ঢাকা, রোববার, ২৫ জুলাই ২০২১, ১০ শ্রাবণ ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

প্রহসনের বিচারে তাহেরের ফাঁসি হয়েছিল যেদিন

নিউজ ডেস্ক
প্রকাশিত: ২১ জুলাই ২০২১ বুধবার, ০৬:২০ এএম
প্রহসনের বিচারে তাহেরের ফাঁসি হয়েছিল যেদিন

১৯৭৬ সালের ২১ জুলাই ভোর চারটা। ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের অভ্যান্তরে ঘটে যায় ইতিহাসের এক কলঙ্কময় ঘটনা। মুক্তিযুদ্ধে সম্মুখসমরে পা হারানো একজন যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা, মুক্তিসংগ্রামের অন্যতম বীর সেনানায়ক কর্নেল আবু তাহের, বীর উত্তমকে তারই মুক্ত করা স্বদেশভূমিতে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে হত্যা করা হয়। সেদিন প্রহসনের বিচারে ফাঁসিতে ঝুলিয়ে হত্যা করা হয়েছিল কর্নেল আবু তাহেরকে।

কর্নেল তাহের, সময়ের সাহসী পুরুষ। যাঁর কাছে ‘স্বাধীনতা’ শব্দটির মানে হচ্ছে সামগ্রিক মুক্তি। যিনি পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর আক্রমণ থেকে নিজেকে বাঁচানোর জন্য মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেননি, বরং মুক্তিকামী একটি নিপীড়িত জাতির মুক্তিচেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়েই পাকিস্তান থেকে পালিয়ে এসে যুদ্ধে যোগ দিয়েছিলেন। মুক্তিযুদ্ধকে তিনি দেখেছিলেন ঔপনিবেশিক শোষণমুক্তির লক্ষ্যে পরিচালিত একটি জনযুদ্ধ হিসেবে। সেনানায়ক হিসেবে তিনি সে দৃষ্টিকোণ থেকেই যুদ্ধ পরিচালনা করেছেন, সম্মুখসমরে একটি পা হারিয়েছেন, যুদ্ধক্ষেত্র থেকে দূরে, নিরাপদ স্থানে বসে নির্দেশ প্রদান করেননি। স্বাধীন গণতান্ত্রিক সমাজব্যবস্থার পূর্বশর্ত হিসেবে তিনি আমলাতান্ত্রিক, উৎপাদনের সঙ্গে সম্পর্কহীন, শাসকের হাতিয়ার বাহিনীর ঔপনিবেশিক কাঠামো ভেঙে জনতার বাহিনী প্রতিষ্ঠা করতে চেয়েছিলেন।

কিন্তু আমরা দেখলাম স্বাধীনতা, গণতন্ত্র আর জনতার পক্ষ নিয়ে সামরিক শাসন, আমলাতন্ত্রের হাতে কর্নেল তাহেরকে এক নির্মম পরিণতি বরণ করতে হলো। ১৯৭৬ সালের ২১ জুলাই কর্নেল তাহেরের ফাঁসি হয়। ১৭ জুলাই মামলার রায়ে কর্নেল তাহেরের ফাঁসির আদেশ দেওয়া হয়েছিল। তাঁর পরিবারের কেউ আগে দেখা করতে পারেনি। তখন স্বরাষ্ট্রসচিব ছিলেন পাকিস্তানপন্থী জনাব সালাউদ্দিন। আর স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের দায়িত্বে ছিলেন স্বয়ং জেনারেল জিয়াউর রহমান। 

শোষণমুক্ত স্বাধীন বাংলাদেশ গড়ার স্বপ্ন নিয়ে তাহের মুক্তিযুদ্ধে যোগ দিয়েছিলেন। স্বাধীন বাংলাদেশে যখন তিনি দেখতে পেলেন, সেনাবাহিনীতে থেকে তার ভাবনা ও এর বাস্তবায়নের সব পথ রুদ্ধ, তখন তিনি সেনাবাহিনীর উচ্চপদ ছেড়ে দিয়ে প্রত্যক্ষভাবে রাজনীতিতে যুক্ত হতে এক মুহূর্তও দেরি করেননি। পরবর্তী সময়ে ১৯৭৫ সালের ৭ নভেম্বর সিপাহী জনতার অভ্যুত্থান অবশ্যই এক নতুন মাত্রা যোগ করেছে। 

কর্নেল তাহের সব সময় সংগ্রামের ওপরই জোর দিয়েছেন, আপসের কথা বলেননি। বন্দী হওয়ার পর এমন একটা নজিরও নেই যে ক্ষমতাসীন জেনারেল জিয়ার কাছে উনি কোনো ধরনের দেনদরবার করেছেন। উনি খুব পরিষ্কার ধারণা রাখতেন জেনারেল জিয়া সম্পর্কে। উনি নিশ্চিত হয়েছিলেন, তার আর জেনারেল জিয়ার পথ এক নয়। জেনারেল জিয়ার চক্রান্ত-ষড়যন্ত্র প্রতিরোধ করার কথা বলেছেন। মৃত্যু জেনেও তাই কর্নেল তাহের একটুও টলেননি। ঢাকা কেন্দ্রীয় কারাগারের ডিআইজি প্রিজনের অফিস কক্ষে সামরিক আদালত বসিয়ে কর্নেল আবু তাহেরকে ফাঁসি  ও অন্যদের যাবজ্জীবন দেওয়া হয়। এ নিয়ে তখন সারাদেশের মুক্তিযোদ্ধারা আন্দোলন শুরু করলে আ স ম আবদুর রব, মেজর জলিলসহ অন্যদের সঙ্গে মেজর জিয়াউদ্দিনও ১৯৮০ সালে রাষ্ট্রপতির সাধারণ ক্ষমায় মুক্তি লাভ করেন।

আজ আমাদের সামনে প্রশ্ন, তাহেরকে জেনারেল জিয়া হত্যা করেছিলেন, কিন্তু তাঁর আদর্শ, তাঁর চেতনা কি হত্যা করতে পেরেছেন? ১৯৭৬ সালে জেনারেল জিয়া ক্ষমতার সিংহাসনে এবং কর্নেল তাহের ফাঁসির মঞ্চে—কোনটা বাংলাদেশের জন্য মঙ্গলজনক, তার রায় ইতিহাসই দেবে।

বিষয়: তাহের , ফাঁসি