এডিটর’স মাইন্ড

খালেদার সাবেক সহকারী প্রেস সচিবও মিথ্যাবাদী বললেন ফখরুলকে

প্রকাশ: ০২:০০ পিএম, ২৬ জুন, ২০২২


Thumbnail খালেদার সাবেক সহকারী প্রেস সচিবও মিথ্যাবাদী বললেন ফখরুলকে

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর দাবি করেছিলেন যে পদ্মা সেতুর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেছিলেন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া। তার এই দাবির সমর্থনে বিএনপির কোনো নেতাই এখন পর্যন্ত এগিয়ে আসেনি। উল্টো বেগম খালেদা জিয়া যখন প্রধানমন্ত্রী ছিলেন তখনকার তার সহকারী প্রেস সচিব মহিউদ্দিন খান মোহন এক নিবন্ধে বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে মিথ্যাবাদী বলেছেন। 

তিনি তার নিবন্ধে লিখেছেন, 'অত্যন্ত দুঃখজনক হলো, পদ্মা সেতু উদ্বোধনের আগ মুহূর্তে বিরোধী দল বিএনপির পক্ষ থেকে একটি অহেতুক বিতর্কের অবতারণা করেছেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। সম্প্রতি তিনি বলেছেন, পদ্মা সেতুর প্রথম ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেছিলেন সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া। বলে নেওয়া দরকার মির্জা আলমগীর সাহেব যে সময়ের কথা বলেছেন, তখন আমি প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার সহকারী প্রেস সচিব ছিলাম। ওই মেয়াদে বেগম খালেদা জিয়া চারবার মুন্সীগঞ্জ জেলায় গিয়েছিলেন। একবার মুন্সীগঞ্জ সদর উপজেলার মোল্লাকান্দি ইউনিয়নে ‘রজতরেখা’ নামে একটি গুচ্ছগ্রাম উদ্বোধন করতে, দ্বিতীয়বার মুক্তারপুরে, তৃতীয়বার লৌহজংয়ে নতুন উপজেলা ভবন উদ্বোধন করতে এবং চতুর্থবার গজারিয়ায় ইঞ্জিনিয়ারিং স্টাফ কলেজের ভিত্তি স্থাপন করতে। এর কোনোবারই তিনি মাওয়া পয়েন্টে পদ্মা সেতুর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেননি। সবচেয়ে বড় কথা হলো, তার সহকারী প্রেস সচিব হওয়ায় তিনি মুন্সীগঞ্জ সফরে গেলে আমি তাঁর সফরসঙ্গী হতাম। বেগম খালেদা জিয়া পদ্মা সেতুর ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করেছিলেন এমন কোনো ঘটনা আমার জানা নেই। বিষয়টি নিয়ে আমি কথা বলেছি তাঁর তৎকালীন সহকারী একান্ত সচিব মো. আবদুল মতিনের সঙ্গে। তিনি ওই সময়ে প্রধানমন্ত্রী প্রতিশ্রুত উন্নয়ন প্রকল্পগুলো দেখভাল করতেন। মতিন সাহেবও তেমন কোনো ঘটনার কথা স্মরণ করতে পারলেন না।' 

তার এই নিবন্ধে তিনি মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরকে প্রশ্ন করেছেন যে, তিনি এমন একটি ভিত্তিহীন তথ্য কোথায় পেলেন? মহিউদ্দিন খান মোহনের এই লেখা থেকে স্পষ্টই বোঝা যাচ্ছে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের দাবি মিথ্যা এবং ভিত্তিহীন। এখন পদ্মা সেতুর ভিত্তিপ্রস্তর খালেদা জিয়া স্থাপন করেছেন এরকম বক্তব্যের দাবিদার মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের পাশে কেউ নেই। আর সত্য কথা বলতে মিথ্যার সঙ্গে কেউ থাকেও না। বর্তমানে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের অবস্থা তারই প্রমাণ। 

পদ্মা সেতু   বিএনপি   মির্জা ফখরুল  


মন্তব্য করুন


এডিটর’স মাইন্ড

চাটুকাররাই একালের মোশতাক

প্রকাশ: ১০:০০ এএম, ১৩ অগাস্ট, ২০২২


Thumbnail চাটুকাররাই একালের মোশতাক

৮ আগস্ট ছিল বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন নেছা মুজিবের ৯২তম জন্মবার্ষিকী। এ উপলক্ষে আওয়ামী লীগ এবং সরকার বেশ কিছু কর্মসূচি পালন করে। মূল কর্মসূচির আয়োজন করেছিল মহিলা ও শিশু বিষয়ক মন্ত্রণালয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির ভাষণে প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু এবং বঙ্গমাতাকে নিয়ে বেশ কিছু স্মৃতিচারণা করেন। একটি স্মৃতিচারণা ছিল খুবই প্রাসঙ্গিক ও তাৎপর্যপূর্ণ। স্মৃতিচারণাটি এ রকম : ‘আশপাশের মানুষ বঙ্গবন্ধুকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করেছেন। আমাদের দেশের মানুষের বোধহয় একটা চরিত্র আছে। সরকারে কেউ থাকলে তার আশপাশে যারা থাকে, তারা দেশের সার্বিক পরিস্থিতিটাকে খুব সুন্দর করে দেখানোর চেষ্টা করে। সে সময় সারা দেশের আওয়ামী লীগের নেতা-কর্মীদের সঙ্গে বঙ্গমাতার যোগাযোগ হতো। দেশের কোথায় কী হচ্ছে তা-ও আমার মা জানতেন। মা আব্বাকে বললেন, চালের দাম কিন্তু বেড়ে যাচ্ছে। আব্বা অফিসে এসে খবর নিলেন। অফিসে একজন জানালেন, তত দাম না, এই দাম। আব্বা মাকে বললেন, আমি তো ওদের খবর নিতে বললাম, ওরা বলল এত কম। একটা অল্প দাম বলা হলো। তখন মা আব্বাকে বললেন, তোমাকে ঠিক তথ্য দেয়নি। তোমাকে টাকা দিচ্ছি, যে বলেছে তাকে বল আমাকে এক মণ চাল কিনে দিতে। তিনি সত্যি টাকা দিলেন। কিন্তু ওই দামে আর চাল পাচ্ছে না। তখন মা আব্বাকে বললেন, এরা সব সময় তোমাকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করছে। তুমি এ ব্যাপারে সতর্ক থাকবে।’ ঘটনাটি তাৎপর্যপূর্ণ। এ ঘটনার বহুমাত্রিক ব্যাখ্যা আছে। প্রথমত, সরকার -প্রধানের চারপাশে যারা থাকে তারা বিভ্রান্ত করে। সব ঠিকঠাক আছে দেখাতে চায়। প্রকৃত তথ্য গোপন করে। এ চাটুকারিতার ফলে সরকারপ্রধান এবং সরকারের ক্ষতি হয়। কোনো লাভ হয় না। দ্বিতীয়ত, সরকার যিনি পরিচালনা করেন তাঁর নিজস্ব তথ্যের উৎস থাকাটা জরুরি। যেন তিনি সত্য ও সঠিক খবরটা পান। তাহলে তাঁর বিভ্রান্ত হওয়ার সুযোগ থাকে না। তৃতীয়ত, সরকার -প্রধানের কাছে নিঃস্বার্থ ব্যক্তি থাকা খুবই জরুরি। যিনি বা যারা তাঁর (সরকারপ্রধান) মঙ্গল এবং দেশের মঙ্গল চিন্তা করবেন। সবকিছুতে নিজের লাভ খুঁজবেন না।

সরকারপ্রধান জানেন তাঁর আশপাশে যারা আছেন তারাও পরিস্থিতিটা খুব সুন্দর করে দেখাতে চান। সত্য গোপন করেন। ’৭৫-এ যারা এভাবে চাটুকারিতা করে বঙ্গবন্ধুকে ভুল তথ্য দিয়েছিল সেই গোষ্ঠী এখনো সক্রিয়। বর্তমানে দেশের পরিস্থিতির কথাই ধরা যাক। বিদ্যুৎ ও জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী সাংবাদিকদের ডেকে আর্তনাদ করলেন। তাঁর কথার ধরন, বাচনভঙ্গিতে মনে হলো তিনি রাষ্ট্রের ত্রাতা। দেশ এক ডুবন্ত জাহাজ। বললেন, বিশ্ববাজারে তেলের দাম অস্বাভাবিক বেড়ে গেছে। এজন্য সহনীয় পর্যায়ে জ্বালানি তেলের দাম বাড়ানো হলো। ভালো কথা। আমি ব্যক্তিগতভাবে ভর্তুকি সংস্কৃতির বিরুদ্ধে। সবকিছুতে লাগামহীন ভর্তুকি একটি রাষ্ট্রের উন্নয়নে বড় বাধা। তেলের দাম যদি আন্তর্জাতিক বাজারে বাড়ে তাহলে তো দাম বাড়ানোই যৌক্তিক। কিন্তু প্রতিমন্ত্রী এত দিন কোথায় ছিলেন? যখন বিশ্ববাজারে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছিল। ব্যারেলপ্রতি ১৭০ ডলার ছুঁয়েছিল তখন তিনি দাম বাড়াননি কেন? সে সময় তিনি কীসের অপেক্ষা করছিলেন? যেন সরকারের অর্থনৈতিক সংকট একটু গভীর হয়। এখন যখন তেলের দাম কমছে, সামনে আরও কমবে বলে ধারণা করা হচ্ছে তখন তিনি এ সিদ্ধান্ত নিলেন কেন? সরকারকে বিব্রত করার জন্য? বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রীর কথাবার্তা অসংলগ্ন, এলোমেলো। তিনি বললেন, ‘তেলের দাম না বাড়লে আমি দেউলিয়া হয়ে যেতাম।’ বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী বললেন, ‘আমি প্রাইস বাড়াচ্ছি কারণ আমার দেউলিয়াত্ব থেকে আমি বাঁচতে চাই। আমার তো তহবিল খালি হয়ে যাচ্ছে।’ সত্যি তো উদ্বেগের কথা। একটি সরকারের অন্যতম কাজ হলো পরিস্থিতি অনুধাবন করে ভবিষ্যতের পরিকল্পনা করা। যুদ্ধ শুরু হলো ফেব্রুয়ারিতে। আর প্রতিমন্ত্রী আগস্টে এসে যুদ্ধ যুদ্ধ করছেন কেন? তার মানে পরিস্থিতির বাস্তবতা অনুধাবনে তিনি ব্যর্থ হয়েছেন। সময়ের কাজটা সময়মতো করেননি। প্রতিমন্ত্রী বলছেন, বিপিসি দেউলিয়া হয়ে যেত। কিন্তু বাংলাদেশের অর্থনৈতিক সমীক্ষা বলছে অন্য কথা। সরকারের হিসাব অনুযায়ী গত মে পর্যন্ত বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশনের পুঞ্জীভূত মুনাফা ৪৮ হাজার কোটি টাকা। হিসাবপত্রে দেখা যায় দেশের সবচেয়ে ধনী ব্যাংক গ্রাহক প্রতিষ্ঠান বিপিসি। তাহলে কোনটা সত্যি? এ প্রশ্ন নিয়ে যখন আলোচনা চলছে তখন বিপিসি টাকার হিসাব নিয়ে সংবাদ সম্মেলন করল গত বুধবার। বিপিসির হিসাব দেখে আমার মোল্লা নস্রুদ্দীনের একটি গল্প মনে পড়ে গেল। মোল্লা বাজার থেকে ১ কেজি মাংস কিনে স্ত্রীকে রান্না করতে দিলেন। বললেন, আমি ঘুরে এসে খাব। এর মধ্যে স্ত্রীর আত্মীয়স্বজন বেড়াতে এলো। মোল্লার স্ত্রী ওই মাংস রান্না করে নিজের আত্মীয়স্বজনকে আপ্যায়িত করলেন। মোল্লা ফিরে এসে খেতে বসলেন। দেখলেন মাংস নেই। অবাক হয়ে মোল্লা স্ত্রীর কাছে জানতে চাইলেন মাংস কই। মোল্লার স্ত্রী বললেন, মাংস বিড়াল খেয়ে ফেলেছে। মোল্লা নস্রুদ্দীন বিড়ালকে ধরলেন। বাটখারা দিয়ে বিড়াল ওজন করলেন। বিড়ালের ওজনও ১ কেজি। মোল্লা তার স্ত্রীকে জিজ্ঞেস করলেন এটাই যদি মাংস হয় তাহলে বিড়াল কই আর এটা যদি বিড়াল হয় তাহলে মাংস কই। বিপিসির লাভের টাকায় উন্নয়ন হয়েছে। মোল্লার মতো আমাদেরও জিজ্ঞাসা করতে ইচ্ছা করে, বিপিসির লাভের টাকা কই আর টাকা দিয়ে যদি উন্নয়ন হয়, সে উন্নয়ন কোথায়? আসলে প্রতিমন্ত্রী নন, সাবেক এবং বর্তমান আমলারা মিলেই জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। এমন সময় নিয়েছেন যখন বিশ্ববাজারে তেলের দাম কমছে। তার মানে সরকারকে হেয় করতেই এটা করা হচ্ছে। চাটুকাররা নিশ্চয়ই সরকারপ্রধানকে বলেছেন, দাম বাড়ানো ছাড়া কোনো উপায় ছিল না। দাম সহনীয় পর্যায়ে বাড়ানো হয়েছে। একসঙ্গে এত বিপুল মূল্যবৃদ্ধির ফলে সবকিছুতে যে আগুন লেগেছে তা সরকারপ্রধানকে কে বলবে? এর মধ্যে শুরু হয়েছে চাটুকারদের তারস্বরে চিৎকার। মানুষের কষ্ট নেই। মানুষ এখনো জামাকাপড় পরে ঘোরে। কেউ না খেয়ে নেই এসব কথা বলতে বলতে কোনো কোনো মন্ত্রী নিজেরাই বেসামাল হয়ে গেছেন।

২০১৮ সালের নির্বাচনে জয়ী হওয়ার পর প্রধানমন্ত্রী দুর্নীতির বিরুদ্ধে শূন্য সহিষ্ণুতা নীতি গ্রহণ করেছিলেন। প্রধানমন্ত্রী দায়িত্ব নিয়েই ছুটে গিয়েছিলেন জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে। বলেছিলেন, ‘বেতন বাড়ানো হয়েছে তাই দুর্নীতি সহ্য করা হবে না।’ কিন্তু চাটুকাররা কি প্রধানমন্ত্রীর কথা শুনেছে? গত জুনে সুইস ব্যাংকের প্রতিবেদনে দেখা যায়, এক বছরে বাংলাদেশ থেকে পাচার হয়েছে ৩ হাজার কোটি টাকা। সুইস ব্যাংকে বাংলাদেশিদের অর্থের পরিমাণ ৮ হাজার কোটি টাকার বেশি। বুধবার বাংলাদেশে নিযুক্ত সুইজারল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত নাথালি চুয়ার্ড জানালেন, ‘সুইস ব্যাংকে জমা রাখা অর্থের বিষয়ে বাংলাদেশ কোনো সুনির্দিষ্ট ব্যক্তির তথ্য চায়নি।’ সুইস রাষ্ট্রদূতের বক্তব্যে একটু বিস্মিত হলাম। ডলার সংকটে এক অস্থিরতা চলছে। খোলাবাজারে ডলারের দাম ১২০ টাকা। অর্থমন্ত্রী পাচার হওয়া অর্থ দেশে ফেরাতে ‘সাধারণ ক্ষমা’ ঘোষণা করেছেন। অথচ সরকার সুইস ব্যাংকে কারা অর্থ রাখল সেই তথ্য চাইল না কেন? আমার ভাবনার দরজা খুলে দিল বছরখানেক আগে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. আবদুল মোমেনের এক বক্তব্য। তিনি বলেছিলেন, ‘বিদেশে বাড়ি-সম্পদ বেশি আমলাদের। আমরা মনে করতাম রাজনীতিবিদদেরই বোধহয় কানাডা, যুক্তরাষ্ট্রে বাড়ি। কিন্তু আমরা খোঁজখবর নিয়ে দেখলাম আমলারাই এখানে সংখ্যাগরিষ্ঠ।’ এজন্যই পাচার হওয়া অর্থ উদ্ধারে উদ্যোগ নেই। এখন আবার ফিরিয়ে আনার জন্য বিশেষ ছাড়। অর্থ পাচারকারীদের জামাই আদর দেওয়ার আয়োজন চলছে। আমলা বলে কথা। চাণক্যের অর্থশাস্ত্রের বয়স প্রায় ২ হাজার বছর হবে। দুই বছর আগেও আমলাদের কথা উঠে এসেছে চাণক্যের লেখায়। চাণক্য লিখেছেন, ‘জিবের ডগায় বিষ বা মধু থাকলে তা না চেটে থাকা যেমন অবাস্তব তেমনি অসম্ভব হলো সরকারের তহবিল নিয়ে লেনদেন করে একটুকুও সরকারের সম্পদ চেখে না দেখা। জলে বিচরণরত মাছ কখন জল পান করে তা জানা যেমন অসম্ভব তেমনি নির্ণয় করা সম্ভব নয় কখন দায়িত্বপ্রাপ্ত সরকারি কর্মচারীরা তহবিল তছরুপ করে।’ চাণক্য লিখেছেন, ‘সরকারি কর্মচারীরা দুই ভাবে বড়লোক হয়- হয় তারা সরকারকে প্রতারণা করে। অন্যথায় প্রজাদের অত্যাচার করে।’ সরকারের সঙ্গে প্রতারণা করে তারা বেগমপাড়া, নিউইয়র্কে, লন্ডনে সম্পদ গড়েছে। এখন জ্বালানি তেলের মূল্য বাড়িয়ে, দ্রব্যমূল্যের লাগাম ছাড়া ঊর্ধ্বগতি ঘটিয়ে, বাসভাড়া নিয়ে স্বেচ্ছাচারিতাকে প্রশ্রয় দিয়ে প্রজাদের সঙ্গে অত্যাচার করা হচ্ছে। আমি নিশ্চিত জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির কারণে জনগণ যে মহাসংকটে পড়েছে তা প্রধানমন্ত্রীকে জানানোর কেউ নেই। একজন বঙ্গমাতা নেই যিনি সরকারপ্রধানকে বলবেন, দেশের মানুষ কষ্টে আছে চালের বাজারে আগুন, গণপরিবহনে নৈরাজ্য, মধ্যবিত্ত দিশাহারা। এমন কেউ নেই যিনি বলবেন, ১ ঘণ্টার লোডশেডিং এখন ৬ ঘণ্টায় ঠেকেছে। যিনি বলবেন, ওরা তোমাকে ঠিক তথ্য দিচ্ছে না। এরা আসলে চাটুকার। এরা সবকিছু ঠিকঠাক দেখানোর চেষ্টা করে। তথ্য গোপন করে।

বাংলাদেশ আইএমএফের কাছে ৪ দশমিক ৫ বিলিয়ন ডলার ঋণ সহায়তা চেয়েছে। ঋণ বাংলাদেশ চাইতেই পারে। এমন না বাংলাদেশ আগে কখনো ঋণ চায়নি। কিন্তু এবার ঋণ নিয়ে যেন একটু বেশি হইচই। কারণ কী? ‘আশপাশের মানুষ’। বাংলাদেশ ব্যাংকের সাবেক গভর্নর দেখালেন বাংলাদেশের বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ৪০ বিলিয়নের ওপর। এখন তা ৪০ বিলিয়নের কিছু নিচে। এটা হতেই পারে। রিজার্ভ কমবেশি হওয়াটাই স্বাভাবিক। কিন্তু আইএমএফ প্রতিনিধি দল এসে বলল, রিজার্ভের হিসাব ঠিক নেই। এটা যেন ‘গরু কিতাবে আছে গোয়ালে নেই’র মতো ঘটনা। সাবেক গভর্নর সাবেক আমলাও বটে। তথ্য দিয়ে সংকট ঢেকে রাখার কৌশল তিনি ভালোই জানতেন। বর্তমান গভর্নরও আমলা। তিনি এসে বললেন, ‘অর্থনীতি সংকটে। আমরা উত্তরণের চেষ্টা করছি।’ অর্থনৈতিক সংকট মোকাবিলা করবে সরকার। বাংলাদেশ ব্যাংক ব্যাংকিং ব্যবস্থাপনা ঠিক করবে। খেলাপি ঋণ বন্ধ করবে। টাকা পাচার রোধ করবে। বাংলাদেশ ব্যাংকের গভর্নর কবে অর্থমন্ত্রীর দায়িত্ব পেলেন বুঝলাম না। একদল আমলা বলছে সব ঠিক আছে। অন্য দল বলছে সংকট। দুটোই চাটুকারিতা। দুটোই সরকারকে বিব্রত করছে। আইএমএফের সফরের পর আমলা ও চাটুকারদের দৌড়ঝাঁপ শুরু হলো। আইএমএফ, বিশ্বব্যাংক, এডিবি, জাইকা সবার কাছে এখন ঋণের জন্য ধরনা দেওয়া হচ্ছে। তাহলে আসলে আমাদের রিজার্ভ কত? বিভ্রান্তি এমন পর্যায়ে ছড়িয়ে দেওয়া হয়েছে যে রিজার্ভ সম্পর্কে কোনো তথ্যই এখন আর বিশ্বাসযোগ্য নয়। অন্তত মানুষ বিশ্বাস করে না। এমনিতেই বাংলাদেশের মানুষের পারস্পরিক আস্থা কম। আশির দশকে অধ্যাপিকা রাজিয়া আক্তার বানু এক গবেষণায় দেখিয়েছেন, বাংলাদেশের মানুষের পারস্পরিক আস্থা অত্যন্ত কম। তার সমীক্ষায় দেখা গেছে, গ্রামাঞ্চলে মাত্র ৪ দশমিক ৫ শতাংশ জনগোষ্ঠী একে অন্যকে বিশ্বাস করে। শহরাঞ্চলে পারস্পরিক আস্থার হার ২ দশমিক ৫ শতাংশ। বাংলাদেশের জনগণের আস্থা অর্জন করতে পেরেছিলেন মাত্র দুজন নেতা। একজন বঙ্গবন্ধু, অন্যজন শেখ হাসিনা। বঙ্গবন্ধুকে জনগণের থেকে বিচ্ছিন্ন করার চেষ্টা করেছিল তার আশপাশের লোকজন। তারা তথ্য গোপন করত। মিথ্যা তথ্য দিত। যা প্রধানমন্ত্রীর ৮ আগস্টের বক্তব্যে উঠে এসেছে। এখন সেই একই গোষ্ঠী প্রধানমন্ত্রীকেও বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করছে। জনগণের সঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর সংযোগ বিচ্ছিন্ন করার চেষ্টা করছে। সে সময় যারা চাটুকারিতা করে তথ্য গোপন করত তারা ছিল ’৭৫-এর খুনি মোশতাক এবং তার দোসররা। এখন যারা চাটুকারিতা করে সত্য আড়াল করছে, সরকারপ্রধানকে আসল তথ্য দিচ্ছে না। কৃত্রিমভাবে সবকিছু স্বাভাবিক দেখাতে চাইছে তারা নব্য মোশতাক। আমাদের অর্থনীতি ভালো। সব ঠিক আছে এসব বলার দরকার কী? এসব বলে আবার আইএমএফের কাছে হাত পাতারই বা প্রয়োজন কেন? দুটো স্ববিরোধী। আইএমএফ হলো একালের মহাজন। এ সম্পর্কে ড. আকবর আলি খানের ‘মোল্লা নস্রুদ্দীনের অর্থনীতি’ প্রবন্ধের কিছু অংশ উল্লেখ না করে পারছি না। ড. আকবর আলি খান লিখেছেন, ‘সাতশ বছর আগে মোল্লা যখন মারা যান তখন বিশ্বব্যাংক অথবা আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের কথা কেউ কল্পনা করেনি। এমনকি ওয়াশিংটন শহরে, যেখানে প্রতিষ্ঠান দুটির সদর দফতর অবস্থিত, সেখানে কোনো শহরই ছিল না, আদৌ কোনো বসতি ছিল কি না তা সন্দেহ রয়েছে। কিন্তু মোল্লা বিশ্বব্যাংক বা আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল না দেখলেও অনেক মহাজন দেখেছেন। মহাজনদের আচরণ জানতে পারলেই এ দুটো প্রতিষ্ঠানের নিয়মনীতি আঁচ করা সম্ভব। এ প্রসঙ্গে মোল্লার একটি কাহিনি মনে পড়ছে। কথিত আছে, মোল্লা নস্রুদ্দীনের একটি হাতি দেখে খুবই পছন্দ হয়। তিনি হাতিটি কেনার অর্থ সংগ্রহের জন্য মহাজনের দোরে গিয়ে হাজির হলেন। মোল্লা মহাজনকে বললেন, আমাকে কিছু টাকা ধার দিন। মহাজন বললেন, কেন? মোল্লা জবাব দিলেন, আমি একটি হাতি কিনতে চাই। মহাজন প্রশ্ন করলেন, তোমার যদি টাকা না থাকে তুমি হাতি পালবে কী করে? মোল্লা আক্ষেপ করে বললেন, আমি আপনার কাছে টাকার জন্য এসেছি, উপদেশের জন্য নয়।

যে-কোনো উন্নয়নশীল দেশের অর্থমন্ত্রীকে জিজ্ঞেস করলে মোল্লার আক্ষেপই শোনা যাবে। এই তো কিছুদিন আগে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক রাশিয়ার প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আলোচনা করতে মস্কো যান। আলোচনার পর সাংবাদিকরা রাশিয়ার তদানীন্তন প্রধানমন্ত্রী প্রিমাকভের কাছে তাঁর প্রতিক্রিয়া জানতে চান। প্রিমাকভ সাংবাদিকদের জানান, তিনি আশা করেছিলেন মুদ্রা তহবিলের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মহোদয় তাঁর ব্রিফকেস ভর্তি করে ডলার নিয়ে এসেছেন; কিন্তু প্রকৃতপক্ষে তিনি তাঁর ব্রিফকেস ভর্তি করে নিয়ে এসেছেন শর্তের কাগজপত্র। আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের ঋণের শর্তাবলি স্বল্পোন্নত দেশগুলোর অর্থমন্ত্রীদের সবচেয়ে খারাপ দুঃস্বপ্ন।’ (সূত্র : পরার্থপরতার অর্থনীতি; আকবর আলি খান; পৃষ্ঠা-৪০)

আইএমএফ, বিশ্বব্যাংকের দ্বারস্থ হওয়াটা আমলাদের চিরন্তন শখ। এর ফলে রাজনৈতিক কর্তৃত্ব কমে। মন্ত্রীদের পুতুল বানিয়ে রাখা যায়। সবকিছুতে আইএমএফের ভূত দেখিয়ে ক্ষমতাসীন দলকে কাবু রাখার এটি আমলাতান্ত্রিক মহৌষধ। আমরা যখন মহাজনের কাছে ধরনা দিচ্ছি তখন নিশ্চয়ই দেশের অর্থনীতি স্বাভাবিক ছন্দে নেই। এটা হতেই পারে। মানুষের জীবনে ভালো সময় আসে খারাপ সময় আসে। খারাপ সময় কোনো গোপন করার বিষয় না। বরং সবাইকে নিয়ে বন্ধুর পথ পাড়ি দেওয়াটাই প্রকৃত পন্থা। জনগণকে সত্যটা জানানো জরুরি। যেমন জাতির পিতা খোলামেলা কথা বলতেন। জনগণকে সত্য বলতেন। ১৯৭২ সালের ৯ মে রাজশাহীতে এক বক্তৃতায় বঙ্গবন্ধু বলেছিলেন, ‘যে যা বলুক না কেন, আমি পরিষ্কার জানিয়ে দিতে চাই, আমি আপনাদের ধোঁকা দিতে পারব না... তিন বছর আপনাদের কিছু দিতে পারব না...।’ প্রধানমন্ত্রীও তাঁর ভাষণে বিশ্ব বাস্তবতায় সংকটের কথা বলছেন। সাধারণ মানুষের কষ্টের কথা বলেছেন। আর অন্যরা চাটুকারিতা করে সার্বিক পরিস্থিতি ভালো দেখানোর চেষ্টা করছেন। জনগণকে প্রকৃত অবস্থা জানাতে হবে। স্বপ্লোন্নত দেশ হলে জীবনযাত্রার ব্যয় বাড়বেই। রাষ্ট্রের ভর্তুকিতে দিনরাত শীতাতপ বিলাস করা যাবে না। রাষ্ট্রের সম্পদ গ্যাসের যথেচ্ছ অপচয় বন্ধ করতে হবে। এ সত্যগুলো সাহস করে বলতে হবে। কিন্তু অসত্য বিভ্রান্তিকর এবং স্ববিরোধী বক্তব্য দিয়ে সবকিছু ঠিক দেখানোর এক ভয়ংকর প্রবণতা চলছে। যারা চাটুকারিতার জন্য এসব করছেন তাদের পূর্বসূরিরা বঙ্গবন্ধুকেও বিভ্রান্ত করতে চেষ্টা করেছিল। প্রধানমন্ত্রী বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতাকে নিয়ে যে ঘটনাটি বলেছেন তা নিয়ে কথা হচ্ছিল আওয়ামী লীগের এক ত্যাগী নেতার সঙ্গে।

তিনি বললেন, আগেকার কর্মচারীদের (আমলা) ন্যূনতম সততা ছিল। এজন্য বঙ্গমাতার দেওয়া টাকায় সে চাল কেনেনি। এখনকার কর্মচারী (আমলা) হলে কী করত জানেন? আমি তার কথায় ব্যাপক আগ্রহ পেলাম। প্রবল উৎসাহ নিয়ে জিজ্ঞাসা করলাম কী করত? আওয়ামী লীগের ওই নেতা হাসতে হাসতে বললেন, ‘একালের আমলারা নিজের পকেট থেকে টাকা দিয়ে চাল কিনত। বঙ্গমাতার টাকা থেকে কিছু টাকা ফেরত দিত। বঙ্গবন্ধুকে বলত, স্যার আমি চালের দাম একটু বেশি বলেছি। আসলে চালের দাম আরও কম। বঙ্গমাতা যে টাকা দিয়েছেন তা থেকে কিছু টাকা বেঁচে গেছে।’ তার কথা শুনে আমি বাকরুদ্ধ। তিনি বললেন, একালের আমলারা কেবল বঙ্গবন্ধুকেই বিভ্রান্ত করত না, তারা বঙ্গমাতাকেও বিভ্রান্ত করত। আমলা এবং চাটুকাররা বঙ্গমাতাকেও এমনভাবে ঘিরে রাখত যেন তিনি জানতেও পারতেন না চালের দাম কত।

তা ছাড়া আগে আওয়ামী লীগের তৃণমূল বঙ্গবন্ধুকে ভালোবাসত দেশকে ভালোবাসত, জনগণকে ভালোবাসত। এখন তৃণমূল শুধু নিজেদের ভালোবাসে। বঙ্গমাতাকে যেমন নেতা-কর্মীরা সাহস করে চালের দাম বাড়ার কথাটা বলেছে। এখনকার হাইব্রিডরা বলবে ‘মানুষ না খেয়ে নেই। থাকবেও না।’ সত্যপ্রবাহের ধমনিই এখন অকেজো হয়ে গেছে।

লেখক : নির্বাহী পরিচালক, পরিপ্রেক্ষিত
সূত্র: বাংলাদেশ প্রতিদিন

চাটুকার   মোশতাক  


মন্তব্য করুন


এডিটর’স মাইন্ড

মাঠে সুশীল: নেপথ্যে ইউনূস

প্রকাশ: ০৬:০১ পিএম, ১২ অগাস্ট, ২০২২


Thumbnail

সুশীল সমাজের মুখপাত্র হিসেবে পরিচিত ডেইলি স্টার। ডেইলি স্টারের সম্পাদক মাহফুজ আনাম আজ স্বনামে একটি কলাম লিখেছেন। ‘দ্যা থার্ড ভিউ’ নামে এই কলামে তিনি আওয়ামী লীগ ‘ওয়াক ম্যান সিনড্রোমে’ আক্রান্ত বলে অবহিত করেছেন। শুধু আওয়ামী লীগ নয়, সরকারও ‘ওয়াক ম্যান সিনড্রোমে’ আক্রান্ত বলে তিনি তার নিবন্ধে উল্লেখ করেছেন। তার নিবন্ধ শিরোনাম হলো- ‘ওয়াক ম্যান সিনড্রোম’ এাফ্লিক্টস দ্যা আওয়ামী লীগ এন্ড আওয়ার গর্ভমেন্ট। এই দীর্ঘ নিবন্ধে তিনি বলেছেন যে, আওয়ামী লীগ এবং সরকার অন্য কারও কথাই শুনছেন না। শুধুমাত্র নিজেদের কথাগুলোই বারবার শুনছেন এবং বলছেন। এই লেখাটিতে সরকারের তীব্র এবং কঠোর সমালোচনা করেছেন মাহফুজ আনাম। শুধু মাহফুজ আনাম একা না, গতকালই ড. দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য যিনি সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ এর সম্মানিত ফেলো বলেছেন, আর্থিক খাত দুর্বলতার কারণে অর্থনীতিক চাপ বেড়েছে। সেখানেও তিনি আর্থিক দুর্বলতার কথাগুলো উল্লেখ করেছেন, আর্থিক সংস্কারে সরকারের ব্যর্থতার কথা বলেছেন এবং অর্থনৈতিক সংকটের জন্য সরকারকে দায়ী করে সরকারের তীব্র সমালোচনা করেছেন। কিছু ব্যক্তি, সংগঠন এখন প্রকাশ্য হয়েছেন। এই সংগঠন, ব্যক্তি গুলোর প্রত্যেকটির আলাদা আলাদা পরিচয় রয়েছে। এদের সবাই একই সূত্রে গাঁথা এবং যে সমস্ত ব্যক্তিরা মাঠে নেমেছেন, তাদের প্রত্যেকের সঙ্গে ড. ইউনূসের ঘনিষ্ঠ যোগাযোগ রয়েছে এবং ড. ইউনূসের সঙ্গে তারা বিভিন্ন সময়ে কাজ করছেন এবং ড. ইউনূসকে সমর্থন করেন। তাই এ কথা বলার অপেক্ষা রাখে না যে, সুশীল সমাজ এখন যে সরকারের বিরুদ্ধে সর্বব্যাপী প্রচারণায় নেমেছেন, তার নেপথ্যে রয়েছেন শান্তিতে নোবেলজয়ী অর্থনীতিবিদ ড. মুহাম্মদ ইউনূস।

মাহফুজ আনামের সম্পাদিত ডেইলি স্টার গত কিছুদিন ধরেই সরকারের ব্যাপক সমালোচনা করছে। এবার মাহফুজ আনাম নিজেই তার কলামে সরকারকে কাঠগড়ায় দাঁড় করালেন। অন্যদিকে, সংস্কারপন্থীদের বাংলা মুখপাত্র প্রথম আলো এখন সরকারের বিরুদ্ধে রীতিমত যুদ্ধ ঘোষণা করেছেন। মাহফুজ আনাম ড. মুহাম্মদ ইউনূসের শুধু ঘনিষ্ঠই নয়, ড. মুহাম্মদ ইউনূস যে রাজনৈতিক দল গঠন করেছিলেন, সেই রাজনৈতিক দলের অন্যতম নেতাও ছিলেন। এখন তার সরকারের সমালোচনা বা আওয়ামী লীগের সমালোচনা করার পিছনে কী কারণ থাকতে পারে তা অনেকেই অনুভব করতে পারছেন। অন্যদিকে, মতিউর রহমান ড. মুহাম্মদ ইউনূসের সঙ্গে শুধু ঘনিষ্ঠই নয়, তিনি তিনি ওয়ান-ইলেভেনের অন্যতম কুশীলব। মাইনাস ফর্মুলার অন্যতম জনক মনে করা হয় মতিউর রহমানকে। প্রথম আলো গত একমাস ধরে লাগাতার ভাবে সরকার সমালোচনায় মুখর হয়েছেন। প্রথম আলোর শুক্রবারের পত্রিকায় দেখা যাচ্ছে যে, খেলাপি ঋণে আরেক মাইলফলক ছুঁয়েছে বাংলাদেশ, উপকারভোগী অনেকেই সুবিধা পাননি অনিয়মের কারণে, টিসিবির ফ্যামিলি কার্ড সংক্রান্ত একটি প্রতিবেদন ছাপা হয়েছে, দ্রব্যমূল্য বেড়েছে আরেক দফা। প্রতিদিন প্রথম আলো এমন সব প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে, যেগুলো জনমনে সরকারের বিরুদ্ধে এক ধরনের অসন্তোষ তৈরি করছে। অন্যদিকে ড. দেবপ্রিয় ভট্টাচার্য এখন রাজনীতিবিদদের চেয়েও ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন, রাজনীতিবিদদের চেয়েও বেশি শক্তি নিয়ে গণমাধ্যমে আসছেন এবং প্রতিদিন কোনো না কোনো ইস্যুতে সরকারের কঠোর সমালোচনা করে বক্তব্য রাখছেন।

ড. দেবপ্রিয়, ড. ইউনূসের অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ হিসেবে পরিচিত এবং তিনিও ওয়ান ইলেভেনের অন্যতম কুশীলব। ওয়ান ইলেভেনের সময় তিনি জেনেভায় বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি হিসেবে যোগদান করেছিলেন। পুরো সিপিডি এখন যেন সরকারবিরোধী প্রচারণার একটা কেন্দ্রবিন্দুতে পরিণত হয়েছে। অর্থনৈতিক বিষয়ে সিপিডি লাগামহীনভাবে সরকারের সমালোচনা করছে। এই সিপিডির সঙ্গে ড. মুহাম্মদ ইউনূসের ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রয়েছে। অন্যদিকে টিআইবিও এখন সরব হয়েছে। দুর্নীতিসহ নানা বিষয়ে এমনকি অর্থনৈতিক সংকট নিয়েও টিআইবি কথা বলছে। সুস্পষ্টভাবে বুঝা যাচ্ছে যে, কারো দ্বারা নির্দেশিত হয়ে টিআইবি মাঠে নেমেছে। আর টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ইফতেখারুজ্জামানও ড. মুহাম্মদ ইউনূসের ঘনিষ্ঠ। এখন সুশীল সমাজের বিভিন্ন প্ল্যাটফর্ম থেকে যে সমন্বিত প্রচারণা চলছে, সেই সম্মানিত প্রচারণা নিয়ন্ত্রণ করছেন ড. মুহাম্মদ ইউনূস এবং তার নিয়ন্ত্রিত ইউনূস সেন্টার। প্রশ্ন উঠেছে যে, সুশীলরা সরকারের সমালোচনায় কেন আদা-জল খেয়ে নামলো? এর পেছনে কি কোনো রাজনৈতিক অভিপ্রায় আছে? বিশেষ করে যখন ড. মুহাম্মদ ইউনূস দৃশ্যমান হচ্ছেন।

সুশীল   ইউনূস   সরকার   ওয়ান-ইলেভেন  


মন্তব্য করুন


এডিটর’স মাইন্ড

পারিবারিক সংগঠনে পরিণত হচ্ছে বিএনপি

প্রকাশ: ০৯:০০ পিএম, ১১ অগাস্ট, ২০২২


Thumbnail পারিবারিক সংগঠনে পরিণত হচ্ছে বিএনপি

বিএনপিকে জিয়া পরিবারমুক্ত করার জন্য বিভিন্ন জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক মহল থেকে বলা হচ্ছে। জিয়া পরিবারমুক্ত তো নয়ই বরং জিয়া পরিবারের আরও অন্তত তিনজন সদস্য এখন বিএনপির স্থায়ী কমিটিতে ঢোকার অপেক্ষায়। সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে চলতি মাসের শেষ দিকে বা আগামী মাসের শুরুতেই স্থায়ী কমিটিতে বেগম খালেদা জিয়ার আত্মীয়-স্বজনদের তিনজন ঢুকতে যাচ্ছেন বলে বিএনপির দায়িত্বশীল সূত্রগুলো নিশ্চিত করেছে। এদের মধ্যে রয়েছেন- বেগম খালেদা জিয়ার ছোট ভাই শামীম এস্কান্দার, তারেক জিয়ার স্ত্রী ডা. জোবাইদা রহমান এবং প্রয়াত কোকোর স্ত্রী শর্মিলা রহমান সিঁথি। এই তিনজন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য হলে বিএনপি একটি পারিবারিক প্রতিষ্ঠানে পরিণত হবে বলে জানা গেছে।

সাম্প্রতিক সময়ে বিএনপি'র স্থায়ী কমিটির সদস্যদের সংখ্যা স্বল্পতা দেখা দিয়েছে। স্থায়ী কমিটির কয়েকজন সদস্য গুরুতর অসুস্থ থাকায় তারা দলীয় কোনো কার্যক্রম পরিচালনা করতে পারছেন না। এর আগে স্থায়ী কমিটিতে ইকবাল মাহমুদ টুকু, সেলিনা রহমানের মতো কয়েকজনকে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছিলো। কিন্তু তারপরেও বাকী শূন্যস্থানগুলো পূরণ হয়নি। এখন স্থায়ী কমিটিতে এই তিনজনকে নেয়ার বিষয়টি মোটামুটি চূড়ান্ত হয়েছে বলে জানা গেছে। বিএনপির সিনিয়র নেতারা বিষয়টি সম্বন্ধে জানেন, তবে তারা এ নিয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে মুখ খুলতে রাজি না। ক্ষমতার বাইরে প্রায় ১৪ বছর রয়েছে বিএনপি। দীর্ঘদিন ক্ষমতার বাইরে থাকার ফলে দলের নেতাকর্মীদের মধ্যে হতাশা তৈরি হয়েছে। আর এই হতাশা কাটাতে বিএনপি'র নেতাকর্মীরা বড় ধরনের আন্দোলন চান। কিন্তু কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব কোনো আন্দোলন কর্মসূচির মধ্যে এখনই যেতে রাজি না। বরং তারা সংগঠন পুনর্গঠনের বিষয়টিকেই এখন গুরুত্ব দিচ্ছে। আর সংগঠন পুনর্গঠনের জন্য স্থায়ী কমিটিকে সক্রিয় করার কথা বলা হচ্ছে। আর এই স্থায়ী কমিটির সদস্য করার জন্য বেগম খালেদা জিয়ার আত্মীয়দের তিনজনকে স্থায়ী কমিতে ঢুকানো হচ্ছে বলে জানা গেছে।

গত কিছুদিন ধরেই বিএনপিকে পশ্চিমা দেশগুলো পরিবারতন্ত্র থেকে নেতৃত্ব মুক্ত করার অনুরোধ জানিয়ে আসছে। তারা তারেক জিয়াকে আপাতত মূল নেতৃত্ব থেকে দূরে রাখার পরামর্শ দিয়েছে। কিন্তু এ সমস্ত পরামর্শের হিতে বিপরীত ফল হলো। এখন স্থায়ী কমিটি পুরোটাই জিয়া পরিবারের দখলে যাবে। আগে স্থায়ী কমিটির নেতারা টুকটাক কথা বলতে পারতেন, কিছু পরামর্শ দিতে পারতেন, এখন সেই পরামর্শের পথ বন্ধ হয়ে যাবে বলে বিএনপির অনেক নেতারা মনে করছেন। কেন এই তিনজনকে নেয়া হচ্ছে, এ ব্যাপারে খোঁজখবর নিয়ে জানা গেছে যে, বেগম খালেদা জিয়া অসুস্থ। তিনি দলীয় কর্মকাণ্ড পরিচালনা করতে পারছেন না। বিএনপির আগামী নেতা তারেক জিয়া, এটা মোটামুটি নিশ্চিত। কিন্তু এই রাজনৈতিক দলটি তো কেবল রাজনৈতিক দল নয়, একটি ব্যবসা কেন্দ্র বটে। আর এ কারণে যদি বেগম খালেদা জিয়ার কিছু হয় তাহলে ভাইদের ভাগ কি হবে, তাদের যেন একটা কিছু করার থাকে সেজন্য তার ভাই শামীম এস্কান্দারকে স্থায়ী কমিটিতে নেয়া হচ্ছে। আবার অন্যদিকে আরাফাত রহমান কোকোর স্ত্রীও স্থায়ী কমিটিতে থাকতে চান। স্থায়ী কমিটিতে থাকলে বিভিন্ন আর্থিক সুযোগ-সুবিধা নেয়া যাবে, দলের ধনী নেতা এবং সদস্যরা সহায়তা করবেন। যেহেতু শর্মিলা রহমান সিঁথিকে স্থায়ী কমিটিতে নেয়ার বিষয়টি বেগম খালেদা জিয়া সিদ্ধান্ত নিয়েছেন, তাই পাল্টা ব্যবস্থা হিসেবে ডা. জোবাইদাকে স্থায়ী কমিটিতে নেওয়া হচ্ছে। অর্থাৎ আগামী দিনগুলোতে এই তিনজন সংগঠনটিকে যতটুকু সোচ্ছার না করবে, এই সংগঠনটিকে ব্যবহার করে আয় রোজগারের উপায় খুঁজবে। ফলে যারা ত্যাগী-পরীক্ষিত নেতা বিএনপিতে রয়েছেন তারা কিছুটা হতাশই হয়েছেন। তারা মনে করছেন যে, এখন বিএনপিতে আমরা হলাম চাকর-বাকর, জিয়া পরিবারের সদস্যরা হলেন রাজা। এই তিনজনকে অন্তর্ভুক্তির মাধ্যমে বিএনপিতে এখন রাজতন্ত্র কায়েম হলো বলেও কেউ কেউ মনে করছেন।

বিএনপি  


মন্তব্য করুন


এডিটর’স মাইন্ড

আওয়ামী লীগ: হতাশ, বিব্রত, বিরক্ত, নিশ্চুপ

প্রকাশ: ০৭:০০ পিএম, ০৭ অগাস্ট, ২০২২


Thumbnail আওয়ামী লীগ: হতাশ, বিব্রত, বিরক্ত, নিশ্চুপ

হঠাৎ করে জ্বালানি তেলের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধি আওয়ামী লীগকে হতবাক করেছে। আওয়ামী লীগের অনেক শীর্ষ নেতারা এ সম্পর্কে অন্ধকারের ছিলেন। আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতারা কিছুই জানতেন না। শুক্রবার রাতে যখন তেলের মূল্য এভাবে অস্বাভাবিক বৃদ্ধি করা হয়েছে, তারাও হতাশা প্রকাশ করেছেন। তবে আওয়ামী লীগের কোনো নেতাই আনুষ্ঠানিকভাবে এ নিয়ে কোনো মন্তব্য করেননি। আওয়ামী লীগের দুই একজন নেতা তেলের মূল্যবৃদ্ধি নিয়ে সাফাই গাইলেও আওয়ামী লীগের অধিকাংশ নেতাকর্মী এই ঘটনায় বিব্রত এবং কিছুটা ক্ষুব্ধও বটে। এটার প্রকাশ দেখা যায় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সরকারের দ্বিতীয় ক্ষমতাধর ব্যক্তির মন্তব্য থেকে। গতকাল বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের জন্মদিন উপলক্ষে জাতীয় জাদুঘরে এক চিত্রকর্ম প্রদর্শনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। সেখানে গণমাধ্যমকর্মীরা তাকে জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধি নিয়ে প্রশ্ন করে। এই প্রশ্নে তিনি জবাব দেন, আপনারা এই বিষয়ে প্রথমে বিদ্যুৎ মন্ত্রণালয়ের প্রতিক্রিয়া নেন। আমার প্রতিক্রিয়া কেন? আমি তো বিদ্যুৎ মন্ত্রী না। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদকের এই মন্তব্য তাৎপর্যপূর্ণ, অর্থবহ।

অনেক রাজনৈতিক বিশ্লেষক মনে করছেন যে, জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধিটা তিনি পছন্দ করেননি জন্য এরকম মন্তব্য করেছেন। শুধু আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নয়, আওয়ামী লীগের অনেক নেতাই বিষয়টি মেনে নিতে পারছেন না। আওয়ামী লীগের একজন নেতা নাম প্রকাশ না করার শর্তে বলেছেন যে, নির্বাচনের আগে এইভাবে জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির মাশুল আওয়ামী লীগ দিতে হবে। আওয়ামী লীগের একজন প্রেসিডিয়াম সদস্য বলেছেন যে, এর ফলে কৃষির উপর প্রভাব পড়বে এবং কৃষি পণ্যের দাম বাড়বে। আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পর্যায়ের কার্যালয়গুলোতে জ্বালানি তেলের অস্বাভাবিক মূল্যবৃদ্ধি নিয়ে বিব্রতকর পরিস্থিতি সম্পর্কে আলাপ-আলোচনা হয়েছে। আওয়ামী লীগের নেতারা মনে করছেন যে, এখন এই রকম সিদ্ধান্তটি এভাবে না নিলেও চলতো। আওয়ামী লীগের একজন নেতা বলেছেন যে, আমরা যদি ধাপে ধাপে বাড়াতাম, সেক্ষেত্রে মানুষের জন্য এটি সহনীয় হত। কিন্তু একবারে এভাবে দাম বৃদ্ধিটি কোনোভাবেই যৌক্তিক হয়নি। আওয়ামী লীগের একজন নেতা বলছেন যে, হাইব্রিড বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব নিয়েছেন এবং আমলারা সরকারের বিভিন্ন সিদ্ধান্ত গ্রহণের ক্ষেত্রে মুখ্য ভূমিকা পালন করছেন। এ কারণেই এ ধরনের সিদ্ধান্ত গুলো হচ্ছে।

আওয়ামী লীগের একজন সাংগঠনিক সম্পাদক বলেছেন যে, এমনিতেই দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতির কারণে মানুষ কষ্টে আছে, তার মধ্যে এই জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির প্রভাব সর্বব্যাপী হবে। এর ফলে জনমনে অসন্তোষ দানা বেঁধে উঠবে। আওয়ামী লীগের একজন কেন্দ্রীয় নেতা বাংলা ইনসাইডারকে বলেছেন, পরিস্থিতি এখন নাজুক অবস্থায় চলে গেছে। এজন্য আমরা প্রকাশ্যে কোনো কথা বলতে পারছি না। কিন্তু জনগণের কাছে আমরা কি নিয়ে যাবো? আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীদের সাথে কথা বলে দেখা গেছে যে, তারা এইভাবে জ্বালানি তেলের মূল্য বৃদ্ধি নিয়ে হতাশ। তারা মনে করছেন যে, প্রধানমন্ত্রী গত ১৩ বছরের নিরলস পরিশ্রম করে যে অগ্রগতি, উন্নয়ন বাংলাদেশের জন্য এনেছেন তাকে প্রশ্নবিদ্ধ এবং কালিমালিপ্ত করার জন্য কিছু আমলা এবং সরকারের কিছু মন্ত্রী যেন উঠে পড়ে লেগেছে। তারা একের পর এক আত্মঘাতী সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে আওয়ামী লীগকে ঝুঁকির মধ্যে ফেলছে। সামনের দিনগুলোতে আওয়ামী লীগ যখন জনগণের  কাছে যাবে, তখন এইসব নিয়ে প্রশ্ন উঠবে। আওয়ামী লীগের অন্য একজন নেতা বলেছেন যে, পদ্মা সেতুর মাধ্যমে আওয়ামী লীগ যে অর্জন করেছিল, এই জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধি, লোডশেডিং এবং দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি তাকে ম্লান করে দিচ্ছে। এই পরিস্থিতি থেকে দ্রুত উত্তরণ করা দরকার বলে আওয়ামী লীগের নেতারা মনে করছেন। আওয়ামী লীগের অনেকেই মনে করছেন যে, জ্বালানি তেলের মূল্যবৃদ্ধির আগে রাজনৈতিক অঙ্গনে এই বিষয় নিয়ে আলোচনা হওয়া উচিত ছিলো।


মন্তব্য করুন


এডিটর’স মাইন্ড

শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র ছিল আছে থাকবে, তবে...

প্রকাশ: ১০:০০ এএম, ০৬ অগাস্ট, ২০২২


Thumbnail শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র ছিল আছে থাকবে, তবে...

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার একটি বড় গুণ তিনি স্পষ্ট কথা বলেন। তিনি যা বিশ্বাস করেন তা অকপটে বলেন। বুধবার এক অনুষ্ঠানেও তিনি স্পষ্ট কিছু উচ্চারণ করলেন। শেখ হাসিনা বললেন, ‘আমাকে ক্ষমতাচ্যুত করার ষড়যন্ত্র জোরদার করা হচ্ছে।’ তিনি বলেন, ‘২০১৪ সালের নির্বাচনের আগে, ২০১৮ সালের নির্বাচনের আগে ষড়যন্ত্র করেছে। আবার ইলেকশন যতই সামনে আসছে, আবারও...’। শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র নতুন নয়। ষড়যন্ত্রের সঙ্গে যুদ্ধ করেই তিনি টিকে আছেন। এতটা পথ পাড়ি দিয়েছেন। শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন গোষ্ঠী ষড়যন্ত্র করেছে। কখনো স্বাধীনতাবিরোধী অপশক্তি, কখনো আন্তর্জাতিক মহল, কখনো বা আওয়ামী লীগেরই প্রভাবশালী একটি অংশ শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে নানা চক্রান্তের ফাঁদ পেতেছিল। নানা কারণে এসব ষড়যন্ত্র-চক্রান্ত চূড়ান্তভাবে সফল হয়নি। বরং কিছু কিছু ক্ষেত্রে এসব ষড়যন্ত্র শেখ হাসিনাকে আরও শক্তিশালী করেছে। জনপ্রিয় করেছে।

আমাদের প্রধানমন্ত্রীর একটা ব্যাপার লক্ষ্য করার মতো। তিনি কারও কাছে কিছু প্রত্যাশা করেন না। ১৯৭৫-এর ১৫ আগস্ট তাঁকে এক অদ্ভুত বাস্তবতা শিক্ষা দিয়েছে। একজন মানুষ যখন ‘প্রত্যাশা’মুক্ত হন, তখন তিনি নির্ভার থাকেন। কোনো হতাশা কাজ করে না। বিশ্বাসঘাতকতা বিমর্ষ করে না। অবহেলা আহত করে না। ধরা যাক, আপনি কাউকে কিছু টাকা দিলেন। আপনি যদি তাকে এটা ধার দেন তাহলে টাকা ফিরে পাওয়ার প্রত্যাশা থাকবে। আপনি অপেক্ষায় থাকবেন। বিলম্বে কিংবা টাকা ফেরত না পেলে দুঃখিত হবেন। হতাশ হবেন। কখনো বা ক্ষুব্ধ হবেন। কিন্তু যদি আপনি টাকাটা একেবারে দিয়ে দেন, সে ক্ষেত্রে ফেরত পাওয়ার প্রত্যাশা থেকে আপনি মুক্ত। কোনো প্রতারণা, হতাশা আপনাকে আক্রান্ত করবে না। একজন বন্ধুর উপকার করলেন। এটা কোনো কিছুর বিনিময়ের আকাঙ্ক্ষা থেকে যদি করেন তাহলে আপনার সমস্যা হতে পারে। আপনি অপেক্ষা করবেন প্রতিদানের। একসময় আপনি সংকটে পড়লেন। তখন আপনার বন্ধুর কথা মনে পড়বে। আপনি ভাবলেন, এবার বন্ধু ঋণ শোধরাবে। প্রতিদান দেবে। কিন্তু ওই বন্ধুটি এগিয়ে এলো না আপনার বিপদে। বিপদের জন্য আপনি যত না কষ্ট পাবেন তার চেয়ে বেশি দুঃখ পাবেন বন্ধুর আচরণে। ‘প্রত্যাশা’ এক মারাত্মক ব্যাধি। প্রত্যাশার বিপরীতে যখন প্রত্যাখ্যান এবং বিশ্বাসঘাতকতা আসে তখন মানুষ কষ্ট পায়। তার কর্মশক্তি কমে যায়। জীবনের অর্থ হারিয়ে ফেলে। শেখ হাসিনা ’৭৫-এর ১৫ আগস্টের পর সম্ভবত ‘প্রত্যাশা’ শব্দটি তাঁর হৃদয় থেকে উপড়ে ফেলেছেন। তিনি কাউকে মন্ত্রী বানালেন কিংবা সচিব। ব্যস। ওই মন্ত্রী কিংবা সচিব বিনিময়ে শেখ হাসিনার জন্য কিছু করবেন এমন আশা তিনি কখনো করেন না। বরং শেখ হাসিনা ’৭৫ থেকে শিখেছেন, যাকে তিনি পাদপ্রদীপে নিয়ে এলেন সে-ই হতে পারে সবচেয়ে বড় বিশ্বাসঘাতক। অন্যদের কথা বাদ দিলাম। আওয়ামী লীগ নেতাদের (যাদের তিনি সামনে এনেছেন) কাছ থেকেও কোনো কিছু আশা করেন না শেখ হাসিনা। প্রাপ্তি ও প্রত্যাশার আকাঙ্ক্ষাহীন একজন মানুষ হন ভারহীন, ঝরঝরে, লক্ষ্যে অবিচল। আপন বলয়ে তিনি অবিরাম কাজ করে যান। বিনিময়ে কী পাব এ চিন্তা থেকে একজন মানুষ যখন নিজেকে আলাদা করতে পারেন তখন তিনি অসম্ভবকে জয় করতে পারেন। শেখ হাসিনা তেমনি একজন মানুষ। ভয় বিশেষত মৃত্যুভয় মানুষকে সংকুচিত করে। দ্বিধান্বিত করে। মানুষকে ভীতু করে। ভীতু মানুষ যে-কোনো কাজ করার আগে সাতপাঁচ ভাবে। কিন্তু একজন মানুষ যখন মৃত্যুভয়কে জয় করতে পারেন তখন তিনি অজেয়-অপরাজেয় হয়ে ওঠেন। যেমন জাতির পিতা। তিনি তাঁর ভাষণেই বলেছিলেন, ‘আমি বাঙালি, আমি মানুষ, আমি মুসলমান। মুসলমান একবার মরে দুইবার নয়।’ মৃত্যুকে তুচ্ছ করেছিলেন এজন্যই বঙ্গবন্ধু স্বাধীন বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করতে পেরেছিলেন। ’৭৫-এর আগস্ট শেখ হাসিনার কাছ থেকে তাঁর বাবা-মা এবং নিকটজনকেই কেড়ে নেয়নি। তাঁকে ভয়শূন্য একজন মানুষে রূপান্তর করেছে। ফলে মৃত্যুভয়হীন শেখ হাসিনা অনন্য সাহসী নির্ভীক। যে কোনো কঠিন পরিস্থিতির মুখোমুখি দাঁড়াতে পারেন তিনি অবলীলায়। সাহসের হিমালয় হয়ে বিরূপ পরিস্থিতির মুখোমুখি দাঁড়ান। একজন মানুষ যখন স্পষ্টবাদী হন। বৈষয়িক প্রাপ্তি ও প্রত্যাশা মুক্ত থাকেন এবং সাহসী হন তখন তিনি পরিণত হন দুর্দান্ত ক্ষমতাবান এক অজেয় মহামানবে। সেই মানুষটির মধ্যে যদি মানুষের মঙ্গল কামনা, কল্যাণ এবং ভালো করার আকাক্সক্ষা থাকে তখন তাকে দমিয়ে রাখা অসম্ভব। সে কারণেই শেখ হাসিনা অপ্রতিরোধ্য। এ সমাজ হলো মানবতার সঙ্গে দানবের লড়াইয়ের ক্ষেত্র। এ বিশ্ব হলো শুভাশুভের যুদ্ধের মাঠ। ভালোর সঙ্গে মন্দের চিরন্তন সংঘাতই হলো পৃথিবীর ইতিহাস। যখন আপনি মানবতার পক্ষে থাকবেন, শুভকাজের ব্রত হবেন, ভালোকে আলিঙ্গন করবেন তখন ‘দানব’ আপনাকে আঘাত করবে। আপনাকে পরাজিত করতে চাইবে। আপনার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করবে। এটাই নিয়ম। তাই শেখ হাসিনার মঙ্গলচিন্তার প্রতিপক্ষ থাকবে না তা তো হতে পারবে না। শেখ হাসিনা যত ভালো করবেন দানবরা তত ক্ষুব্ধ হবে। শেখ হাসিনা মানুষের যত কল্যাণ করবেন দানবরা তত হিংস্র হবে। শেখ হাসিনা যত তাঁর লক্ষ্যে সফল হবেন দানবরা তত ভয়ংকর হবে। এটাই স্বাভাবিক। এ দ্বন্দ্ব-সংঘাতের মধ্য দিয়েই সমাজ, রাষ্ট্র এবং দেশ এগিয়ে যায়। শেখ হাসিনার জীবন ও রাজনীতি সেই একই গতিপথে প্রবাহিত।

’৭৫-এর পর থেকেই দানবরা ষড়যন্ত্র করেছে। ষড়যন্ত্রের রূপ-রং বদলেছে সময়ের সঙ্গে। ষড়যন্ত্র ভয়ংকর হয়েছে দিনে দিনে। ১৯৮১ সালে শেখ হাসিনা যখন আওয়ামী লীগের দায়িত্ব নিয়েছেন তখন তাঁর বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র হয়েছে। সে ষড়যন্ত্রের লক্ষ্য ছিল তিনি যেন দেশে না আসেন। তাঁকে ভয় দেখানো হয়েছিল। লোভ দেখানো হয়েছিল। কিন্তু শেখ হাসিনা সেই ষড়যন্ত্রের বিরুদ্ধে লড়াই করেই পিতার রক্তে রঞ্জিত দেশে এসেছিলেন। ’৮১ সালে শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের সময়ই তাঁকে হত্যা করা হতে পারত। তাঁকে গ্রেফতার করে রাজনীতি থেকে দূরে সরিয়ে রাখারও পরিকল্পনা ছিল। কিন্তু শেখ হাসিনা তো এত দিনে মৃত্যুভয়কে জয় করেছেন। তাঁর সাহস আর উত্তাল জনস্রোতে ভেসে যায় ষড়যন্ত্র।

স্বদেশ প্রত্যাবর্তনের পরও তাঁকে নিয়ে ষড়যন্ত্র হয়েছিল। এবার খোদ আওয়ামী লীগে। শেখ হাসিনা যখন আওয়ামী লীগের দায়িত্ব নেন তখন সেখানে বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিকরা যেমন ছিলেন তেমনি ছিল খুনি মোশতাকের পদলেহী ভীরু ও পথভ্রষ্ট কাপুরুষরাও। তারাই বরং শক্তিশালী ছিল। দলের দায়িত্ব নেওয়ার পর পদে পদে শেখ হাসিনাকে বাধা দেওয়া হয়েছে। অপমানিত করা হয়েছে। ‘চাচা’রা শেখ হাসিনার জীবন দুর্বিষহ করে তুলেছিলেন। অন্য কেউ হলে রাজনীতি ছেড়ে দিতেন। একবার ভাবুন তো আপনার পিতার খুনির সঙ্গে বসে আপনি কি কথা বলতে পারবেন? এক অখ্যাত তরুণ আইনজীবীকে বঙ্গবন্ধু নতুন পরিচয় দিলেন। বঙ্গবন্ধুর উদারতায় তিনি পেলেন ‘আন্তর্জাতিক’ খ্যাতি। আর সেই চাচাই শুরু করলেন ষড়যন্ত্র। ভাগ্যিস ‘প্রত্যাশা’ নামক আবেগটি শেখ হাসিনা উপড়ে ফেলেছিলেন। না হলে নব্য মোশতাকদের বিশ্বাসঘাতকতায় তিনি পাগল হয়ে যেতেন। দলের ভিতর ষড়যন্ত্রকারীদের কোণঠাসা করেই শেখ হাসিনাকে এগোতে হয়েছে। বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন পূরণের পথে। একটা সময় ‘দানব’রা বুঝল, শেখ হাসিনাকে দমানো এত সহজ না। তখন ষড়যন্ত্র আরও ভয়ংকর হয়ে উঠল। একটা দল আবার আরেকটা ’৭৫ ঘটাতে চাইল। শেখ হাসিনাকে সরিয়ে দেওয়াই তাদের প্রধান লক্ষ্য হয়ে দাঁড়াল। একের পর এক হত্যাচেষ্টা হয়েছে। বারবার শেখ হাসিনা বেঁচে গেছেন অলৌকিকভাবে। সৃষ্টিকর্তা চাইলে যে সবকিছুই করতে পারেন তার সবচেয়ে বড় প্রমাণ ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট শেখ হাসিনার বেঁচে যাওয়া। এ অলৌকিক এক ঘটনা।

এর আগে ১৯৯৬ সালে ক্ষমতায় এসে শেখ হাসিনা তাঁর লক্ষ্য স্পষ্ট করেন। তিনি বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণ করতে চান। এ লক্ষ্যে তিনি যে একচুল ছাড় দেবেন না তা পরিষ্কার হয়ে যায় ১৯৯৬ থেকে ২০০১ সালে তাঁর দেশ পরিচালনায়। বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা হলে তো বাংলাদেশ স্বনির্ভর হবে। আত্মমর্যাদাশীল হবে। নিজের পায়ে দাঁড়াবে। তখন বিদেশি প্রভুদের কী হবে? তারা তো এ দেশের ওপর খবরদারি করতে পারবে না। এ দেশের গ্যাস পানির দামে নিয়ে যেতে পারবে না। সেন্ট মার্টিনে সামরিক খাঁটি করতে পারবে না। এবার শুরু হলো শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্র। তত দিনে বাংলাদেশে যাদের লোলুপ চোখ তারা বুঝে গেছে, শেখ হাসিনা দেশের স্বার্থ জীবন থাকতে বিকিয়ে দেবেন না। চাপ দিয়ে তাঁকে ‘একান্ত অনুগত’ করা যাবে না। ক্ষমতার মোহে তিনি নতজানু হবেন না। ব্যস, আবার সেই নাটক শুরু হলো। ২০০১-এর নির্বাচনে হলো প্রাসাদ ষড়যন্ত্র। শেখ হাসিনা হটাও মিশনে যুক্ত হলেন এ দেশের সুশীল, আমলা এবং আন্তর্জাতিক প্রভাবশালী মহল। বিএনপিকে কেবল জেতানোই হলো না। দুই-তৃতীয়াংশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা দিয়ে তাদের যা খুশি তা করার লাইসেন্স দেওয়া হলো। জিয়া পরিবার দুর্নীতির উৎসবে মাতল। সবাই মিলে ‘ওলটপালট করে দেমা লুটেপুটে খাই’। সংগীত গাইতে গাইতে দুর্নীতির উৎসব শুরু করল। অন্যদিকে বিএনপির ক্ষমতার অংশীদার জামায়াত শুরু করল ইসলামী বিপ্লবের নীলনকশার বাস্তবায়ন। বাংলা ভাই, শায়খ আবদুর রহমান মঞ্চে আবির্ভূত হলেন। সারা দেশে একযোগে বোমা হামলা ঘটিয়ে জঙ্গিরা জানিয়ে দিল ‘বাংলা হবে আফগান’। শেখ হাসিনার সম্বল তখন কেবল জনগণ। খেটে খাওয়া মানুষ। শ্রমিক, কৃষক। তাদের সম্মিলিত দীর্ঘশ্বাস প্রতিবাদের গর্জনে রূপান্তরিত হলো। এবারও ষড়যন্ত্রকারীরা প্রমাদ গুনল। নির্বাচন হলে শেখ হাসিনার বিজয় অনিবার্য। তাই বিএনপিকে ক্ষমতার ‘হাড্ডি’ দেখিয়ে উত্তেজিত করল সুশীল ও তাদের আন্তর্জাতিক প্রভুরা। মান্নান-জলিলের রুদ্ধদ্বার বৈঠকের মাধ্যমে সুশীলদের হাতে দেশের চাবি তুলে দেওয়ার মঞ্চ প্রস্তুত হলো। অবশেষে সুশীলরা বর সেজে বঙ্গভবনে শোভিত হলেন। পশ্চিমারা তাদের ‘আপন’ মানুষদের ক্ষমতায় বসাতে সক্ষম হলো। এবার বাংলাদেশকে ‘খোবলা’ বানানো যাবে। কিন্তু ওই যে শেখের বেটি। ভীষণ অবাধ্য। যা মনে হয় সেটাই হাটবাজারে প্রকাশ্যে বলেন। সাধারণ মানুষও তাঁকে বিশ্বাস করে। এ তো ভারি জ্বালা। আবার শুরু হলো সুশীল গবেষণা। এবার আবিষ্কার হলো ‘মাইনাস ফরমুলা’। এত দিন শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রগুলো ছিল ভিন্ন রকমের। কখনো বঙ্গবন্ধুর খুনিরা ষড়যন্ত্র করেছে, তাদের সঙ্গে হাত মিলিয়েছে ’৭১-এর ঘাতক-দালালরা। আওয়ামী লীগের ‘চাচা’রা ষড়যন্ত্র করেছেন, সঙ্গে হাত মিলিয়েছে পশ্চিমা প্রভুরা। কিন্তু ২০০৭ সালে শেখ হাসিনার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র ছিল সর্বব্যাপী এবং সম্মিলিত। সব প্রতিপক্ষ শেখ হাসিনাকে হটাতে ঐক্যবদ্ধ হয়েছিল। এমনকি আওয়ামী লীগের গুরুত্বপূর্ণ একটি অংশ ’৭৫-এর আগস্টের চেয়েও ঘৃণ্য নোংরা ও কুৎসিত ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছিল। শেখ হাসিনার পাশে ছিল সাধারণ মানুষ। সাধারণ মানুষের ভালোবাসা এবং নিজের সাহস, দৃঢ়তা ও রাজনৈতিক বিচক্ষণতায় শেখ হাসিনা এক-এগারোর ষড়যন্ত্রকারীদের পরাজিত করেছিলেন। এক-এগারো শেখ হাসিনার রাজনৈতিক চিন্তা-দর্শনে এক বৈপ্লবিক পরিবর্তন আনে। তিনি বুঝতে পারেন, জনগণ সঙ্গে থাকলে কোনো অপশক্তি তাঁকে পরাস্ত করতে পারবে না। মূলত ২০০৮ সালে শেখ হাসিনা রাষ্ট্রনায়ক থেকে একজন দার্শনিক রাজনীতিবিদে রূপান্তরিত হতে থাকেন। এ রূপান্তর প্রক্রিয়া এখনো চলছে। জনগণ ছাড়া আর সবকিছু এখন তাঁর কাছে অপ্রয়োজনীয়। এজন্য তিনি মন্ত্রীদের শোকেসের পুতুল হিসেবে রেখেছেন। আওয়ামী লীগ নেতাদের কাছেও তাঁর কোনো প্রত্যাশা নেই। শেখ হাসিনা জনগণের আকাক্সক্ষা অনুধাবনের চেষ্টা করেন। সেই আকাক্সক্ষা বাস্তবায়নই তাঁর রাজনীতি। এখানে পন্ডিতরা কী ভাবলেন, গণমাধ্যম কী সমালোচনা করল এসব মূল্যহীন। এ দেশের জনগণ এ মুহূর্তে শেখ হাসিনা ছাড়া কাউকে সম্ভবত বিশ্বাসও করে না।

প্রয়াত ড. হুমায়ুন আজাদ জ্ঞানতাপস আবদুর রাজ্জাকের একটি সাক্ষাৎকার নিয়েছিলেন ১৯৮৪ সালের ২ ডিসেম্বর। ওই সাক্ষাৎকারে জ্ঞানতাপস বলেছিলেন, ‘...আমাদের দেশের সাধারণ মানুষ রিকশাওয়ালা, বস্তিবাসী শেখ মুজিবুর রহমানের সময় একটু বেশি সোজাভাবে দাঁড়াত। একটু বেশি শক্তিশালীবোধ করত। তারপরে যে তারা খুব খারাপ আর্থিক অবস্থায় পড়ে গেছে বা তার সময়ে যে খুব ভালো আর্থিক অবস্থায় ছিল তা না। তবে এটা আমি খুব স্পষ্টভাবে বুঝি যে, এখন বিপুলসংখ্যক মানুষ অনেকটা অসহায়বোধ করে। আগে এমন অসহায়বোধ করত না। সমাজের যত বেশিসংখ্যক মানুষ বুঝতে পারে যে, সমাজের তারাও গুরুত্বপূর্ণ, তারাও সমাজের জন্য অপরিহার্য ততই ভালো। গান্ধী বা জিন্নাহ জনগণের নেতা ছিলেন, জনগণের অংশ ছিলেন না। কিন্তু মুজিবের সময় জনগণ এমন বোধ করতে থাকে যে, শেখ মুজিব তাদেরই অংশ।’ শেখ হাসিনাও জনগণের মধ্যে সেই বোধ আবার ফিরিয়ে এনেছেন। এ দেশের জনগণ মনে করে শেখ হাসিনা তাদেরই অংশ। এ কারণেই তিনি শক্তিশালী। প্রচ- ক্ষমতাবান। কারণ জনগণের শক্তির চেয়ে কোনো বড় শক্তি নেই। এ কারণেই সমাজের উঁচুতলার সফেদ পরিপাটি মানুষ তাঁকে পছন্দ করে না। তাঁকে উৎখাত করতে চায়। ক্ষমতাচ্যুত করতে চায়। যারা শেখ হাসিনাকে ক্ষমতাচ্যুত করতে চায় তাদের আমরা চিনি। শেখ হাসিনাও চেনেন। এজন্যই তিনি জনগণের কাছে বার্তাটা পৌঁছে দিলেন। কারণ তিনি জানেন, সংকটে এই বস্তিবাসী, রিকশাওয়ালা, জেলে, কৃষক, শ্রমিকরাই মানবপ্রাচীর হয়ে তাঁকে রক্ষা করবেন।

শেখ হাসিনা ’৭৫ দেখেছেন, ’৮১ দেখেছেন, ’৯১ দেখেছেন। ২০০১ এবং ২০০৭ সালে খাদের কিনারা থেকে তিনি ফিরে এসেছেন। শেখ হাসিনা জানেন সংকটে এই আমলারা রং বদল করবেন। অথবা অসহায় আত্মসমর্পণ করবেন। যেমন ’৭৫-এ বঙ্গবন্ধুর প্রিয়ভাজন আমলারা করেছিলেন। শেখ হাসিনা জানেন সংকটে আওয়ামী লীগ ভেঙে পড়ে। ঐক্যবদ্ধ প্রতিরোধ গড়তে পারে না। প্রতি সংকটেই কিছু নব্য মোশতাকের জন্ম হয়। শেখ হাসিনা জানেন যাদের তিনি বিত্তবৈভবের সুযোগ করে দিয়েছেন, তাদের অনেকেই তাঁকে চিনবে না। এজন্যই তাঁর প্রকৃত যোদ্ধাদের কাছেই তিনি ষড়যন্ত্রের বার্তা দিলেন। কারণ জনগণ জানে শেখ হাসিনা তাদের। যেমন ছিলেন বঙ্গবন্ধু। জনগণই সব সংকটের মেঘ সরিয়ে দেয় সব সময়। এই যে এখন অর্থনৈতিক সংকটের মেঘ কেটে যাচ্ছে। সাধারণ মানুষের উদ্যোগেই। রেমিট্যান্স যোদ্ধা ২.১ বিলিয়ন ডলার পাঠিয়েছে এক মাসে। শ্রমিকরা নিজেদের উজাড় করে দিয়েছেন। রপ্তানি আয় বেড়েছে ১৫ শতাংশ। কৃষক ফসল উৎপাদন করছে নিবিষ্টভাবে। অর্থনৈতিক সংকট নিয়ে যে ষড়যন্ত্রের মহড়া শুরু হয়েছিল, তা ক্রমে খেই হারিয়ে ফেলেছে। তবে সামনে আরও ষড়যন্ত্র হবে। জনগণই রুখে দেবে সেই ষড়যন্ত্র। কারণ তারা জানে শেখ হাসিনা না থাকলে তারা আবার অধিকারহীন হয়ে যাবে। শেখ হাসিনা না থাকলে তারা ক্ষমতাহীন হয়ে যাবে। শেখ হাসিনা আর বাংলাদেশ এখন সমার্থক। শেখ হাসিনা না থাকলে বাংলাদেশ অস্তিত্বহীন হয়ে পড়বে।

লেখক : নির্বাহী পরিচালক, পরিপ্রেক্ষিত।
poriprekkhit@yahoo.com
সূত্র: বাংলাদেশ প্রতিদিন।

শেখ হাসিনা   ষড়যন্ত্র   আওয়ামী লীগ  


মন্তব্য করুন


বিজ্ঞাপন