ঢাকা, শুক্রবার, ৩০ অক্টোবর ২০২০, ১৫ কার্তিক ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

কুকুর নিয়ে বিতর্কের মধ্যেই পালিত হচ্ছে ‘বিশ্ব জলাতঙ্ক দিবস’

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ সোমবার, ১১:৫৭ এএম
কুকুর নিয়ে বিতর্কের মধ্যেই পালিত হচ্ছে ‘বিশ্ব জলাতঙ্ক দিবস’

 

আজ বিশ্ব জলাতঙ্ক দিবস। এ বছর বিদবসটির প্রতিপাদ্য, ‘জলাতঙ্ক নির্মূলে টিকাদান, পারস্পরিক সহযোগিতা বাড়ান’।

বাংলাদেশকে জলাতঙ্কমুক্ত করার লক্ষ্যে সরকার বছরব্যাপী বিনামূল্যে টিকা দান, জনসচেতনতা, কুকুরের টিকা দেয়ার মতো কর্মসূচি চালিয়ে আসছে। অতীতের তুলনায় বাংলাদেশে জলাতঙ্ক রোগীর সংখ্যা কমেছে। তবে সম্প্রতি রাজধানী থেকে কুকুর অপসারণ নিয়ে কিছুটা বিতর্ক তৈরি হয়েছে।

ঢাকা শহরে বেওয়ারিশ কুকুরের সংখ্যা বেড়েছে বহুগুণ। সমাজের একাংশের দাবি দ্রুত বেওয়ারিশ কুকুরের সংখ্যা কমাতে হবে রাজধানী থেকে। এর পরিপ্রেক্ষিতে ৩০ হাজার কুকুর রাজধানী থেকে অন্যত্র সরিয়ে নেয়ার উদ্যোগ নেয় ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশন।

ঢাকা শহরে এতো বেশি বেওয়ারিশ কুকুরের টিকা দেয়া, পরিবেশ সম্মতভাবে রাখার, বন্ধ্যাত্বকরণ একটা দীর্ঘ প্রক্রিয়া। সেকারণে ঢাকা শহর থেকে কুকুর সরিয়ে নেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে দক্ষিণ সিটি করপোরেশন (ডিএসসিসি)। এদিকে এই সিদ্ধান্তকে বেআইনি মনে করছে প্রাণীপ্রেমী সংগঠনগুলো। তারা সিটি করপোরেশেনের এই সিদ্ধান্তের বিরোধীতা করছে।

অন্যদিকে সংগঠনগুলোর সাথে যুক্ত হয়েছেন নগরবাসীর আরেকটি অংশ। যুক্ত হয়েছেন সংস্কৃতি অঙ্গনের সাথে জড়িতরাও। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক আলোচনা সমালোচনার তৈরি হয়েছে বিষয়টি নিয়ে। তবে যেভাবে বাসাবাড়িতে দুয়েকটি কুকুর পালন করা হয়, সেভাবে বিপুল সংখ্যক বেওয়ারিশ কুকুর পালন কতটা সম্ভব সিটি করপোরেশনের পক্ষে তা নিয়েও সরব আরেক পক্ষ। তাদের মতে, যে শহরে মানুষের আবাসনের জন্য হিমশিম খেতে হচ্ছে, সেখানে বিপুল সংখ্যক বেওয়ারিশ কুকুরের আশ্রয়ের ব্যবস্থা করা সম্ভব  কি না?

তবে কুকুর মারা বা স্থানান্তরিত করাই একমাত্র সমাধান নয় বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা। তাদের পরামর্শ কুকুরের বন্ধ্যাত্বকরণ, পাশাপাশি কুকরকে নিয়মিত টিকা দিতে হবে। এছাড়া যাদের বাসায় কুকুর আছে তারা যেন নিয়মিত টিকা দেন সে বিষয়ে সচেতন করতে হবে। তবে ঢাকা শহর থেকে কুকুর কমানোর কোনো বিকল্প দেখছেন না সিটি করপোরেশন ও নগরবাসী উভয়েই।