ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ১৩ আগস্ট ২০২০, ২৮ শ্রাবণ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

‘গরিবদের জন্য আমার চেম্বার নয়, সরকারি হাসপাতাল আছে’

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৪ জুলাই ২০২০ শনিবার, ০৯:৪২ পিএম
‘গরিবদের জন্য আমার চেম্বার নয়, সরকারি হাসপাতাল আছে’

ঢাকার ধামরাইয়ে লাইসেন্স বিহীন একটি ডায়াগনস্টিক সেন্টারে একরোগীকে ১৩০ টাকার ইনজেকশন পুশ করে জহুরুল ইসলাম রনি নামে এক ডাক্তার ২৫০০ টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ নিয়ে প্রতিবাদ করলে ডাক্তার রোগীর স্বজনদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করেন। পরে হট্টগোল শুরু হলে স্থানীয়রা এগিয়ে গেলে ডাক্তার কৌশলে সটকে পড়েন।

ঘটনাটি ঘটেছে গতকাল শুক্রবার কাওয়ালীপাড়া বাজারে পপুলার ডিজিটাল ডায়াগনস্টিক সেন্টারে।

রোগীর স্বজন ও স্থানীয়দের কাছ থেকে জানা গেছে, শুক্রবার সকালে মানিকগঞ্জের সাটুরিয়া উপজেলার কান্দাপাড়া গ্রামের আমজাদ হোসেনের স্ত্রী আলেকা বেগম কোমরের ব্যথা নিয়ে ডাক্তার দেখাতে আসেন ধামরাইয়ের নবগ্রাম (কাওয়ালীপাড়া) বাজারের পপুলার ডিজিটাল ডায়াগনস্টিক সেন্টারে। সেখানে ৫০০ টাকা ভিজিট দিয়ে ডাক্তার মুহাম্মদ জহুরুল ইসলামকে (রনি) দেখান। এরপর তিনি নিজের সরবরাহ করা তিনটি ইনজেকশন পুশ করেন আলেকার মাংসপেশীতে। নেওয়া হয় ২৫০০ টাকা।

পরে ব্যাথা উপশমের ইনজেকশন ২৫০০ টাকা জানতে পেরে রোগীর স্বজন সোহেল মাহমুদ চেম্বারে গিয়ে ডাক্তারের কাছে জানতে চান কি কি ইনজেকশন পুশ করা হয়েছে। এতে ডাক্তার রণি উত্তেজিত হয়ে সোহেলের সঙ্গে দুর্ব্যবহার করেন। এদিকে কি কি ইনজেকশন পুশ করা হয়েছে তা প্রেসক্রিপশনে উল্লেখ করেনি ডাক্তার রনি। পরে জানা যায় ওই ইনজেকশনের মূল্য ১২০-১৩০ টাকা। এক পর্যায়ে ডাক্তার রনি কৌশলে সেখান থেকে সটকে পড়েন। 

রনি অনেক রোগীকে ইনজেকশন পুশ করে দুই থেকে ১৫ হাজার টাকাও নিয়েছেন বলে তার বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে।

এ বিষয়ে ডাক্তার জহুরুল ইসলাম বলেন, দশ লাখ টাকা ব্যয় করে লেখাপড়া শিখেছি। আমার চেম্বারে আসলে আমি রোগীর কাছ থেকে কত টাকা নেব এটা আমার বিষয়। এ ছাড়া তিনি বলেন, গরিবদের জন্য আমার চেম্বার নয়। তাদের জন্য সরকারি হাসপাতাল আছে।