ঢাকা, সোমবার, ২৭ সেপ্টেম্বর ২০২১, ১২ আশ্বিন ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

স্বর্ণের প্রলেপ মোড়ানো উজির কেনাবেচায় নেমেছিলেন মডেল পিয়াসা

নিউজ ডেস্ক
প্রকাশিত: ০৩ আগস্ট ২০২১ মঙ্গলবার, ০৮:২০ এএম
স্বর্ণের প্রলেপ মোড়ানো উজির কেনাবেচায় নেমেছিলেন মডেল পিয়াসা

ক্ষমতার উত্তাপের আঁচ যেন দাবানলের মতো আরও দ্রুত ছড়িয়ে যায়, সেজন্য আন্তর্জাতিক অস্ত্র বিকিকিনির চোরাকারবারে নাম লিখিয়েছিলেন মডেল ফারিয়া মাহবুব পিয়াসা। এসব অবৈধ অস্ত্রের দাম ছিল কোটি টাকারও ওপরে। স্বর্ণের প্রলেপে মোড়া আধুনিক উজি অস্ত্রের কেনাবেচায়ও নাম লেখান তিনি, যা শেষপর্যন্ত তাঁর জীবনের কাল হয়ে দাঁড়ায়। এই অস্ত্রকে অনুসন্ধান করেই গোয়েন্দাদের বেছানো জালে ধরা পড়েন তিনি।

অনুসন্ধানে জানা যায়, পিয়াসার মাধ্যমে আমদানি নিষিদ্ধ উচ্চ ক্যালিবারের মূল্যবান অস্ত্র কেনাবেচা শুরু হয় কয়েক বছর আগে। বিশেষ করে লিমিটেড এডিশনের উজি পিস্তলের বিভিন্ন মডেল তার মাধ্যমেই দেশে আসে। কোনোটির দাম দেড় কোটি টাকা। তবে তিনি এক্ষেত্রে বড় দুঃসাহসও দেখিয়েছেন। এসব অস্ত্রের ছবি তার ফেসবুকেও রয়েছে। সেসব ছবিতে তিনি নিজেকে অনেকটা মাফিয়া ডনের মুডে শো করেছেন। ক্লাবে যাতায়াতের সূত্র ধরে মূলত তিনি ধনাঢ্য শৌখিন অস্ত্র ক্রেতার খোঁজ পান। আমদানি নিষিদ্ধ অস্ত্র আনা হয় শুল্ক ফাঁকি দিয়ে চোরাই পথে। এক্ষেত্রে তিনি এক প্রভাবশালীর পৃষ্ঠপোষকতা পান। 

জানা যায়, বনানী ক্লাব ছাড়াও পিয়াসার পার্টি হয় ফ্লোর সিক্স ও মিন্ট আল্ট্রা লাউঞ্জ নামের সিসা বারে। জন্মদিনের অনুষ্ঠানের কথা বলে আয়োজিত পার্টিতে ভিআইপিদের আড্ডা জমত। প্রায় প্রতি পার্টিতে মিশু নামের এক যুবকের সঙ্গে পিয়াসাকে ঘনিষ্ঠ দেখা যায়। কোটিপতি মিশু বর্তমানে যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাসে বাস করছে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, পিয়াসার ঘনিষ্ঠভাজনদের নামের তালিকা বেশ লম্বা। প্রভাবশালীদের অনেকেই রয়েছেন তার বন্ধু কিংবা বয়ফ্রেন্ডের তালিকায়। 

তার বন্ধু তালিকায় নাম আছে জনৈক জামান, রানা ওরফে শফিউল্লাহ, একটি বিদ্যুৎ প্লান্টের মালিকের ছেলে সাইফ, জঙ্গি কানেকশনে বন্ধ হয়ে যাওয়া লেকহেড স্কুলের মালিক খালেদ, ইয়াবা ডন শালেহ চৌধুরী ওরফে কার্লোস, এক শিল্পপতির নাতি ফাহিম, চট্টগ্রামের গাড়ি ব্যবসায়ী রুবায়েত খান, কাকরাইলের একটি বড় আবাসিক হোটেলের মালিকের ছেলে রাজিব, চেক জালিয়াতির মামলায় কারাবন্দি জাতীয় পার্টির নেতা শাফিউল্লা মনির, বিএনপি নেতা এসএস খালেকের ছেলে সাজু ও সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরীর ভাতিজা সাকের কাদের চৌধুরী। এছাড়া খুলনা থেকে আসা ধনাঢ্য ব্যবসায়ী শাহরিয়ার ওরফে শেখ শাহরিয়ারের সঙ্গে পিয়াসার ঘনিষ্ঠতা দেখা যায়। তাদের দু’জন হোটেল ওয়েস্টিনে পার্টি শেষে গভীর রাতে লং ড্রাইভে বের হতেন। 

জানা যায়, বারিধারা আবাসিক এলাকার ৯ নম্বর রোডের একটি বিলাসবহুল অ্যাপার্টমেন্টে ভাড়া থাকতেন পিয়াসা। সার্ভিস চার্জ ও সিকিউরিটি বিল বাদে শুধু ফ্ল্যাট ভাড়া ৩ লাখ টাকা। অথচ দৃশ্যমান কোনো আয় নেই পিয়াসার। বিশাল ফ্ল্যাটে তিনি একাই থাকেন। তার রান্নাবান্নাসহ ব্যক্তিগত কাজের জন্য কর্মচারী নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। শাহজাহান নামের এক বাবুর্চি তার ফ্ল্যাটে রান্নার কাজ করেন। 

সূত্র বলছে, চট্টগ্রামের আলী এন্টারপ্রাইজের মালিকের ছেলের সঙ্গে ঝামেলায় জড়িয়ে ১৫ বছর আগে ঢাকায় পা রাখেন পিয়াসা। নানা জায়গায় চাকরির চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন। এক পর্যায়ে একটি বেসরকারি টেলিভিশনের কর্মকর্তা মিজানের সঙ্গে তার সখ্য হয়। মিজান তাকে বিয়ে না করলেও অনেকেই তাদেরকে স্বামী-স্ত্রী বলে জানত। এ সময় পিয়াসা নিজেকে সংশ্লিষ্ট টেলিভিশনের পরিচালক বলে পরিচয় দিতে শুরু করেন। এরই সূত্র ধরে হাই সোসাইটিতে পরিচিত হয়ে ওঠেন পিয়াসা। এর পরের দিনগুলো রীতিমতো ইতিহাস। একে একে পিয়াসার বন্ধু তালিকায় যোগ দেন উচ্চপদস্থ সরকারি কর্মকর্তা, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পদস্থ কর্মকর্তা ও ধনাঢ্য ব্যবসায়ীরা। 

এক পার্টিতে পিয়াসার সঙ্গে পরিচয় থেকে ঘনিষ্ঠতা হয় স্বর্ণালংকার ব্যবসায়ী আপন জুয়েলার্সের মালিকের ছেলে সাফাত আহমেদের। শেষ পর্যন্ত সাফাত তাকে বিয়ে করেন। কিন্তু দাম্পত্য বেশিদিন টেকেনি। ২০১৭ সালে পিয়াসাকে ডিভোর্স দেন সাফাত। কিন্তু ডিভোর্স মেনে নিতে পারেননি পিয়াসা। তিনি প্রতিশোধপরায়ণ হয়ে ওঠেন। বনানী রেইনট্রি হোটেলের ধর্ষণ কাণ্ডে সাফাতের নাম জড়িয়ে গেলে দৃশ্যপটে পিয়াসার আবির্ভাব ঘটে। মামলার দুই বাদীকে নিয়ে তৎপর হয়ে ওঠেন তিনি। এক পর্যায়ে আপন জুয়েলার্সের মালিকের সঙ্গে মোটা অংকের অর্থ চেয়ে দর কষাকষি শুরু করেন পিয়াসা। অতিষ্ঠ হয়ে তার বিরুদ্ধে চাঁদাবাজির মামলা করেন আপন জুয়েলার্সের মালিক দিলদার আহমেদ সেলিম। মামলাটি এখনো চলমান। অবশ্য সেলিমের বিরুদ্ধে গর্ভপাতের পালটা মিথ্যা মামলা দিতে ছাড়েননি পিয়াসা। 

সূত্র বলছে, মাদক, নারী ও অস্ত্র ব্যবসা ছাড়াও বনানীর চাঞ্চল্যকর একটি হত্যাকাণ্ডে নাম জড়িয়ে যায়। ২০১৮ সালে বনানীতে খুন হন এসবি ইন্সপেক্টর মামুন। জন্মদিনের অনুষ্ঠানের কথা বলে ডিজে পার্টিতে ডেকে নিয়ে তাকে খুন করা হয়। এ ঘটনায় পিয়াসাকে জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ। কিন্তু পিয়াসা সহজেই পুলিশি ঝামেলা এড়িয়ে যেতে সক্ষম হন। কারণ আলোচিত ডিআইজি মিজানের সঙ্গে ঘনিষ্ঠতার সুবাদে পিয়াসা পুলিশি তদন্ত পাশ কাটিয়ে যান। 

 

বিষয়: মডেল , পিয়াসা