশের চিকিৎসা ক্ষেত্রের দুই মহীরুহ। দুজনেই জীবন্ত কিংবদন্তি। ডা. জাফরুল্লাহর লন্ডনে উচ্চতর ডিগ্রী গ্রহণের সময় ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধ শুরু হয়। দেশমাতৃকার ডাকে সাড়া দিয়ে তিনি উচ্চতর ডিগ্রী গ্রহণ না করে মুক্তিযুদ্ধে ঝাপিয়ে পড়েন। একের পর এক নতুন ধরণের সৃষ্টিশীল কাজে নিজেকে আত্ননিয়োগ করেছেন। আর ডা. এবিএম আব্দুল্লাহও বাংলাদেশে মেডিসিন চিকিৎসায় জীবন্ত কিংবদন্তি। রোগীকে সুস্থ করার মতো মানবিক দায়িত্ব এবং গরীব মানুষকে চিকিৎসার জন্য তিনি জনপ্রিয় আলোচিত এবং প্রশংসিত। এখন তিনি প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত চিকিৎসকের দায়িত্ব পালন করছেন। বাংলাদেশের চিকিৎসা ক্ষেত্রের এই দুই জীবন্ত কিংবদন্তির সাক্ষাৎ হলো আজ। তবে এই সাক্ষাতে প্রবীণতম ব্যক্তিটি রোগী এবং ডা. আব্দুল্লাহ চিকিৎসক। এই দুই মানুষের সাক্ষাৎ বাংলাদেশের হিংসার আবহে এক নতুন বাতাস তৈরী করলো।

গণস্বাস্থ্যের প্রতিষ্ঠাটা ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরীকে আজ দেখতে যান ডা. এবিএম আব্দুল্লাহ। বাংলা ইনসাইডারের সঙ্গে দেখতে যাওয়ার কথা স্বীকার করে ডা. এবিএম আব্দুল্লাহ বলেন যে, তিনি একজন প্রবীণ চিকিৎসক এবং আমার সঙ্গে তার সুসম্পর্ক রয়েছে। তিনি এমন অসুস্থ এজন্য আমার দায়িত্ববোধ থেকে দেখতে গিয়েছি। গণস্বাস্থ্যে চিকিৎসাধীন করোনা আক্রান্ত ডা. জাফরুল্লাহ শারীরিক অবস্থার কিছুটা উন্নতি হলেও এখনো তার ফুসফুসে সংক্রমণ রয়েছে।

ডা. এবিএম আব্দুল্লাহকে যখন জিজ্ঞেস করা হয় কেমন দেখলেন? তিনি বলেন, তার মনোবল অত্যন্ত শক্ত। কিন্তু তার দুটি কিডনী নষ্ট এবং তার ডায়ালাইসিস নিয়ে চলতে হয়। এখনো তার ফুসফুসে কিছুটা সংক্রমণ রয়েছে।

ডা. আব্দুল্লাহ বলেন যে, আমি কিছু পরীক্ষা করেছি। আর কিছু টেস্ট দিয়েছি। ডা. জাফরুল্লাহর চিকিৎসা যে টিম করছে তারা ভালো চিকিৎসা করছে। তাদের সঙ্গে আমি কথা বলেছি। এই টেস্টের রিপোর্টগুলো পাওয়ার পর আমি আবার দেখবো।

জাফরুল্লাহকে ডা. আব্দুল্লাহর দেখতে যাওয়ার মধ্যে রাজনৈতিক সংস্কৃতিতে সুস্থ ধারা এখনো রয়েছে তা আরেকবার প্রমানিত হলো। কারণ প্রধানমন্ত্রীর ব্যক্তিগত চিকিৎসক হওয়া সত্বেও পেশাগতভাবে সিনিয়র এবং শ্রদ্ধাভাজন ডা. জাফরুল্লাহকে তিনি দেখতে গেলেন। দুজনের মধ্যে পারস্পরিক সম্পর্ক অত্যন্ত মধুর।

ডা. জাফরুল্লাহও তাকে দেখতে যাওয়াতে বেশ খুশি হয়েছেন। তিনি বলেছেন, আব্দুল্লাহ অত্যন্ত উচু এবং আন্তর্জাতিক মানের চিকিৎসক। তার পরামর্শগুলো আমি শুনেছি। তিনি যে টেস্টগুলো করতে দিয়েছেন, তা আমাকে যারা পরীক্ষা করছেন তারা দেখছেন। চিকিৎসক হিসেবে শুধু নয়। মানুষ হিসেবেও ডা. আব্দুল্লাহ অত্যন্ত উদার এবং উচু মানের।