ঢাকা, মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ৪ কার্তিক ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

হরিলুটের আরেকটি নিদর্শন!

নিউজ ডেস্ক
প্রকাশিত: ১২ অক্টোবর ২০২১ মঙ্গলবার, ১২:০০ পিএম
হরিলুটের আরেকটি নিদর্শন!

রাজধানী ঢাকার শের-ই-বাংলা কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে (শেকৃবি) একটি ভবন নির্মাণকে কেন্দ্র করে হরিলুটের অভিযোগ উঠেছে। ৩২ কোটি টাকারও বেশি ব্যয়ে নির্মাণাধীন টিচার্স স্টুডেন্ট সেন্টার (টিএসসি) ভবনটি হস্তান্তরের আগেই ছাদ চুইয়ে পানি পড়ছে। এ উদ্ভট পরিস্থিতিতে ছাদের ওপরের কিছু অংশে নতুন করে আবারও ঢালাই করার উদ্যোগ নিয়েছে ঠিকাদার। ফলে ভবনটির নির্মাণকাজের মান নিয়ে স্থানীয় মহলে উঠেছে প্রশ্ন।

সরেজমিনে দেখা যায়,  ছয় তলা বিশিষ্ট নির্মাণাধীন টিএসসি ভবনটি থাই গ্লাসে ঝকঝক করছে। তবে এর ছাদের ওপরের স্তরের কিছু অংশ চটিয়ে রাখা হয়েছে। ভবনটিতে কর্মরত নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক একাধিক শ্রমিক জানান, ছাদ চুইয়ে পানি পড়ায় ওই অংশটি চটিয়ে রাখা হয়েছে। কিছুদিনের মধ্যেই এই অংশটুকুতে নতুন করে ঢালাই দেয়া হবে। ভবনটির মিলনায়তন কক্ষে গিয়ে ছাদ চুইয়ে পানি পড়ার চিহ্ন দেখতে পাওয়া যায়।

 এ হরিলুটের প্রসঙ্গে নির্মাণাধীন ভবনের দায়িত্বে থাকা ঠিকাদার প্রতিষ্ঠানের প্রকৌশলীর সহকারী তুষার আহমেদ দাবি করেন, অনেক বড় ছাদ হওয়ায় কয়েক ধাপে তা ঢালাই করা হয়েছে। সেই জয়েন্টে একটু সমস্যা হওয়ায় হালকা একটু পানি চুয়ে পড়ছিল, তাই ওপরের কিছু অংশ চটানো হয়েছে। কয়েকদিনের মধ্যেই আবার ঢালাই দেয়া হবে বলে জানান তিনি।

মোটা অঙ্কের টাকা ব্যয় করে তৈরি হতে যাওয়া ভবনটির নির্মাণকাজ মানসম্মতভাবে হয়েছে কি না প্রশ্নে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান প্রকৌশলী মো. আজিজুর রহমানও ঠিকাদারের সুরে বলেন, অনেক বড় ছাদ, স্লোপে একটু সমস্যা আর ছাদের ময়লার কারণে পানি চুয়ে পড়ছে। তবে রিপেয়ারিং করা হচ্ছে।

এ প্রসঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয়ের কনস্ট্রাকশন সুপারভিশন কমিটির আহ্বায়ক অধ্যাপক ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক জানান, বিষয়টা আমি জানি না। টিএসসি’র ছাদ ঢালাই আমাদের দায়িত্ব পাওয়ার আগেই হয়েছে। ওখানে (টিএসসি) ডিজাইনে ইন্টারনেটের কোনো সুযোগ-সুবিধার ব্যবস্থা রাখেনি, আলাদাভাবে আবার করতে হচ্ছে। বহু টাকা লাগছে, ঝামেলা চলছে।

প্রসঙ্গত, ছয় তলার নির্মাণাধীন টিএসসি ভবনটিতে এর আগেও দেখা দিয়েছিল নির্মাণ জটিলতা। ছাদ ঢালাইয়ের পরিবর্তে সেখানে স্পেশাল টিনের (বিআইসিসির আদলে) ছাদ দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। পরে অবশ্য সমালোচনার মুখে বাৎসরিক মেইনটেনেন্সের খরচের অজুহাতে কর্র্তৃপক্ষ পিছু হটে। পরে সম্পূর্ণ নতুন করে দুটি কলাম তুলে তারপর ছাদ ঢালাই করা হয়।