ঢাকা, সোমবার, ২২ এপ্রিল ২০১৯, ৯ বৈশাখ ১৪২৬ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

অফিসে কখন বেতন বাড়ানোর কথা বলবেন

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ১৩ নভেম্বর ২০১৮ মঙ্গলবার, ০১:৩০ পিএম
অফিসে কখন বেতন বাড়ানোর কথা বলবেন

অফিসে অনেকটা সময়ই কেটে গেছে হাসনাতের। তার পারফরমেন্সও মোটামুটি সন্তোষজনক, অফিস বসের সঙ্গেও ভালোমন্দ মিলিয়ে সম্পর্ক। নির্দিষ্ট সময় পরে চাকরিতে কনফারমেশনও মিলেছে তার। কিন্তু সমস্যা রয়ে গেছে একখানে। সেটা হলো বেতন। অনেকটা সময় পার হলেও আজ পর্যন্ত বেতন বাড়েনি। চাকরিতে পদোন্নতি, ভালোমানের বেতন না হলে কাজের প্রতি আগ্রহ কমতে থাকে। হাসনাতের ক্ষেত্রেও তার ব্যতিক্রম হয়নি। কিন্তু সে তার বেতন বাড়ানোর কথা বলবে কীভাবে সেটাই বুঝে উঠতে পারছে না। সেজন্য প্রয়োজন প্রস্তুতি আর সঠিক সময়ের। 

বেছে নিন সঠিক সময়

বেতন বাড়ানোর দাবি সঠিক সময়ে আর পরিস্থিতি বুঝে উপস্থাপন করবেন। নির্দিষ্ট সময়ের আগে কখনো বেতন বাড়ানোর কথা বলতে যাবেন না। আর বসের মেজাজ বুঝে কথা বলুন। বস যদি উৎফুল্ল মেজাজে থাকে, তার যদি যুক্তি শোনার মুড থাকে তবে তখন কথা বলার চেষ্টা করুন। আর প্রতিষ্ঠানের আর্থিক পরিস্থিতি বুঝে তারপর বেতন বাড়ানোর কথা বলুন। খারাপ আর্থিক পরিস্থিতি হলে এই দাবি মেনে নেওয়া কঠিন হবে। 

প্রয়োজনীয় তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করুন

আপনার দাবিকে একটু শক্তিশালী করতে তথ্যের দরকার। মনে রাখবেন, বেতন বাড়াতে হলে আপনার প্রতিষ্ঠানের পলিসি, অতীত বর্তমান বিভিন্ন ধরনের রেকর্ড, অন্য প্রতিষ্ঠানের একই পদে কর্মীদের বেতনের পরিমাণ- এই খোঁজখবরগুলো নিন। তারপর কথা বলুন, দাবি জোরালো করুন। কতোটুকু বেতন বাড়ানো উচিৎ, সেটাও বুঝতে পারবেন তখন।

প্রতিষ্ঠানে আপনার অবস্থান সম্পর্কে বুঝুন

বেতন বাড়ানোর কথা বলবেন ভালো কথা। তার আগে সেই প্রতিষ্ঠানে আপনার অবস্থান বা মূল্যায়ন কতটুকু সে সম্পর্কে বুঝে নিন। আপনার দাবি কোম্পানি কেন মেনে নেবে সেই প্রশ্ন করুন নিজেকে। আপনি সাধারণমানের কর্মী হলে বেতন বাড়ার সম্ভাবনা কম। আর আপনি যদি একটু বিশেষমানের কর্মী হন তাহলে প্রতিষ্ঠান আপনার দাবির কথা অবশ্যই ভেবে দেখবে।

আলোচনা প্রক্রিয়া গুছিয়ে ফেলুন

সব পরিস্থিতি নিজের অনুকূলে থাকলেও আপনি সঠিক পরিকল্পনার অভাবে সব ভেস্তে যেতে পারে। তাই আগে কৌশলী হন। আপনার যুক্তিগুলো গুছিয়ে রেডি করুন, চাইলে একটু প্র্যাকটিস করে নিতে পারেন। আলোচনায় তথ্য, উপাত্ত আর পরিসংখ্যানের দ্বারা উদাহরণ দিন। এতে আপনি যুক্তিতে জিতে যাবেন। আপনার অর্জন আর সাফল্যগুলো দেখান। বসের যুক্তির পাল্টা যুক্তি দিন।

ইতিবাচক থাকুন

কর্তৃপক্ষের যেকোনো সিদ্ধান্তে ইতিবাচক থাকুন। আপনার পক্ষে সিদ্ধান্ত না আসলেও অসন্তোষ প্রকাশ করবেন না। আলোচনার শুরুতেই বস আর প্রতিষ্ঠানের প্রশংসা করে নিন। আপনাকে সময় দেওয়ার জন্য ধন্যবাদ জানান। আপনার পক্ষে সিদ্ধান্ত এলো না কেন তার কারণ জানতে চান, প্রতিষ্ঠানের চাহিদামতো কীভাবে আরও ভালো করতে পারেন সেটা জানুন।

নিজেকে অন্যদের থেকে এগিয়ে রাখার চেষ্টা করুন

অফিসের অন্যান্য কর্মীদের তুলনায় নিজেকে কিছুটা এগিয়ে রাখার চেষ্টা করুন। তবে সেটা কারো সঙ্গে সম্পর্ক নষ্ট করে নয়। প্রতিষ্ঠানের বিশেষ প্রকল্পগুলোতে দায়িত্ব নিতে চেষ্টা করুন। নেতৃত্ব নিন, নেতৃত্ব দিন।

চাকরি ছাড়ার হুমকি দেবেন না

চাকরিতে বনিবনা না হলে আমরা চাকরি ছেড়ে দেওয়ার হুমকি দিয়ে ফেলি। এতে করে আপনার অবস্থান আরও নড়বড়ে হয়ে যেতে পারে। সমস্যা হলে সেটা সমাধানের জন্য পর্যাপ্ত সময় নিন। প্রয়োজনে ক্লোজ কারো সঙ্গে আলোচনা করুন।

 

বাংলা ইনসাইডার/এসএইচ