ঢাকা, মঙ্গলবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০২১, ৬ আশ্বিন ১৪২৮ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

দরকষাকষিতে অদক্ষতা: তৈরি পোশাকে ১০ শতাংশ কম মূল্য পাচ্ছে বাংলাদেশ

অর্থনীতি ডেস্ক
প্রকাশিত: ২৬ জুলাই ২০১৮ বৃহস্পতিবার, ০১:০৯ পিএম
দরকষাকষিতে অদক্ষতা: তৈরি পোশাকে ১০ শতাংশ কম মূল্য পাচ্ছে বাংলাদেশ

কারিগরি শিক্ষায় ঘাটতি থাকায় বিশ্বের বড় ক্রেতাদের সঙ্গে সঠিকভাবে দরকষাকষি করতে পারছেন না বাংলাদেশের কর্মীরা। ফলে তৈরি পোশাক খাতে অন্যান্য দেশের তুলনায় অন্তত ১০ শতাংশ কম মূল্য পাচ্ছে বাংলাদেশ।

গতকাল বুধবার বন্দরনগরী চট্টগ্রামের একটি পাঁচতারকা হোটেলে আয়োজিত ‘ড্রাইভিং ট্রান্সফরমেশন ইন বাংলাদেশ অ্যাপারেল ইন্ডাস্ট্রি’ শীর্ষক এক সেমিনারে বিকেএমইএর সাবেক সভাপতি ফজলুল হক একথা বলেন। সেমিনারটি প্রাইসওয়াটারহাউজকুপারসের (পিডব্লিউসি) উদ্যোগে অনুষ্ঠিত হয়।

ফজলুল হক বলেন, ‘বাংলাদেশের শিক্ষাব্যবস্থা তৈরি পোশাক খাতের উন্নয়নের জন্য যথেষ্ট নয়। উচ্চশিক্ষিত অনেকেরই যোগাযোগ দক্ষতা, বোঝানোর ক্ষমতা ইত্যাদি বিষয়ে পর্যাপ্ত জ্ঞানের অভাব দেখা যায়। এ কারণে বিদেশি ক্রেতার সঙ্গে দরকষাকষিতে আমাদের পণ্যের মূল্য অন্তত ১০ শতাংশ কমে যাচ্ছে।’

দক্ষ কর্মীর অভাবে বাংলাদেশের তৈরি পোশাক নির্মাতা অনেক প্রতিষ্ঠান বিদেশ থেকে কর্মী এনে অনেক বেতন দিয়ে রাখতে বাধ্য হচ্ছে বলেও জানান তিনি।

বিশ্বের বিভিন্ন দেশ এখন কারিগরি শিক্ষায় জোর দিচ্ছে উল্লেখ করে ফজলুল হক বলেন, ‘বাংলাদেশেও সরকারকে গতানুগতিক পড়াশোনার পাশাপাশি কারিগরি শিক্ষায় বিশেষ গুরুত্ব দিতে হবে।’

সেমিনারে সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা ড. হোসেন জিল্লুর রহমান বলেন, ‘বাংলাদেশ তৈরি পোশাকের বৈশ্বিক বাজারে অনেক ভালো অবস্থানে রয়েছে এবং সংস্কারমূলক বিভিন্ন পদক্ষেপের কারণে এই খাতে ব্যাপক গুণগত পরিবর্তন এসেছে।’

দেশের পোশাক খাত এখন চট্টগ্রাম বন্দরের ওপর নির্ভরশীল, একথা উল্লেখ করে জিল্লুর রহমান অভিযোগ করেন, ‘বন্দর কার্যত অকার্যকর করে রাখা হয়েছে। একটি বিদেশী জাহাজকে কেন পাঁচ থেকে ১০ দিন খালাসের জন্য অপেক্ষা করতে হবে?’ এই ব্যাপারে তিনি সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করে বলেন, ‘সরকার কিন্তু ব্যবসায়ীদের বাজার খুঁজে দেয়নি। ব্যবসায়ীরাই তৈরি পোশাকের বাজার খুঁজে বের করেছে।’

পিডব্লিউসির পরিচালনা পর্ষদের কর্মকর্তা পল্লব দে বলেন, ২০১১ সালে ৮৯ শতাংশ বিদেশী ক্রেতা বাংলাদেশ থেকে কাপড় কিনতে আগ্রহী থাকলেও ২০১৭ সালে এ হার গিয়ে দাঁড়িয়েছে ৪৯ শতাংশে। তৈরি পোশাক খাতে বিশ্ববাজারে বাংলাদেশকে নেতৃত্ব দিতে হলে দক্ষ শ্রমিক, ভালো ব্যবসায়িক চিন্তাভাবনা, কার্যকর পরিকল্পনা গ্রহণ, শিল্পপ্রতিষ্ঠানের নিরাপত্তা নিশ্চিতকরণসহ নানামুখী পরিকল্পনা গ্রহণ করতে হবে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

সেমিনারে অন্যান্য ব্যবসায়ীদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন এশিয়ান গ্রুপের চেয়ারম্যান এমএ সালাম, বিজিএমইএর পরিচালক আবু তৈয়ব, পিডব্লিউসির পরিচালক অরুণ রায়চৌধুরী প্রমুখ।

বাংলা ইনসাইডার/এসএইচটি