ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৯ জানুয়ারি ২০২১, ৬ মাঘ ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে অবস্থান নিলেন সিনিয়র নেতারা

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১৪ জানুয়ারি ২০২১ বৃহস্পতিবার, ০৬:০০ পিএম
শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে অবস্থান নিলেন সিনিয়র নেতারা

তত্ত্বাবধায়ক সরকার প্রধান চুড়ান্ত হবার পর, জেনারেল মঈন সেনা সদরে অপারেশন প্লানের বৈঠক ডাকলেন। উর্ধ্বতন সেনা কর্মকর্তারা উপস্থিত বৈঠকে। এখানেই একজন সেনা কর্মকর্তা বললেন ‘বিষয়টি নিয়ে আওয়ামী লীগের সংগেও কথা বলা উচিত।’ ঐ কর্মকর্তা বললেন ‘যদি এরকম একটা কর্মসূচীর পর আওয়ামী লীগ ঐ সরকারের বিরুদ্ধে অবস্থান নেয় এবং আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়, সেক্ষেত্রে সেনাবাহিনী প্রশ্ন বিদ্ধ হবে, তত্বাবধায়ক সরকারও সফল হবে না।’ অপারেশন প্লানের বৈঠকেই সিদ্ধান্ত হলো, আওয়ামী লীগ সভাপতিকে বার্তা পৌছে দেয়া হবে। পাশাপাশি আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতাদের নিয়ে বৈঠক করার সিদ্ধান্ত নেয়া হলো। আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এবং সভাপতির রাজনৈতিক সচিব ছিলেন সাবের হোসেন চৌধুরী। সাবের হোসেন চৌধুরীকে জানানো হলো, সেনাবাহীনী ২২ জানুয়ারি ২০০৭ এর নির্বাচন বন্ধের উদ্যোগ নিচ্ছে, নতুন তত্বাবধায়ক সরকার দায়িত্ব নেবে। সাবের হোসেন চৌধুরীকে শেখ হাসিনা যে শর্ত গুলো দিয়েছিলেন, সেগুলো হলো: ১. তত্বাবধায়ক সরকারের সদস্যদের হতে হবে নিরপেক্ষ, ২. তাদের একমাত্র কাজ হবে একটি সুষ্ঠু নির্বাচন আয়োজন করা, ৩. ভোটার তালিকা দ্রুত সংশোধন করতে হবে। ভুয়া ভোটারের তালিকা থেকে বাদ দিতে হবে, ৪. বর্তমান নির্বাচন কমিশন বাতিল করে নতুন কমিশন গঠন করতে হবে, ৫. তিনমাসের মধ্যে সকলের কাছে গ্রহণ যোগ্য নির্বাচন দিতে হবে। ঐ রাতেই সাবের হোসেন চৌধুরী আওয়ামী লীগ সভাপতির বার্তা পৌছে দেন সেনা সদরে।

এদিকে আওয়ামী লীগের একজন গুরুত্বপূর্ণ আইনজীবীর চেম্বারে এক গোপন বৈঠক ডাকা হয়। যেখানে সেনাবাহিনীর তিনজন উর্ধ্বতন কর্মকর্তার সংগে বৈঠক করেন আওয়ামী লীগের গুরুত্বপূর্ণ  ৬ নেতা। ঐ বৈঠকে আমন্ত্রন জানানো হলেও দলের সাধারণ সম্পাদক আবদুল জলিল, কেন্দ্রীয় নেতা মোহাম্মদ নাসিম উপস্থিত হননি। ঐ বৈঠকে আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ, শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে অবস্থান নিলেন। তারা বললেন, তিনি (শেখ হাসিনা) থাকলে সংঘাত বন্ধ হবে না। রাজনৈতিক সংস্কার করতে হলে, শেখ হাসিনাকে সরাতে হবে। সেনাকর্মকর্তারা আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দকে তাদের বক্তব্য দলীয় ফোরামে বলতে পরামর্শ দিলেন।

আগামীকাল ৭ম পর্ব : অস্ত্র দেখে কেঁদে ফেললেন ইয়াজ উদ্দিন