ইনসাইড বাংলাদেশ

সীমান্তবর্তী জেলা শেরপুরে করোনা পরিস্থিতি অবনতি

নিজস্ব প্রতিবেদক

প্রকাশ: ০৯:৫১ পিএম, ১৮ জুন, ২০২১


Thumbnail

গত বছরের ৫ এপ্রিল সীমান্তবর্তী জেলা শেরপুরে প্রথম করোনা শনাক্ত হয়। তখন থেকে চলতি বছরের মে মাস পর্যন্ত শেরপুরের করোনা পরিস্থিতি অনেকটা নিয়ন্ত্রণে ছিল। কিন্তু চলতি জুন মাস থেকে প্রতিদিনই ভাঙ্গছে করোনা শনাক্তের সকল রেকর্ড। সার্বিক বিবেচনায় চলতি জুন মাসে ভয়ংকর হয়ে উঠছে সদরের করোনা পরিস্থিতি। এ নিয়ে সদর উপজেলার সর্বত্র আতংক বিরাজ করছে।

শেরপুর স্বাস্থ্য বিভাগ সূত্র জানিয়েছে, করোনা শুরুর পর থেকে গতকাল বৃহস্পতিবার (১৭ জুন) ছিল শেরপুর জেলায় এখন পর্যন্ত সর্বোচ্চ আক্রান্তের সংখ্যা। এই দিন শেরপুর জেলায় ৪৯ জন করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। ৪৯ জনের মধ্যে শেরপুর সদর উপজেলাতেই রয়েছে ৪৮ জন। ওই দিন করোনায় পৌর এলাকায় এক তরুণীর মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে।

এর আগের দিন বুধবার (১৬ জুন) ২৫ জন আক্রান্তের মধ্যে সদর উপজেলার ২০ জন। ১৪ জুন মোট আক্রান্ত ২৫ জনের মধ্যে ২৩ জন সদর উপজেলার। গত ১ জুন থেকে ১৭ জুন পর্যন্ত জেলায় আক্রান্তের সংখ্যা ২৫৩ জন। সূত্র মতে, এই ২৫৩ জনের মধ্যে ১৯৩ জনের বাড়ি সদর উপজেলায়। তবে মে মাসে জেলায় মোট আক্রান্ত ছিল ৬৮ জন। যার মধ্যে সদর উপজেলার আক্রান্ত ছিলেন ১৯ জন। এপ্রিলে এই আক্রান্তের সংখ্যা ছিল ১৯ জন। যার মধ্যে শেরপুর সদরের ১৭ জন। 

স্বাস্থ্য বিভাগের তথ্যমতে, গত মে মাসে জেলায় পরীক্ষা করতে আসাদের মধ্যে আক্রান্তের শতকরা হার ছিল ১১.৪। আর এ মাসের ১৭ দিনেই ওই সংখ্যা দ্বিগুণ হয়ে বেড়ে দাঁড়িয়েছে শতকরা ২১.৭ ভাগ। জুন মাসের মোট আক্রান্ত হিসাবের বিবেচনায় সদর উপজেলাতে (উপজেলা ভিত্তিক) শতকরা ৭৬.২৮ ভাগ। সব মিলিয়ে শেরপুর সদরের করোনা পরিস্থিতি নাজুকের দিকে বলে মনে করে সংশ্লিষ্টরা। 

সূত্র জানিয়েছে, হাসপাতালে অন্য রোগের কারণে ভর্তি হওয়া রোগীদের পরীক্ষা করলেই পাওয়া যাচ্ছে করোনার অস্তিত্ব।শেরপুরের পুলিশ, ব্যাংক, নিবন্ধন অফিসের বেশ কিছু কর্মকর্তা কর্মচারীর শরীরে মিলেছে করোনার অস্তিত্ব। আক্রান্ত হয়েছেন এখানের কয়েকজন জনপ্রতিনিধি, সাংবাদিক। এর প্রেক্ষিতে বেশ কয়েকটি সরকারি অফিস লিখিত আদেশ জারি করেছে অফিসের সবার করোনা পরীক্ষা নিশ্চিত করতে।

সব মিলিয়ে শেরপুরের সর্বত্র করোনা আতংক বিরাজ করছে। করোনা ঊর্ধ্বগতি রোধে জেলা প্রশাসন গত ১১ জুন থেকে ২৪ জুন পর্যন্ত শুধু পৌর অঞ্চলে নয় দফা বিধি-নিষেধে জারি করেছে। প্রশাসনে কিছুটা তৎপরতা থাকলেও ওই বিধি-নিষেধ মানার প্রবণতা তেমন লক্ষ্য করা যায়নি।

হঠাৎ শেরপুরে করোনা ঊর্ধ্বগতির কারণ হিসেবে স্বাস্থ্য বিভাগ বলেছে, স্বাস্থ্য বিধি না মানা ও পরীক্ষা না করার প্রবণতা। এখনই এর প্রতিকার না করলে জেলাজুড়েই অবস্থা ভয়াবহ হতে পারে। দ্রুত করণীয়র মধ্যে রয়েছে উচ্চ ঝুঁকিপূর্ণ এলাকা গুলোর সাথে সব ধরনের যোগাযোগ বন্ধ করা ও সদর উপজেলার মানুষের সাথে অন্যান্য উপজেলার যোগাযোগ সীমিত করা। 

সদর উপজেলার স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. মোবারক হোসেন বলেন, শেরপুর সদরে করোনা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এখনই কার্যকর ব্যবস্থা নেওয়া দরকার। সময় চলে গেলে নিয়ন্ত্রণ হাতের বাইরে চলে যেতে পারে।

জেলা সিভিল সার্জন একেএম  আনওয়ারুর রউফ বলেছেন, পাড়া-মহল্লায় প্রতিরোধ ব্যবস্থা নেওয়া দরকার। পরিস্থিতি বিবেচনায় জেলায় একটি অতি গুরুত্বপূর্ণ বৈঠক অনুষ্ঠিত হবে। লকডাউনের কথা স্বীকার না করলেও সর্বসম্মতি ক্রমে যা ভাল তা করা হবে বলে নিশ্চিত করেছেন জেলার এই শীর্ষ স্বাস্থ্য কর্মকর্তা। 



মন্তব্য করুন


ইনসাইড বাংলাদেশ

‘আইন লঙ্ঘনকারী পুলিশের সদস্যরাও কারাগারে আছেন’

প্রকাশ: ০৩:৫৭ পিএম, ০২ অক্টোবর, ২০২২


Thumbnail আইন লঙ্ঘনকারী পুলিশের সদস্যরাও কারাগারে আছেন

র‍্যাব ও পুলিশের কেউ অপরাধে জড়ালে  ছাড় পাচ্ছেন না বলে উল্ল্যেখ করেছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান বলেছেন, ‘র‍্যাব-পুলিশ যেই হোক, শাস্তিযোগ্য অপরাধ করলে তারা কিন্তু শাস্তির বাইরে যায়নি।’

তিনি বলেন, ‘জেলে গিয়ে দেখুন অনেক পুলিশ ও র‍্যাব সদস্য জেল খাটছে। আমরা কাউকে ছাড় দিচ্ছি না। যুক্তরাষ্ট্র যে সংস্কারের কথা বলছে আমরা সবসময় সেটা করছি। আমরা র‍্যাব  আধুনিকায়ন করছি, যেটা প্রয়োজন সেটাই করছি।’

রোববার (২ অক্টোবর) দুপুরে রাজধানীর হোটেল প্যান প্যাসেফিক সোনারগাঁও-এ মানবপাচার নিয়ে এক গবেষণা প্রতিবেদন উন্মোচন অনুষ্ঠান শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি একথা বলেন।

তিনি বলেন, র‍্যাব  সংস্কারের মধ্যেই আছে। র‍্যাবের  কেউ অপরাধে যুক্ত হলে তার ক্ষেত্রেও আমরা ব্যবস্থা নিয়েছি।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, র‍্যাব এলিট ফোর্স, আমরা বিভিন্ন সময়ে র‍্যাবকে  বিশেষ দায়িত্ব দিয়ে থাকি। তারা তাদের নীতিমালা অনুযায়ী কাজ করে থাকে। আমাদের কাছে যে রিপোর্টটা এসেছে, আমরা তা স্টাডি করছি, যদি কারও ব্যক্তিগত ইনভলভমেন্ট থাকে সেগুলো আমরা দেখছি। আমরা চেক করে দেখছি, ভুলভ্রান্তি থাকলে আমরা দেখছি।

র‍্যাবের কার্যক্রমের  বিষয়ে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘র‍্যাব যখন তৈরি হয় তাদের ট্রেনিং দিয়েছিল যুক্তরাষ্ট্র।’

গত বৃহস্পতিবার ঢাকায় এক অনুষ্ঠানে যুক্তরাষ্ট্রের রাষ্ট্রদূত পিটার হাস বলেন, র‍্যাবের ওপর নিষেধাজ্ঞার বিষয়ে তাদের অবস্থানের কোনো পরিবর্তন হয়নি। জবাবদিহি ও সংস্কার নিশ্চিত না হওয়া পর্যন্ত নিষেধাজ্ঞা বহাল থাকবে বলে জানান তিনি।

হাসের এমন মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে র‍্যাব সংস্কারের প্রশ্নই ওঠে না’ বলে মন্তব্য করেন এলিট ফোর্সটির নবনিযুক্ত মহাপরিচালক এম খুরশীদ হোসেন। শনিবার (১ অক্টোবর) সকালে ধানমন্ডি ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ শেষে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

আইন লঙ্ঘনকারী   স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী   র‍্যাব-পুলিশ  


মন্তব্য করুন


ইনসাইড বাংলাদেশ

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব হিসেবে যোগদান করেছেন ড. নাহিদ রশীদ

প্রকাশ: ০২:৪৭ পিএম, ০২ অক্টোবর, ২০২২


Thumbnail মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব হিসেবে যোগদান করেছেন ড. নাহিদ রশীদ

মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের নতুন সচিব হিসেবে যোগদান করেছেন ড. নাহিদ রশীদ। বৃহস্পতিবার (২৯ সেপ্টেম্বর) তিনি এ মন্ত্রণালয়ে যোগদান করেন।

রোববার (২ অক্টোবর) ড. নাহিদ রশীদ মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ে নিজ দাপ্তরিক কার্যক্রম শুরু করেছেন।

এর আগে, গত ১৫ সেপ্টেম্বর ২০২২ তারিখে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের  এক প্রজ্ঞাপনের মাধ্যমে বাংলাদেশ কর্মচারী কল্যাণ বোর্ডের মহাপরিচালক (সচিব) ড. নাহিদ রশীদকে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের সচিব হিসেবে বদলি করা হয়।

উল্লেখ্য, ড. নাহিদ রশীদ বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস (প্রশাসন) ক্যাডারের ১০ম ব্যাচের সদস্য।


মন্তব্য করুন


ইনসাইড বাংলাদেশ

মরণের ফাঁদ বরিশাল বানারীপাড়ায় নতুন নির্মিত ব্রিজ


Thumbnail মরণের ফাঁদ বরিশাল বানারীপাড়ায় নতুন নির্মিত ব্রিজ

বরিশাল-বানারীপাড়া-স্বরূপকাঠি সড়কের কাজলাহার বাজার সংলগ্ন নতুন নির্মিত গার্ডার ব্রিজের সংযোগ সড়ক অনেকটা মরণ ফাঁদে পরিণত হয়েছে। এছাড়া ব্রিজের নির্মাণ কাজও নিম্নমানের হওয়ার অভিযোগ উঠেছে। 

জানা গেছে,২০১৯-২০ অর্থ বছরে সড়ক ও জনপথের (সওজ) ৪ কোটি টাকার প্রাক্কলিত ব্যয়ে এ ব্রিজের নির্মাণ কাজ পায় বরিশালের মোসার্স মাহফুজ খান লিমিটেড নামের একটি ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। কচ্ছপ গতিতে এগুনো ব্রিজের কাজের মান নিয়ে শুরুতেই এলাকাবাসী আপত্তি তোলে। 

এ প্রসঙ্গে বরিশাল সড়ক ও জনপথের (সওজ) নির্বাহী প্রকৌশলী মো. মাসুদ মাহমুদ সুমন বলেন,পূর্বে ওই ব্রিজের সংযোগ সড়কের প্রাক্কলন ব্যয় ও দৈর্ঘ্য সীমিত পরিসরে ধরা ছিল। চলতি অর্থবছরে ব্রিজটির সংযোগ সড়ক সংস্কার করে সৃষ্ট সমস্যার সমাধানে উদ্যোগ নেওয়া হবে।

এনিয়ে ইউএনওসহ সংশ্লিষ্ট দপ্তরে লিখিত অভিযোগও করা হয়। তিন/চার মাস পূর্বে ব্রিজটি চলাচলের জন্য উন্মুক্ত করা হয়। তিন মাস না যেতেই ব্রিজের ওপরের ঢালাই উঠে চলাচল অনুপযোগী হয়ে পড়ে। 

এছাড়া শ্রীহীন ব্রিজটি যে কেউ দেখলেই এটি নতুন নির্মিত নয় বহু পুরনো ব্রিজ বলে মনে করবেন। সংযোগ সড়ক উঁচু হওয়ায় অনেকটা পাহাড়ের মত ব্রিজের একপাশ থেকে অপর পাশের যানবাহন ও পথচারিসহ কিছুই দেখা না যাওয়ায় যানবাহনের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়ে যেকোন সময় বড় ধরণের দুর্ঘটনা ঘটার শঙ্কা দেখা দিয়েছে। এ ব্রিজের সংযোগ সড়ক কমপক্ষে ৮০/১০০ মিটার দূর থেকে ঢাল উঠিয়ে করা প্রয়োজন ছিল। কিন্তু মাত্র কয়েক মিটারের মধ্যে করা হয়েছে। ব্রিজের  পশ্চিম প্রান্তে কাজলাহার বাজার অংশে সংযোগ সড়ক বাঁকা ও মাত্র কয়েক মিটার দূরত্ব নিয়ে করা হয়েছে। ফলে এ ব্রিজটি এখন মরণ ফাঁদে রূপ নিয়েছে। 

এদিকে ব্রিজের ওপরের ঢালাই উঠে খানাখন্দ সৃষ্টি হওয়া ও অতিরিক্ত উঁচু সংযোগ সড়কের ফলে জনভোগান্তির বিষয়টি তুলে ধরে সম্প্রতি স্থানীয় সদর ইউপি চেয়ারম্যান ও বানারীপাড়া উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক আ. জলিল ঘরামী উপজেলা নির্বাহী অফিসার রিপন কুমার সাহার কাছে লিখিত অভিযোগ করেন। এর-প্রেক্ষিতে ব্রিজের ওপরের উঠে যাওয়া ঢালাই সংস্কার করে দেওয়া হয়। এ বিষয়ে ব্রিজটি নির্মাণকাজের সাব ঠিকাদার সেলিম আহম্মেদ বলেন,কাজের প্রাক্কলন অনুযায়ী সংযোগ সড়কসহ ব্রিজটি নির্মাণ করা হয়েছে। 



মন্তব্য করুন


ইনসাইড বাংলাদেশ

গণহত্যার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতির দাবিতে সিডনিতে মানববন্ধন ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত

প্রকাশ: ০১:১০ পিএম, ০২ অক্টোবর, ২০২২


Thumbnail গণহত্যার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতির দাবিতে সিডনিতে মানববন্ধন ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত

১৯৭১ এর মহান মুক্তিযুদ্ধে বাংলাদেশে পাকিস্তানীদের পৈশাচিক গণহত্যার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতির দাবিতে সিডনিতে মানববন্ধন ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে।

রোববার (২ অক্টোবর) সকাল এগারোটায় সিডনির প্যারাম্যাটায় টাউন হল চত্বরে এক মানববন্ধন ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। 

আমরা একাত্তর সংগঠনের অন্যতম সংগঠক ড. সুলতান মাহমুদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত মানববন্ধন ও সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন এবং বক্তব্য রাখেন বঙ্গবন্ধু পরিষদ অস্ট্রেলিয়ার সভাপতি ড. আব্দুল জলিল, বিশিষ্ট সংগঠক ড. স্বপন পাল, জাস্টিস ফর বাংলাদেশ জেনোসাইড ১৯৭১ এর প্রতিষ্ঠাতা আহ্বায়ক ও অস্ট্রেলিয়া আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ড. আবুল হাসনাৎ মিল্টন, মাল্টিকালচারাল সোসাইটি অব ক্যাম্বেলটাউনের সাধারণ সম্পাদক মো. শফিকুল আলম, অস্ট্রেলিয়া যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক নোমান শামীম, একুশে একাডেমির প্রতিষ্ঠাতা নিহাল বারী, সাংস্কৃতিক সংগঠন  প্রতীতির প্রতিষ্ঠাতা সিরাজুস সালেকীন, একুশে একাডেমির সাবেক সভাপতি মফিজুল হক, একুশে একাডেমির সাবেক সভাপতি ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব অভিজিত বড়ুয়া, একুশে একাডেমির সভাপতি প্রকৌশলী আব্দুল মতিন, বিশিষ্ট গায়িকা অমিয়া মতিন, নির্মল পাল, পূরবী পারমিতা বোস, শাহানা চৌধুরি, রোশনে আলম, ফাহাদ আসমার, প্রমুখ। 

সমাবেশে বক্তারা জাতিসংঘের কাছে ১৯৭১ এর মহান মুক্তিযুদ্ধে বাংলাদেশে পাকিস্তানীদের পৈশাচিক গণহত্যার আন্তর্জাতিক স্বীকৃতির দাবি জানান এবং এ ব্যাপারে বাংলাদেশ সরকারকেও প্রয়োজনীয় উদ্যোগ নেবার জন্য অনুরোধ জানান।


মন্তব্য করুন


ইনসাইড বাংলাদেশ

রাজশাহীতে এমপি আয়েন উদ্দিনকে সতর্ক করে রিটার্নিং কর্মকর্তার চিঠি

প্রকাশ: ১০:৩২ এএম, ০২ অক্টোবর, ২০২২


Thumbnail রাজশাহীতে এমপি আয়েন উদ্দিনকে সতর্ক করে রিটার্নিং কর্মকর্তার চিঠি

জেলা পরিষদ নির্বাচনে রাজশাহীতে আওয়ামী লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থীর পক্ষে আয়োজিত সভায় অংশ নেওয়ায় এবার সংসদ সদস্য আয়েন উদ্দিনকে চিঠি দিয়ে নির্বাচনী আচরণবিধি যথাযথভাবে প্রতিপালনের অনুরোধ জানিয়েছেন রিটার্নিং কর্মকর্তা।

শনিবার (১ অক্টোবর) পাঠানো এক চিঠিতে এ অনুরোধের কথা জানান রিটার্নিং কর্মকর্তা ও রাজশাহী জেলা প্রশাসক আবদুল জলিল।

এর আগে নির্বাচনী কার্যক্রমে অংশ নেওয়ায় এর আগে রাজশাহী সিটি করপোরেশনের মেয়র এ এইচ এম খায়রুজ্জামান লিটন ও রাজশাহী-৫ (পুঠিয়া-দুর্গাপুর) আসনের সংসদ সদস্য মনসুর রহমানকে চিঠি দেওয়া হয়েছিল। মেয়র খায়রুজ্জামান লিটনকে ২৮ সেপ্টেম্বর ও সংসদ সদস্য মনসুর রহমানকে ২৯ সেপ্টেম্বর চিঠি দেওয়া হয়।

পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদের ভিত্তিতে রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে আচরণবিধি ভঙ্গের বিষয়টি প্রতীয়মান হয়েছে বলে চিঠিতে বলা হয়।

রাজশাহী-৩ (পবা-মোহনপুর) আসনের সংসদ সদস্য আয়েন উদ্দিন শুক্রবার রাজশাহী নগরের ‘চৈতির বাগানে’ আয়োজিত মতবিনিময় সভায় অংশ নেন। ওই সভায় জেলা পরিষদে আওয়ামী লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের সহসভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মীর ইকবাল উপস্থিত ছিলেন।

চিঠিতে বলা হয়, স্থানীয় পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদের ভিত্তিতে রিটার্নিং কর্মকর্তার কাছে প্রতীয়মান হয়েছে যে, রাজশাহী-৩ (পবা-মোহনপুর) সংসদ সদস্য মো. আয়েন উদ্দিন রাজশাহী জেলা পরিষদ নির্বাচনে একজন প্রার্থীর পক্ষে নির্বাচনী কার্যক্রমে অংশগ্রহণ করেছেন। জেলা পরিষদ নির্বাচন আচরণ বিধিমালা ২০১৬ -এর বিধি ২(১৪) অনুসারে সরকারি সুবিধাভোগী অতি গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি হিসেবে একজন সংসদ সদস্য কোনো প্রার্থীর পক্ষে প্রচারণা বা নির্বাচনী কার্যক্রমে অংশ নিতে পারবেন না।

আয়েন উদ্দিন জানান, তিনি চিঠি পেয়েছেন; তাতে নির্বাচনী আচরণবিধি যথাযথ প্রতিপালনের জন্য অনুরোধ করা হয়েছে।

এমপি আয়েন উদ্দিন   রিটার্নিং কর্মকর্তা  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন