ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ৪ কার্তিক ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

সংক্রমণ কমেছে, কমেছে সচেতনতাও

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২৫ সেপ্টেম্বর ২০২১ শনিবার, ১০:০০ পিএম
সংক্রমণ কমেছে, কমেছে সচেতনতাও

সারাদেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ এখন সহনীয় মাত্রায় রয়েছে। আজ করোনায় নতুন শনাক্ত ৮১৮ জন। শনাক্তের হার ৪ দশমিক ৫৯ শতাংশ। মারা গেছে ২৫ জন। সার্বিকভাবেই দেশের করোনা পরিস্থিতি এখন অনেকটাই স্বাভাবিক। লকডাউন নামের আতঙ্ক থেকেও এখন মুক্ত মানুষ। বিশেষ করে মধ্যবিত্ত এবং নিম্নআয়ের মানুষের জন্য। করোনা সংক্রমণ এখন অনেকটাই সাধারণ জ্বর-সর্দির মত হয়ে গেছে। টিকাকরণই করোনা থেকে বাঁচার একমাত্র পথ বলে জানিয়েছিলেন সমস্ত চিকিৎসক গবেষকরা।

অক্সফোর্ডের মেডিসিনের এক অধ্যাপক বলেছেন, টিকাকরণের হাত ধরেই আসবে সম্পূর্ণ করোনা মুক্তি এবং আগামী বছরের মধ্যেই সর্দি-কাশির মতোই একটি সাধারণ রোগে পরিণত হবে করোনা। এর সাথে সুর মিলিয়ে অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিসিনের অধ্যাপক স্যার জন বেল একটি আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন, ভাইরাসটি আগামী বছরের বসন্তকালের মধ্যেই সাধারণ জ্বর-সর্দির মতো একটি রোগে পরিণত হওয়ার সম্ভাবন রয়েছে। বিশেষজ্ঞদের এই মতামতের কিছুটা চিত্র এখনই পরিলক্ষিত হচ্ছে বাংলাদেশেই। ঋতু পরিবর্তনের পাশাপাশি ডেঙ্গু সহ নানান ধরণের জ্বরে এখন আক্রান্ত বাংলাদেশের মানুষ। সেই সাথে রয়েছে করোনার প্রভাব তবে তা এখন শুরুর দিকের মত খুব বেশি ভয়াবহ নয়। এর অন্যতম প্রধান কারণ হলো বাংলাদেশের এখন প্রায় সাড়ে ৪ কোটি মানুষ ভ্যাকসিন গ্রহণ করেছেন। ফলে বাংলাদেশের মানুষের মধ্যে করোনার প্রতিরোধ এখন বেড়েছে। যদিও করোনার ভ্যাকসিন গ্রহণ করার পরও করোনা সংক্রমণের ঝুঁকি থেকে যায় তাই বিশেষজ্ঞরা তখন স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার কথা জানিয়েছেন।

করোনা প্রকোপের শুরু থেকেই বাংলাদেশের মানুষের মধ্যে স্বাস্থ্যবিধি না মানার একটি প্রবণতা লক্ষ করা যায়। বিশেষ করে নিম্নআয়ের মানুষের মধ্যে স্বাস্থ্যবিধি না মানার প্রবণতা ছিল অনেক বেশি। যদিও সরকার, চিকিৎসক সহ বিভিন্ন মহলের পক্ষ থেকে বারবার স্বাস্থ্যবিধি মানার কথা বলা হয়েছে, পুলিশ প্রশাসন স্বাস্থ্যবিধি মানতে বাধ্যও করেছে। তারপরও মানুষ স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষা করেছে হরহামেশাই। এখন করোনার সংক্রমণ সহনশীল, নেই লকডাউন কিংবা কঠোর বিধিনিষেধ। সেই সাথে এখন নেই স্বাস্থ্যবিধিও। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেয়ার সাথে লকডাউন মুক্ত হলো বাংলাদেশ। লকডাউন মুক্ত বাংলাদেশে এখন স্বাস্থ্যবিধি অনেকটাই উপেক্ষিত। বিশেষ করে গণপরিহন, হাট-বাজার, মার্কেট, রাস্তাঘাট, পার্ক সহ বিভিন্ন স্থানেই এখন স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষিত। মাস্ক পরিধান করছেন না অধিকাংশই। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের সাথে আসা অভিভাবকরাও মানছেন না স্বাস্থ্যবিধি। শিক্ষার্থীরা থুঁতনিতে মাস্ক রেখে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান থেকে বের হয়ে রাস্তার উপর থাকা বিভিন্ন খোলা খাবার খাচ্ছে। সার্বিকভাবেই এখন স্বাস্থ্যবিধি মানার সচেতনতা নেই মানুষের মধ্যে।

করোনার প্রকোপ কমে যাওয়া কিংবা টিকার আওতায় চলে আসা যেটাই স্বাস্থ্যবিধি উপেক্ষার কারণ হোক না কেন করোনার তৃতীয় ঢেউ আসলে সেটি স্বাস্থ্যখাতের বড় ধরণের বিপর্যয়ের কারণ হতে পারে বলেও মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।