ঢাকা, রোববার, ১৮ এপ্রিল ২০২১, ৫ বৈশাখ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

যে কোনো সময় গ্রেফতার হতে পারেন মামুনুল হক 

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ০৮ এপ্রিল ২০২১ বৃহস্পতিবার, ১০:০৬ এএম
যে কোনো সময় গ্রেফতার হতে পারেন মামুনুল হক 

বাংলাদেশ হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হক যে কোনো সময় গ্রেফতার হতে পারেন। ইতিমধ্যে মামুনুল হকের গ্রেফতারের ব্যাপারে সরকারের হাইকমান্ড থেকে সবুজ সংকেত দেয়া হয়েছে বলে একাধিক দায়িত্বশীল সূত্র নিশ্চিত করেছে। 

হেফাজতে ইসলামের এই কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিবের বিরুদ্ধে একাধিক মামলা দায়ের করা হয়েছে। স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তীতে (২৬ মার্চ) বায়তুল মোকাররমে সহিংসতার ঘটনার মামলায় তাকে আসামী করা হয়েছিলো। খন্দকার আরিফুজ্জামান বাদী হয়ে পল্টন থানায় মামলাটি দায়ের করেন।

মূলত হেফাজতে আমীর আল্লামা শফীর মৃত্যুর পর হেফাজতের নেতৃত্বে আসে জুয়ানেদ বাবুনগরী এবং মামুনুল হক। এরা সরকারের বিরুদ্ধাচরণ শুরু করে। যে কোনো বিষয়েই তারা সরকারকে বেকায়দায় ফেলার ষড়যন্ত্রে লিপ্ত হয়। আর এই ঘটনাগুলোতে মামুনুল হকের বিরাট হাত ছিলো।

সবশেষ নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরকে কেন্দ্র করে বাংলাদেশে এক অরাজক পরিস্থিতির সৃষ্টি করে হেফাজত। বিশেষ করে বায়তুল মোকাররমে তারা নারকীয় তাণ্ডব চালায়। আর এই আন্দোলনের ঘোষণা দিয়েছিলেন মামুনুল হক। 

তার ডাকেই হাজার হাজার মাদ্রাসার শিক্ষার্থী রাস্তায় নেমে আসে এবং ২৭ মার্চ সারাদেশে হরতাল পালনের নামে একাত্তরের কায়দায় তাণ্ডব চালায়। এ তাণ্ডবের ফলে ঢাকা, চট্টগ্রাম, ব্রাহ্মণবাড়িয়া রণক্ষেত্রে পরিণত হয়। তারা সরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান, বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতি ভাঙচুর করে। 

এরই মধ্যে মামুনুল হক নারায়ণগঞ্জের রয়েল রিসোর্টে প্রমোদবিহারে গিয়ে এক নারীসহ ধরা পড়েন। সেখানে মামুনুল হক যদিও সেই নারীকে দ্বিতীয় স্ত্রী দাবি করেন, কিন্তু সে তার স্বপক্ষে কোনো প্রমাণ দেখাতে পারেন নি। এমনকি এই দ্বিতীয় বিয়ের বিষয়ে তার প্রথম স্ত্রীও জানতো না। এভাবেই অনেক দিন ধরেই তিনি নানা রকম প্রতারণা করে আসছিলেন। 

বিষয়: মামুনুল