ঢাকা, রোববার, ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১৬ ফাল্গুন ১৪২৭ বঙ্গাব্দ
Bangla Insider

`পুনর্বাসন ছাড়া লালদিয়ার চরের মানুষকে উচ্ছেদ মেনে নেব না`

নিজস্ব প্রতিবেদক
প্রকাশিত: ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০২১ মঙ্গলবার, ০৯:২৬ পিএম
`পুনর্বাসন ছাড়া লালদিয়ার চরের মানুষকে উচ্ছেদ মেনে নেব না`

চট্টগ্রাম নগরীর পতেঙ্গায় লালদিয়ার চরের বাসিন্দাদের পুনর্বাসন ছাড়া উচ্ছেদ মেনে নেওয়া হবে না বলে মন্তব্য করেছেন চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের সাবেক প্রশাসক খোরশেদ আলম সুজন।

মঙ্গলবার (২৩ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে নগরীর উত্তর কাট্টলীতে নিজ বাসভবনে সুজনের নেতৃত্বাধীন নাগরিক উদ্যোগের এক সভায় তিনি এ মন্তব্য করেন।

খোরশেদ আলম সুজন বলেন, আমরা হাইকোর্টের রায়কে অবশ্যই সম্মান করি। আইন-আদালত সবকিছুর ঊর্ধ্বে কিন্তু মানবতা। কোনো ধরনের পূর্বঘোষণা ছাড়া হাতেগোনা মাত্র কয়েকদিন সময় দিয়ে প্রায় ১৪ হাজার বাসিন্দাকে তাদের ভিটেমাটি থেকে উচ্ছেদ করা সম্পূর্ণ অমানবিক। আমরা এ ধরনের অমানবিক কর্মকাণ্ড থেকে বিরত থাকার জন্য বন্দর কর্তৃপক্ষের প্রতি আহ্বান জানাচ্ছি।

তিনি আরও বলেন,  চট্টগ্রামের আদি বাসিন্দাদের ভিটেমাটি উন্নয়ন প্রকল্পের নামে বিভিন্ন সংস্থা অধিগ্রহণ করে পরে সেগুলো আবার বিভিন্ন প্রভাবশালী ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠানকে ইজারা দেয়। এরকম উদাহরণ চট্টগ্রামে আছে। ২০০৫ সালেও লালদিয়ার চরের ৫০০ পরিবারকে উচ্ছেদ করা হয়েছিল চরম অমানবিকভাবে। আমরা তখনো এর প্রতিবাদ করেছিলাম। পরবর্তী সময়ে তাদের ভিটেমাটি বেসরকারি অফডকের জন্য একটি শিল্প প্রতিষ্ঠানকে ইজারা দেওয়া হয়। আমাদের আশঙ্কা, এবারও বন্দর কর্তৃপক্ষ একই পথে এগোচ্ছে।’

নগরীর পতেঙ্গায় বিমানবন্দর ঘাঁটি সম্প্রসারণের জন্য ১৯৭২ সালে কয়েক হাজার স্থানীয় বাসিন্দাকে সরিয়ে লালদিয়ার চরে পুনর্বাসন করে তৎকালীন সরকার। ১৯৭৫ সালের পর বিভিন্ন আইনি জটিলতার ফাঁকে লালদিয়ার চরের ওই ‍ভূমি চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষের অনুকূলে বিএস জরিপে লিপিবদ্ধ করা হয়। এরপর থেকে লালদিয়ার চরের বাসিন্দাদের বেআইনিভাবে বসবাসকারী হিসেবে চিহ্নিত করা হচ্ছে।

২০০৫ সালের ১২ জুলাই চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ লালদিয়ার চরে বসবাসরত প্রায় ৫০০ পরিবারকে উচ্ছেদ করে সেই ভূমি ইজারা দেয় ইনকনট্রেড লিমিটেড নামের একটি প্রতিষ্ঠানকে। সেখানে ওই প্রতিষ্ঠান একটি অফডক নির্মাণ করেছে। লালদিয়ার চরে এখন প্রায় ২৩০০ পরিবারের ১৪ হাজার মানুষ বসবাস করছে। সম্প্রতি চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ আরও ২৫ একর জায়গা উন্নয়ন করে ইজারা দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়ে উচ্ছেদের প্রক্রিয়া শুরু করেছে।

গত ২০ ফেব্রুয়ারি বিকেলে লালদিয়ার চরের কয়েক হাজার মানুষ মানববন্ধন করে উচ্ছেদের আগে পুনর্বাসনের দাবি জানান।

 

 

 

বিষয়: লালদিয়া-চর