ঢাকা, রোববার, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১৬ ফাল্গুন ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

হঠাৎ করেই অশান্ত পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলো

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২১ মঙ্গলবার, ১২:১৫ পিএম
হঠাৎ করেই অশান্ত পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলো

হঠাৎ করেই অশান্ত হয়ে উঠতে শুরু করেছে দেশের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলো। হল খোলার দাবিতে ইতিমধ্যেই দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে আন্দোলন কর্মসূচি এবং অবস্থান ধর্মঘটের মতো কার্যক্রম চালিয়ে যাচ্ছে শিক্ষার্থীরা।  হল খোলার দাবিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়, কুষ্টিয়া বিশ্ববিদ্যালয় এবং শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের পক্ষ থেকে হল খোলার আল্টিমেটাম দেয়া হয়েছে। 

এদিকে গতকাল শিক্ষামন্ত্রী ডা. দিপু মনি এক জরুরি সংবাদ সম্মেলনে এসে হল খোলার বিষয়ে এবং পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলো খোলার ব্যাপারে সরকারের সিদ্ধান্তের কথা জানিয়েছেন। শিক্ষামন্ত্রী জানান, আগামী ১৭ মে সকল পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের হলগুলো খুলে দেয়া হবে এবং ২৪ মে দেশের সকল পাবলিক বিশ্ববিদ্যায় খুলে দেয়া হবে। এই ঘােষণার পরেও পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের আন্দোলন অব্যাহত রয়েছে। আপাতদৃষ্টিতে দেখা যাচ্ছে, শিক্ষার্থীরা শিক্ষামন্ত্রীর এই ঘোষণার তোয়াক্কা না করে আন্দোলন অব্যাহত রেখেছে।

শিক্ষামন্ত্রীর সংবাদ সম্মেলনের পরও আবাসিক হল না ছাড়ার সিদ্ধান্ত জানিয়েছেন জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা। পাশাপাশি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের হল ছাড়ার বিজ্ঞপ্তি প্রত্যাহারসহ পাঁচ দফা দাবি জানিয়েছেন তারা। এর আগে গত রোববার (২১ ফেব্রুয়ারি) মধ্যরাতে বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার রহিমা কানিজ স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সোমবার সকাল ১০টার মধ্যে তালা ভেঙে হলে ওঠা শিক্ষার্থীদের হল ছাড়তে হবে। 

শিক্ষার্থীদের করা অন্য দাবিগুলো মধ্যে রয়েছে—যেসব শিক্ষার্থী হলে উঠেছেন তাঁদের কোনোভাবেই হল থেকে বের করার চেষ্টা করা যাবে না, ২৪ ঘণ্টার মধ্যে শিক্ষার্থীদের ওপর হামলাকারীদের চিহ্নিত করে গ্রেপ্তার এবং হামলায় ইন্ধনদাতাদের খুঁজে বের করে সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করা, এই হামলার ঘটনায় বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক ও কর্মকর্তা-কর্মচারীর ইন্ধন থাকলে তা তদন্ত করা, অজ্ঞাতনামাদের আসামি করে যে মামলা বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন করেছে, তা তুলে নিয়ে চিহ্নিত ব্যক্তিদের নামে মামলা করা।

এদিকে, গতকাল সোমবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদুল্লাহ হলের শিক্ষার্থীরা তালা ভেঙ্গে হলে প্রবেশ করে।  হল ও ক্যাম্পাস খোলার দাবিতে তারা হলে প্রবেশ করে বলে জানা যায়।  

অন্যদিকে সিলেটের শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এবং রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে হল খোলার দাবিতে আন্দোলন করছেন শিক্ষার্থীরা। কুষ্টিয়া বিশ্ববিদ্যালয়েও সোমবার শিক্ষার্থীরা হল খোলার দাবিতে আন্দোলন করছেন।  শেরেবাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (শেকৃবি) আবাসিক হলেও অবস্থান নিয়েছে শিক্ষার্থীরা। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ২৪ ঘণ্টার মধ্যে হল ছাড়ার নির্দেশও দিলেও হল না ছাড়ার বিষয়ে কঠোর অবস্থানে রয়েছে শিক্ষার্থীরা।

এ বিষয়ে শিক্ষার্থীরা জানিয়েছে, করোনা মহামারির কারণে বন্ধ রয়েছে সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকলেও চলছে সকল শিক্ষা কার্যক্রম। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বাদে সকল প্রতিষ্ঠান খোলা থাকলেও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান কেন খোলা নয় এমন চিন্তা থেকে তারা হল খোলার দাবি তুলেছেন এবং তালা ভেঙ্গে হলে প্রবেশ করেছেন।

এদিকে শিক্ষার্থীদের আন্দোলনের বিষয়টি সরকার খুব গুরুত্বের সঙ্গে পর্যবেক্ষণ করছে।  দেশে যেনো কোনও অস্থিতিশীল পরিস্থিতির সৃষ্টি না হয় সে ব্যপারেও নজর রাখা হচ্ছে।