ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ২৮ অক্টোবর ২০২১, ১৩ কার্তিক ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

মহানবমীতে পূজামণ্ডপে ভক্ত-দর্শনার্থীদের ভিড়

নিউজ ডেস্ক
প্রকাশিত: ১৪ অক্টোবর ২০২১ বৃহস্পতিবার, ০৮:১৯ পিএম
মহানবমীতে পূজামণ্ডপে ভক্ত-দর্শনার্থীদের ভিড়

কুমিল্লায় সংগঠিত অনাকাঙ্খিত ঘটনায় উদ্বেগ-উৎকণ্ঠার মধ্যে মহানবমী পূজা উদযাপন করেছে হিন্দু ধর্মাবলম্বীরা। সারাদিনই রাজধানীর মণ্ডপগুলোতেও ভক্ত দর্শনার্থীদের ভিড় দেখা গেছে। ভক্তরা মণ্ডপে অঞ্জলি ও ভোগ দিয়েছেন। নবমী পূজা ও সন্ধ্যা আরতি শেষে বিদায়ের সুর বাজতে শুরু করেছে। আগামীকাল শুক্রবার বিজয়া দশমীতে বিদায় নিবেন মা দূর্গা। প্রতিমা বিসর্জনের মধ্য দিয়ে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের ৫ দিনের দুর্গাপূজার আনুষ্ঠানিক সমাপ্তি ঘটবে। করোনা পরিস্থিতি ও সাম্প্রদায়িক উত্তেজনা বিবেচনায় নিয়ে সন্ধ্যার আগেই প্রতিমা বিসর্জনের নির্দেশনা দিয়েছে বাংলাদেশ পূজা উদযাপন পরিষদ।

হিন্দু সম্প্রদায়ের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা গত সোমবার সকালে ষষ্ঠীপূজার মধ্য দিয়ে শুরু হয়েছে। টানা পাঁচ দিনের আনন্দ উৎসবের পর শুক্রবার বিজয়া দশমীর দিন দেবী বিসর্জনের মাধ্যমে দুর্গাপূজার আনুষ্ঠানিকতা শেষ হবে। বৃহস্পতিবার মহানবমীর সন্ধ্যায় আরতি শেষে দেবীর বন্দনায় প্রতিটি পূজামণ্ডপে বিষাদের সুর বাজতে শুরু করে। সকাল ৯টা ৫৭ মিনিটের আগেই কল্পারম্ভ ও বিহিতপুজার মাধ্যমে শুরু হয় নবমীর আনুষ্ঠানিকতা। পূজা শেষে ভক্তরা দেবীর চরণে পুষ্পাঞ্জলি নিবেদন করেন। দিনভর চলেছে চণ্ডীপাঠ আর ভক্তদের কীর্তনবন্দনা। আগের দিন রাতে অষ্টমী ও নবমী তিথির সন্ধিক্ষণে অনুষ্ঠিত হয় সন্ধিপূজা। মহাঅষ্টমীতে রাত ১১টা ৫৪ মিনিটে সন্ধি পূজা শুরু ও সমাপনী হয় রাত ১২টা ৪২ মিনিটে।

হিন্দু শাস্ত্রমতে, নবমী তিথিতে রাবণ বধের পর শ্রী রামচন্দ্র এই পূজা করেছিলেন। নীলকণ্ঠ ফুল, যজ্ঞের মাধ্যমে অনুষ্ঠিত হয় নবমী বিহিত পূজা। নবমী পূজার মাধ্যমে মানবকুলে সম্পদলাভ হয়। তাই শাপলা, শালুক ও বলিদানের মাধ্যমে দশভুজা দেবীর পূজা হয়েছে। নীল অপরাজিতা ফুল নবমী পূজার বিশেষ অনুষঙ্গ। নবমী পূজায় যজ্ঞের মাধ্যমে দেবী দুর্গার কাছে আহুতি দেওয়া হয়। ১০৮টি বেল পাতা, আম কাঠ, ঘি দিয়ে এই যজ্ঞ করা হয়।

রাজধানীর বিভিন্ন মণ্ডপে পূজা শেষে যথারীতি অঞ্জলি, প্রসাদ বিতরণ পর্ব অনুষ্ঠিত হয়। প্রতিটি মণ্ডপেই কয়েক দফা করে পুষ্পাঞ্জলি দেওয়া হয়। বিদায় বেলায়ও চলেছে ঢাক আর শঙ্খধ্বনি, টানা মন্ত্র পাঠ, উলুধ্বনি, অঞ্জলি, ঢাকের বাজনার সঙ্গে ছিল ধুনচি নৃত্য। সন্ধ্যায় আরতির পাশাপাশি মণ্ডপে মণ্ডপে অনুষ্ঠিত হয়েছে আলোচনা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। এ সকল অনুষ্ঠানের কারণে অনেক স্থানে বৃষ্টি উপেক্ষা করে মহানবমীতে বিভিন্ন মন্দির ও মণ্ডপে ছিল ভক্ত ও দর্শনার্থীর উপচেপড়া ভিড়। তবে কুমিল্লাসহ সারাদেশে প্রতিমা ও মণ্ডপ ভাংচুরের ঘটনায় ভক্ত-দর্শনার্থীদের মধ্যে আতংকের ছাপ লক্ষ্য করা গেছে।

বিজয়া দশমীতে সরকারি ছুটি থাকলেও এবার শুক্রবার হওয়ায় এ বিষয়ে কারো আগ্রহ নেই। তবে বিজয়া উপলক্ষে বাংলাদেশ বেতার, বাংলাদেশ টেলিভিশনসহ অন্যান্য বেসরকারি টিভি চ্যানেল ও রেডিও বিশেষ অনুষ্ঠানমালা সম্প্রচার করবে। এছাড়া জাতীয় দৈনিকগুলো এ উপলক্ষে বিশেষ নিবন্ধ প্রকাশ করবে। সারাদেশে সাম্প্রদায়িক উত্তেজনা দেখা দেওয়ায় দেশবাসীকে সতর্ক থাকার আহ্বান জানিয়েছে বিভিন্ন রাজনৈতিক দল ও সমাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠন।

কুমিল্লাসহ সারাদেশে হামলা ও ভাংচুরের ঘটনার নিন্দা জানিয়ে বাংলাদেশ পূজা উদযাপন কমিটির সাধারণ সম্পাদক নির্মল কুমার চ্যাটার্জী বলেন, বিজয়া দশমীর দিন শোভাযাত্রা পরিহার করে সন্ধ্যার আগেই প্রতিমা বিসর্জনের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। যে কোন অনাকাঙ্খিত ঘটনা এড়াতে এই নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। এক্ষেত্রে করোনা সংক্রমণের বিষয়টিও বিবেচনায় নেওয়া হয়েছে।