কালার ইনসাইড

তাহলে কি বিয়ে করেছেন কণ্ঠশিল্পী লিজা!

প্রকাশ: ০৮:৫০ পিএম, ১৯ নভেম্বর, ২০২৩


Thumbnail

২০০৮ সালে ‘ক্লোজআপ ওয়ান তোমাকেই খুঁজছে বাংলাদেশ’ প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন হওয়ার মাধ্যমে গানের জগতে পা রাখেন সানিয়া সুলতানা লিজা। তারপর থেকেই গানের পাশাপাশি দেশে এবং বিদেশেও মাঝে-মধ্যে শো করতে যান। তেমনই একবার গিয়েছিলেন যুক্তরাষ্ট্রে। আর সেই সফরে পরিচয় ঘটে সবুজ খন্দকারের সঙ্গে। সম্প্রতি খবর ছড়িয়েছে, সেই যুক্তরাষ্ট্রপ্রবাসী বাংলাদেশি ব্যবসায়ী সবুজ খন্দকারের সঙ্গে লিজা বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা সেরেছেন।

যদিও বিয়ের বিষয়টি একান্ত পারিবারিক পর্যায়ে রেখেছেন লিজা ও সবুজ। তবে সম্প্রতি বিষয়টি নিয়ে শোবিজ পাড়ায় কানাঘুষা চলছে। কেননা, বেশ কিছু দিন ধরেই লিজার ছায়াসঙ্গী হয়ে আছেন সবুজ। বিভিন্ন অনুষ্ঠান থেকে পারিবারিক আয়োজন, সবখানেই তারা একত্রে। শুধু তাই নয়, লিজার হোয়াটসঅ্যাপ অ্যাকাউন্টেও দুজনের যৌথ ছবি। ফেসবুকেও লিজা আর তাঁর পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে পোস্ট করা স্থিরচিত্রে সবুজ খন্দকারকে দেখা গেছে। এসব দেখেই বিয়ের বিষয়টি জোরালো হয়।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, যুক্তরাষ্ট্রে স্টেজ শো করতে গিয়ে ব্যবসায়ী সবুজ খন্দকারের সঙ্গে পরিচয় হয় লিজার। তাঁদের দুজনকে যুক্তরাষ্ট্রে একসঙ্গে ঘুরতেও দেখা গেছে। বছরখানেক ধরে বাংলাদেশেও সবুজকে নিয়ে বিভিন্ন সামাজিক অনুষ্ঠানে হাজির হন লিজা। বিনোদন অঙ্গনে লিজার ঘনিষ্ঠজনেরা লিজা ও সবুজের বিয়ের বিষয়টি অবগত। তবে লিজা যেহেতু আনুষ্ঠানিকভাবে এখনো কিছু বলছেন না, তাই তাঁরাও এ নিয়ে মুখ খুলছেন না।

এদিকে ২০২২ সালে প্রেম ও বিয়ের প্রসঙ্গে সংবাদমাধ্যমে লিজা বলেছিলেন, ‘সব মানুষই জীবনে কারও না কারও সঙ্গে সম্পর্কে জড়ায়। আমি নতুন সম্পর্কে জড়িয়েছি। এটুকু বলতে পারি, আমাদের বিয়ের সবকিছু রেডি। এ বছরই বিয়ে করব। করোনার প্রাদুর্ভাব কমলে বিয়ের ঘোষণা দিতে পারব। শুধু বলি, সে গানের বাইরের জগতের মানুষ। তবে পরিচয় গানের সূত্রেই।’

উল্লেখ্য, ২০০৮ সালে ‘ক্লোজআপ ওয়ান তোমাকেই খুঁজছে বাংলাদেশ’ প্রতিযোগিতায় চ্যাম্পিয়ন হয়েছিলেন লিজা। এরপর থেকে অডিও এবং সিনেমায় নিয়মিত গান করে আসছেন তিনি। গানের একটি রিয়েলিটি শোর বিচারকাজ নিয়ে ব্যস্ত আছেন এ তারকা।


কন্ঠশিল্পী লিজা   ক্লোজআপ ওয়ান   তোমাকেই খুঁজছে বাংলাদেশ  


মন্তব্য করুন


কালার ইনসাইড

অনন্ত-রাধিকার বিয়েতে শাহরুখের সঙ্গে দেখা, যা বললেন জন সিনা

প্রকাশ: ০৭:১১ পিএম, ১৪ জুলাই, ২০২৪


Thumbnail

সম্প্রতি ভারতের অন্যতম ধনী মুকেশ আম্বানির ছোট ছেলে অনন্ত আম্বানি এবং রাধিকা মার্চেন্টের বিয়েতে যোগ দিতে ভারতে এসেছিলেন হলিউড তারকা তথা ডব্লিইডব্লিউই কুস্তিগীর জন সিনা। এবং এখানে সকলের সঙ্গে বেশ কিছুটা সময় উপভোগও করেছিলেন তিনি।

এদিকে তাকে দেশি পোশাকে দেখে ভক্তেরাও রীতিমতো মুগ্ধ বলা চলে। শুধু তাই নয়, জন সিনাকে মাথায় পাগড়ি বেঁধে বিয়ের উৎসবে প্রচুর নাচ করতেও দেখা গিয়েছে। এই বিয়ের অনুষ্ঠানে এসেই তার দেখা হয়েছে দেশ-বিদেশের একঝাঁক অতিথিদের পাশাপাশি এমন একজ মানুষের সঙ্গে, যে তার জীবন বদলে দিয়েছিল একটা সময়।  

তিনি সবসময়ের জন্য সেই ব্যক্তির কাছে কৃতজ্ঞ থাকবেন বলা চলে। জানেন কি কে সেই ব্যক্তি?

জন সিনার জীবন পরিবর্তনকারী সেই ব্যক্তি আর কেউ নন, শাহরুখ খান। এছাড়াও আম্বানি পরিবারের আতিথেয়তার জন্য কৃতজ্ঞতাও প্রকাশ করেছেন। দেশে ফেরার পর, জন সিনা সোশ্যাল মিডিয়ায় একটি পোস্ট করেছেন। যেখানে তিনি অনন্ত আম্বানি এবং রাধিকার বিয়েতে যোগ দেওয়ার অভিজ্ঞতা শেয়ার করেছেন। শাহরুখের জন্যও লিখেছেন, তার জীবনে ইতিবাচক প্রভাব পড়েছে।

জন সিনা তার এক্স-এ রাধিকা এবং অনন্তের বিয়ে থেকে শাহরুখের সঙ্গে তার ছবি শেয়ার করে লিখেছেন, ‘এটি একটি অনন্য এবং আশ্চর্যজনক মুহূর্ত। ২৪ ঘণ্টা অসাধারণ কেটেছে। এই সময়টাকে এখনও বিশ্বাস করতে পারছি না। আমি আম্বানি পরিবারের প্রতি অত্যন্ত কৃতজ্ঞ এবং আমাকে স্বাগত জানানোর জন্য আমি মুগ্ধ। অনেক অবিস্মরণীয় মুহূর্ত দিয়ে ভরা একটি অভিজ্ঞতা। যা আমাকে অগণিত নতুন বন্ধুদের সঙ্গে দেখা করার সুযোগ করে দিয়েছে। এর মধ্যে শাহরুখ খানও রয়েছেন। তাকে ব্যক্তিগতভাবে বলতে পেরেছিলাম যে তিনি আমার জীবনে কতটা পজিটিভ করে তুলেছে।’

অন্যদিকে জন সিনার এই পোস্ট দেখে ভক্তরাও তার রীতিমতো প্রশংসা করেছেন। সকলেই বলছেন যে জন সিনাকে পাগড়িতে অসম্ভব সুন্দর দেখাচ্ছিল। মুকেশ আম্বানিও জন সিনাকে উষ্ণ অভ্যর্থনা জানিয়েছেন।


মুকেশ আম্বানি   অনন্ত আম্বানি   রাধিকা মার্চেন্ট   জন সিনা   হলিউড তারকা   শাহরুখ খান  


মন্তব্য করুন


কালার ইনসাইড

বিনা দাওয়াতে আম্বানির ছেলের বিয়েতে গিয়ে গ্রেপ্তার ২

প্রকাশ: ০৬:৩৮ পিএম, ১৪ জুলাই, ২০২৪


Thumbnail

রাজকীয় এক বিয়ে বলে কথা, সুযোগ পেলে যে কেউ এমন বিয়ের সাক্ষী হতে চাইবে। সেই সুযোগই কাজে লাগাতে গিয়ে পুলিশের কাছে ধরা পড়েছেন দুই ব্যক্তি। ঘটনা ভারতীয় ধনকুবের মুকেশ আম্বানীর ছেলে অনন্ত আম্বানী ও রাধিকা মার্চেন্টের বিয়ের।   

মুম্বাইয়ের কুরলা কমপ্লেক্সের জিও ওয়ার্ল্ড কনভেনশন সেন্টারে গত ১২ জুলাই অনুষ্ঠিত হলো ভারতের শীর্ষ ধনীর ছোট ছেলের রাজকীয় বিয়ের আয়োজন। যেখানে উপস্থিত ছিলেন বলিউড-হলিউড থেকে শুরু করে খেলোয়াড়-ধনকুবেররা। 

যে কারণে বিয়েতে নিরাপত্তা ব্যবস্থাও ছিল চোখে পড়ার মতো। তবুও জমকালো এই আয়োজনে বিনা দাওয়াতে অবৈধভাবে ভেন্যুতে প্রবেশের অভিযোগের পৃথক ঘটনায় দুই ব্যক্তিকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। নিরাপত্তা কর্মীরা তাদের সন্দেহজনক গতিবিধি লক্ষ্য করে অভিযুক্তদের ধরে ফেলেন। পরে পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়।

এফআইআরে বলা হয়েছে, শনিবার ভোরে জিও ওয়ার্ল্ড সেন্টারের দোতলায় এক ব্যক্তিকে সন্দেহজনক আচরণ করতে দেখা যায়। লাল ওই ব্যক্তিকে তার সিকিউরিটি ইনচার্জ মণীশ শ্যামলেটির কাছে নিয়ে আসেন, যিনি তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করেন এবং পরে তাকে বান্দ্রা-কুরলা কমপ্লেক্স পুলিশের হাতে তুলে দেওয়া হয়।

পুলিশ জানিয়েছে, ভিরারের ব্যবসায়ী লুকমান মোহাম্মদ শফি শেখ (২৮) নামে ওই ব্যক্তি ১০ নম্বর গেট দিয়ে অবৈধভাবে অনুষ্ঠানস্থলে প্রবেশ করেন। শনিবার ছিল অনন্ত-রাধিকার শুভ আশীর্বাদের অনুষ্ঠান। ভেন্যুতে প্রবেশের জন্য বিশেষ পাস দেওয়া হয়েছিল সকলকে। শেখ পরে স্বীকার করেন, কৌতূহলবশত আম্বানির ছেলের বিয়েতে হাজির হয়েছেন তিনি।

দ্বিতীয় ঘটনায়, শুক্রবার সকালে জিও ওয়ার্ল্ড সেন্টারের ১ নম্বর প্যাভিলিয়নের নিরাপত্তা কর্মীরা এক ব্যক্তিকে সন্দেহজনক আচরণ করতে দেখেন। সঙ্গে সঙ্গে তাকে আটক করা হয়। আটকের পর তিনি জানান, ইউটিউব চ্যানেলের জন্য ভিডিও ফুটেজ সংগ্রহ করতে এমন কীর্তি ঘটিয়েছেন।

মুম্বাই পুলিশের তরফে জানানো হয়েছে, দুই অভিযুক্তর বিরুদ্ধে ভারতীয় দণ্ডবিধি, ২০২৩-এর ৩২৯ ধারা (অপরাধমূলক অনধিকার প্রবেশ এবং গৃহ-অনধিকারপ্রবেশ)-র অধীনে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।


অনন্ত আম্বানী   রাধিকা মার্চেন্ট   ভারত   মুকেশ আম্বানী  


মন্তব্য করুন


কালার ইনসাইড

মোদির পা ছুঁয়ে আশীর্বাদ নিলেন অনন্ত

প্রকাশ: ০৫:১৯ পিএম, ১৪ জুলাই, ২০২৪


Thumbnail

দীর্ঘ প্রতীক্ষার অবসান ঘটিয়ে অবশেষে ভারতের ধনকুবের মুকেশ আম্বানির ছোট ছেলে অনন্ত আম্বানি ও বিনোদ মার্চেন্টের কন্যা রাধিকা মার্চেন্টের বিয়ে সম্পন্ন হয়েছে। অনন্ত-রাধিকার গ্র্যান্ড ওয়েডিং-এর ষোলকলা পূর্ণ হয়েছে। 

এদিকে বিয়ের আসরে দেখা না মিললেও একদিন পর শনিবার রাতে নবদম্পতির ‘শুভ আশীর্বাদ’ অনুষ্ঠানে হাজির হয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। অনন্ত-রাধিকাকে আশীর্বাদ দিতে হাজির হন তিনি। 

এদিকে মোদিকে দেখা মাত্রই খুশির ঝিলিক অনন্ত-রাধিকার মুখে। মোদির পা ছুঁয়ে আশীর্বাদ নিলেন আম্বানি পরিবারের ছোট ছেলে। এরপর মোদির চরণ ছুঁয়ে আশীর্বাদ নেয় নতুন বউ রাধিকা। এসময় প্রাণ ভরে দুজনকে আশীর্বাদ করেন মোদি। রাধিকার মাথায় হাত রেখে তার সিঁথির সিঁদুর অটুট থাকার মঙ্গল আশীর্বাদ করেন প্রধানমন্ত্রী।

এরপর হাতে তুলে দেন উপহার। রূপার থালায় সাজিয়ে ঈশ্বরের ছবি নবদম্পতিকে উপহার দেন প্রধানমন্ত্রী। ঠাকুরের সেই ছবি মাথায় ঠেকিয়ে আশীর্বাদ গ্রহণ করেন অনন্ত-রাধিকা। এরপর ফের মোদির পা ছুঁয়ে আশীর্বাদ নিতে দেখা যায় অনন্তকে। মোদির আগমন তার জীবনের এই বিশেষ মুহূর্তকে আরও বিশেষ করে তুলেছে স্বভাবতই খুশিতে ডগমগ আম্বানির ২৯ বছরের পুত্র।

ছেলে-বউমাকে যখন মোদি আশীর্বাদ দিচ্ছেন তখন মঞ্চের আরেক পাশে হাতজোর করে দাঁড়িয়ে রয়েছেন নীতা ও মুকেশ। এরপর মোদী এগিয়ে আসেন তাদের দিকে। প্রধানমন্ত্রীর হাতে মাথা ঠেকিয়ে তাকে ধন্যবাদ জানান এশিয়ার সবচেয়ে ধনী ব্যক্তি। শুধু পাত্রের বাবা-মাকেই নয়, নিজে এগিয়ে গিয়ে রাধিকার বাবা-মার সঙ্গেও সৌজন্য বিনিময় করেন মোদি। 

এরপর মঞ্চ থেকে নেমে ধর্মগুরুদের দিকে হেঁটে যান প্রধানমন্ত্রী। এরপর শঙ্করাচার্যের পা ছুঁয়ে আশীর্বাদ নেন মোদি। এরপর ধীরে ধীরে অন্যান্য ধর্মগুরুদের থেকে আশীর্বাদ গ্রহণ করেন। 

মুম্বাইয়ের জিও ওয়ার্ল্ড কনভেনশন সেন্টারে এই আশীর্বাদ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে। এদিনের অনুষ্ঠানেও উপস্থিত হয়েছেন বলিউডের প্রথম সারির তারকারা। অমিতাভ বচ্চন, শাহরুখ খান, সালমান খান থেকে নতুন প্রজন্মের তারকারা, বাদ নেই কেউই। ফ্যাশন, গ্ল্যামার আর আভিজাত্যে মোড়া এই অনুষ্ঠানের দিকে নজর গোটা দেশের। 

শুক্রবার পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় অনন্ত ও রাধিকাকে আশীর্বাদ দিতে পৌঁছেছিলেন। বিয়ের আসরে দেখা মিলেছে রাজনীতির দুনিয়ার রথী-মহারথীদের।



মন্তব্য করুন


কালার ইনসাইড

ওপার বাংলায় চরকির কার্যক্রম বন্ধ

প্রকাশ: ০১:৪৫ পিএম, ১৩ জুলাই, ২০২৪


Thumbnail

দেশের ওটিটি প্ল্যাটফর্ম চরকি, যা বিভিন্ন দর্শকপ্রিয় চলচ্চিত্র ও সিরিজ উপহার দিয়েছে, স্বকীয় পরিচয় তৈরিতে সক্ষম হয়েছে। গত বছর অক্টোবরে ভারতে যাত্রা শুরু করে প্রতিষ্ঠানটি। ওপার বাংলার শিল্পী-কলাকুশলীদের নিয়ে কনটেন্ট তৈরিরও ঘোষণা দিয়েছিল। কিন্তু এখন শোনা যাচ্ছে, সেখানে বন্ধ হয়ে গেছে চরকির কার্যক্রম। বিস্তারিত জানাচ্ছেন কামরুল ইসলাম।

২০২১ সালের ১২ জুলাই বাংলাদেশে আনুষ্ঠানিকভাবে যাত্রা শুরু করেছিল চরকি। গতকাল প্রতিষ্ঠানটির তিন বছর পূর্ণ হলো। স্বাভাবিকভাবেই দিনটিতে খুশিতে মেতে ছিল চরকি পরিবার। কিন্তু আনন্দের মধ্যেই একটি নিরানন্দের খবর পাওয়া গেল। গত বছরের ৪ অক্টোবর কলকাতায় যে কার্যক্রম শুরু হয়েছিল, তা বন্ধ হয়ে গেছে। গুঞ্জনটা বেশ কিছুদিন ধরেই শোনা যাচ্ছিল, যা গতকাল চরকির হেড অব কনটেন্ট অনিন্দ্য ব্যানার্জি নিশ্চিত করলেন।

‘ওপারে দাপিয়ে এপারে’ স্লোগানে শুরু হওয়া চরকির কলকাতা কার্যক্রমে দুই বাংলার অনেক তারকা অভিনয়শিল্পী ও নির্মাতা অংশ নিয়েছিলেন। বাংলা কনটেন্টের নতুন দ্বার উন্মোচনের আশায় বুক বেঁধেছিলেন দুই বাংলার নির্মাতা-শিল্পীরা। কিন্তু সেই যাত্রা শুরু হতেই থেমে গেল।

অনিন্দ্য জানান, পশ্চিমবঙ্গে সিনে টেকনিশিয়ানদের সংগঠন থেকে বাধা এসেছে। তাদের চাওয়া, স্বাভাবিকের চেয়ে দুই থেকে চার গুণ বেশি পারিশ্রমিক। তিনি বলেন, ‘আমরা জানতাম, টালিগঞ্জে পারিশ্রমিকের ভাগ ভাষাগত দিক বিবেচনায় হয়। বাংলা কাজের এক রকম দর, হিন্দি, ইংরেজি বা অন্য ভাষার ক্ষেত্রে আরেক রকম দর। যেহেতু চরকির কাজগুলো বাংলায়, তাই বিষয়টা নিয়ে ভাবিনি। পরে ফেডারেশন অব সিনে টেকনিশিয়ানস অ্যান্ড ওয়ার্কার্স অব ইস্টার্ন ইন্ডিয়া জানায়, বাংলাদেশ তো অন্য দেশ, সুতরাং পারিশ্রমিক বেশি দিতে হবে, যা দুই থেকে চার গুণ পর্যন্ত!’

অনিন্দ্যর মতে, ফেডারেশনের চাহিদা মেটাতে বাজেট এতটাই বাড়বে যে, তা কনটেন্ট মুক্তি দিয়ে তোলা সম্ভব নয়। তিনি বলেন, ‘বিষয়টা নিয়ে তাদের সঙ্গে কথাবার্তা চলছে। তবে সমাধানের কোনো পথ দেখা যাচ্ছে না। কলকাতার ফেডারেশন বেশ শক্তিশালী। তারা তাদের স্বার্থ দেখছে, যা যৌক্তিক নাকি অযৌক্তিক, সেটা প্রশ্নসাপেক্ষ।’

চরকি ঘোষণা দিয়েছিল, তিন বছরের মধ্যে পশ্চিমবঙ্গে ৩০টি কনটেন্ট নির্মাণ করবে। এর মধ্যে ‘লহু’ নামের একটি সিরিজের কাজও শুরু হয়েছিল। রাহুল মুখার্জির সিরিজটিতে চুক্তিবদ্ধ হন বাংলাদেশের আরিফিন শুভ ও পশ্চিমবঙ্গের সোহিনী সরকার। ডিসেম্বরে সিরিজটির শুটিং শুরু হয়েছিল। কিন্তু ফেডারেশন বেঁকে বসায় কাজ থামাতে হয় টিমকে।

অনিন্দ্য বলেন, ‘আমরা এখন ওয়েট অ্যান্ড ওয়াচ অবস্থায় আছি। দেখা যাক কী হয়। একটা কাজ (লহু) শুরু হয়েছিল, মাঝপথে বন্ধ করে দিতে হয়েছে। কার্যক্রমটা আদতে শুরুই করা যায়নি।’

এ প্রসঙ্গে উল্লেখযোগ্য আরেকটি প্রতিষ্ঠান হলো হইচই। পশ্চিমবঙ্গের এই ওটিটি প্ল্যাটফর্ম বাংলাদেশেও পরিচালিত হচ্ছে। তাদের ক্ষেত্রে ঢাকায় এমন কোনো সমস্যার কথা শোনা যায়নি। এ বিষয়ে অনিন্দ্যর ব্যাখ্যা, “ঢাকায় হইচই-এর সমস্যা হয়নি, কারণ ‘হইচই বাংলাদেশ’ এখানকারই প্রতিষ্ঠান। আমরাও যদি ‘চরকি ইন্ডিয়া’ হতাম, তাহলে হয়তো এমন সমস্যার মুখে পড়তাম না। ঢাকায় একটি প্রতিষ্ঠান চালু করা যত সহজ, ভারতে ততটা নয়। প্রতিটি সরকারের ভিন্ন ভিন্ন নিয়ম থাকে। সেসব বিবেচনায় আমরা ‘চরকি ইন্ডিয়া’ করতে পারিনি।”

সব শেষে অনিন্দ্য আশা প্রকাশ করেন, এই জটিলতার সমাধান হবে। এতে দুই বাংলার কাজের পরিধি ও বাজার বড় হবে। বাজার বড় হওয়া মানেই বেশি কাজ এবং ইন্ডাস্ট্রি বড় হওয়া।


চরকি   ওটিটি   কন্টেন্ট  


মন্তব্য করুন


কালার ইনসাইড

কোভিড-১৯ পজিটিভ অক্ষয়, যেতে পারেননি অনন্ত আম্বানির বিয়েতে

প্রকাশ: ০১:২৫ পিএম, ১৩ জুলাই, ২০২৪


Thumbnail

বলিউডের প্রখ্যাত অভিনেতা অক্ষয় কুমার করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। শুক্রবার, ১২ জুলাই, তার কোভিড-১৯ পরীক্ষার রিপোর্ট পজিটিভ আসে। বর্তমানে তিনি বাড়িতেই অবস্থান করছেন। ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের তথ্য অনুযায়ী, গত কয়েকদিন ধরে শারীরিকভাবে ভালো বোধ করছিলেন না অক্ষয়। ‘সারফিরা’ সিনেমার প্রচারের কাজে বিভিন্ন স্থানে ভ্রমণ করছিলেন তিনি। এ কারণে কোভিড-১৯ পরীক্ষা করান এবং রিপোর্ট পজিটিভ আসে।

রিপোর্ট পাওয়ার পর অক্ষয় নিজেকে আলাদা করে রেখেছেন এবং চিকিৎসকের পরামর্শ মেনে চলছেন। তবে এ বিষয়ে এখনো আনুষ্ঠানিকভাবে কিছু জানাননি অক্ষয় কুমার কিংবা তার পরিবার।

অন্যদিকে, সম্প্রতি অনন্ত আম্বানির  বিয়েতে বিশ্বজুড়ে নামিদামি তারকারা অংশগ্রহণ করেছেন, যেখানে বলিউড ও দক্ষিণী সিনেমার অনেক তারকাই উপস্থিত ছিলেন। কিন্তু অক্ষয় কুমার, নিমন্ত্রিত থাকা সত্ত্বেও, হঠাৎ অসুস্থতার কারণে বিয়েতে যোগ দেননি। 

অক্ষয় কুমার অভিনীত ‘সারফিরা’ সিনেমাটি সম্প্রতি প্রেক্ষাগৃহে মুক্তি পেয়েছে। সিনেমাটি পরিচালনা করেছেন সুধা কোঙ্গারা। এতে রাধিকা মদন, পরেশ রাওয়াল এবং সীমা বিশ্বাস প্রমুখ অভিনয় করেছেন।


অক্ষয় কুমার   কোভিড-১৯   অনন্ত আম্বানি   বলিউড  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন