ঢাকা, সোমবার, ০৬ জুলাই ২০২০, ২১ আষাঢ় ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

Bangla Insider

আজ শেষ হচ্ছে ছুটি সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপনের মেয়াদ

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ৩০ জুন ২০২০ মঙ্গলবার, ০৭:৫৯ এএম
আজ শেষ হচ্ছে ছুটি সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপনের মেয়াদ

সংক্রমণ বাড়ছে৷ অন্যদিকে অর্থনীতিও বাঁচাতে হবে। তাই দেশজুড়ে সাধারণ ছুটি না দিয়ে জোন ভিত্তিতে ভাগ করে ছুটির সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। আজ শেষ হচ্ছে সাধারণ ছুটি দেওয়া প্রজ্ঞাপনের মেয়াদ। গতকাল সোমবারও ৪ হাজার ১৪ জন আক্রান্ত ও ৪৫ জন মৃত্যুবরণ করেন। দেশে আক্রান্তর সংখ্যা ১ লাখ ৪১ হাজার ৮০১ জন। মৃতুবরণ করেছেন মোট ১ হাজার ৭৮৩ জন। এই প্রেক্ষিতে আজ নতুন কি সিদ্ধান্ত নেওয়া হতে পারে?

গত ১৫ জুন মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে জারি করা প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছিল সরকারের দেওয়া স্বাস্থ্যবিধি মেনে গণপরিবহন ও সরকারি-বেসরকারি অফিস চলবে। তবে করোনাভাইরাসজনিত রোগ কোভিড-১৯ এর বিস্তার রোধকল্পে শর্তসাপেক্ষে সার্বিক কার্যাবলি/চলাচলে নিষেধাজ্ঞার মেয়াদ ১৬ জুন থেকে ৩০ জুন পর্যন্ত বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। সাপ্তাহিক ছুটি এ নিষেধাজ্ঞার আওতায় থাকবে। তবে রেড জোনে সাধারণ ছুটি থাকবে। ১৯ টি জেলায় বিভিন্ন এলাকাকে রেড জোন ঘোষণা করে এর মধ্যে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হয়।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে গত ২৬ মার্চ থেকে ৩১ মে পর্যন্ত সারাদেশে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করে সরকার। সাধারণ ছুটি বা এক ধরনের লকডাউনের মধ্যে সংক্রমণের হার বাড়ছিল। কিন্তু ৩০ মে সরকারি ছুটি শেষ হওয়ার পর শনাক্তের সংখ্যা এবং সংক্রমণের পরিমাণ ব্যাপক হয়। সবকিছু খলে দেওয়ার এক সপ্তাহ পর থেকে ২০ দিনে রোগী দ্বিগুণ হয়েছে। গত ২০ দিনে ৭০ হাজার নতুন রোগী শনাক্ত হয়েছে। এরই মধ্যে সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে না আসায় পরে এলাকাভিত্তিক লকডাউন দেওয়া শুরু করে জুনের প্রথম সপ্তাহ থেকে। কিন্তু তা বিচ্ছিন্নভাবে।

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ মোকাবিলায় গাজীপুরের কালীগঞ্জ পৌরসভার তিনটি ওয়ার্ড গত ১৩ জুন থেকে লকডাউন করা হয়। এসব ওয়ার্ডে করোনা সংক্রমণের হার ছিল খুব বেশি। তাই এসব এলাকাকে `রেড জোনের` মধ্যে ফেলে এই লকডাউন কার্যকর করা হয়। পৌরসভার ৪, ৫ ও ৬ নম্বর ওয়ার্ডে লকডাউন এখনো চলছে। এখন পর্যন্ত সিদ্ধান্ত, এটি চলবে আজ ৩০ জুন পর্যন্ত। কিন্তু এরই মধ্যে দেখা গেছে সংক্রমণের মাত্রা এখানে অনেকটাই কমে গেছে। সেখানকার অবস্থা ভালো হচ্ছে বলে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তারা জানিয়েছে।

ঢাকা উত্তর সিটির পূর্ব রাজাবাজারে এখনো লকডাউন চলছে। এলাকাটিতে থাকেন প্রায় ৫০ হাজার মানুষ। একপর্যায়ে এখানে ব্যাপক সংক্রমণ শুরু হয়। এর পরিপ্রেক্ষিতে ৯ জুন মধ্যরাত থেকে এই রেড জোন এলাকায় লকডাউন শুরু হয়। ৩০ জুন এই এলাকায় লকডাউনের ২১ দিন পূর্ণ হবে। আইইডিসিআর এই লকডাউন ব্যবস্থা দেখভাল করছে। আর ব্যবস্থাপনার দায়িত্বে আছে ওয়ার্ড কাউন্সিলর কার্যালয়।

সংক্রমণের ব্যাপকতায় ঢাকার বাইরে নরসিংদীর মাধবদী পৌরসভার ৪ ও ৫ নম্বর ওয়ার্ডকে রেড জোনে ফেলে লকডাউন করা হয় ১২ জুন। পৌরসভার ৪ ও ৫ নম্বর ওয়ার্ডে লকডাউন শেষ হবে ২ জুলাই।

ঢাকার পাশের জেলা নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জের রূপগঞ্জ ইউনিয়েনর প্রায় ৮০ শতাংশ এলাকা জুড়ে লকডাউন এখনো চলছে। এটি শুরু হয়েছিল ১২ জুন।

২৩ জুন সরকার কক্সবাজার, মাগুরা, হবিগঞ্জ ও খুলনা জেলার বিভিন্ন এলাকার রেড জোনে সাধারণ ছুটি ঘোষণা করেছে।

এর আগে সোমবার (২২ জুন) ফরিদপুর, মানিকগঞ্জ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া, নরসিংদী ও কুষ্টিয়া জেলার রেড জোন এলাকায় সাধারণ ছুটি ঘোষণা করা হয়।

তার আগের দিন চট্টগ্রাম, বগুড়া, মোলভীবাজার, চুয়াডাঙ্গা, যশোর, নারায়ণগঞ্জ, হবিগঞ্জ, কুমিল্লা, মুন্সীগঞ্জ ও মাদারীপুরের রেড জোন এলাকায় সাধারণ ছুটি ঘোষণা করে সরকার।