ঢাকা, সোমবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৪ আশ্বিন ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

বেড়েই চলছে বালুখোরদের ব্যবসা!

নিউজ ডেস্ক
প্রকাশিত: ১২ আগস্ট ২০১৭ শনিবার, ০২:৫৭ পিএম
বেড়েই চলছে বালুখোরদের ব্যবসা!

গাজীপুরের কাপাসিয়ায় শীতলক্ষ্যা নদী থেকে অবৈধ বালু উত্তোলন থামছেই না। গাজিপুরে যেতেই, রাস্তার পাশে চোখে পড়ে বালু উত্তোলনের মহা উৎসব। শুকনো নদী থকে ক্রেন দিয়ে মাটি কাটা হচ্ছে, উত্তোলন করা হচ্ছে টন কে টন বালু। একের পর এক ট্রাক বোঝাই করে নিয়ে যাচ্ছে বালু ব্যবসায়ীরা। বালু বোঝাই ট্রাকের ওজনের কারণে ক্ষয় হচ্ছে রাস্তা, ঝুঁকিপূর্ন হচ্ছে এতে রাস্তা ঘাট ও পরিবেশের মারাত্মক ক্ষতি হলেও নীরব দর্শকের ভূমিকায় রয়েছেন পুলিশ, স্থানীয় প্রশাসন এবং পরিবেশ অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা। 

পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র বিহীন দীর্ঘদিন ধরে প্রশাসনের নাকের ঢগায় রমরমা ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে বালি ব্যবসায়ীরা আর এ বিষয়ে পরিবেশ অধিদপ্তরসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কোন মাথা ব্যাথা নেই। 

রাজধানীর কাছাকাছি এলাকাগুলোতে এরকম বালু উত্তোলনের কাজ বেড়েই চলছে দিন দিন। এতে রাস্তার পাশে এ ধরনের বালু বিক্রির একাধিক গদি হওয়ায় বাতাস আসলেই বালু উড়ে এসে পথযাত্রীদের নাকে মুখে ঢুকছে। রাস্তার ওপর তিন স্থরের বালু জমে আছে গাড়ি চলার সময় বালু বাতাসে উড়ে গাড়ীর যাত্রী ও পথচারীদের গায়ে এসে পড়ে কাপড় চোপড় নোংরা হচ্ছে। এতে যেমন সমস্যা হচ্ছে পথযাত্রীদের তেমনি ক্ষতি হচ্ছে পরিবেশেরও।

শুধু গাজিপুরেই নয়, আরও অনেক যায়গায় এমন বালু উত্তলোনের কাজ বাড়ছে। এতে মদদ দিচ্ছে কারা তা নিয়ে প্রশ্ন রয়েছে। 

গাজিপুর, কাপাসিয়া উপজেলার ওপর দিয়ে বয়ে গেছে শীতলক্ষ্যা নদী। দুই পারের মানুষের যাতায়াতের জন্য নদীতে ফকির মজনু শাহ সেতু নির্মাণ করা হয়। বর্তমানে সেতুর ওপর দিয়ে ঢাকা থেকে কিশোরগঞ্জের যানবাহনও চলাচল করছে। কিন্তু বালু উত্তোলনের ফলে এই সেতু হুমকির মুখে। অনেক ক্ষেত্রে এই কাজ বৈধ থাকলেও, বেশিরভাগ ক্ষেত্রে এই বালু উত্তলোনের কাজ অবৈধভাবেই হয়ে থাকে। এতে বাধা দেওয়ার মত কেউ নেই, কেননা এর পেছনে কোনো না কোন প্রভাবশালী ব্যাক্তির হাত থেকেই যায়। 

প্রশাসনের নাকের ডগায় যত্রতত্র বালুসন্ত্রাসীদের এসব কর্মকাণ্ড কেউ দেখেও না দেখার ভান করছে। বালু তোলায় বিভিন্ন এলাকায় নদীভাঙন দেখা দিয়েছে। অবৈধ বালু উত্তোলন বন্ধে প্রশাসন কোনো উদ্যোগ নিচ্ছে না বলে অভিযোগো উঠছে হরহামেশাই। তবুও সরকার নীরব। 

শুধু রাজধানীর আশেপাশেই অবৈধ বালু ব্যবসায়ীদের ড্রেজার মেশিনে ছেয়ে গেছে দেশের প্রত্যন্ত অনেক এলাকায়। এলাকা ঝালকাঠীর নলছিটি উপজেলা। প্রায় অর্ধশত অবৈধ ড্রেজার দিয়ে অপরিকল্পিতভাবে প্রতিদিন ১২লাখ ঘনফুট বালু উত্তোলন ও ভরাট করায় পরিবেশের বিপর্যয় ঘটছে বলে স্থানীয়রা অভিযোগ করেছেন। এতে মারাত্মকভাবে হুমকির মুখে পড়েছে বাড়িঘর, হাট-বাজার, মসজিদ-মাদ্রাসাসহ সরকারি-সরকারী নানা স্থাপনা। 

অভিযোগ আছে, এ কাজে, বালু ব্যবসায়ীরা পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের মাসিক চুক্তির ভিত্তিতে টাকা দেওয়ায় অবৈধ বালু উত্তোলনের বিষয়টিতে তারা বৈধতা পেয়েছে। ফলে এ ব্যাপারে কোনো পদক্ষেপ নেওয়া হয় না। 

এদিকে, ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ে ব্রহ্মপুত্র নদের উপর ৮০ কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মিত ৮১০ মিটার দৈর্ঘ্য সালটিয়া বাজার-দেওয়ানগঞ্জ বাজার সেতুর নিচ থেকে অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করায় চরম হুমকির মুখে পড়েছে সেতুটি। 

সরকারি নিয়ম অনুযায়ী সেতুর দুই কিলোমিটারের মধ্যে বালু উত্তোলন দণ্ডনীয় অপরাধ। এ বিধানকে পাত্তা না দিয়েই সেতুর নিচে ভাসমান ড্রেজার বসিয়ে বালু উত্তোলন করে নিয়ে যাচ্ছে বালু ব্যবসায়ীরা। 

এলাকাবাসীর দীর্ঘদিনের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে এলজিইডির অর্থায়নে ৮০ কোটি টাকা ব্যয়ে ৮১০ মিটার দৈর্ঘ্য পুরাতন ব্রহ্মপুত্রের উপর সালটিয়া বাজার-দেওয়ানগঞ্জ বাজার-হাজিগঞ্জ বাজার সেতু নির্মাণ করা হয়। এটি এলজিইডি নির্মিত দেশের সর্ববৃহৎ সেতু। 

বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে, বালু উত্তোলনকারী কেউ কেউ ইজারা নিয়ে বালু উত্তোলনের শর্ত না মেনে বালু তুলছেন কেউ বা আবার ইজারা ছাড়াই অবৈধ প্রক্রিয়ায় মাসের পর মাস প্রতিদিন দৈনিক শ্রমিকদের দিয়ে লাখ লাখ ট্রাক বালু তুলে বিক্রি করছেন। এতে শুধু সেতু নয়, ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে নদীও, সৃষ্টি হচ্ছে ভাঙ্গন। ধসে পড়ছে নদীর পাড়। আবার, বালু তোলার কারেণে নষ্ট হয়ে যাচ্ছে ব্রিজ-কালভার্ট। 

এব্যাপারে প্রশাসন কোনো পদক্ষেপ নিচ্ছে না, আর ড্রেজার মালিকরা প্রভাবশালী হওয়ায় তাদের ভয়ে কেউ মুখ খুলতেও সাহস পাচ্ছে না। কারা একাজে মদদ দিচ্ছে? অথচ এসব মহল থেকে স্থানীয় প্রভাবশালীরা অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করে লাখ লাখ টাকা দীর্ঘদিন ধরে বিক্রি করে সরকারের রাজস্ব ফাঁকি দিয়ে যাচ্ছেন। তাহলে কেন সরকার এদিকে দৃষ্টি দিচ্ছে না? 

বাংলা ইনসাইডার/আরএস/জেডএ